বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৩৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, December 28, 2016 12:15 am
A- A A+ Print

আর কত সুযোগ পাবেন সৌম্য

photo-1482839269

সৌম্য সরকারের রানখরা নিয়ে আলোচনাটা অনেক দিন ধরেই চলছে বাংলাদেশের ক্রিকেট অঙ্গনে। বেশ কিছু দিন ধরেই ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। সেই আলোচনাটা এখন ধীরে ধীরে রূপ নিচ্ছে সমালোচনায়। প্রায় প্রতি ম্যাচেই ব্যর্থ হলেও কেন বারবার সৌম্যকে প্রথম একাদশে রাখা হচ্ছে এই প্রশ্ন জোরেসোরেই তুলতে শুরু করেছেন অনেকে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের পর খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সাড়া জাগিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। ২০১৫ সালের শুরু থেকেই ছিলেন দারুণ ফর্মে। বিশ্বকাপে দেখিয়েছিলেন ভালো নৈপুণ্য। এরপর পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজেও হেসেছিল সৌম্যর ব্যাট। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের স্বপ্নযাত্রায় সামনের সারিতেই ছিলেন আগ্রাসী এই ব্যাটসম্যান। কিন্তু তারপর থেকে নিষ্প্রভ হয়ে পড়েছেন সৌম্য। ২০১৬ সালটা মোটেই ভালো কাটাতে পারেননি প্রতিভাবান এই ক্রিকেটার। বছরের শুরুতে জিম্বাবুয়ে ও গত মার্চে এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেছিলেন ৪৩ ও ৪৮ রানের দুটি ইনিংস। ১৬টি টি-টোয়েন্টিতে সফলতা বলতে শুধু এটুকুই। বাকি সব ইনিংসেই ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন বাঁ-হাতি এই ব্যাটসম্যান। ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিজের সামর্থ্য প্রমাণ করতে পারেননি সৌম্য। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ১৫টি ইনিংসে ব্যাটিং করে অর্ধশতক করতে পেরেছেন মাত্র একটিতে। ১৫টি ম্যাচে সৌম্যর সংগ্রহ ৩৪৯ রান। ব্যাটিং গড় মাত্র ২৩.২৭। এরপরও আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে দলে জায়গা দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু এখানেও নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি তিনি। তিন ম্যাচে করতে পেরেছেন মাত্র ৩১ রান। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজটা মাঠের বাইরে কাটানোর পর বাংলাদেশের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা, বিপিএলে আবার ব্যর্থ হয়েছেন সৌম্য। ১২ ম্যাচ খেলে ১২ গড়ে করেছেন ১৩৫ রান। সর্বোচ্চ ইনিংসটি ছিল মাত্র ২৬ রানের। এরপরও নিউজিল্যান্ড সফরে সুযোগ দেওয়া হয়েছে সৌম্যকে। নিউজিল্যান্ড একাদশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ৪০ রান করে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ঘুরে দাঁড়ানোর। কিন্তু আসল লড়াইয়ে আবারও ব্যর্থতাই সঙ্গী হয়েছে সৌম্যর। ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে সৌম্যর ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ১ রান। সৌম্যর মেধা-প্রতিভা, কোনো কিছু নিয়েই হয়তো প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরেই রানখরায় ভুগতে থাকা সৌম্যকে কেন কিছুটা সময় দেওয়া হচ্ছে না নিজেকে আরো ভালোভাবে প্রস্তুত করে নেওয়ার জন্য সেই প্রশ্ন উঠেই যাচ্ছে।

Comments

Comments!

 আর কত সুযোগ পাবেন সৌম্যAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

আর কত সুযোগ পাবেন সৌম্য

Wednesday, December 28, 2016 12:15 am
photo-1482839269

সৌম্য সরকারের রানখরা নিয়ে আলোচনাটা অনেক দিন ধরেই চলছে বাংলাদেশের ক্রিকেট অঙ্গনে। বেশ কিছু দিন ধরেই ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। সেই আলোচনাটা এখন ধীরে ধীরে রূপ নিচ্ছে সমালোচনায়। প্রায় প্রতি ম্যাচেই ব্যর্থ হলেও কেন বারবার সৌম্যকে প্রথম একাদশে রাখা হচ্ছে এই প্রশ্ন জোরেসোরেই তুলতে শুরু করেছেন অনেকে।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের পর খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সাড়া জাগিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। ২০১৫ সালের শুরু থেকেই ছিলেন দারুণ ফর্মে। বিশ্বকাপে দেখিয়েছিলেন ভালো নৈপুণ্য। এরপর পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজেও হেসেছিল সৌম্যর ব্যাট। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের স্বপ্নযাত্রায় সামনের সারিতেই ছিলেন আগ্রাসী এই ব্যাটসম্যান।

কিন্তু তারপর থেকে নিষ্প্রভ হয়ে পড়েছেন সৌম্য। ২০১৬ সালটা মোটেই ভালো কাটাতে পারেননি প্রতিভাবান এই ক্রিকেটার। বছরের শুরুতে জিম্বাবুয়ে ও গত মার্চে এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেছিলেন ৪৩ ও ৪৮ রানের দুটি ইনিংস। ১৬টি টি-টোয়েন্টিতে সফলতা বলতে শুধু এটুকুই। বাকি সব ইনিংসেই ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন বাঁ-হাতি এই ব্যাটসম্যান।

ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিজের সামর্থ্য প্রমাণ করতে পারেননি সৌম্য। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ১৫টি ইনিংসে ব্যাটিং করে অর্ধশতক করতে পেরেছেন মাত্র একটিতে। ১৫টি ম্যাচে সৌম্যর সংগ্রহ ৩৪৯ রান। ব্যাটিং গড় মাত্র ২৩.২৭। এরপরও আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে দলে জায়গা দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু এখানেও নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি তিনি। তিন ম্যাচে করতে পেরেছেন মাত্র ৩১ রান।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজটা মাঠের বাইরে কাটানোর পর বাংলাদেশের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা, বিপিএলে আবার ব্যর্থ হয়েছেন সৌম্য। ১২ ম্যাচ খেলে ১২ গড়ে করেছেন ১৩৫ রান। সর্বোচ্চ ইনিংসটি ছিল মাত্র ২৬ রানের। এরপরও নিউজিল্যান্ড সফরে সুযোগ দেওয়া হয়েছে সৌম্যকে। নিউজিল্যান্ড একাদশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ৪০ রান করে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ঘুরে দাঁড়ানোর। কিন্তু আসল লড়াইয়ে আবারও ব্যর্থতাই সঙ্গী হয়েছে সৌম্যর। ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে সৌম্যর ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ১ রান।

সৌম্যর মেধা-প্রতিভা, কোনো কিছু নিয়েই হয়তো প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরেই রানখরায় ভুগতে থাকা সৌম্যকে কেন কিছুটা সময় দেওয়া হচ্ছে না নিজেকে আরো ভালোভাবে প্রস্তুত করে নেওয়ার জন্য সেই প্রশ্ন উঠেই যাচ্ছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X