শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:০৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, November 26, 2016 9:43 am
A- A A+ Print

আইভী-সাখাওয়াতের যত সম্পদ

162372_1

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর আয় বেশি, তবে সম্পদে তার থেকে এগিয়ে বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান। সম্পদের হিসাবে প্রায় কোটিপতি আইনজীবী সাখাওয়াত, অপরদিকে আইভীর সম্পদের পরিমাণ তার অর্ধেক।এমন তথ্য দিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে বিডিনিউজ। প্রতিবেদনে বলা হয়- ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় এ নির্বাচন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার প্রধান দুই দলের প্রার্থীর জমা দেওয়া হলফনামা পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। নগদ, ব্যাংকে জমা, স্বর্ণালঙ্কার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী, আসবাব ও পরিবারকে ঋণ দেওয়া বাবদ আইভীর রয়েছে ৪২ লাখ ২৪ হাজার ২৫০ টাকা। এর বাইরে যৌথ মালিকানার ১১২ শতাংশ অকৃষি জমির আট ভাগের একভাগের মালিক তিনি। অপরদিকে সাখাওয়াত ও তার স্ত্রীর স্থাবর ও অস্থাবর মিলে সম্পদের পরিমাণ ৯৭ লাখ ৫ হাজার ১৩৭ টাকা। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসাবে আইভীর বার্ষিক আয় ছিল ১১ লাখ ৩৪ হাজার টাকা। আর জেলা জজ কোর্টের আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন বার্ষিক আয় দেখিয়েছেন পাঁচ লাখ ২৯ হাজার ৭৯৯ টাকা। আর ব্যাংকে গচ্ছিত অর্থ থেকে সুদ হিসেবে বছরে আসে ৩ হাজার ৮০১ টাকা। নগদ, যানবাহন, স্বর্ণালঙ্কার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী, আসবাব, ব্যবসার মূলধন মিলিয়ে তার সম্পদের পরিমাণ ৬২ লাখ ৬৩ হাজার ৬৫৯ টাকা। তার স্ত্রীর রয়েছে ১৭ লাখ ৩৩ হাজার ৪৭৮ টাকার সম্পদ। নারায়ণগঞ্জে জমি আছে সাখাওয়াত ও তার স্ত্রীর; দুজনের জমির মূল্যর দেখানো হয়েছে ১৪ লাখ ৩২ হাজার টাকা ও ২ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। গেলবার আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমানকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হওয়া আইভী এবার নৌকার প্রার্থী। গেলবার আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমানকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হওয়া আইভী এবার নৌকার প্রার্থী। পাঁচ বছর আগে পৌর মেয়র থেকে সিটি করপোরেশনে নির্বাচন করেন আইভী। সে সময় তার বার্ষিক আয় ছিল ১৬ লাখ ৪৭ হাজার টাকা। সম্পদ দেখিয়েছিলেন ব্যাংকে জমা ১০ লাখ টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার বাবদ ৩০ হাজার টাকা। জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আইভীর বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই। নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাতখুন মামলায় নিহতদের পক্ষে লড়াই করে পরিচিতি পাওয়া সাখাওয়াত এ পর্যন্ত চার মামলায় আসামি হয়েছেন। এগুলোর মধ্যো দুটিতে খালাস পেয়েছেন তিনি; বিচার চলছে একটির, আর একটি তদন্তের পর্যায়ে। এমবিবিএস ও এমডি ডিগ্রিধারী আইভী হলফনামায় পেশা লিখেছেন চিকিৎসক। তার স্বামী কম্পিউটার প্রোগ্রামার কাজী আহসান হায়াত নিউজিল্যান্ডে কর্মরত। ৫০ বছর বয়সী আইভী দুই সন্তানের জননী। তার বাবা আলী আহম্মদ চুনকা নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন। চুনকার বড় মেয়ে আইভী ১৯৯৫ সালে দেশের পাট গুটিয়ে স্বামীর সঙ্গে নিউজিল্যান্ডে পাড়ি জমিয়েছিলেন। বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার আমলে নারায়ণগঞ্জে ফিরে আওয়ামী লীগের হাল ধরেন তিনি। সে সময় ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত প্রার্থীকে বিপুল ভোটে হারিয়ে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নারী মেয়র হন আইভী। চাঞ্চল‌্যকর সাতখুন মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী সাখাওয়াত এবারই প্রথম ভোটের লড়াইয়ে। চাঞ্চল‌্যকর সাতখুন মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী সাখাওয়াত এবারই প্রথম ভোটের লড়াইয়ে। নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী সাখাওয়াত শিক্ষাগত যোগ্যৌতায় লিখেছেন বিএ ও এলএলবি। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি সাখাওয়াত জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি। হলফনামা অনুযায়ী, ১৯৬৯ সালের ২০ অগাস্ট মো. ফজল খান ও হোসনে আরা বেগমের ঘরে জন্ম সাখাওয়াতের। মেয়র পদে লড়াইয়ে আরো ৭ জন প্রথমবারের মতো দলভিত্তিক এ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আরো সাতজন। অন্যমরা হলেন- বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, জাসদের মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, এলডিপির কামাল প্রধান, কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস, ইসলামী ঐক্যজোটের মুফতি এজহারুল হক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া মো. সুলতান মাহমুদ। শনি ও রোববার মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই চলবে বলে এ নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা নুরুজ্জামান তালুকদার জানিয়েছেন।

Comments

Comments!

 আইভী-সাখাওয়াতের যত সম্পদAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

আইভী-সাখাওয়াতের যত সম্পদ

Saturday, November 26, 2016 9:43 am
162372_1

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর আয় বেশি, তবে সম্পদে তার থেকে এগিয়ে বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান।

সম্পদের হিসাবে প্রায় কোটিপতি আইনজীবী সাখাওয়াত, অপরদিকে আইভীর সম্পদের পরিমাণ তার অর্ধেক।এমন তথ্য দিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে বিডিনিউজ।

প্রতিবেদনে বলা হয়- ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় এ নির্বাচন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার প্রধান দুই দলের প্রার্থীর জমা দেওয়া হলফনামা পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

নগদ, ব্যাংকে জমা, স্বর্ণালঙ্কার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী, আসবাব ও পরিবারকে ঋণ দেওয়া বাবদ আইভীর রয়েছে ৪২ লাখ ২৪ হাজার ২৫০ টাকা। এর বাইরে যৌথ মালিকানার ১১২ শতাংশ অকৃষি জমির আট ভাগের একভাগের মালিক তিনি।

অপরদিকে সাখাওয়াত ও তার স্ত্রীর স্থাবর ও অস্থাবর মিলে সম্পদের পরিমাণ ৯৭ লাখ ৫ হাজার ১৩৭ টাকা।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসাবে আইভীর বার্ষিক আয় ছিল ১১ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

আর জেলা জজ কোর্টের আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন বার্ষিক আয় দেখিয়েছেন পাঁচ লাখ ২৯ হাজার ৭৯৯ টাকা। আর ব্যাংকে গচ্ছিত অর্থ থেকে সুদ হিসেবে বছরে আসে ৩ হাজার ৮০১ টাকা।

নগদ, যানবাহন, স্বর্ণালঙ্কার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী, আসবাব, ব্যবসার মূলধন মিলিয়ে তার সম্পদের পরিমাণ ৬২ লাখ ৬৩ হাজার ৬৫৯ টাকা। তার স্ত্রীর রয়েছে ১৭ লাখ ৩৩ হাজার ৪৭৮ টাকার সম্পদ।

নারায়ণগঞ্জে জমি আছে সাখাওয়াত ও তার স্ত্রীর; দুজনের জমির মূল্যর দেখানো হয়েছে ১৪ লাখ ৩২ হাজার টাকা ও ২ লাখ ৭৬ হাজার টাকা।

গেলবার আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমানকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হওয়া আইভী এবার নৌকার প্রার্থী।

গেলবার আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমানকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হওয়া আইভী এবার নৌকার প্রার্থী।

পাঁচ বছর আগে পৌর মেয়র থেকে সিটি করপোরেশনে নির্বাচন করেন আইভী। সে সময় তার বার্ষিক আয় ছিল ১৬ লাখ ৪৭ হাজার টাকা। সম্পদ দেখিয়েছিলেন ব্যাংকে জমা ১০ লাখ টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার বাবদ ৩০ হাজার টাকা।

জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আইভীর বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই।

নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাতখুন মামলায় নিহতদের পক্ষে লড়াই করে পরিচিতি পাওয়া সাখাওয়াত এ পর্যন্ত চার মামলায় আসামি হয়েছেন। এগুলোর মধ্যো দুটিতে খালাস পেয়েছেন তিনি; বিচার চলছে একটির, আর একটি তদন্তের পর্যায়ে।

এমবিবিএস ও এমডি ডিগ্রিধারী আইভী হলফনামায় পেশা লিখেছেন চিকিৎসক। তার স্বামী কম্পিউটার প্রোগ্রামার কাজী আহসান হায়াত নিউজিল্যান্ডে কর্মরত।

৫০ বছর বয়সী আইভী দুই সন্তানের জননী। তার বাবা আলী আহম্মদ চুনকা নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন। চুনকার বড় মেয়ে আইভী ১৯৯৫ সালে দেশের পাট গুটিয়ে স্বামীর সঙ্গে নিউজিল্যান্ডে পাড়ি জমিয়েছিলেন।

বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার আমলে নারায়ণগঞ্জে ফিরে আওয়ামী লীগের হাল ধরেন তিনি। সে সময় ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত প্রার্থীকে বিপুল ভোটে হারিয়ে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নারী মেয়র হন আইভী।

চাঞ্চল‌্যকর সাতখুন মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী সাখাওয়াত এবারই প্রথম ভোটের লড়াইয়ে।

চাঞ্চল‌্যকর সাতখুন মামলায় বাদীপক্ষের আইনজীবী সাখাওয়াত এবারই প্রথম ভোটের লড়াইয়ে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী সাখাওয়াত শিক্ষাগত যোগ্যৌতায় লিখেছেন বিএ ও এলএলবি।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সহসভাপতি সাখাওয়াত জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি।

হলফনামা অনুযায়ী, ১৯৬৯ সালের ২০ অগাস্ট মো. ফজল খান ও হোসনে আরা বেগমের ঘরে জন্ম সাখাওয়াতের।

মেয়র পদে লড়াইয়ে আরো ৭ জন

প্রথমবারের মতো দলভিত্তিক এ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আরো সাতজন।

অন্যমরা হলেন- বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ, জাসদের মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, এলডিপির কামাল প্রধান, কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস, ইসলামী ঐক্যজোটের মুফতি এজহারুল হক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া মো. সুলতান মাহমুদ।

শনি ও রোববার মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই চলবে বলে এ নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা নুরুজ্জামান তালুকদার জানিয়েছেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X