রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:৩৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, October 30, 2016 7:33 pm
A- A A+ Print

আইসিসি, আরও বেশি টেস্ট খেলতে দাও

666666666666

এবারের পুরো সিরিজে বারবার আলোচিত হয়েছে বিষয়টি। ইংলিশ ক্রিকেটারদের অনেকে অবাক হয়েছেন জেনে, ১৫ মাস পর টেস্ট খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ। সেটিও মাত্র দুই ম্যাচেই শেষ হয়ে যাবে ২০১৬ সালের টেস্ট সূচি। এমন বিরতিতে বারবার পড়ে বাংলাদেশ। আজ ম্যাচ শেষে মাইক আথারটনও প্রশ্নটা করলেন। জবাবে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিক এক রকম আকুতিই জানালেন, বাংলাদেশকে যেন আরও বেশি টেস্ট খেলার সুযোগ দেওয়া হয়। ওয়ানডেতে বাংলাদেশ বদলে যাওয়া এক দল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই ঐতিহাসিক জয়ের পরও টেস্টে বাংলাদেশের দুর্বলতা অস্বীকার করার উপায় তো নেই। তবে বাংলাদেশ খেলতেই নামে এত দীর্ঘ বিরতির পর, এক সিরিজে খেলোয়াড়েরা যা শেখেন, পরের সিরিজ আসতে আসতেই তো ভুলে যান। মুশফিক বললেন, ‘আমরা ​ধীরে ধীরে টেস্টেও নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছি। তবে আরও বেশি টেস্ট খেলতে পারলে আরও বেশি বেশি ভালো ফল তো আসতই। আশা করি, আইসিসি ও অন্যান্য ক্রিকেট বোর্ডগুলো আমাদের বিপক্ষে বেশি করে খেলবে।’ মুশফিকের নিজের এটি ছিল ৫০তম টেস্ট। ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে মুহূর্তটা স্মরণীয় করে রাখতে না পারলেও দলীয় সাফল্যে সেই হতাশা অবশ্যই মুছে গেছে তাঁর। কিন্তু মুশফিকের এই দুঃখ কী করে মুছবে, ৫০টি টেস্ট ম্যাচ খেলতে ১১ বছর সময় লাগল তাঁর। দলের বাকি সিনিয়র ক্রিকেটারদেরও খুব বেশি টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা নেই। সাকিব আর কুকের আন্তর্জাতিক অভিষেক প্রায়ই কাছাকাছি সময়ে। দুজনই আন্তর্জাতিক আঙিনায় পা রেখেছেন ২০০৬ সালে। এই ১০ বছরে কুক খেলেছেন ১৩৩ টেস্ট, সাকিব সেখানে ৪২টি! এমনকি ২০১২ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট অভিষেক হওয়া জো রুটও সাকিবের চেয়ে বেশি টেস্ট খেলেছেন, ৪৬টি। তামিম প্রায়ই আফসোস করেন, অন্য দলের মতো সুযোগ পেলে এত দিন ৮০-৯০ টেস্ট খেলে ফেলতেন। তাঁর রানটাও হয়তো দ্বিগুণ হতো। এমনও হয়েছে, বাংলাদেশের কোনো খেলোয়াড় দুর্দান্ত ফর্মে থেকে কোনো সিরিজ শেষ করলেন। পরের টেস্ট সিরিজটা খেলতে খেলতে ফর্মই চলে গেল তাঁর। তামিমই যেমন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস ও ওল্ড ট্রাফোর্ডে টানা সেঞ্চুরির সেই সিরিজটার ১৪ মাস পর খেলেছেন আরেক টেস্ট সিরিজ! এ বছর এখনো টেস্টই খেলেনি বাংলাদেশ। বছরের শেষ দিকে এসে দুটি টেস্ট খেলছে। ২০১২ সালেও এমন মাত্র দুটি টেস্ট খেলছিল বাংলাদেশ পুরো বছরে! মুশফিকের আকুতি কি শুনবে আইসিসি?

Comments

Comments!

 আইসিসি, আরও বেশি টেস্ট খেলতে দাওAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

আইসিসি, আরও বেশি টেস্ট খেলতে দাও

Sunday, October 30, 2016 7:33 pm
666666666666

এবারের পুরো সিরিজে বারবার আলোচিত হয়েছে বিষয়টি। ইংলিশ ক্রিকেটারদের অনেকে অবাক হয়েছেন জেনে, ১৫ মাস পর টেস্ট খেলতে নেমেছে বাংলাদেশ। সেটিও মাত্র দুই ম্যাচেই শেষ হয়ে যাবে ২০১৬ সালের টেস্ট সূচি। এমন বিরতিতে বারবার পড়ে বাংলাদেশ। আজ ম্যাচ শেষে মাইক আথারটনও প্রশ্নটা করলেন। জবাবে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিক এক রকম আকুতিই জানালেন, বাংলাদেশকে যেন আরও বেশি টেস্ট খেলার সুযোগ দেওয়া হয়।
ওয়ানডেতে বাংলাদেশ বদলে যাওয়া এক দল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই ঐতিহাসিক জয়ের পরও টেস্টে বাংলাদেশের দুর্বলতা অস্বীকার করার উপায় তো নেই। তবে বাংলাদেশ খেলতেই নামে এত দীর্ঘ বিরতির পর, এক সিরিজে খেলোয়াড়েরা যা শেখেন, পরের সিরিজ আসতে আসতেই তো ভুলে যান। মুশফিক বললেন, ‘আমরা ​ধীরে ধীরে টেস্টেও নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছি। তবে আরও বেশি টেস্ট খেলতে পারলে আরও বেশি বেশি ভালো ফল তো আসতই। আশা করি, আইসিসি ও অন্যান্য ক্রিকেট বোর্ডগুলো আমাদের বিপক্ষে বেশি করে খেলবে।’
মুশফিকের নিজের এটি ছিল ৫০তম টেস্ট। ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে মুহূর্তটা স্মরণীয় করে রাখতে না পারলেও দলীয় সাফল্যে সেই হতাশা অবশ্যই মুছে গেছে তাঁর। কিন্তু মুশফিকের এই দুঃখ কী করে মুছবে, ৫০টি টেস্ট ম্যাচ খেলতে ১১ বছর সময় লাগল তাঁর। দলের বাকি সিনিয়র ক্রিকেটারদেরও খুব বেশি টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা নেই।
সাকিব আর কুকের আন্তর্জাতিক অভিষেক প্রায়ই কাছাকাছি সময়ে। দুজনই আন্তর্জাতিক আঙিনায় পা রেখেছেন ২০০৬ সালে। এই ১০ বছরে কুক খেলেছেন ১৩৩ টেস্ট, সাকিব সেখানে ৪২টি! এমনকি ২০১২ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট অভিষেক হওয়া জো রুটও সাকিবের চেয়ে বেশি টেস্ট খেলেছেন, ৪৬টি। তামিম প্রায়ই আফসোস করেন, অন্য দলের মতো সুযোগ পেলে এত দিন ৮০-৯০ টেস্ট খেলে ফেলতেন। তাঁর রানটাও হয়তো দ্বিগুণ হতো।

এমনও হয়েছে, বাংলাদেশের কোনো খেলোয়াড় দুর্দান্ত ফর্মে থেকে কোনো সিরিজ শেষ করলেন। পরের টেস্ট সিরিজটা খেলতে খেলতে ফর্মই চলে গেল তাঁর। তামিমই যেমন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডস ও ওল্ড ট্রাফোর্ডে টানা সেঞ্চুরির সেই সিরিজটার ১৪ মাস পর খেলেছেন আরেক টেস্ট সিরিজ! এ বছর এখনো টেস্টই খেলেনি বাংলাদেশ। বছরের শেষ দিকে এসে দুটি টেস্ট খেলছে। ২০১২ সালেও এমন মাত্র দুটি টেস্ট খেলছিল বাংলাদেশ পুরো বছরে!
মুশফিকের আকুতি কি শুনবে আইসিসি?

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X