শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:৫৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, December 13, 2016 10:42 am
A- A A+ Print

আলেপ্পোয় নৃশংসতার বিরুদ্ধে মুনের হুঁশিয়ারি

15

সিরিয়ার আলেপ্পোয় বেসামরিক লোকদের বিরুদ্ধে নৃশংসতার বিরুদ্ধে সব পক্ষের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। বিশেষ করে সিরিয়ার সরকার ও তাদের অনুগত মিলিশিয়াদের সতর্ক করে বেসামরিক লোকদের বাঁচাতে তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এর আগে জাতিসংঘের মানবিক উপদেষ্টা জ্যান এগেল্যান্ড বলেন, সরকারপন্থি মিলিশিয়াদের চালানো যেকোনো নৃশংসতার জন্য দায়ী থাকবে সিরিয়া ও রাশিয়া। আলেপ্পোয় সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর বড় ধরনের বিজয় বিদ্রোহীগোষ্ঠীকে পরাজয়ের কিনারে ঠেলে দিয়েছে। পুরো আলেপ্পো সরকারি বাহিনীর হাতের মুঠোয় চলে এসেছে প্রায়। বান কি মুনের মুখপাত্র স্টেফান ডুজারিক এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘শেষ কয়েক ঘণ্টায় আলেপ্পোয় নারী-শিশু নির্বিশেষে বিপুল জনগোষ্ঠীর ওপর নৃশংসতার খবরে মহাসচিব হুঁশিয়ার করেছেন।’ খবরগুলো নিরপেক্ষভাবে জাতিসংঘ যাচাই করতে পারেনি। তবে মহাসচিব বিবদমান পক্ষগুলোর বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সিরিয়ার নিযুক্ত মহাসচিবের বিশেষ দূতকে তাদের সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। সিরিয়ার সবচেয়ে প্রাচীন শহর আলেপ্পো ঘিরে সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যে টানা যুদ্ধ চলছে। আলেপ্পোর পূর্বাঞ্চলে বিদ্রোহীরা ঘাঁটি গাড়ে। প্রায় এক মাস আগে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ও তাদের পক্ষের মিলিশিয়া বাহিনীগুলো পূর্ব আলেপ্পোয় বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। বর্তমানে পূর্ব আলেপ্পোর ৯০ শতাংশ সরকারি বাহিনীর দখলে চলে এসেছে। সোমবার সিরিয়া সরকারের স্থানীয় নিরাপত্তা কমিটির প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল জাইদ-আল-সালেহ বলেছেন, বিদ্রোহীযোদ্ধাদের হাতে আর বেশি সময় নেই। হয় তাদের আত্মসমর্পণ করতে হবে, না হয় মরতে হবে। বিদ্রোহীনিয়ন্ত্রিত আলেপ্পোয় কয়েক হাজার বেসামরিক লোক আটকা পড়েছে। সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের ফুটেজে দেখানো হয়েছে, সরকারি বাহিনীর বিজয়ের খবরে স্থানীয় বেসামরিক লোকজন উল্লাস করছে। সিরিয়া গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর আলেপ্পো শহর মূলত দুই ভাগে ভাগ হয়ে যায়। অপেক্ষাকৃত বড় পশ্চিম ভাগে সরকারি বাহিনী এবং পূর্ব ভাগে বিদ্রোহী বাহিনী নিয়ন্ত্রণ নেয়। ইরানের মিলিশিয়া ও রাশিয়ার বিমান হামলার সাহায্যে সেপ্টেম্বর মাসে বিদ্রোহীদের প্রতিরক্ষা বুহ্য ভেঙে ফেলে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী। গত এক মাসে তাদের ওপর তুমুল হামলায় কোনঠাঁসা হয়ে পড়ে বিদ্রোহীরা। লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, ১৫ নভেম্বর থেকে এ পর্যন্ত যুদ্ধে ৪১৫ বেসামরিক লোক ও ৩৬৪ বিদ্রোহী যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে, সরকারি বাহিনীর ১৩০ জন যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন।  

Comments

Comments!

 আলেপ্পোয় নৃশংসতার বিরুদ্ধে মুনের হুঁশিয়ারিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

আলেপ্পোয় নৃশংসতার বিরুদ্ধে মুনের হুঁশিয়ারি

Tuesday, December 13, 2016 10:42 am
15

সিরিয়ার আলেপ্পোয় বেসামরিক লোকদের বিরুদ্ধে নৃশংসতার বিরুদ্ধে সব পক্ষের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন।

বিশেষ করে সিরিয়ার সরকার ও তাদের অনুগত মিলিশিয়াদের সতর্ক করে বেসামরিক লোকদের বাঁচাতে তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে জাতিসংঘের মানবিক উপদেষ্টা জ্যান এগেল্যান্ড বলেন, সরকারপন্থি মিলিশিয়াদের চালানো যেকোনো নৃশংসতার জন্য দায়ী থাকবে সিরিয়া ও রাশিয়া।

আলেপ্পোয় সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর বড় ধরনের বিজয় বিদ্রোহীগোষ্ঠীকে পরাজয়ের কিনারে ঠেলে দিয়েছে। পুরো আলেপ্পো সরকারি বাহিনীর হাতের মুঠোয় চলে এসেছে প্রায়।

বান কি মুনের মুখপাত্র স্টেফান ডুজারিক এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘শেষ কয়েক ঘণ্টায় আলেপ্পোয় নারী-শিশু নির্বিশেষে বিপুল জনগোষ্ঠীর ওপর নৃশংসতার খবরে মহাসচিব হুঁশিয়ার করেছেন।’ খবরগুলো নিরপেক্ষভাবে জাতিসংঘ যাচাই করতে পারেনি। তবে মহাসচিব বিবদমান পক্ষগুলোর বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সিরিয়ার নিযুক্ত মহাসচিবের বিশেষ দূতকে তাদের সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

সিরিয়ার সবচেয়ে প্রাচীন শহর আলেপ্পো ঘিরে সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যে টানা যুদ্ধ চলছে। আলেপ্পোর পূর্বাঞ্চলে বিদ্রোহীরা ঘাঁটি গাড়ে। প্রায় এক মাস আগে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ও তাদের পক্ষের মিলিশিয়া বাহিনীগুলো পূর্ব আলেপ্পোয় বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। বর্তমানে পূর্ব আলেপ্পোর ৯০ শতাংশ সরকারি বাহিনীর দখলে চলে এসেছে।

সোমবার সিরিয়া সরকারের স্থানীয় নিরাপত্তা কমিটির প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল জাইদ-আল-সালেহ বলেছেন, বিদ্রোহীযোদ্ধাদের হাতে আর বেশি সময় নেই। হয় তাদের আত্মসমর্পণ করতে হবে, না হয় মরতে হবে।

বিদ্রোহীনিয়ন্ত্রিত আলেপ্পোয় কয়েক হাজার বেসামরিক লোক আটকা পড়েছে। সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের ফুটেজে দেখানো হয়েছে, সরকারি বাহিনীর বিজয়ের খবরে স্থানীয় বেসামরিক লোকজন উল্লাস করছে।

সিরিয়া গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর আলেপ্পো শহর মূলত দুই ভাগে ভাগ হয়ে যায়। অপেক্ষাকৃত বড় পশ্চিম ভাগে সরকারি বাহিনী এবং পূর্ব ভাগে বিদ্রোহী বাহিনী নিয়ন্ত্রণ নেয়।

ইরানের মিলিশিয়া ও রাশিয়ার বিমান হামলার সাহায্যে সেপ্টেম্বর মাসে বিদ্রোহীদের প্রতিরক্ষা বুহ্য ভেঙে ফেলে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী। গত এক মাসে তাদের ওপর তুমুল হামলায় কোনঠাঁসা হয়ে পড়ে বিদ্রোহীরা।

লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, ১৫ নভেম্বর থেকে এ পর্যন্ত যুদ্ধে ৪১৫ বেসামরিক লোক ও ৩৬৪ বিদ্রোহী যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে, সরকারি বাহিনীর ১৩০ জন যোদ্ধা নিহত হয়েছেন।

তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X