বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:৫১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, May 26, 2017 12:02 am
A- A A+ Print

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

175368_1

ঢাকা: রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ মতপার্থক্য ভুলে জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের চেতনা ও আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে একটি শোষণমুক্ত এবং অসাম্প্রদায়িক সোনারবাংলা গঠনে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। জাতীয় কবি নজরুলের ১১৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, নজরুল শুধু একজন মানবতাবাদী কবিই ছিলেন না, তিনি সাম্রাজ্যবাদ, ঔপনিবেশবাদ, পুঁজিবাদ, ফ্যাসিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, আঞ্চলিকতা এবং শোষণ ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে শক্তিশালী কণ্ঠস্বর ছিলেন। জাতীয় কবি নজরুলের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, নজরুলই একমাত্র সাহিত্যিক ছিলেন, যিনি উপলব্ধি করেছেন সাম্প্রদায়িকতাই উপমহাদেশের বড় সমস্যা। তাই তিনি আজীবন এর বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছেন। নজরুল ছিলেন একজন বড়মাপের মানবতাবাদী কবি। তিনি তার সঙ্গীত ও কবিতার মাধ্যমে মানুষের সৃষ্ট মতপার্থক্যের কৃত্রিম দেয়াল ভেঙ্গে ফেলার চেষ্টা করেছেন। আবদুল হামিদ বলেন, সাম্য ও মানবতার কবি হিসেবে সঙ্গীত, কবিতা, গল্প এবং উপন্যাসসহ নজরুলের সাহিত্য কর্ম সমাজে ধর্মনিরপেক্ষ জাতীয়তাবাদের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি বলেন, এ দেশের মাটি, মানুষ, প্রকৃতি এবং ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে নজরুল খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলেন। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালে তাকে ও তার পরিবারের সদস্যদেরকে যথাযথ মর্যাদায় বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। অনুষ্ঠানে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। রাষ্ট্রপতিকে নজরুলের পুরো সাহিত্য কর্মের একটি ভলিউম উপহার দেয়া হয়। এতে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. ইব্রাহীম হোসেন খান এবং নজরুল ইনস্টিটিউটের ট্রাস্টি বোর্ড চেয়ারম্যান প্রফেসর এমিরিটাস রফিকুল ইসলাম, প্রফেসর সৌমিত্র শেখর এবং নজরুলের নাতনী খিল খিল কাজীও বক্তৃতা করেন। সূত্র: বাসস
 

Comments

Comments!

 অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে রাষ্ট্রপতির আহ্বানAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

Friday, May 26, 2017 12:02 am
175368_1

ঢাকা: রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ মতপার্থক্য ভুলে জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের চেতনা ও আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে একটি শোষণমুক্ত এবং অসাম্প্রদায়িক সোনারবাংলা গঠনে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

জাতীয় কবি নজরুলের ১১৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, নজরুল শুধু একজন মানবতাবাদী কবিই ছিলেন না, তিনি সাম্রাজ্যবাদ, ঔপনিবেশবাদ, পুঁজিবাদ, ফ্যাসিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, আঞ্চলিকতা এবং শোষণ ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে শক্তিশালী কণ্ঠস্বর ছিলেন।

জাতীয় কবি নজরুলের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, নজরুলই একমাত্র সাহিত্যিক ছিলেন, যিনি উপলব্ধি করেছেন সাম্প্রদায়িকতাই উপমহাদেশের বড় সমস্যা। তাই তিনি আজীবন এর বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছেন। নজরুল ছিলেন একজন বড়মাপের মানবতাবাদী কবি। তিনি তার সঙ্গীত ও কবিতার মাধ্যমে মানুষের সৃষ্ট মতপার্থক্যের কৃত্রিম দেয়াল ভেঙ্গে ফেলার চেষ্টা করেছেন।

আবদুল হামিদ বলেন, সাম্য ও মানবতার কবি হিসেবে সঙ্গীত, কবিতা, গল্প এবং উপন্যাসসহ নজরুলের সাহিত্য কর্ম সমাজে ধর্মনিরপেক্ষ জাতীয়তাবাদের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

তিনি বলেন, এ দেশের মাটি, মানুষ, প্রকৃতি এবং ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে নজরুল খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলেন। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালে তাকে ও তার পরিবারের সদস্যদেরকে যথাযথ মর্যাদায় বাংলাদেশে নিয়ে আসেন।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। অনুষ্ঠানে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। রাষ্ট্রপতিকে নজরুলের পুরো সাহিত্য কর্মের একটি ভলিউম উপহার দেয়া হয়।

এতে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. ইব্রাহীম হোসেন খান এবং নজরুল ইনস্টিটিউটের ট্রাস্টি বোর্ড চেয়ারম্যান প্রফেসর এমিরিটাস রফিকুল ইসলাম, প্রফেসর সৌমিত্র শেখর এবং নজরুলের নাতনী খিল খিল কাজীও বক্তৃতা করেন।

সূত্র: বাসস

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X