বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৩রা কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:২৯
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, April 13, 2017 8:42 am
A- A A+ Print

আপসের পথে কি সমাধান মিলবে?

d3d01147ff37205e2ebfda24cd125af2-58ee6ed80cb14

আবুল মোমেন :  স্বাধীনতার কিছু আগে থেকে, বিশেষত উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানের পরের দুই বছরে, আওয়ামী লীগের যে রূপান্তর ঘটেছিল, তার গুরুত্ব স্বাধীনতার পরও বিবেচিত হলে ভালো হতো। অর্থাৎ, তখন সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার লক্ষ্যাদর্শে সিপিবি, ন্যাপসহ আরও প্রগতিশীল জাতীয়তাবাদী দলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের যে রাজনৈতিক-আদর্শিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল, তা স্বাধীনতার পরও ধরে রাখা উচিত ছিল। এ সময় একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে আওয়ামী লীগকে ঘিরে বাঙালি জাতীয়তাবাদী বাম প্রগতিশীল চেতনার যে প্ল্যাটফর্ম গড়ে উঠেছিল, তা আরও পোক্ত হয়েছিল। কিন্তু স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগ এককভাবে ক্ষমতাসীন দলে পরিণত হলো। তৎকালীন সোভিয়েত-বলয়ের শক্তিশালী দল হিসেবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিতে গিয়ে সিপিবি ও ন্যাপ (মোজাফ্ফর) বি টিমে পরিণত হলো। এ পরিণতি পরবর্তীকালে এ দেশের প্রগতিশীল রাজনীতির জন্য ক্ষতির কারণ হয়েছিল। কেবল দেশের নয়, খোদ আওয়ামী লীগের রাজনীতিও যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা এখনকার বাস্তবতায় ভালোই বোঝা যাচ্ছে।

তরুণদের তো চাহিদা থাকেই আদর্শের রাজনীতির। তারুণ্য সব সময়ই নিজের ক্ষুদ্র গণ্ডিকে ছাপিয়ে গিয়ে বৃহৎ ও মহৎ কিছু অর্জনে শরিক হতে চায়। এদিক থেকে দেশ ও মানুষের কল্যাণে বীরত্বপূর্ণ সংগ্রাম তাকে টানে। আর তাই একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে এ দেশের তরুণেরা দলমত-নির্বিশেষে অকুতোভয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। বীরের সর্বশ্রেষ্ঠ ভূমিকা হলো আত্মত্যাগের মাধ্যমে বিজয় অর্জন। তারই স্বীকৃতি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে এমন বিজয়ী শহীদদের আমরা বীরশ্রেষ্ঠ খেতাব দিয়েছি।

মুক্তিযুদ্ধ চলার সময়ই ছাত্রলীগের মধ্যে আদর্শিক দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। স্বাধীনতার পর এই অর্জনকে আরও বড় ও মহৎ অর্জনে রূপান্তরের স্বপ্ন থেকে ছাত্রলীগ থেকে অসংখ্য মেধাবী তরুণ বেরিয়ে এসে জাসদ ছাত্রলীগে যোগ দিয়েছিল। স্বাধীনতার পরপর এটিই ছিল আদর্শের টানে তরুণদের নিজেকে ছাপিয়ে ওঠার স্বপ্ন বাস্তবায়নের বড় প্ল্যাটফর্ম। আমরা জানি, নেতৃত্বের ভুল ও দুর্বলতায় তরুণদের এ অভিযান সফল হয়নি, অসংখ্য তরুণ এর বলি হয়েছে। স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগের ছাত্রসংগঠন আর কখনো তরুণদের কাছে আদর্শিক রাজনীতির প্ল্যাটফর্মের মর্যাদা বা আকর্ষণ ফিরে পায়নি। গত শতকের আশির দশকে, বিশেষত ইরানের ইসলামি বিপ্লবের (১৯৭৯) পর, বাংলাদেশেও এ রকম বিপ্লবের স্বপ্ন দেখানো সম্ভব হয়েছিল। এতে তরুণদের একাংশ আকৃষ্ট হয়েছিল। তবে বাংলাদেশের আবহমানকালের সমাজ-সংস্কৃতি ঠিক গোঁড়া ধর্মান্ধ রাজনীতির জন্য প্রস্তুত ছিল না।

সমাজ-সংস্কৃতির এই অসাম্প্রদায়িক মানবিক বুননে একটা রূপান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি অসাম্প্রদায়িক বাঙালি জাতীয়তাবাদের রাজনীতির বিরুদ্ধে পাকিস্তানি ধারার ধর্মভিত্তিক জাতীয়তাবাদের রাজনীতি চালু করলেন। এ সময় বোঝা গেল, বাঙালি সমাজ পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে বাম প্রগতিশীল ধারার রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক চিন্তাচেতনাকে এগিয়ে নিলেও ইসলাম নিয়ে তার ধ্যানধারণা বিশ্বাসের গণ্ডি ছাপিয়ে মননশীল আলোচনার উপযুক্ত ছিল না। মুসলিম সমাজের সংস্কৃতির স্বরূপ কী, কোনটি মুসলমানের করণীয়, করণীয় নয় ইত্যাদি নিয়ে তার মনে নানা বিভ্রান্তি-সংশয় এবং চিন্তার জড়তা ও ভীরুতা কাজ করে। এই বাস্তবতায় নির্বাচনী রাজনীতিতে এ ধরনের ভোটারদের মন পেতে রাজনৈতিক দলের জন্য ইসলাম ধর্ম একটি বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়াল। স্বভাবতই আওয়ামী লীগ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠের দেশে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের দল হিসেবেই ভূমিকা পালন করতে চাইল। সম্ভবত সেটা পেরেও গেল।

খানিকটা বিভ্রান্তিকর মনে হলেও এ কথা এখনো সত্য, এ দেশে অসাম্প্রদায়িক বাঙালি সংস্কৃতি ও আধুনিক শিক্ষা-সংস্কৃতির যে চর্চা রয়েছে, তা সম্ভব হচ্ছে দেশে আওয়ামী লীগ দলটি এখনো বড় দল হিসেবে সক্রিয় রয়েছে বলেই। কিন্তু গভীর আশঙ্কার সঙ্গে যে প্রশ্নটি ওঠে তা হলো, আওয়ামী লীগ যে আপসের রাজনীতির পথে চলেছে, তাতে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাজনীতি ও ধর্মভিত্তিক রাজনীতির মধ্যে যে সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের উপাদান রয়েছে, তার ভারসাম্য রক্ষা করা কি সম্ভব? আগুন নিয়ে খেলার পরিণতিই ডেকে আনবে কি না, সে শঙ্কা থেকেই যায়। হেফাজত ও কওমি মাদ্রাসার প্রতি যে ধরনের ঔদার্য দেখানো হচ্ছে, তার সুদূরপ্রসারী পরিণতি কী হবে, তা দেশের গণতান্ত্রিক রাজনীতির সংকট থেকেই বোঝা যাবে।

এ কথা ঠিক, আজ পৃথিবীজুড়ে ধর্মীয় ও জাতিগত চেতনার দাপট বাড়ছে। প্রতিবেশী ভারতে হিন্দুত্ববাদী রাজনীতি ক্রমেই সর্বগ্রাসী হয়ে উঠছে। তার প্রতিক্রিয়া এ দেশে দেখা দেবে, তা-ই স্বাভাবিক। আবার যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ মিলে যে শক্তিশালী পশ্চিমা বিশ্ব, সেখানেও উগ্র জাতীয়তাবাদের সঙ্গে—কোনো কোনো ক্ষেত্রে ইসলামের বিরুদ্ধে—ধর্মীয় জোশের উপাদান জোরদার হয়ে উঠছে। যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের আধিপত্যবাদী পদক্ষেপের ফলে তাদের ইসলাম ও মুসলিমবিদ্বেষী একটা রূপ দাঁড়িয়েছে। যতই সৌদি আরব, কুয়েত, আমিরাত, জর্ডান, তুরস্কের সরকার এদের পক্ষাবলম্বন করুক না কেন, আজ যে মুসলিম তরুণেরা জঙ্গিবাদী আদর্শে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে, তার কারণ পশ্চিমের এই ভূরাজনৈতিক ভূমিকা এবং উপরোল্লেখিত মুসলিম দেশের পশ্চিমা তোষণ নীতি। এই বাস্তবতার আলোকে তাদের মধ্যে মুসলিম সমাজের পক্ষে ও ইসলামের মর্যাদার প্রশ্নে ন্যায়যুদ্ধের তাগিদ তৈরি হচ্ছে।

সরকার একদিকে পুলিশি (অর্থাৎ রাষ্ট্রীয় দমন-পীড়ন) ব্যবস্থার মাধ্যমে জঙ্গিদের দমন করতে আর অন্যদিকে ইসলামি মতাদর্শের সংগঠন-গোষ্ঠীকে কাজে লাগিয়ে ইসলামের জঙ্গিবাদবিরোধী রূপটি তুলে ধরে জঙ্গি লাইনে তরুণদের মগজধোলাই বন্ধ করতে চাইছে। এই পথে কত দূর যাওয়া যাবে, সে প্রশ্ন উঠবেই। জঙ্গি দমনের পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াত জোটকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখার যে অ্যাজেন্ডা সরকারের রয়েছে, এ পথে তা পূরণ হলেও সরকার, ক্ষমতাসীন জোট, শিক্ষাসহ সামাজিক বিকাশের অন্য উপাদানগুলো ক্রমেই তার অসাম্প্রদায়িক রূপ হারাতে থাকবে। বাঙালির চিরায়ত মানবিক সংস্কৃতির ঐতিহ্য ভীষণভাবে চাপে পড়ে যাবে। দ্বিতীয়ত, ধর্মভিত্তিক যেসব সংগঠনের সঙ্গে সরকার ও আওয়ামী লীগ সখ্য করছে, তারা রাজনৈতিকভাবে জামায়াতের মতো সংগঠিত না হলেও ধর্মীয় চিন্তার দিক থেকে একইভাবে গোঁড়া ও ধর্মান্ধ। ইতিমধ্যে তারা নিজেদের শক্তিরও পরিচয় দিয়েছে পাঠ্যবইয়ে সাম্প্রদায়িক বিবেচনায় রদবদল ঘটাতে সরকারকে বাধ্য করে। এবার তারা পয়লা বৈশাখ ও মঙ্গল শোভাযাত্রার বিরুদ্ধে নেমেছে। অন্যদিকে সরকার তাদের সঙ্গে আপস করতে গিয়ে উচ্চতর ডিগ্রির ন্যূনতম চাহিদার বিষয়টি বিচারে না নিয়েই কওমি ধারার সর্বোচ্চ ডিগ্রিকে স্বীকৃতি দিয়ে, একটা গোঁজামিল দিয়ে কি ভোটের উপকার করেছে, না ইসলামের, নাকি দেশের?

এ প্রেক্ষাপটে কিছু সোজাসাপ্টা কথা বলা যায়। আমাদের যে উন্নতি হচ্ছে, গড় আয়ু বৃদ্ধি, মাতৃ ও শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস পাওয়া, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, ডিজিটাল প্রযুক্তির কল্যাণে যোগাযোগ ও ব্যবসায়ের বিকাশ, যোগাযোগব্যবস্থার উন্নতি ইত্যাদি সর্বক্ষেত্রে মূল চালিকাশক্তি হলো বিজ্ঞান। কিন্তু আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা যথার্থ বিজ্ঞানচর্চায় মনোযোগী নয়। মূল কারণ, সমাজমানসই বিশুদ্ধ জ্ঞান-বিজ্ঞানচর্চার অনুকূল নয়। আদতে সমাজে আমরা ভোগের চাহিদা তৈরি করতে পারলেও জ্ঞানের চাহিদা তৈরি করতে পারিনি। ইসলামে যদিও জ্ঞানচর্চার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে, তা সত্ত্বেও না সরকারের আনুকূল্যপ্রাপ্ত, না সরকারের প্রতিকূলতার সম্মুখীন ধর্মীয় দলের কোনোটিই প্রকৃত জ্ঞান-বিজ্ঞানচর্চায় আগ্রহী নয়। জ্ঞানচর্চার যথাযথ পরিসর আমরা কোনো ক্ষেত্রেই তৈরি করতে পারিনি, বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, মাদ্রাসায় তো নয়ই। সেদিকে মনোযোগ না দিয়ে ডিগ্রির স্বীকৃতি থেকে কী সুফল শিক্ষার্থীরা পাবে!

বাংলাদেশের উন্নতিকে টেকসই করার লক্ষ্য (এসডিজি) পূরণ করতে হলে ধর্ম নিয়ে যারা রাজনৈতিক ফায়দা উশুল করতে চায়, তাদের সঙ্গে আপস করে পথ চলে লাভ হবে না। তাতে ইসলামচর্চারও কাঙ্ক্ষিত উন্নতি অর্জিত হবে না। গোড়ার কথায় ফিরে গিয়ে বলতে হবে, গোটা বিশ্ব আজ যে কালান্তরের সম্মুখীন, তা দীর্ঘদিনের আদর্শহীন ক্ষমতার রাজনীতির মাধ্যমে মোকাবিলা করা যাবে না। আদর্শের এই শূন্যতায় মুসলিম দেশের তরুণদের একটি অংশ বর্তমান বিশ্ববাস্তবতায় জঙ্গিবাদের দিকে ঝুঁকছে।

তারাও তরুণ এবং তারাও তো নিজের চেয়ে বড় ও মহৎ কাজে যুক্ত হতে চায়, তাদের সামনে গণতান্ত্রিক রাজনীতি তেমন কিছু দাঁড় করতে পারেনি। এই ব্যর্থতার খেসারত দিতে হচ্ছে আমাদের এবং সারা বিশ্বের দেশে দেশে। আমরা বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের নামে তারুণ্যের অপচয় প্রত্যক্ষ করেছি একবার। আজ প্রায় চার দশক পর ইসলামের নামে আরেকবার একই ধরনের ট্র্যাজেডি ঘটতে দেখছি। এমনটা কি আমরা ঘটতে দিতে পারি?

গোঁজামিল দিয়ে এ সমস্যার সমাধান হবে না, জঙ্গি মেরে এই প্রবণতা শেষ করা যাবে না। কিন্তু বাংলাদেশ হলো মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে একটি ব্যতিক্রমী দেশ। এখানকার মানুষ ধর্মভীরু, ধর্মচর্চায় উৎসাহী, আবার চিরায়ত মানবতাবাদী ঐতিহ্যের প্রতিও আগ্রহী। এ মানুষের পক্ষে সংকটাপন্ন বিশ্বে মানবতার পক্ষে নতুন বাণী হাজির করা সম্ভব, যা সব অমানবিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সংগ্রামে তরুণদের উদ্দীপ্ত করতে পারে। মূলধারার রাজনীতিকে নানা কৌশল ও আপসের চিন্তা বাদ দিয়ে স্পষ্টভাবে মানবিক মহৎ আদর্শের গণতান্ত্রিক রাজনীতির কথা ভাবতে হবে।

আবুল মোমেন: কবি, প্রাবন্ধিক ও সাংবাদিক

Comments

Comments!

 আপসের পথে কি সমাধান মিলবে?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

আপসের পথে কি সমাধান মিলবে?

Thursday, April 13, 2017 8:42 am
d3d01147ff37205e2ebfda24cd125af2-58ee6ed80cb14

আবুল মোমেন :  স্বাধীনতার কিছু আগে থেকে, বিশেষত উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানের পরের দুই বছরে, আওয়ামী লীগের যে রূপান্তর ঘটেছিল, তার গুরুত্ব স্বাধীনতার পরও বিবেচিত হলে ভালো হতো। অর্থাৎ, তখন সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার লক্ষ্যাদর্শে সিপিবি, ন্যাপসহ আরও প্রগতিশীল জাতীয়তাবাদী দলের সঙ্গে আওয়ামী লীগের যে রাজনৈতিক-আদর্শিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল, তা স্বাধীনতার পরও ধরে রাখা উচিত ছিল। এ সময় একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে আওয়ামী লীগকে ঘিরে বাঙালি জাতীয়তাবাদী বাম প্রগতিশীল চেতনার যে প্ল্যাটফর্ম গড়ে উঠেছিল, তা আরও পোক্ত হয়েছিল। কিন্তু স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগ এককভাবে ক্ষমতাসীন দলে পরিণত হলো। তৎকালীন সোভিয়েত-বলয়ের শক্তিশালী দল হিসেবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিতে গিয়ে সিপিবি ও ন্যাপ (মোজাফ্ফর) বি টিমে পরিণত হলো। এ পরিণতি পরবর্তীকালে এ দেশের প্রগতিশীল রাজনীতির জন্য ক্ষতির কারণ হয়েছিল। কেবল দেশের নয়, খোদ আওয়ামী লীগের রাজনীতিও যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তা এখনকার বাস্তবতায় ভালোই বোঝা যাচ্ছে।

তরুণদের তো চাহিদা থাকেই আদর্শের রাজনীতির। তারুণ্য সব সময়ই নিজের ক্ষুদ্র গণ্ডিকে ছাপিয়ে গিয়ে বৃহৎ ও মহৎ কিছু অর্জনে শরিক হতে চায়। এদিক থেকে দেশ ও মানুষের কল্যাণে বীরত্বপূর্ণ সংগ্রাম তাকে টানে। আর তাই একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে এ দেশের তরুণেরা দলমত-নির্বিশেষে অকুতোভয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। বীরের সর্বশ্রেষ্ঠ ভূমিকা হলো আত্মত্যাগের মাধ্যমে বিজয় অর্জন। তারই স্বীকৃতি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে এমন বিজয়ী শহীদদের আমরা বীরশ্রেষ্ঠ খেতাব দিয়েছি।

মুক্তিযুদ্ধ চলার সময়ই ছাত্রলীগের মধ্যে আদর্শিক দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। স্বাধীনতার পর এই অর্জনকে আরও বড় ও মহৎ অর্জনে রূপান্তরের স্বপ্ন থেকে ছাত্রলীগ থেকে অসংখ্য মেধাবী তরুণ বেরিয়ে এসে জাসদ ছাত্রলীগে যোগ দিয়েছিল। স্বাধীনতার পরপর এটিই ছিল আদর্শের টানে তরুণদের নিজেকে ছাপিয়ে ওঠার স্বপ্ন বাস্তবায়নের বড় প্ল্যাটফর্ম। আমরা জানি, নেতৃত্বের ভুল ও দুর্বলতায় তরুণদের এ অভিযান সফল হয়নি, অসংখ্য তরুণ এর বলি হয়েছে। স্বাধীনতার পর আওয়ামী লীগের ছাত্রসংগঠন আর কখনো তরুণদের কাছে আদর্শিক রাজনীতির প্ল্যাটফর্মের মর্যাদা বা আকর্ষণ ফিরে পায়নি। গত শতকের আশির দশকে, বিশেষত ইরানের ইসলামি বিপ্লবের (১৯৭৯) পর, বাংলাদেশেও এ রকম বিপ্লবের স্বপ্ন দেখানো সম্ভব হয়েছিল। এতে তরুণদের একাংশ আকৃষ্ট হয়েছিল। তবে বাংলাদেশের আবহমানকালের সমাজ-সংস্কৃতি ঠিক গোঁড়া ধর্মান্ধ রাজনীতির জন্য প্রস্তুত ছিল না।

সমাজ-সংস্কৃতির এই অসাম্প্রদায়িক মানবিক বুননে একটা রূপান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি অসাম্প্রদায়িক বাঙালি জাতীয়তাবাদের রাজনীতির বিরুদ্ধে পাকিস্তানি ধারার ধর্মভিত্তিক জাতীয়তাবাদের রাজনীতি চালু করলেন। এ সময় বোঝা গেল, বাঙালি সমাজ পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে বাম প্রগতিশীল ধারার রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক চিন্তাচেতনাকে এগিয়ে নিলেও ইসলাম নিয়ে তার ধ্যানধারণা বিশ্বাসের গণ্ডি ছাপিয়ে মননশীল আলোচনার উপযুক্ত ছিল না। মুসলিম সমাজের সংস্কৃতির স্বরূপ কী, কোনটি মুসলমানের করণীয়, করণীয় নয় ইত্যাদি নিয়ে তার মনে নানা বিভ্রান্তি-সংশয় এবং চিন্তার জড়তা ও ভীরুতা কাজ করে। এই বাস্তবতায় নির্বাচনী রাজনীতিতে এ ধরনের ভোটারদের মন পেতে রাজনৈতিক দলের জন্য ইসলাম ধর্ম একটি বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়াল। স্বভাবতই আওয়ামী লীগ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠের দেশে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের দল হিসেবেই ভূমিকা পালন করতে চাইল। সম্ভবত সেটা পেরেও গেল।

খানিকটা বিভ্রান্তিকর মনে হলেও এ কথা এখনো সত্য, এ দেশে অসাম্প্রদায়িক বাঙালি সংস্কৃতি ও আধুনিক শিক্ষা-সংস্কৃতির যে চর্চা রয়েছে, তা সম্ভব হচ্ছে দেশে আওয়ামী লীগ দলটি এখনো বড় দল হিসেবে সক্রিয় রয়েছে বলেই। কিন্তু গভীর আশঙ্কার সঙ্গে যে
প্রশ্নটি ওঠে তা হলো, আওয়ামী লীগ যে আপসের রাজনীতির পথে চলেছে, তাতে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাজনীতি ও ধর্মভিত্তিক রাজনীতির মধ্যে যে সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের উপাদান রয়েছে, তার ভারসাম্য রক্ষা করা কি সম্ভব? আগুন নিয়ে খেলার পরিণতিই ডেকে আনবে কি না, সে শঙ্কা থেকেই যায়। হেফাজত ও কওমি মাদ্রাসার প্রতি যে ধরনের ঔদার্য দেখানো হচ্ছে, তার সুদূরপ্রসারী পরিণতি কী হবে, তা দেশের গণতান্ত্রিক রাজনীতির সংকট থেকেই বোঝা যাবে।

এ কথা ঠিক, আজ পৃথিবীজুড়ে ধর্মীয় ও জাতিগত চেতনার দাপট বাড়ছে। প্রতিবেশী ভারতে হিন্দুত্ববাদী রাজনীতি ক্রমেই সর্বগ্রাসী হয়ে উঠছে। তার প্রতিক্রিয়া এ দেশে দেখা দেবে, তা-ই স্বাভাবিক। আবার যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ মিলে যে শক্তিশালী পশ্চিমা বিশ্ব, সেখানেও উগ্র জাতীয়তাবাদের সঙ্গে—কোনো কোনো ক্ষেত্রে ইসলামের বিরুদ্ধে—ধর্মীয় জোশের উপাদান জোরদার হয়ে উঠছে। যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের আধিপত্যবাদী পদক্ষেপের ফলে তাদের ইসলাম ও মুসলিমবিদ্বেষী একটা রূপ দাঁড়িয়েছে। যতই সৌদি আরব, কুয়েত, আমিরাত, জর্ডান, তুরস্কের সরকার এদের পক্ষাবলম্বন করুক না কেন, আজ যে মুসলিম তরুণেরা জঙ্গিবাদী আদর্শে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে, তার কারণ পশ্চিমের এই ভূরাজনৈতিক ভূমিকা এবং উপরোল্লেখিত মুসলিম দেশের পশ্চিমা তোষণ নীতি। এই বাস্তবতার আলোকে তাদের মধ্যে মুসলিম সমাজের পক্ষে ও ইসলামের মর্যাদার প্রশ্নে ন্যায়যুদ্ধের তাগিদ তৈরি হচ্ছে।

সরকার একদিকে পুলিশি (অর্থাৎ রাষ্ট্রীয় দমন-পীড়ন) ব্যবস্থার মাধ্যমে জঙ্গিদের দমন করতে আর অন্যদিকে ইসলামি মতাদর্শের সংগঠন-গোষ্ঠীকে কাজে লাগিয়ে ইসলামের জঙ্গিবাদবিরোধী রূপটি তুলে ধরে জঙ্গি লাইনে তরুণদের মগজধোলাই বন্ধ করতে চাইছে। এই পথে কত দূর যাওয়া যাবে, সে প্রশ্ন উঠবেই। জঙ্গি দমনের পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াত জোটকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখার যে অ্যাজেন্ডা সরকারের রয়েছে, এ পথে তা পূরণ হলেও সরকার, ক্ষমতাসীন জোট, শিক্ষাসহ সামাজিক বিকাশের অন্য উপাদানগুলো ক্রমেই তার অসাম্প্রদায়িক রূপ হারাতে থাকবে। বাঙালির চিরায়ত মানবিক সংস্কৃতির ঐতিহ্য ভীষণভাবে চাপে পড়ে যাবে। দ্বিতীয়ত, ধর্মভিত্তিক যেসব সংগঠনের সঙ্গে সরকার ও আওয়ামী লীগ সখ্য করছে, তারা রাজনৈতিকভাবে জামায়াতের মতো সংগঠিত না হলেও ধর্মীয় চিন্তার দিক থেকে একইভাবে গোঁড়া ও ধর্মান্ধ। ইতিমধ্যে তারা নিজেদের শক্তিরও পরিচয় দিয়েছে পাঠ্যবইয়ে সাম্প্রদায়িক বিবেচনায় রদবদল ঘটাতে সরকারকে বাধ্য করে। এবার তারা পয়লা বৈশাখ ও মঙ্গল শোভাযাত্রার বিরুদ্ধে নেমেছে। অন্যদিকে সরকার তাদের সঙ্গে আপস করতে গিয়ে উচ্চতর ডিগ্রির ন্যূনতম চাহিদার বিষয়টি বিচারে না নিয়েই কওমি ধারার সর্বোচ্চ ডিগ্রিকে স্বীকৃতি দিয়ে, একটা গোঁজামিল দিয়ে কি ভোটের উপকার করেছে, না ইসলামের, নাকি দেশের?

এ প্রেক্ষাপটে কিছু সোজাসাপ্টা কথা বলা যায়। আমাদের যে উন্নতি হচ্ছে, গড় আয়ু বৃদ্ধি, মাতৃ ও শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস পাওয়া, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, ডিজিটাল প্রযুক্তির কল্যাণে যোগাযোগ ও ব্যবসায়ের বিকাশ, যোগাযোগব্যবস্থার উন্নতি ইত্যাদি সর্বক্ষেত্রে মূল চালিকাশক্তি হলো বিজ্ঞান। কিন্তু আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা যথার্থ বিজ্ঞানচর্চায় মনোযোগী নয়। মূল কারণ, সমাজমানসই বিশুদ্ধ জ্ঞান-বিজ্ঞানচর্চার অনুকূল নয়। আদতে সমাজে আমরা ভোগের চাহিদা তৈরি করতে পারলেও জ্ঞানের চাহিদা তৈরি করতে পারিনি। ইসলামে যদিও জ্ঞানচর্চার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে, তা সত্ত্বেও না সরকারের আনুকূল্যপ্রাপ্ত, না সরকারের প্রতিকূলতার সম্মুখীন ধর্মীয় দলের কোনোটিই প্রকৃত জ্ঞান-বিজ্ঞানচর্চায় আগ্রহী নয়। জ্ঞানচর্চার যথাযথ পরিসর আমরা কোনো ক্ষেত্রেই তৈরি করতে পারিনি, বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, মাদ্রাসায় তো নয়ই। সেদিকে মনোযোগ না দিয়ে ডিগ্রির স্বীকৃতি থেকে কী সুফল শিক্ষার্থীরা পাবে!

বাংলাদেশের উন্নতিকে টেকসই করার লক্ষ্য (এসডিজি) পূরণ করতে হলে ধর্ম নিয়ে যারা রাজনৈতিক ফায়দা উশুল করতে চায়, তাদের সঙ্গে আপস করে পথ চলে লাভ হবে না। তাতে ইসলামচর্চারও কাঙ্ক্ষিত উন্নতি অর্জিত হবে না। গোড়ার কথায় ফিরে গিয়ে বলতে হবে, গোটা বিশ্ব আজ যে কালান্তরের সম্মুখীন, তা দীর্ঘদিনের আদর্শহীন ক্ষমতার রাজনীতির মাধ্যমে মোকাবিলা করা যাবে না। আদর্শের এই শূন্যতায় মুসলিম দেশের তরুণদের একটি অংশ বর্তমান বিশ্ববাস্তবতায় জঙ্গিবাদের দিকে ঝুঁকছে।

তারাও তরুণ এবং তারাও তো নিজের চেয়ে বড় ও মহৎ কাজে যুক্ত হতে চায়, তাদের সামনে গণতান্ত্রিক রাজনীতি তেমন কিছু দাঁড় করতে পারেনি। এই ব্যর্থতার খেসারত দিতে হচ্ছে আমাদের এবং সারা বিশ্বের দেশে দেশে। আমরা বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের নামে তারুণ্যের অপচয় প্রত্যক্ষ করেছি একবার। আজ প্রায় চার দশক পর ইসলামের নামে আরেকবার একই ধরনের ট্র্যাজেডি ঘটতে দেখছি। এমনটা কি আমরা ঘটতে দিতে পারি?

গোঁজামিল দিয়ে এ সমস্যার সমাধান হবে না, জঙ্গি মেরে এই প্রবণতা শেষ করা যাবে না। কিন্তু বাংলাদেশ হলো মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে একটি ব্যতিক্রমী দেশ। এখানকার মানুষ ধর্মভীরু, ধর্মচর্চায় উৎসাহী, আবার চিরায়ত মানবতাবাদী ঐতিহ্যের প্রতিও আগ্রহী। এ মানুষের পক্ষে সংকটাপন্ন বিশ্বে মানবতার পক্ষে নতুন বাণী হাজির করা সম্ভব, যা সব অমানবিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সংগ্রামে তরুণদের উদ্দীপ্ত করতে পারে। মূলধারার রাজনীতিকে নানা কৌশল ও আপসের চিন্তা বাদ দিয়ে স্পষ্টভাবে মানবিক মহৎ আদর্শের গণতান্ত্রিক রাজনীতির কথা ভাবতে হবে।

আবুল মোমেন: কবি, প্রাবন্ধিক ও সাংবাদিক

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X