বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:৫৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, December 15, 2016 11:55 am
A- A A+ Print

অন্য আবেগ উসমান খাজার

9

হ্যাঁ, তিনিই প্রথম নন, বিষয়টিও পুরনো। তারপরও এ আলোচনা চলছে, চলবে। অস্ট্রেলিয়ান পাকিস্তানি তিনিই প্রথম। ২০১১তে প্রথম পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে অভিষেক হয় তার। প্রায় ২৫ বছর আগে বাবা মার সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ায় আসেন  উসমান খাজা। জন্মভূমির প্রতি তাই তার টানটা খুব বেশি থাকারও কথা নয়। শৈশব, কৈশোর কাটিয়ে এখন পুরো দস্তুর এক যুবক। পাকিস্তানি রক্তের কারণেই হয়তো ক্রিকেটের প্রতি আলাদা টান শৈশব থেকেই। আর তা থেকেই পেশাদার ক্রিকেটার হয়ে ওঠা। প্রতিভার কোনো দেশ-কাল-পাত্র নেই। উসমান খাজাকেও দমিয়ে রাখা যায়নি। আশ্রয়দাতা দেশের দলেও জায়গা করে নিয়েছেন নিজের প্রতিভার জোরে। এরই মধ্যে ২০টি টেস্টও খেলে ফেলেছেন অস্ট্রেলিয়া দলের হয়ে। তবে নতুন আর কী! হ্যাঁ, জন্মভূমি পাকিস্তানের  বিপক্ষে তার কখনো খেলা হয়নি। সেই অভিজ্ঞতাটাও হয়ে যাবে এবার। বৃহস্পতিবার ব্রিসবেনে পাকিস্তানে বিপক্ষে যে টেস্ট শুরু হতে যাচ্ছে তাতেই নিজের মায়ের দেশ, বাবার দেশের বিপক্ষে খেলার অন্যরকম অভিজ্ঞতাটা পাবেন তিনি। আর ব্রিসবেনই তার বর্তমান ঘরের মাঠ-হোম গ্রাউন্ড। রাজ্য দল কুইন্সল্যান্ডেরও অধিনায়ক তিনি। তার পরও কেমন যেন বিব্রতকর অবস্থা। গেল মঙ্গলবারের ঘটনা। তার মুখেই শুনুন: মাঠে আগে ভাগেই হাজির আমরা। কিন্তু সাজঘরে তখনো তালা। কিছুক্ষণ পর এলেন যার কাছে চাবি থাকে সেই মহিলা। মুচকি হেসে জানতে চাইলেন লকার রুমের চাবি দরকার? বললাম, ইয়েস, প্লিজ! তিনি আমাকে নিয়ে পাকিস্তানের ড্রেসিং রুমের দিকে যেতে লাগলেন। তাকে থামিয়ে বললাম, ধন্যবাদ, এদিকে নয়, ওই দিকে।’ ইসলামাবাদে যে কটা দিন তিনি কাটিয়েছেন তার খুব সামান্যই তার মনে পড়ে। ২০০৮ সালের পর পাকিস্তানে থাকা আত্মীয়দের দেখতেও যাননি। তবু উসমানের কাছে পাকিস্তানি পরিচয়টা একেবারে গুরুত্বহীন নয়। এ বছর টি-২০ বিশ্বকাপে অবশ্য ভারতের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলার সুযোগ হয়েছিল তার। উসমানের কাছে জানতে চাওয়া হয়, পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট খেলাটা তার জন্য আলাদা অনুভূতির কিনা। বললেন তিনি বিষয়টা সেভাবে দেখছেন না। তবে এটা তার পিতা তারিক ও মা ফৌজিয়ার জন্য অবশ্যই বিরাট একট মুহূর্ত হবে। তারাতো পাকিস্তানে বড় হয়েছে, দীর্ঘদিন সেখানে কাটিয়েছে। আমার জন্ম যদিও সেখানে কিন্তু তা এখন স্মৃতিরও অতীত। ধর্মের মতো সংস্কৃতিটা যদিও আমার কাছে বড় ব্যাপার। তাই আমরা অস্ট্রেলিয়ান, আবার পাকিস্তানিও। এখনো বাসায় উর্দুতে কথা বলি। কিন্তু আমরা এখন অস্ট্রেলিয়ান, পাকিস্তানকে মোটেও সমর্থন করি না। আমার মা-বাবাও চান আমি অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ভালো খেলি। কার বিপক্ষে খেলছি সেটা কোনো ব্যাপার নয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না। ক্যারিয়ার পরিসংখ্যান ম্যাচ     রান     সর্বোচ্চ     গড়     ১০০/৫০ টেস্ট     ২০     ১৪৫৯     ১৭৪     ৪৫.৫৯     ৫/৫ ওয়ানডে     ১৫     ৪১৩     ৯৮     ৩৪.৪১     ০/৪ টি-টোয়েন্টি     ৯     ২৪১     ৫৮     ২৬.৭৭     ০/১

Comments

Comments!

 অন্য আবেগ উসমান খাজারAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

অন্য আবেগ উসমান খাজার

Thursday, December 15, 2016 11:55 am
9

হ্যাঁ, তিনিই প্রথম নন, বিষয়টিও পুরনো। তারপরও এ আলোচনা চলছে, চলবে। অস্ট্রেলিয়ান পাকিস্তানি তিনিই প্রথম। ২০১১তে প্রথম পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে অভিষেক হয় তার। প্রায় ২৫ বছর আগে বাবা মার সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ায় আসেন  উসমান খাজা। জন্মভূমির প্রতি তাই তার টানটা খুব বেশি থাকারও কথা নয়। শৈশব, কৈশোর কাটিয়ে এখন পুরো দস্তুর এক যুবক। পাকিস্তানি রক্তের কারণেই হয়তো ক্রিকেটের প্রতি আলাদা টান শৈশব থেকেই। আর তা থেকেই পেশাদার ক্রিকেটার হয়ে ওঠা। প্রতিভার কোনো দেশ-কাল-পাত্র নেই। উসমান খাজাকেও দমিয়ে রাখা যায়নি। আশ্রয়দাতা দেশের দলেও জায়গা করে নিয়েছেন নিজের প্রতিভার জোরে। এরই মধ্যে ২০টি টেস্টও খেলে ফেলেছেন অস্ট্রেলিয়া দলের হয়ে। তবে নতুন আর কী! হ্যাঁ, জন্মভূমি পাকিস্তানের  বিপক্ষে তার কখনো খেলা হয়নি। সেই অভিজ্ঞতাটাও হয়ে যাবে এবার। বৃহস্পতিবার ব্রিসবেনে পাকিস্তানে বিপক্ষে যে টেস্ট শুরু হতে যাচ্ছে তাতেই নিজের মায়ের দেশ, বাবার দেশের বিপক্ষে খেলার অন্যরকম অভিজ্ঞতাটা পাবেন তিনি। আর ব্রিসবেনই তার বর্তমান ঘরের মাঠ-হোম গ্রাউন্ড। রাজ্য দল কুইন্সল্যান্ডেরও অধিনায়ক তিনি। তার পরও কেমন যেন বিব্রতকর অবস্থা। গেল মঙ্গলবারের ঘটনা। তার মুখেই শুনুন: মাঠে আগে ভাগেই হাজির আমরা। কিন্তু সাজঘরে তখনো তালা। কিছুক্ষণ পর এলেন যার কাছে চাবি থাকে সেই মহিলা। মুচকি হেসে জানতে চাইলেন লকার রুমের চাবি দরকার? বললাম, ইয়েস, প্লিজ! তিনি আমাকে নিয়ে পাকিস্তানের ড্রেসিং রুমের দিকে যেতে লাগলেন। তাকে থামিয়ে বললাম, ধন্যবাদ, এদিকে নয়, ওই দিকে।’ ইসলামাবাদে যে কটা দিন তিনি কাটিয়েছেন তার খুব সামান্যই তার মনে পড়ে। ২০০৮ সালের পর পাকিস্তানে থাকা আত্মীয়দের দেখতেও যাননি। তবু উসমানের কাছে পাকিস্তানি পরিচয়টা একেবারে গুরুত্বহীন নয়। এ বছর টি-২০ বিশ্বকাপে অবশ্য ভারতের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলার সুযোগ হয়েছিল তার। উসমানের কাছে জানতে চাওয়া হয়, পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট খেলাটা তার জন্য আলাদা অনুভূতির কিনা। বললেন তিনি বিষয়টা সেভাবে দেখছেন না। তবে এটা তার পিতা তারিক ও মা ফৌজিয়ার জন্য অবশ্যই বিরাট একট মুহূর্ত হবে। তারাতো পাকিস্তানে বড় হয়েছে, দীর্ঘদিন সেখানে কাটিয়েছে। আমার জন্ম যদিও সেখানে কিন্তু তা এখন স্মৃতিরও অতীত। ধর্মের মতো সংস্কৃতিটা যদিও আমার কাছে বড় ব্যাপার। তাই আমরা অস্ট্রেলিয়ান, আবার পাকিস্তানিও। এখনো বাসায় উর্দুতে কথা বলি। কিন্তু আমরা এখন অস্ট্রেলিয়ান, পাকিস্তানকে মোটেও সমর্থন করি না। আমার মা-বাবাও চান আমি অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ভালো খেলি। কার বিপক্ষে খেলছি সেটা কোনো ব্যাপার নয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না।
ক্যারিয়ার পরিসংখ্যান
ম্যাচ     রান     সর্বোচ্চ     গড়     ১০০/৫০
টেস্ট     ২০     ১৪৫৯     ১৭৪     ৪৫.৫৯     ৫/৫
ওয়ানডে     ১৫     ৪১৩     ৯৮     ৩৪.৪১     ০/৪
টি-টোয়েন্টি     ৯     ২৪১     ৫৮     ২৬.৭৭     ০/১

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X