বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৬:৫৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, June 20, 2017 10:17 am
A- A A+ Print

অনলাইন গণমাধ্যম সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ডে বেতন-ভাতা!

177021_1

ঢাকা: অনলাইন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ওয়েজবোর্ডে পরিশোধিত হবে। তা দিতে হবে ব্যাংক হিসাবে। ১৯ জুন সোমবার মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত ‘অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা’ অনুযায়ী গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান ও কর্মরত সাংবাদিকদের থাকতে হবে কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন)। ‘জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা, ২০১৭’ এর খসড়ায় বলা হয়, অনলাইন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানগুলোকে সংবাদপত্রের বিদ্যমান ওয়েজবোর্ডের নিয়ম-কানুন অনুসরণ করতে হবে। উল্লেখ্য, বিদ্যমান ওয়েজবোর্ড অনুযায়ী সংবাদপত্রে সব কর্মীর আয়কর প্রতিষ্ঠানকে দেয়ার বিধান রয়েছে। সংবাদপত্র যেভাবে সুবিধা পেয়ে থাকে অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধন পাওয়ার পর সরকারের সুযোগ সুবিধা পাবে। তথ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, সংবাদপত্র সরকারের বিভিন্ন বিভাগ দফতর, অধিদফতর, পরিদফতর ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন থেকে পেয়ে থাকে। বর্তমানে ই-টেন্ডার ব্যবস্থা চালু রয়েছে সরকারিভাবে, যা অনলাইন গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন হিসেবে দেয়া হবে। জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালার খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। পরে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। শফিউল আলম বলেন, খসড়ায় বলা হয়েছে- বাংলাদেশের ভূখণ্ড থেকে প্রকাশিত ইন্টারনেটভিত্তিক রেডিও, টেলিভিশন, সংবাদপত্র এবং এ জাতীয় সংবাদমাধ্যম অনলাইন গণমাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হবে। এ আইনে অনলাইন গণমাধ্যম পরিচালনার জন্য একটি গাইডলাইন থাকবে। এ জন্য নিবন্ধনও লাগবে। সম্প্রচার কমিশন এ নিবন্ধন দেবে। তিনি বলেন, জাতীয় সম্প্রচার আইন নামে একটি পৃথক আইন তৈরির কাজ চলছে। সেই আইনে কমিশনের কাজ ও গঠন প্রক্রিয়া সম্পর্কে বলা থাকবে। তবে ১৯৭৩ সালের ছাপাখানা আইন অনুযায়ী যেসব সংবাদপত্র প্রকাশিত হয় তাদের অনলাইন ভার্সন থাকলে নিবন্ধন লাগবে না। তবে পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে কমিশনকে পত্রিকার অনলাইন ভার্সন সম্পর্কে অবহিত করতে হবে। অনলাইনগুলোর কোড অব গাইডেন্স তৈরি করবে কমিশন। অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ, তথ্য, ছবিসহ যেকোনো বিষয়ে যদি কারো আপত্তি থাকে, কারো অধিকার ক্ষুণ্ন হয় কমিশনের কাছে আবেদন করতে হবে। কমিশন ৩০ দিনের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তি করবে। নিষ্পত্তির বিষয়গুলো সম্প্রচার কমিশন আইনের বিধিমালায় উল্লেখ থাকবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালার সঙ্গে অনলাইন নীতিমালা সামঞ্জস্য করা হবে। নিষ্পত্তিতে নির্দেশনা ও জরিমানার ব্যবস্থাও থাকবে। বিদ্যমান অনলাইনগুলোর বিষয়ে তিনি বলেন, দেশে বিদ্যমান অনলাইনের সংখ্যা ১৮শ’। এর তালিকা তৈরি করেছে তথ্যমন্ত্রণালয়। কমিশন গঠন না হওয়া পর্যন্ত তথ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী অনলাইনগুলো চলবে। এ সংক্রান্ত সম্পূরক আইনগুলো অনলাইন নীতিমালায় অন্তর্ভুক্ত হবে বলেও জানান তিনি।

Comments

Comments!

 অনলাইন গণমাধ্যম সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ডে বেতন-ভাতা!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

অনলাইন গণমাধ্যম সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ডে বেতন-ভাতা!

Tuesday, June 20, 2017 10:17 am
177021_1

ঢাকা: অনলাইন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ওয়েজবোর্ডে পরিশোধিত হবে। তা দিতে হবে ব্যাংক হিসাবে। ১৯ জুন সোমবার মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত ‘অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা’ অনুযায়ী গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান ও কর্মরত সাংবাদিকদের থাকতে হবে কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন)।

‘জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা, ২০১৭’ এর খসড়ায় বলা হয়, অনলাইন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানগুলোকে সংবাদপত্রের বিদ্যমান ওয়েজবোর্ডের নিয়ম-কানুন অনুসরণ করতে হবে।

উল্লেখ্য, বিদ্যমান ওয়েজবোর্ড অনুযায়ী সংবাদপত্রে সব কর্মীর আয়কর প্রতিষ্ঠানকে দেয়ার বিধান রয়েছে। সংবাদপত্র যেভাবে সুবিধা পেয়ে থাকে অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধন পাওয়ার পর সরকারের সুযোগ সুবিধা পাবে। তথ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, সংবাদপত্র সরকারের বিভিন্ন বিভাগ দফতর, অধিদফতর, পরিদফতর ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন থেকে পেয়ে থাকে। বর্তমানে ই-টেন্ডার ব্যবস্থা চালু রয়েছে সরকারিভাবে, যা অনলাইন গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন হিসেবে দেয়া হবে।

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালার খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়।

পরে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

শফিউল আলম বলেন, খসড়ায় বলা হয়েছে- বাংলাদেশের ভূখণ্ড থেকে প্রকাশিত ইন্টারনেটভিত্তিক রেডিও, টেলিভিশন, সংবাদপত্র এবং এ জাতীয় সংবাদমাধ্যম অনলাইন গণমাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হবে। এ আইনে অনলাইন গণমাধ্যম পরিচালনার জন্য একটি গাইডলাইন থাকবে। এ জন্য নিবন্ধনও লাগবে। সম্প্রচার কমিশন এ নিবন্ধন দেবে।

তিনি বলেন, জাতীয় সম্প্রচার আইন নামে একটি পৃথক আইন তৈরির কাজ চলছে। সেই আইনে কমিশনের কাজ ও গঠন প্রক্রিয়া সম্পর্কে বলা থাকবে। তবে ১৯৭৩ সালের ছাপাখানা আইন অনুযায়ী যেসব সংবাদপত্র প্রকাশিত হয় তাদের অনলাইন ভার্সন থাকলে নিবন্ধন লাগবে না। তবে পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে কমিশনকে পত্রিকার অনলাইন ভার্সন সম্পর্কে অবহিত করতে হবে।

অনলাইনগুলোর কোড অব গাইডেন্স তৈরি করবে কমিশন। অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ, তথ্য, ছবিসহ যেকোনো বিষয়ে যদি কারো আপত্তি থাকে, কারো অধিকার ক্ষুণ্ন হয় কমিশনের কাছে আবেদন করতে হবে। কমিশন ৩০ দিনের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তি করবে। নিষ্পত্তির বিষয়গুলো সম্প্রচার কমিশন আইনের বিধিমালায় উল্লেখ থাকবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালার সঙ্গে অনলাইন নীতিমালা সামঞ্জস্য করা হবে। নিষ্পত্তিতে নির্দেশনা ও জরিমানার ব্যবস্থাও থাকবে।

বিদ্যমান অনলাইনগুলোর বিষয়ে তিনি বলেন, দেশে বিদ্যমান অনলাইনের সংখ্যা ১৮শ’। এর তালিকা তৈরি করেছে তথ্যমন্ত্রণালয়। কমিশন গঠন না হওয়া পর্যন্ত তথ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী অনলাইনগুলো চলবে। এ সংক্রান্ত সম্পূরক আইনগুলো অনলাইন নীতিমালায় অন্তর্ভুক্ত হবে বলেও জানান তিনি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X