রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:১৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, September 6, 2016 7:18 pm
A- A A+ Print

অমিতাভ-রেখার রোমান্সে কেঁদেছিলেন জয়া

2

বলিউডের নানা বিতর্কিত ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে আছে অভিনেত্রী রেখার নাম। অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে প্রেম, স্বামী মুকেশ আগরওয়ালের আত্মহত্যাসহ নানা ব্যক্তিগত কারণে আশি এবং নব্বইয়ের দশকে সংবাদমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছেন তিনি। সম্প্রতি ইয়াসের উসমানের লেখা এ অভিনেত্রীর জীবনী ‘রেখা : দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ তে উঠে এসেছে তাকে ঘিরে নানা বিতর্কের মূল কারণ। পাশাপাশি অমিতাভ-জয়া এবং রেখার বিভিন্ন অজানা ঘটনাও তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে। বইটিতে রেখা জানিয়েছেন, অমিতাভের সঙ্গে তার রোমান্টিক দৃশ্য দেখে কেঁদেছিলেন রেখা। এমনকি এর পরই তার সঙ্গে অমিতাভকে অভিনয় করতে নিষেধ করেছিলেন জয়া। ১৯৭৩ সালে জয়া বচ্চনের সঙ্গে বিয়ে হয় অমিতাভের। বিয়ের পরও অমিতাভ রেখার সঙ্গে সিনেমা করেছিলেন। কিন্তু রেখা-অমিতাভের ঘনিষ্ঠতা মেনে নিতে পারেননি জয়া। ১৯৭৮ সালেই স্টারডাস্টে রেখার একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছিল। সেখানে তিনি জানিয়েছিলেন, অমিতাভ তার সঙ্গে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় তিনি কষ্ট পেয়েছেন। কিন্তু রেখার রাগ গিয়ে পড়ে জয়ার উপর। সেই সাক্ষাৎকারে রেখা বলেন, ‘আমি কিছুদিন আগে একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে কয়েকটা পঙক্তি আবৃত্তি করেছিলাম। সবাই ভেবেছিল, সেটা আমি অমিতাভকে উদ্দেশ্য করে বলেছি। কিন্তু তা অমিতাভের জন্য ছিল না। ছিল জয়ার জন্য।’ সেই সাক্ষাৎকারে রেখা আরো একটি কথা বলেন। মুকাদ্দার কা সিকান্দার সিনেমার প্রদর্শনীর সময় তিনি একটি বিষয় লক্ষ্য করেছিলেন। প্রজেকশন রুম থেকে তিনি দেখেছিলেন জয়া সামনের সারিতে বসেছিল। অমিতাভ এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বসেছিলেন তার পেছনের সারিতে। পর্দায় যখন রেখা আর অমিতাভের রোমান্টিক দৃশ্য চলছিল তখন জয়ার চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়ছিল। পরবর্তীতে ইন্ডাস্ট্রির সব প্রযোজকরা রেখাকে বলেছিলেন- অমিতাভ তার সঙ্গে আর কাজ করতে চান না। কিন্তু অমিতাভ নিজে কখনও একথা বলেননি। রেখা যখনই প্রশ্ন করেছেন, অমিতাভ বলেছেন, ‘আমি এ ব্যাপারে কিছু বলব না। আমাকে দয়া করে জিজ্ঞেস করো না।’ গত তিন দশকে রেখাকে ঘিরে তৈরি হয়েছে নানা বিতর্ক। এমনকি তাকে নিয়ে এমন অনেক বিতর্ক রয়েছে যার মূল কারণ খুঁজে পাওয়া যায়নি এখনো। রেখার জীবনীতে হয়তো তার ভক্তরা এবার পাবেন সেই রহস্যের উত্তর।

Comments

Comments!

 অমিতাভ-রেখার রোমান্সে কেঁদেছিলেন জয়াAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

অমিতাভ-রেখার রোমান্সে কেঁদেছিলেন জয়া

Tuesday, September 6, 2016 7:18 pm
2

বলিউডের নানা বিতর্কিত ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে আছে অভিনেত্রী রেখার নাম। অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে প্রেম, স্বামী মুকেশ আগরওয়ালের আত্মহত্যাসহ নানা ব্যক্তিগত কারণে আশি এবং নব্বইয়ের দশকে সংবাদমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছেন তিনি।

সম্প্রতি ইয়াসের উসমানের লেখা এ অভিনেত্রীর জীবনী ‘রেখা : দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ তে উঠে এসেছে তাকে ঘিরে নানা বিতর্কের মূল কারণ। পাশাপাশি অমিতাভ-জয়া এবং রেখার বিভিন্ন অজানা ঘটনাও তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে।

বইটিতে রেখা জানিয়েছেন, অমিতাভের সঙ্গে তার রোমান্টিক দৃশ্য দেখে কেঁদেছিলেন রেখা। এমনকি এর পরই তার সঙ্গে অমিতাভকে অভিনয় করতে নিষেধ করেছিলেন জয়া।

১৯৭৩ সালে জয়া বচ্চনের সঙ্গে বিয়ে হয় অমিতাভের। বিয়ের পরও অমিতাভ রেখার সঙ্গে সিনেমা করেছিলেন। কিন্তু রেখা-অমিতাভের ঘনিষ্ঠতা মেনে নিতে পারেননি জয়া।

১৯৭৮ সালেই স্টারডাস্টে রেখার একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছিল। সেখানে তিনি জানিয়েছিলেন, অমিতাভ তার সঙ্গে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় তিনি কষ্ট পেয়েছেন। কিন্তু রেখার রাগ গিয়ে পড়ে জয়ার উপর। সেই সাক্ষাৎকারে রেখা বলেন, ‘আমি কিছুদিন আগে একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে কয়েকটা পঙক্তি আবৃত্তি করেছিলাম। সবাই ভেবেছিল, সেটা আমি অমিতাভকে উদ্দেশ্য করে বলেছি। কিন্তু তা অমিতাভের জন্য ছিল না। ছিল জয়ার জন্য।’

সেই সাক্ষাৎকারে রেখা আরো একটি কথা বলেন। মুকাদ্দার কা সিকান্দার সিনেমার প্রদর্শনীর সময় তিনি একটি বিষয় লক্ষ্য করেছিলেন। প্রজেকশন রুম থেকে তিনি দেখেছিলেন জয়া সামনের সারিতে বসেছিল। অমিতাভ এবং তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বসেছিলেন তার পেছনের সারিতে। পর্দায় যখন রেখা আর অমিতাভের রোমান্টিক দৃশ্য চলছিল তখন জয়ার চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়ছিল।

পরবর্তীতে ইন্ডাস্ট্রির সব প্রযোজকরা রেখাকে বলেছিলেন- অমিতাভ তার সঙ্গে আর কাজ করতে চান না। কিন্তু অমিতাভ নিজে কখনও একথা বলেননি। রেখা যখনই প্রশ্ন করেছেন, অমিতাভ বলেছেন, ‘আমি এ ব্যাপারে কিছু বলব না। আমাকে দয়া করে জিজ্ঞেস করো না।’

গত তিন দশকে রেখাকে ঘিরে তৈরি হয়েছে নানা বিতর্ক। এমনকি তাকে নিয়ে এমন অনেক বিতর্ক রয়েছে যার মূল কারণ খুঁজে পাওয়া যায়নি এখনো। রেখার জীবনীতে হয়তো তার ভক্তরা এবার পাবেন সেই রহস্যের উত্তর।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X