সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৯:৩৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, January 30, 2017 9:15 pm
A- A A+ Print

আদালতে খালেদা জিয়ার পাঁচ ঘণ্টা

44

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় আজ সোমবার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির জন্য আদালতে গিয়েছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। পুরান ঢাকার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ জজ আদালতে খালেদা জিয়া পৌঁছান বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে। আদালতের কার্যক্রম শেষে বিকেল চারটার তিনি বের হন। আদালতকক্ষে দেখা যায়, দুপুরে খালেদা জিয়া শুধু চা পান করেছেন। আদালতের এজলাসে বসেই চা পান করেন তিনি। এর আগেও একদিন আদালতকক্ষে চা পান করে কাটে খালেদা জিয়ার দুপুর। দেখা যায়, বেলা ১টা ৫০ মিনিটের দিকে বিচারক আদালতের এজলাস কক্ষ ত্যাগ করেন। এরপর খালেদা জিয়া এজলাস কক্ষের একটি চেয়ারে চুপচাপ বসেছিলেন। কিছুক্ষণ পর খালেদা জিয়ার কাছে তাঁর এক কর্মী জানতে চান, তিনি চা পান করবেন কি না। হ্যাঁ সূচক উত্তর পেয়ে প্রথমে একটি চায়ের কাপ বের করেন ওই কর্মী। বাসা থেকে আনা ফ্ল্যাস্ক থেকে চা ঢেলে দেন ওই কর্মী। পরে খালেদা চা পান করতে থাকেন। নাম প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক ওই কর্মী প্রথম আলোকে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার বাসা থেকেই ওই চা আনা হয়।’ চা পানের পর খালেদা জিয়া তাঁর আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে মামলার বিষয়ে আলাপ করেন। খালেদা জিয়ার সঙ্গে থাকা তাঁর প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার প্রথম আলোকে বলেন, খালেদা জিয়া দুপুরে আদালতকক্ষে বসে শুধুই চা পান করেছেন। সরেজমিনে দেখা যায়, তখন আদালতের এজলাস কক্ষে বসা ছিলেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও বিএনপি নেতা মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন। এই তিন নেতাও দুপুরের খাবার সারেন বিস্কুট খেয়ে। বিএনপি নেতা আলাল প্রথম আলোকে বললেন, ‘দলের চেয়ারপারসনের দুপুর কেটে গেল শুধু চা পান করে। আমরা খেলাম বিস্কুট।’ এর আগে বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে আদালতে হাজির হন খালেদা জিয়া। আজ সোমবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তাঁর (খালেদা) আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিন ধার্য ছিল। শুনানির শুরুতে খালেদা জিয়ার আইনজীবী আবদুর রেজ্জাক খান মামলার পুনঃ তদন্ত চেয়ে একটি লিখিত আবেদন করেন। এর পক্ষে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বিভিন্ন যুক্তি তুলে ধরেন।   তবে এর বিরোধিতা করেন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। তিনি আদালতকে বলেন, আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিনে এই আবেদন অগ্রহণযোগ্য। ওই আবেদন নামঞ্জুর করে খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানি করার আবেদন জানান। খালেদার আরেক আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী আদালতের কাছে আবেদন করেন, ‘আমাদের আবেদনটি নিষ্পত্তি করা হোক। শুনানির নতুন দিন রাখা হোক। তখন সময় ১টা ৩০ মিনিট। আদালত খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য তাঁর (খালেদা) কাছে জানতে চান, তাঁর বয়স কত? ৭২ না ৭৩ বছর। এ সময় খালেদা নিজেই আদালতের কাছে সময় চান। আদালতকে তিনি বলেন, শুনানির নতুন তারিখ ধার্য করুন। এরপরও খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা ওই আবেদনটি নিষ্পত্তি করে শুনানির নতুন দিন ধার্যের আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত বেলা ৩টা ৪৫ মিনিটের দিকে আগামী বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিন ধার্য করেন। সেদিন খালেদার করা আবেদনের ওপর বিস্তারিত শুনানিও গ্রহণ করবেন বলে আদালত জানান। পরে আদালত চত্বর ত্যাগ করেন খালেদা। আদালতের এজলাস কক্ষে হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়েন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম। আদালতের সামনে অ্যাম্বুলেন্সে তাঁকে তোলা হচ্ছে। ছবি: আসাদুজ্জামানএর আগে বেলা ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে খালেদার এক আইনজীবী আদালতে যুক্তি তুলে ধরছিলেন। এমন সময় হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়েন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম। খালেদা জিয়া তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিতে বলেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তাঁকে অ্যাম্বুলেন্সে উঠিয়ে দেন। আবদুস সালাম বসা ছিলেন দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভীর পাশে। আজ রাত আটটায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিএনপি নেতা সালাম হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

Comments

Comments!

 আদালতে খালেদা জিয়ার পাঁচ ঘণ্টাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

আদালতে খালেদা জিয়ার পাঁচ ঘণ্টা

Monday, January 30, 2017 9:15 pm
44

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় আজ সোমবার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির জন্য আদালতে গিয়েছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। পুরান ঢাকার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ জজ আদালতে খালেদা জিয়া পৌঁছান বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে। আদালতের কার্যক্রম শেষে বিকেল চারটার তিনি বের হন।

আদালতকক্ষে দেখা যায়, দুপুরে খালেদা জিয়া শুধু চা পান করেছেন। আদালতের এজলাসে বসেই চা পান করেন তিনি। এর আগেও একদিন আদালতকক্ষে চা পান করে কাটে খালেদা জিয়ার দুপুর।
দেখা যায়, বেলা ১টা ৫০ মিনিটের দিকে বিচারক আদালতের এজলাস কক্ষ ত্যাগ করেন। এরপর খালেদা জিয়া এজলাস কক্ষের একটি চেয়ারে চুপচাপ বসেছিলেন। কিছুক্ষণ পর খালেদা জিয়ার কাছে তাঁর এক কর্মী জানতে চান, তিনি চা পান করবেন কি না। হ্যাঁ সূচক উত্তর পেয়ে প্রথমে একটি চায়ের কাপ বের করেন ওই কর্মী। বাসা থেকে আনা ফ্ল্যাস্ক থেকে চা ঢেলে দেন ওই কর্মী। পরে খালেদা চা পান করতে থাকেন।

নাম প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক ওই কর্মী প্রথম আলোকে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার বাসা থেকেই ওই চা আনা হয়।’ চা পানের পর খালেদা জিয়া তাঁর আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে মামলার বিষয়ে আলাপ করেন।

খালেদা জিয়ার সঙ্গে থাকা তাঁর প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার প্রথম আলোকে বলেন, খালেদা জিয়া দুপুরে আদালতকক্ষে বসে শুধুই চা পান করেছেন।
সরেজমিনে দেখা যায়, তখন আদালতের এজলাস কক্ষে বসা ছিলেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও বিএনপি নেতা মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন। এই তিন নেতাও দুপুরের খাবার সারেন বিস্কুট খেয়ে। বিএনপি নেতা আলাল প্রথম আলোকে বললেন, ‘দলের চেয়ারপারসনের দুপুর কেটে গেল শুধু চা পান করে। আমরা খেলাম বিস্কুট।’

এর আগে বেলা ১১টা ১০ মিনিটের দিকে আদালতে হাজির হন খালেদা জিয়া। আজ সোমবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তাঁর (খালেদা) আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিন ধার্য ছিল। শুনানির শুরুতে খালেদা জিয়ার আইনজীবী আবদুর রেজ্জাক খান মামলার পুনঃ তদন্ত চেয়ে একটি লিখিত আবেদন করেন। এর পক্ষে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বিভিন্ন যুক্তি তুলে ধরেন।

 

তবে এর বিরোধিতা করেন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। তিনি আদালতকে বলেন, আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিনে এই আবেদন অগ্রহণযোগ্য। ওই আবেদন নামঞ্জুর করে খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানি করার আবেদন জানান।

খালেদার আরেক আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী আদালতের কাছে আবেদন করেন, ‘আমাদের আবেদনটি নিষ্পত্তি করা হোক। শুনানির নতুন দিন রাখা হোক। তখন সময় ১টা ৩০ মিনিট। আদালত খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য তাঁর (খালেদা) কাছে জানতে চান, তাঁর বয়স কত? ৭২ না ৭৩ বছর। এ সময় খালেদা নিজেই আদালতের কাছে সময় চান। আদালতকে তিনি বলেন, শুনানির নতুন তারিখ ধার্য করুন। এরপরও খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা ওই আবেদনটি নিষ্পত্তি করে শুনানির নতুন দিন ধার্যের আবেদন করেন।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত বেলা ৩টা ৪৫ মিনিটের দিকে আগামী বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিন ধার্য করেন। সেদিন খালেদার করা আবেদনের ওপর বিস্তারিত শুনানিও গ্রহণ করবেন বলে আদালত জানান। পরে আদালত চত্বর ত্যাগ করেন খালেদা।

আদালতের এজলাস কক্ষে হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়েন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম। আদালতের সামনে অ্যাম্বুলেন্সে তাঁকে তোলা হচ্ছে। ছবি: আসাদুজ্জামানএর আগে বেলা ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে খালেদার এক আইনজীবী আদালতে যুক্তি তুলে ধরছিলেন। এমন সময় হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়েন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম। খালেদা জিয়া তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিতে বলেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তাঁকে অ্যাম্বুলেন্সে উঠিয়ে দেন। আবদুস সালাম বসা ছিলেন দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভীর পাশে। আজ রাত আটটায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিএনপি নেতা সালাম হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X