শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৫০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, July 26, 2017 9:41 am
A- A A+ Print

একসঙ্গে ২৫ স্ত্রী!

5

কানাডার জনবিচ্ছিন্ন বহুগামী সম্প্রদায়ের দু’জন সাবেক ধর্মীয় নেতাকে একাধিক স্ত্রী রাখার দায়ে সোমবার দোষী সাব্যস্ত করেছে একটি আদালত। ফলে কানাডায় বহুগামিতার সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে সম্ভবত আরেকটি লড়াই দেখা যাবে। ব্রিটিশ কলম্বিয়ার সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি শেরি অ্যান ডোনেগান ৬০ বছর বয়সী উইনস্টন ব্ল্যাকমোর এবং ৫৩ বছর বয়সী জেমস ওলারকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন। তিনি বলেছেন, সাক্ষ্যপ্রমাণে এটা স্পষ্ট যে ব্ল্যাকমোর একই সময়ে ২৫ নারীকে বিয়ে করেছেন আর তার ১৪০ সন্তান রয়েছে। আর ওলার করেছেন ৫ নারীকে। তারা দু’জনই বাউন্টিফুলের একটি ক্ষুদ্র সম্প্রদায়ের নেতা ছিলেন। ব্ল্যাকমোর বলেছেন, ধর্মীয় দায়িত্ব হিসেবে তিনি এতগুলো স্ত্রী রেখেছেন। তার আইনজীবী বলেছেন, তার মক্কেলকে দণ্ড দেয়া হলে তিনি কানাডার বহুগামী আইনের সাংবিধানিক দিক নিয়ে চ্যালেঞ্জ জানাবেন। রায়ের পর ব্ল্যাকমোর বলেন, আমার অপরাধ এই যে আমি ধর্মীয় দায়িত্ব পালন করেছি। আমি কখনোই আমার ধর্মকে অস্বীকার করিনি। গত শতাব্দির নব্বইয়ের দশকে তাদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়। কানাডার আইন অনুসারে তাদের সর্বোচ্চ ৫ বছর কারাদণ্ড হতে পারে। ব্ল্যাকমোর ও ওলার লেটার ডে সেইন্টস নামের গোড়া খ্রিস্টানদের একটি শাখার অনুসারী, যেখানে বহু বিবাহ বৈধ। এদের প্রধান ঘাঁটি যুক্তরাষ্ট্রের উটাহ-অ্যারিজোনা সীমান্তে। চলতি বছরের শুরুতে ১২ দিনব্যাপী এই বিচার প্রক্রিয়ায় সাক্ষ্য দেন মরমোন সম্প্রদায় সম্পর্কে কয়েকজন বিশেষজ্ঞ, এ মামলার তদন্তকাজে নিয়োজিত আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কর্মকর্তারা এবং উইনস্টন ব্ল্যাকমোরের সাবেক স্ত্রী জেন ব্ল্যাকমোর। জেন ২০০৩ সালে কানাডার ওই সম্প্রদায় ত্যাগ করে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। এ মামলার বিচারক শেরি অ্যান ডোনেগান জেন ব্ল্যাকমোরকে খুবই বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য সাক্ষী হিসেবে প্রশংসা করেন। এপি।

Comments

Comments!

 একসঙ্গে ২৫ স্ত্রী!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

একসঙ্গে ২৫ স্ত্রী!

Wednesday, July 26, 2017 9:41 am
5

কানাডার জনবিচ্ছিন্ন বহুগামী সম্প্রদায়ের দু’জন সাবেক ধর্মীয় নেতাকে একাধিক স্ত্রী রাখার দায়ে সোমবার দোষী সাব্যস্ত করেছে একটি আদালত। ফলে কানাডায় বহুগামিতার সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে সম্ভবত আরেকটি লড়াই দেখা যাবে।

ব্রিটিশ কলম্বিয়ার সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি শেরি অ্যান ডোনেগান ৬০ বছর বয়সী উইনস্টন ব্ল্যাকমোর এবং ৫৩ বছর বয়সী জেমস ওলারকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন। তিনি বলেছেন, সাক্ষ্যপ্রমাণে এটা স্পষ্ট যে ব্ল্যাকমোর একই সময়ে ২৫ নারীকে বিয়ে করেছেন আর তার ১৪০ সন্তান রয়েছে। আর ওলার করেছেন ৫ নারীকে। তারা দু’জনই বাউন্টিফুলের একটি ক্ষুদ্র সম্প্রদায়ের নেতা ছিলেন।

ব্ল্যাকমোর বলেছেন, ধর্মীয় দায়িত্ব হিসেবে তিনি এতগুলো স্ত্রী রেখেছেন। তার আইনজীবী বলেছেন, তার মক্কেলকে দণ্ড দেয়া হলে তিনি কানাডার বহুগামী আইনের সাংবিধানিক দিক নিয়ে চ্যালেঞ্জ জানাবেন। রায়ের পর ব্ল্যাকমোর বলেন, আমার অপরাধ এই যে আমি ধর্মীয় দায়িত্ব পালন করেছি। আমি কখনোই আমার ধর্মকে অস্বীকার করিনি।

গত শতাব্দির নব্বইয়ের দশকে তাদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়। কানাডার আইন অনুসারে তাদের সর্বোচ্চ ৫ বছর কারাদণ্ড হতে পারে। ব্ল্যাকমোর ও ওলার লেটার ডে সেইন্টস নামের গোড়া খ্রিস্টানদের একটি শাখার অনুসারী, যেখানে বহু বিবাহ বৈধ। এদের প্রধান ঘাঁটি যুক্তরাষ্ট্রের উটাহ-অ্যারিজোনা সীমান্তে। চলতি বছরের শুরুতে ১২ দিনব্যাপী এই বিচার প্রক্রিয়ায় সাক্ষ্য দেন মরমোন সম্প্রদায় সম্পর্কে কয়েকজন বিশেষজ্ঞ, এ মামলার তদন্তকাজে নিয়োজিত আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কর্মকর্তারা এবং উইনস্টন ব্ল্যাকমোরের সাবেক স্ত্রী জেন ব্ল্যাকমোর। জেন ২০০৩ সালে কানাডার ওই সম্প্রদায় ত্যাগ করে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। এ মামলার বিচারক শেরি অ্যান ডোনেগান জেন ব্ল্যাকমোরকে খুবই বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য সাক্ষী হিসেবে প্রশংসা করেন। এপি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X