সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:৪৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, January 10, 2017 6:21 pm
A- A A+ Print

একে অপরকে সেরা মানেন না মেসি-রোনালদো

23

একে অপরকে সেরা মানেন না ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসি। এমন কি বর্তমান সময়ের সেরা তিন খেলোয়াড়ের একজন হিসেবেও একে অপরকে মানেন না। এর প্রমাণ পাওয়া গেলো ২০১৬ সালের ‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ পুরস্কারজয়ী নির্ধারনের ভোট প্রক্রিয়ায়। ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচনের জন্য সংস্থাটির সদস্য দেশগুলোর অধিনায়ক ও কোচরা ভোট দিয়েছেন। একজন ভোটার তিনটি করে ভোট দিয়েছেন। তিন ভোটের পয়েন্ট যথাক্রমে ৫, ৩ ও ১। আর্জেন্টিনার অধিনায়ক হিসেবে লিওলেন মেসি ও পর্তুগালের অধিনায়ক হিসেবে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো তিনটি করে ভোট দিয়েছেন। কিন্তু রোনালদো কিংবা মেসি কেউ একে অন্যকে ভোট দেননি। আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসির প্রথম ভোটটি পেয়েছেন বার্সেলোনার সতীর্থ লুইস সুয়ারেজ। পরের দু’টি ভোট পেয়েছেন সতীর্থ নেইমার ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। অন্যদিকে পর্তুগালের অধিনায়ক ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর প্রথম ভোটটি পেয়েছেন সতীর্থ গ্যারেথ বেল। আর পরের দু’টি ভোট পেয়েছেন যথাক্রমে লুকা মদরিচ ও সার্জিও রামোস। এই দু’জনই রোনালদোর রিয়াল মাদ্রিদের সতীর্থ। তাদের এই ভোটে প্রমাণিত হয় যে, তারা কেউ একে অপরকে বর্তমান সময়ের সেরা তিন খেলোয়াড়ের একজনও মনে করেন না। এক্ষেত্রে মেসি ও রোনালদো ‘সংকীর্ণ মানসিকতার’ পরিচয় দিয়েছেন। রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার খেলোয়াড়দের মধ্যে ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিরোধিতা রয়েছে বলে অনেকের জানা। কিন্তু এক্ষেত্রে রোনালদো ছাড়া রিয়াল মাদ্রিদে খেলা জাতীয় দলের অধিনায়করা দারুণ নিরেপেক্ষতা দেখিয়েছেন। রিয়াল মাদ্রিদের ডিফেন্ডার সার্জিও রামোস স্পেনের অধিনায়ক। তিনি প্রথম ভোটটি দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাদোকে। কিন্তু পরের ভোটটি দিয়েছেন বার্সেলোনার স্ট্রাইকার লিওনেল মেসি। আর তার তৃতীয় ভোটটি পেয়েছেন তার স্পেনের সতীর্থ ও বার্সেলোনার মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। তার মানে, রামোসের তিন ভোটের দু’টিই পেয়েছেন প্রতিপক্ষ বার্সেলোনার দুই খেলোয়াড়। একইভাবে রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার লুকা মদরিচও দেখিয়েছেন নিরপেক্ষতা। ক্রোয়েশিয়ার অধিনায়ক হিসেবে তিনি প্রথম ভোটটি দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। কিন্তু দ্বিতীয় ভোটটি দিয়েছেন বার্সেলোনার লিওনেল মেসিকে। আর তৃতীয় ভোট পেয়েছেন গ্যারেথ বেল। তবে বার্সেলোনায় খেলা জাতীয় দলের অধিনায়কের এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। রোনালদো ছাড়া রিয়ালের অন্য অধিনায়করা নিরপেক্ষতা দেখালেও বার্সেলোনার কেউ সে পথে হাঁটেননি। ব্রাজিলের অধিনায়ক দানি আলভেজ গত মৌসুমেও খেলেন বার্সেলোনায়। তবে চলতি মৌসুমে নেই। তিনি তার তিন ভোট দিয়েছেন যথাক্রমে লিওনেল মেসি, নেইমার ও লুইস সুয়ারেজকে। একই অবস্থা আরদা তুরানের। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ থেকে তিনি এখন খেলেন বার্সেলোনায়। তুরস্কের অধিনায়ক হিসেবে তিনি ভোট দিয়েছেন লিওনেল মেসি, নেইমার ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাকে। অন্যদিকে ইংল্যান্ডের অধিনায়ক ওয়েইন রুনির ভোট পেয়েছেন রোনালদো, লুইস সুয়ারেজ ও জেমি ভার্ডি। আর জার্মানির অধিনায়ক ম্যানুয়েল নয়ার মেসি কিংবা রোনালদো কাউকে ভোট দেননি। স্বদেশি টনি ক্রুস, ও মেসুত ওজিলকে প্রথম দুই ভোট দিয়েছেন। আর তৃতীয় ভোটটি দিয়েছেন ক্লাব সতীর্থ রবার্ত লেওয়ানদস্কিকে। আর ইতালির অধিনাঢক জিয়ানলুইজি বুফন ভোট দিয়েছেন মেসি, বেল ও রোনালদোকে। অন্যদিকে কোচ হিসেবে ব্রাজিলের কোচ তিতের ভোট পেয়েছেন নেইমার, রোনালদো ও অ্যান্তোইন গ্রিজম্যান। আর আর্জেন্টিনার কোচ এদগার্দো বাউজার ভোট পেয়েছেন লিওলেন মেসি, সার্জিও আগুয়েরো ও গ্রিজম্যান। আর পর্তুগালকে ইউরো কাপের শিরোপা জেতানো কোচ ফারনানদো সান্তোস তিন ভোট দিয়েছেন রোনালদো, বেল ও গ্রিজম্যানকে। মোট ভোটের সর্বোচ্চ ৩৪.৫৪ শতাংশ পেয়ে ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আর দ্বিতীয় হওয়া লিওনেল মেসি পেয়েছেন ২৬.৪২ শতাংশ ভোট। আর অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ফরাসি ফরোয়ার্ড আন্তোইন গ্রিজম্যান ৭.৫৩ শতাংশ ভোট পেয়ে হয়েছেন তৃতীয়।

Comments

Comments!

 একে অপরকে সেরা মানেন না মেসি-রোনালদোAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

একে অপরকে সেরা মানেন না মেসি-রোনালদো

Tuesday, January 10, 2017 6:21 pm
23

একে অপরকে সেরা মানেন না ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসি। এমন কি বর্তমান সময়ের সেরা তিন খেলোয়াড়ের একজন হিসেবেও একে অপরকে মানেন না। এর প্রমাণ পাওয়া গেলো ২০১৬ সালের ‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ পুরস্কারজয়ী নির্ধারনের ভোট প্রক্রিয়ায়। ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচনের জন্য সংস্থাটির সদস্য দেশগুলোর অধিনায়ক ও কোচরা ভোট দিয়েছেন। একজন ভোটার তিনটি করে ভোট দিয়েছেন। তিন ভোটের পয়েন্ট যথাক্রমে ৫, ৩ ও ১। আর্জেন্টিনার অধিনায়ক হিসেবে লিওলেন মেসি ও পর্তুগালের অধিনায়ক হিসেবে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো তিনটি করে ভোট দিয়েছেন। কিন্তু রোনালদো কিংবা মেসি কেউ একে অন্যকে ভোট দেননি। আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসির প্রথম ভোটটি পেয়েছেন বার্সেলোনার সতীর্থ লুইস সুয়ারেজ। পরের দু’টি ভোট পেয়েছেন সতীর্থ নেইমার ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। অন্যদিকে পর্তুগালের অধিনায়ক ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর প্রথম ভোটটি পেয়েছেন সতীর্থ গ্যারেথ বেল। আর পরের দু’টি ভোট পেয়েছেন যথাক্রমে লুকা মদরিচ ও সার্জিও রামোস। এই দু’জনই রোনালদোর রিয়াল মাদ্রিদের সতীর্থ। তাদের এই ভোটে প্রমাণিত হয় যে, তারা কেউ একে অপরকে বর্তমান সময়ের সেরা তিন খেলোয়াড়ের একজনও মনে করেন না। এক্ষেত্রে মেসি ও রোনালদো ‘সংকীর্ণ মানসিকতার’ পরিচয় দিয়েছেন। রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার খেলোয়াড়দের মধ্যে ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিরোধিতা রয়েছে বলে অনেকের জানা। কিন্তু এক্ষেত্রে রোনালদো ছাড়া রিয়াল মাদ্রিদে খেলা জাতীয় দলের অধিনায়করা দারুণ নিরেপেক্ষতা দেখিয়েছেন। রিয়াল মাদ্রিদের ডিফেন্ডার সার্জিও রামোস স্পেনের অধিনায়ক। তিনি প্রথম ভোটটি দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাদোকে। কিন্তু পরের ভোটটি দিয়েছেন বার্সেলোনার স্ট্রাইকার লিওনেল মেসি। আর তার তৃতীয় ভোটটি পেয়েছেন তার স্পেনের সতীর্থ ও বার্সেলোনার মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। তার মানে, রামোসের তিন ভোটের দু’টিই পেয়েছেন প্রতিপক্ষ বার্সেলোনার দুই খেলোয়াড়। একইভাবে রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার লুকা মদরিচও দেখিয়েছেন নিরপেক্ষতা। ক্রোয়েশিয়ার অধিনায়ক হিসেবে তিনি প্রথম ভোটটি দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। কিন্তু দ্বিতীয় ভোটটি দিয়েছেন বার্সেলোনার লিওনেল মেসিকে। আর তৃতীয় ভোট পেয়েছেন গ্যারেথ বেল। তবে বার্সেলোনায় খেলা জাতীয় দলের অধিনায়কের এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। রোনালদো ছাড়া রিয়ালের অন্য অধিনায়করা নিরপেক্ষতা দেখালেও বার্সেলোনার কেউ সে পথে হাঁটেননি। ব্রাজিলের অধিনায়ক দানি আলভেজ গত মৌসুমেও খেলেন বার্সেলোনায়। তবে চলতি মৌসুমে নেই। তিনি তার তিন ভোট দিয়েছেন যথাক্রমে লিওনেল মেসি, নেইমার ও লুইস সুয়ারেজকে। একই অবস্থা আরদা তুরানের। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ থেকে তিনি এখন খেলেন বার্সেলোনায়। তুরস্কের অধিনায়ক হিসেবে তিনি ভোট দিয়েছেন লিওনেল মেসি, নেইমার ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাকে। অন্যদিকে ইংল্যান্ডের অধিনায়ক ওয়েইন রুনির ভোট পেয়েছেন রোনালদো, লুইস সুয়ারেজ ও জেমি ভার্ডি। আর জার্মানির অধিনায়ক ম্যানুয়েল নয়ার মেসি কিংবা রোনালদো কাউকে ভোট দেননি। স্বদেশি টনি ক্রুস, ও মেসুত ওজিলকে প্রথম দুই ভোট দিয়েছেন। আর তৃতীয় ভোটটি দিয়েছেন ক্লাব সতীর্থ রবার্ত লেওয়ানদস্কিকে। আর ইতালির অধিনাঢক জিয়ানলুইজি বুফন ভোট দিয়েছেন মেসি, বেল ও রোনালদোকে। অন্যদিকে কোচ হিসেবে ব্রাজিলের কোচ তিতের ভোট পেয়েছেন নেইমার, রোনালদো ও অ্যান্তোইন গ্রিজম্যান। আর আর্জেন্টিনার কোচ এদগার্দো বাউজার ভোট পেয়েছেন লিওলেন মেসি, সার্জিও আগুয়েরো ও গ্রিজম্যান। আর পর্তুগালকে ইউরো কাপের শিরোপা জেতানো কোচ ফারনানদো সান্তোস তিন ভোট দিয়েছেন রোনালদো, বেল ও গ্রিজম্যানকে। মোট ভোটের সর্বোচ্চ ৩৪.৫৪ শতাংশ পেয়ে ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আর দ্বিতীয় হওয়া লিওনেল মেসি পেয়েছেন ২৬.৪২ শতাংশ ভোট। আর অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ফরাসি ফরোয়ার্ড আন্তোইন গ্রিজম্যান ৭.৫৩ শতাংশ ভোট পেয়ে হয়েছেন তৃতীয়।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X