শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ২:১৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, May 13, 2017 10:20 am
A- A A+ Print

অপারেশন ‘সান ডেভিলে’ নিরাপত্তায় গাফলতির অভিযোগ মতিনের পরিবারের

15

রাজশাহী: জেলার গোদাগাড়ীর বেনীপুরে জঙ্গি আস্তানায় অপারেশন ‘সান ডেভিল’র অভিযানের সময় নিরাপত্তায় পুলিশের গাফলতি ছিল বলে অভিযোগ তুলেছেন নিহত ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ফায়ার ম্যান আবদুল মতিনের পরিবার। নিরাপত্তার গাফলতির কারণে জঙ্গিদের হামলা ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মতিনের মৃত্যু হয়। যা ওই ঘটনার ভিডিও ফুটেজে ধরা পড়েছে বলেন শুক্রবার আবদুল মতিনের ভাগ্নে লুৎফর রহমান দাবি করেন। তিনি বলেন, অভিযানের যে ভিডিও দেখছি তাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন আছে। আর এমন বড় অভিযানের সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে মেডিকেল টিমও রাখা হয়নি। যাতে আহতদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেয়া যায়। তাৎক্ষনিক চিকিৎসা পেয়ে মামা (মতিন) হয়তো মরতেন না। মতিনের স্ত্রী তানজিলা বেগম বলেন, আমার স্বামী যখন সেখানে কাজ করছিলো তখন তার পাশে পুলিশের লোক ছিলো না। বেশ একটু দুরে অপ্রস্তুত ভাবে দাড়িয়ে ছিলো। তিনি টিভির খবর ও ভিডিও ফুটেজে দেখেছেন। তিনি বলেন, জঙ্গিরা যখন বাড়ি থেকে বল্লম ও হাসুয়া হাতে নিয়ে বের হয় তখন পুলিশ গুলি করেনি। যখন তার স্বামীর উপর হামলা চালিয়ে বল্লম ও হাসুয়া দিয়ে কোপাতে থাকে তখনো পুলিশ গুলি চালিায় নি। পুলিশ এগিয়ে গিয়ে প্রথম থেকেই গুলি চালালে হয়তো আমার স্বামীকে মরতে পারতো না। তিনি আরো বলেন, সব জঙ্গি অভিযানে পুলিশের বিশেষ বাহিনী কাউন্টার টেরিরোজম ইউনিট ও সোয়াট থাকে। এক্ষেতে কেন তাদের ডাকা হলো না প্রশ্ন করেন তিনি। তানজিলা বেগম বলেন, ভিডিওতে স্পস্ট কোপানোর দৃশ্য ও আর যারা লাশ দেখেছেন, তারা বলছেন, ধারালো অস্ত্রের কোপে তার স্বামীর মৃত্যু হয়েছে। তার স্বামীর বাম কানের অর্ধেক অংশ কেটে নিচের দিকে ঝুলে গিয়েছিল। অথচ তা অস্বীকার করে পুলিশ বলছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীকে কোন কোপানোর ঘটনা ঘটেনি। তিনি জঙ্গিদের ফাটানো বোমার স্প্রিন্টারে আঘাতে মারা গেছেন। যা সত্য নয় বলে দাবি করেন। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের রাজশাহী সদর দপ্তরের উপ-পরিচালক নুরুল ইসলাম বলেন, জঙ্গিদের হামলায় ফায়ারম্যান আব্দুল মতিন নিহত হওয়ার ঘটনায় সদর দপ্তর থেকে তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। ওই কমিটির প্রধান রয়েছেন তিনি নিজে। ওই অভিযানের সময় নিরাপত্তায় কোন গাফলতি ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখতে পাঁচ সদস্যের এ তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তবে তদন্ত ছাড়া এখন সে ব্যাপারে কিছু বলা যাবে না। নির্ধারিত ১৫ দিন সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে বলে জানান তিনি। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালে অপারেশন সান ডেভিলের অভিযান শুরু হলে ওই জঙ্গি আস্তানায় পানি ছিটানোর সময় পাঁচ জঙ্গি এক সঙ্গে বের হয়ে হামলা চালায়। এসময় দুইটি আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটানো ছাড়াও ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলাপাথাড়ি কুপিয়ে ফায়ারম্যান আব্দুল মতিনকে কুপিয়ে জখম করে জঙ্গিরা।
 

Comments

Comments!

 অপারেশন ‘সান ডেভিলে’ নিরাপত্তায় গাফলতির অভিযোগ মতিনের পরিবারেরAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

অপারেশন ‘সান ডেভিলে’ নিরাপত্তায় গাফলতির অভিযোগ মতিনের পরিবারের

Saturday, May 13, 2017 10:20 am
15

রাজশাহী: জেলার গোদাগাড়ীর বেনীপুরে জঙ্গি আস্তানায় অপারেশন ‘সান ডেভিল’র অভিযানের সময় নিরাপত্তায় পুলিশের গাফলতি ছিল বলে অভিযোগ তুলেছেন নিহত ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ফায়ার ম্যান আবদুল মতিনের পরিবার।

নিরাপত্তার গাফলতির কারণে জঙ্গিদের হামলা ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মতিনের মৃত্যু হয়। যা ওই ঘটনার ভিডিও ফুটেজে ধরা পড়েছে বলেন শুক্রবার আবদুল মতিনের ভাগ্নে লুৎফর রহমান দাবি করেন।

তিনি বলেন, অভিযানের যে ভিডিও দেখছি তাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন আছে। আর এমন বড় অভিযানের সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে মেডিকেল টিমও রাখা হয়নি। যাতে আহতদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেয়া যায়। তাৎক্ষনিক চিকিৎসা পেয়ে মামা (মতিন) হয়তো মরতেন না।

মতিনের স্ত্রী তানজিলা বেগম বলেন, আমার স্বামী যখন সেখানে কাজ করছিলো তখন তার পাশে পুলিশের লোক ছিলো না। বেশ একটু দুরে অপ্রস্তুত ভাবে দাড়িয়ে ছিলো। তিনি টিভির খবর ও ভিডিও ফুটেজে দেখেছেন।

তিনি বলেন, জঙ্গিরা যখন বাড়ি থেকে বল্লম ও হাসুয়া হাতে নিয়ে বের হয় তখন পুলিশ গুলি করেনি। যখন তার স্বামীর উপর হামলা চালিয়ে বল্লম ও হাসুয়া দিয়ে কোপাতে থাকে তখনো পুলিশ গুলি চালিায় নি। পুলিশ এগিয়ে গিয়ে প্রথম থেকেই গুলি চালালে হয়তো আমার স্বামীকে মরতে পারতো না।

তিনি আরো বলেন, সব জঙ্গি অভিযানে পুলিশের বিশেষ বাহিনী কাউন্টার টেরিরোজম ইউনিট ও সোয়াট থাকে। এক্ষেতে কেন তাদের ডাকা হলো না প্রশ্ন করেন তিনি।

তানজিলা বেগম বলেন, ভিডিওতে স্পস্ট কোপানোর দৃশ্য ও আর যারা লাশ দেখেছেন, তারা বলছেন, ধারালো অস্ত্রের কোপে তার স্বামীর মৃত্যু হয়েছে। তার স্বামীর বাম কানের অর্ধেক অংশ কেটে নিচের দিকে ঝুলে গিয়েছিল। অথচ তা অস্বীকার করে পুলিশ বলছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীকে কোন কোপানোর ঘটনা ঘটেনি। তিনি জঙ্গিদের ফাটানো বোমার স্প্রিন্টারে আঘাতে মারা গেছেন। যা সত্য নয় বলে দাবি করেন।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের রাজশাহী সদর দপ্তরের উপ-পরিচালক নুরুল ইসলাম বলেন, জঙ্গিদের হামলায় ফায়ারম্যান আব্দুল মতিন নিহত হওয়ার ঘটনায় সদর দপ্তর থেকে তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। ওই কমিটির প্রধান রয়েছেন তিনি নিজে। ওই অভিযানের সময় নিরাপত্তায় কোন গাফলতি ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখতে পাঁচ সদস্যের এ তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তবে তদন্ত ছাড়া এখন সে ব্যাপারে কিছু বলা যাবে না। নির্ধারিত ১৫ দিন সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালে অপারেশন সান ডেভিলের অভিযান শুরু হলে ওই জঙ্গি আস্তানায় পানি ছিটানোর সময় পাঁচ জঙ্গি এক সঙ্গে বের হয়ে হামলা চালায়। এসময় দুইটি আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটানো ছাড়াও ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলাপাথাড়ি কুপিয়ে ফায়ারম্যান আব্দুল মতিনকে কুপিয়ে জখম করে জঙ্গিরা।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X