শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:৪৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, October 27, 2016 12:17 pm
A- A A+ Print

এক কেজি তক্ষকের মাংস ১০ হাজার ইউরো!

157774_1

   
ঢাকা: অনলাইনে কারবার। সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে বিজ্ঞাপন দিয়ে সংকেতে জানানো হচ্ছে বাজার দর। মায়ানমার, নেপাল ও ভুটানে ঘাঁটি গেড়ে এজেন্সি খুলে চলছে কারবারের তদারকি। এই তথ্য বন দপ্তরের হাতে আসতেই প্রশ্ন উঠেছে –এজেন্সিগুলির আড়ালে কে! দাম জানাতে চোরাকারবারিরা ‘ব্যাক ওয়াটার রেপটাইলস ডট কম’ নামে ‘ই-মেল আইডি’ খুলেছে। মায়ানমার, নেপাল ও ভুটানে ঘাঁটি গেড়ে যে সমস্ত এজেন্সি টাকা ছড়িয়ে ক্যারিয়ারের মাধ্যমে উত্তরবঙ্গ এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জঙ্গল থেকে তক্ষক সংগ্রহ করছে, তাদের কাছে রয়েছে ‘পাসওয়ার্ড’। এজেন্সিগুলি সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে নিয়মিত বিজ্ঞাপন দিয়ে জানাচ্ছে–‘টোকে গেকো ফর সেল। বাই এ গেকো এ লাইভ অ্যারাইভাল গ্যারাণ্টি’।
এক কেজি তক্ষকের মাংস ব্যাঙ্কক, থাইল্যান্ড, হংকং, তাইওয়ান, ফিলিপাইন অথবা মালয়েশিয়ার বাজারে পৌঁছে দিতে পারলেই মিলছে ১০ হাজার ইউরো। সবটাই কি আন্তর্জাতিক পাচারচক্রের কাজ! নাকি অন্য কোনো গোষ্ঠী অর্থ রোজগারে নেমেছে! প্রশ্ন অনেক। কিন্তু উত্তর খুঁজতে কালঘাম ছুটছে ভারতীয় গোয়েন্দাদের। উঠে এসেছে কেএলও এবং আলফা-র মতো জঙ্গি সংগঠনের নাম। অপহরণ, খুন, ফোনে ধমকে-চমকে অর্থ রোজগারের রাস্তা বন্ধ হতেই কি ‘কার্বি পিপলস লিবারেশন টাইগার’-এর সঙ্গে জোট বেঁধে পাচারের শুরু করেছে কেএলও? এটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন। ভারতের অভিযোগ, উত্তরের বন্যপ্রাণি পাচারে মিলছে বাংলাদেশের যোগ। অর্থ জোগাচ্ছে বলেও খবর এসেছে গোয়েন্দাদের কাছে। এদিকে, উত্তরের জঙ্গল থেকে হরিণ শিকার করে তার শিং পাচার হয়ে যাচ্ছে আসাম, ভুটান ও চীনে। মিলেছে সেই তথ্যও। মূলত মেচ-রাভা ও আদিবাসীদের দিয়ে হরিণ শিকার করানো হচ্ছে। তার পর তার শিং কেটে নিয়ে চলে যাচ্ছে পাচারকারীরা। টোটোপাড়া হয়ে ভুটানে পাচারের একটি রুটের হদিশ মিলেছে। আবার ভলকা-বরোভিসা হয়ে কুমার দিয়ে পাচার হচ্ছে অসমেও। গন্ডারের খড়গের মতো তক্ষক পাচার নিয়ে হইচই শুরু হতে ভারতের বন অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন এজেন্সির অনুসন্ধানে যে তথ্য সামনে এসেছে, তা হল মায়ানমার, ভুটান এবং নেপাল হয়ে বিদেশের বাজারে পাচার হচ্ছে বন্যপ্রাণজাত সামগ্রী।
 

Comments

Comments!

 এক কেজি তক্ষকের মাংস ১০ হাজার ইউরো!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

এক কেজি তক্ষকের মাংস ১০ হাজার ইউরো!

Thursday, October 27, 2016 12:17 pm
157774_1

 

 

ঢাকা: অনলাইনে কারবার। সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে বিজ্ঞাপন দিয়ে সংকেতে জানানো হচ্ছে বাজার দর। মায়ানমার, নেপাল ও ভুটানে ঘাঁটি গেড়ে এজেন্সি খুলে চলছে কারবারের তদারকি। এই তথ্য বন দপ্তরের হাতে আসতেই প্রশ্ন উঠেছে –এজেন্সিগুলির আড়ালে কে!

দাম জানাতে চোরাকারবারিরা ‘ব্যাক ওয়াটার রেপটাইলস ডট কম’ নামে ‘ই-মেল আইডি’ খুলেছে। মায়ানমার, নেপাল ও ভুটানে ঘাঁটি গেড়ে যে সমস্ত এজেন্সি টাকা ছড়িয়ে ক্যারিয়ারের মাধ্যমে উত্তরবঙ্গ এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জঙ্গল থেকে তক্ষক সংগ্রহ করছে, তাদের কাছে রয়েছে ‘পাসওয়ার্ড’।

এজেন্সিগুলি সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে নিয়মিত বিজ্ঞাপন দিয়ে জানাচ্ছে–‘টোকে গেকো ফর সেল। বাই এ গেকো এ লাইভ অ্যারাইভাল গ্যারাণ্টি’।

এক কেজি তক্ষকের মাংস ব্যাঙ্কক, থাইল্যান্ড, হংকং, তাইওয়ান, ফিলিপাইন অথবা মালয়েশিয়ার বাজারে পৌঁছে দিতে পারলেই মিলছে ১০ হাজার ইউরো।

সবটাই কি আন্তর্জাতিক পাচারচক্রের কাজ! নাকি অন্য কোনো গোষ্ঠী অর্থ রোজগারে নেমেছে! প্রশ্ন অনেক। কিন্তু উত্তর খুঁজতে কালঘাম ছুটছে ভারতীয় গোয়েন্দাদের। উঠে এসেছে কেএলও এবং আলফা-র মতো জঙ্গি সংগঠনের নাম। অপহরণ, খুন, ফোনে ধমকে-চমকে অর্থ রোজগারের রাস্তা বন্ধ হতেই কি ‘কার্বি পিপলস লিবারেশন টাইগার’-এর সঙ্গে জোট বেঁধে পাচারের শুরু করেছে কেএলও? এটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।

ভারতের অভিযোগ, উত্তরের বন্যপ্রাণি পাচারে মিলছে বাংলাদেশের যোগ। অর্থ জোগাচ্ছে বলেও খবর এসেছে গোয়েন্দাদের কাছে।

এদিকে, উত্তরের জঙ্গল থেকে হরিণ শিকার করে তার শিং পাচার হয়ে যাচ্ছে আসাম, ভুটান ও চীনে। মিলেছে সেই তথ্যও। মূলত মেচ-রাভা ও আদিবাসীদের দিয়ে হরিণ শিকার করানো হচ্ছে। তার পর তার শিং কেটে নিয়ে চলে যাচ্ছে পাচারকারীরা।

টোটোপাড়া হয়ে ভুটানে পাচারের একটি রুটের হদিশ মিলেছে। আবার ভলকা-বরোভিসা হয়ে কুমার দিয়ে পাচার হচ্ছে অসমেও।

গন্ডারের খড়গের মতো তক্ষক পাচার নিয়ে হইচই শুরু হতে ভারতের বন অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন এজেন্সির অনুসন্ধানে যে তথ্য সামনে এসেছে, তা হল মায়ানমার, ভুটান এবং নেপাল হয়ে বিদেশের বাজারে পাচার হচ্ছে বন্যপ্রাণজাত সামগ্রী।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X