বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ভোর ৫:২৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, September 15, 2016 7:19 pm
A- A A+ Print

ইসরাইলকে সামরিক অনুদান হিসেবে ৩৮০০ কোটি ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র

israil1473935298

সামরিক সাহায্য প্যাকেজের আওতায় ১০ বছরে ইসরাইলকে রেকর্ড ৩৮০০ কোটি ডলার দিতে সম্মত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যেকোন দেশকে দেয়া এটিই যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় সামরিক সহায়তা। এমনকি বিদেশী সাহায্যের মোট বাজেটের অর্ধেকেরও বেশি এ অর্থ। ১০ বছরে এ বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হবে ইসরাইলের প্রতিরক্ষায়। বিনিময়ে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুকে কিছু ছাড় দিতে হয়েছে। এ খবর দিয়েছে দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। খবরে বলা হয়, এ চুক্তির আওতায় মার্কিন কংগ্রেসের কাছ থেকে অতিরিক্ত কোন সাহায্য চাওয়া হবে না বলে অঙ্গিকার করেছে ইসরাইল। ২০২০ সাল থেকে শুরু হওয়া এ অর্থায়নের ২৬.৩ শতাংশ ব্যয় করতে হবে আমেরিকার তৈরি সমরাস্ত্র কিনে। খবরে বলা হয়, ২০১৮ সালে শেষ হওয়া বিদ্যমান চুক্তির আওতায় বার্ষিক ৩১০ কোটি ডলার পায় ইসরাইল। কিন্তু বর্তমান চুক্তিতে তা বেড়ে ৩৮০ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বার্ষিক ৪৫০ কোটি ডলার চেয়েছিলেন। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ওয়াশিংটনে রয়েছেন ইসরাইলের প্রধান সমঝোতাকারী জ্যাকব ন্যাগেল। হোয়াইট হাউজও কংগ্রেস সদস্যদের এ চুক্তির ব্যাপারে ব্রিফিং দিতে শুরু করেছে। গত ১০ মাস ধরে এ সমঝোতা চলে। তবে এ সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসন ও প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর দ্বন্দ্ব ছিল তীব্র। বিশেষ করে গত বছর ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পারমাণবিক চুক্তি নিয়ে দুই মিত্র দেশ ঝঞ্ঝাটে জড়ায়। গত বছর এনএসএ’র নজরদারিতে দেখা যায়, নেতানিয়াহু ইসরাইলপন্থী মার্কিন সিনেটর ও কংগ্রেসম্যানদের ইরান চুক্তির বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে বলছিলেন। এছাড়া ফিলিস্তিনিদের প্রতি ওবামা প্রশাসনের নরম মনোভাবও ইসরাইলের পছন্দ হয়নি। ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে নতুন করে ২৮৪টি নতুন গৃহ নির্মানে ইসরাইলের সিদ্ধান্তে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ওয়াশিংটন। সম্প্রতি ফেসবুকে নেতানিয়াহুর এক বার্তারও তীব্র সমালোচনা করে ওবামা প্রশাসন। ওই বার্তায় নেতানিয়াহু দাবি করেন ফিলিস্তিনিরা ইহুদীদের ‘জাতিগতভাবে নির্মূল’ করতে চায়। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এলিজাবেথ ট্রুডো এ মন্তব্যকে ‘অযথাযথ ও অ-সহায়ক’ আখ্যা দিয়ে বলেন, ইসরাইলের ‘বসতিস্থাপন নীতি পশ্চিম তীরের ব্যাপারে দেশটির দীর্ঘমেয়াদী উদ্দেশ্যের ব্যাপারে সত্যিকারের প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।’ তবে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিতে সম্মত হলেও, রিপাবলিকান পার্টি ওবামার বিরুদ্ধে ইসরাইলের নিরাপত্তার দিকে পর্যাপ্ত মনোযোগ না দেয়ার অভিযোগ তুলেছে। পাশাপাশি ইসরাইলি নেতার সঙ্গে বেশি কঠোর আচরণ করারও অভিযোগ উঠেছে। তবে হোয়াইট হাউজ এ বক্তব্য কড়াভাবে অস্বীকার করেছে।

Comments

Comments!

 ইসরাইলকে সামরিক অনুদান হিসেবে ৩৮০০ কোটি ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্রAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ইসরাইলকে সামরিক অনুদান হিসেবে ৩৮০০ কোটি ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র

Thursday, September 15, 2016 7:19 pm
israil1473935298

সামরিক সাহায্য প্যাকেজের আওতায় ১০ বছরে ইসরাইলকে রেকর্ড ৩৮০০ কোটি ডলার দিতে সম্মত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যেকোন দেশকে দেয়া এটিই যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় সামরিক সহায়তা। এমনকি বিদেশী সাহায্যের মোট বাজেটের অর্ধেকেরও বেশি এ অর্থ। ১০ বছরে এ বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হবে ইসরাইলের প্রতিরক্ষায়। বিনিময়ে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুকে কিছু ছাড় দিতে হয়েছে। এ খবর দিয়েছে দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। খবরে বলা হয়, এ চুক্তির আওতায় মার্কিন কংগ্রেসের কাছ থেকে অতিরিক্ত কোন সাহায্য চাওয়া হবে না বলে অঙ্গিকার করেছে ইসরাইল। ২০২০ সাল থেকে শুরু হওয়া এ অর্থায়নের ২৬.৩ শতাংশ ব্যয় করতে হবে আমেরিকার তৈরি সমরাস্ত্র কিনে।
খবরে বলা হয়, ২০১৮ সালে শেষ হওয়া বিদ্যমান চুক্তির আওতায় বার্ষিক ৩১০ কোটি ডলার পায় ইসরাইল। কিন্তু বর্তমান চুক্তিতে তা বেড়ে ৩৮০ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বার্ষিক ৪৫০ কোটি ডলার চেয়েছিলেন।
চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ওয়াশিংটনে রয়েছেন ইসরাইলের প্রধান সমঝোতাকারী জ্যাকব ন্যাগেল। হোয়াইট হাউজও কংগ্রেস সদস্যদের এ চুক্তির ব্যাপারে ব্রিফিং দিতে শুরু করেছে।
গত ১০ মাস ধরে এ সমঝোতা চলে। তবে এ সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসন ও প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর দ্বন্দ্ব ছিল তীব্র। বিশেষ করে গত বছর ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পারমাণবিক চুক্তি নিয়ে দুই মিত্র দেশ ঝঞ্ঝাটে জড়ায়। গত বছর এনএসএ’র নজরদারিতে দেখা যায়, নেতানিয়াহু ইসরাইলপন্থী মার্কিন সিনেটর ও কংগ্রেসম্যানদের ইরান চুক্তির বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে বলছিলেন। এছাড়া ফিলিস্তিনিদের প্রতি ওবামা প্রশাসনের নরম মনোভাবও ইসরাইলের পছন্দ হয়নি। ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে নতুন করে ২৮৪টি নতুন গৃহ নির্মানে ইসরাইলের সিদ্ধান্তে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ওয়াশিংটন। সম্প্রতি ফেসবুকে নেতানিয়াহুর এক বার্তারও তীব্র সমালোচনা করে ওবামা প্রশাসন। ওই বার্তায় নেতানিয়াহু দাবি করেন ফিলিস্তিনিরা ইহুদীদের ‘জাতিগতভাবে নির্মূল’ করতে চায়। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এলিজাবেথ ট্রুডো এ মন্তব্যকে ‘অযথাযথ ও অ-সহায়ক’ আখ্যা দিয়ে বলেন, ইসরাইলের ‘বসতিস্থাপন নীতি পশ্চিম তীরের ব্যাপারে দেশটির দীর্ঘমেয়াদী উদ্দেশ্যের ব্যাপারে সত্যিকারের প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।’
তবে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিতে সম্মত হলেও, রিপাবলিকান পার্টি ওবামার বিরুদ্ধে ইসরাইলের নিরাপত্তার দিকে পর্যাপ্ত মনোযোগ না দেয়ার অভিযোগ তুলেছে। পাশাপাশি ইসরাইলি নেতার সঙ্গে বেশি কঠোর আচরণ করারও অভিযোগ উঠেছে। তবে হোয়াইট হাউজ এ বক্তব্য কড়াভাবে অস্বীকার করেছে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X