সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:৫৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, May 5, 2017 10:53 am
A- A A+ Print

অনলাইনে ভ্যাট পেমেন্ট ও রিটার্ন দাখিল কার্যক্রম ১ জুলাই থেকে : অর্থমন্ত্রী

7

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জানিয়েছেন, আগামী ১ জুলাই থেকে সরকার অনলাইনভিত্তিক নতুন মূল্য সংযোজন কর ও সম্পুরক শুল্ক আইন বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে। সরকার এ আইনটি ২০১২ সালে জাতীয় সংসদে পাস করেছে। এ আইন প্রণয়নের উদ্দেশ্য হলো কর আদায় পদ্ধতির সহজতর করা। এর ফলে ভ্যাটের আওতা ও কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বাড়ার পাশাপাশি রাজস্ব আদায় বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে। একই সাথে ট্যাক্স জিডিপি রেশিও বৃদ্ধি পাবে। ১ জুলাই পর্যায়ক্রমে অনলাইনে ভ্যাট পেমেন্ট এবং রিটার্ন দাখিল কার্যক্রম শুরু হবে। আজ বৃহস্পতিবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ন্যাপের সংসদ সদস্য মিসেস আমিনা আহমেদের প্রশ্নের লিখিত জবাবে অর্থমন্ত্রী জানিয়ে বলেন, সরকার বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদায় উন্নীত করার জন্য দেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ ব্যবস্থার সুষ্ঠু পরিচালনা ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। তিনি জানান, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের আওতাধীন সংস্থা জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এজন্যে বেসরকারি খাতের সাথে ঘনিষ্ট যোগাযোগ রক্ষা ও সমন্বয় সাধন করছে। রাজস্ব আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশকে আত্মনির্ভরশীল করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে সরকার বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের জনবল দ্বিগুণেরও বেশি বাড়ানো হয়েছে। ২০০৯ সালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের জনবল ছিল ১৩ হাজার ২৯৮ জন। ২০১৩ সালে তা দাঁড়ায় ২২ হাজার ৫৭ জনে। অর্থমন্ত্রী আয়কর প্রসঙ্গে জানান, আয়কর হলো সর্বোত্তম কর ব্যবস্থা। এতে আয়ের অনুপাতে কর হার বৃদ্ধি পায়, যা সম্পদের সুষম বণ্টনে মূল্যমান অবদান রাখে। সবচেয়ে লক্ষ্যনীয় বিষয় হলো যে, বর্তমান সরকারের আমলে বিগত আট বছরে করদাতাদের মধ্যে করনেটে আবদ্ধ হওয়াকে যে হয়রানি মনে করা হতো সেই পরিস্থিতি এখন পরিবর্তিত বলে প্রতিভাত হয়। দেশের উন্নয়নের জন্য কর প্রদান তরুণ প্রজন্মের কাছে আর ভয়ভীতি বা হয়রানি বলে এখন আর মনে হয় না। তিনি জানান, বর্তমানে করদাতারা মানসিকভাবে কর দিতে যেমন প্রস্তুত, তেমনি কর আদায়কারীরা কর আদায়ে হয়রানি পরিহার করে করদাতাদের প্রতি সদ্ব্যবহার করা ও আস্থা রাখায় আগ্রহী। বর্তমানে এ উৎস হতে রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক মোট রাজস্বের ৩৭ শতাংশ। এর হারকে ২০২০-২১ সালে মোট রাজস্বের ৫০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া কর বৃদ্ধি না করে কর নেট সম্প্রসারণের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আবুল মাল আবদুল মুহিত জানান, উৎসে কর ফাঁকি রোধকল্পে উৎসে কর রিটার্ন অডিট করার বিধান প্রবর্তন করা হয়েছে। এছাড়া কর ফাঁকি রোধে অনলাইনভিত্তিক স্বয়ংক্রিয়ভাবে তথ্য সংগ্রহ ব্যবস্থা প্রবর্তনের লক্ষ্যে একটি আধুনিক ও প্রযুক্তিমুখী কর তথ্য ইউনিট গঠন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। আন্তঃসীমানা কর ফাঁকি রোধকল্পে ট্রান্সফার প্রাইসিং সেল গঠনসহ আন্তর্জাতিক কর কার্যক্রমকে আরো শক্তিশালী করা হয়েছে।

Comments

Comments!

 অনলাইনে ভ্যাট পেমেন্ট ও রিটার্ন দাখিল কার্যক্রম ১ জুলাই থেকে : অর্থমন্ত্রীAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

অনলাইনে ভ্যাট পেমেন্ট ও রিটার্ন দাখিল কার্যক্রম ১ জুলাই থেকে : অর্থমন্ত্রী

Friday, May 5, 2017 10:53 am
7

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জানিয়েছেন, আগামী ১ জুলাই থেকে সরকার অনলাইনভিত্তিক নতুন মূল্য সংযোজন কর ও সম্পুরক শুল্ক আইন বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে। সরকার এ আইনটি ২০১২ সালে জাতীয় সংসদে পাস করেছে। এ আইন প্রণয়নের উদ্দেশ্য হলো কর আদায় পদ্ধতির সহজতর করা। এর ফলে ভ্যাটের আওতা ও কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বাড়ার পাশাপাশি রাজস্ব আদায় বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে। একই সাথে ট্যাক্স জিডিপি রেশিও বৃদ্ধি পাবে। ১ জুলাই পর্যায়ক্রমে অনলাইনে ভ্যাট পেমেন্ট এবং রিটার্ন দাখিল কার্যক্রম শুরু হবে।

আজ বৃহস্পতিবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ন্যাপের সংসদ সদস্য মিসেস আমিনা আহমেদের প্রশ্নের লিখিত জবাবে অর্থমন্ত্রী জানিয়ে বলেন, সরকার বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদায় উন্নীত করার জন্য দেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদ আহরণ ব্যবস্থার সুষ্ঠু পরিচালনা ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে কার্যক্রম গ্রহণ করেছে।

তিনি জানান, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের আওতাধীন সংস্থা জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এজন্যে বেসরকারি খাতের সাথে ঘনিষ্ট যোগাযোগ রক্ষা ও সমন্বয় সাধন করছে। রাজস্ব আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশকে আত্মনির্ভরশীল করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে সরকার বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের জনবল দ্বিগুণেরও বেশি বাড়ানো হয়েছে। ২০০৯ সালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের জনবল ছিল ১৩ হাজার ২৯৮ জন। ২০১৩ সালে তা দাঁড়ায় ২২ হাজার ৫৭ জনে।

অর্থমন্ত্রী আয়কর প্রসঙ্গে জানান, আয়কর হলো সর্বোত্তম কর ব্যবস্থা। এতে আয়ের অনুপাতে কর হার বৃদ্ধি পায়, যা সম্পদের সুষম বণ্টনে মূল্যমান অবদান রাখে। সবচেয়ে লক্ষ্যনীয় বিষয় হলো যে, বর্তমান সরকারের আমলে বিগত আট বছরে করদাতাদের মধ্যে করনেটে আবদ্ধ হওয়াকে যে হয়রানি মনে করা হতো সেই পরিস্থিতি এখন পরিবর্তিত বলে প্রতিভাত হয়। দেশের উন্নয়নের জন্য কর প্রদান তরুণ প্রজন্মের কাছে আর ভয়ভীতি বা হয়রানি বলে এখন আর মনে হয় না।

তিনি জানান, বর্তমানে করদাতারা মানসিকভাবে কর দিতে যেমন প্রস্তুত, তেমনি কর আদায়কারীরা কর আদায়ে হয়রানি পরিহার করে করদাতাদের প্রতি সদ্ব্যবহার করা ও আস্থা রাখায় আগ্রহী। বর্তমানে এ উৎস হতে রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কর্তৃক মোট রাজস্বের ৩৭ শতাংশ। এর হারকে ২০২০-২১ সালে মোট রাজস্বের ৫০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া কর বৃদ্ধি না করে কর নেট সম্প্রসারণের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

আবুল মাল আবদুল মুহিত জানান, উৎসে কর ফাঁকি রোধকল্পে উৎসে কর রিটার্ন অডিট করার বিধান প্রবর্তন করা হয়েছে। এছাড়া কর ফাঁকি রোধে অনলাইনভিত্তিক স্বয়ংক্রিয়ভাবে তথ্য সংগ্রহ ব্যবস্থা প্রবর্তনের লক্ষ্যে একটি আধুনিক ও প্রযুক্তিমুখী কর তথ্য ইউনিট গঠন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। আন্তঃসীমানা কর ফাঁকি রোধকল্পে ট্রান্সফার প্রাইসিং সেল গঠনসহ আন্তর্জাতিক কর কার্যক্রমকে আরো শক্তিশালী করা হয়েছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X