মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:০০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, June 12, 2017 4:20 am
A- A A+ Print

এটাই তো সবচেয়ে বড় জয়

3

জয় তো অনেকই আছে। বড় দলগুলোকেও এখন ওয়ানডেতে ঘন ঘনই হারাচ্ছে বাংলাদেশ। কিন্তু আইসিসির টুর্নামেন্টে বড় জয়ের একটা আলাদা মূল্য আছে। সেই জয়গুলোর মধ্যেও এবার চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়টাকে আলাদা করে রাখছেন অনেকে। কারও কারও চোখে ওয়ানডেতে এটাই বাংলাদেশের ইতিহাসে সেরা জয়। আসলেই কি? চলুন ফিরে দেখা যাক আইসিসির টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের অন্য বড় জয়গুলোকেও   রূপকথা লিখে সেমির টিকিট নিউজিল্যান্ডের করা ৮ উইকেটে ২৬৫ রান তাড়া করতে নেমে ৩ উইকেট পড়েছিল ১২ রানে, ৩৩ রানে ৪টি। তারপর সাকিব আর মাহমুদউল্লাহর ২২৪ রানের জুটি, ৬ উইকেটের জয়ে ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ। এই জয়ে প্রথমবারের মতো কোনো বৈশ্বিক টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। প্রথম অঘটন প্রতিপক্ষ পাকিস্তান ১৯৯৯ বিশ্বকাপ ওটা ছিল বাংলাদেশের প্রথম বিশ্বকাপ। নর্দাম্পটনে গ্রুপের শেষ ম্যাচে তখন পর্যন্ত অপরাজিত পাকিস্তানকে ৬২ রানে হারিয়ে দেয় বাংলাদেশ। ১০ ওভারে ৩১ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা খালেদ মাহমুদ সুজন। ভারত–বধ প্রতিপক্ষ ভারত ২০০৭ বিশ্বকাপ ভারতকে ১৯১ রানে অলআউট করে দিয়ে ৫ উইকেটের জয়। ওই হারে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেয় ভারত। বাংলাদেশ ওঠে সুপার এইটে। ৯.৩ ওভার বল করে ৩৮ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন মাশরাফি, হয়েছিলেন ম্যাচসেরা। সুপার এইটের জয় প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা ২০০৭ বিশ্বকাপ সুপার এইটে বাংলাদেশের একমাত্র জয়। ম্যাচের নায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলের ৮৩ বলে ৮৭ রানের ইনিংসের কল্যাণে আগে ব্যাট করে ২৫১ করেছিল বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকা অলআউট ১৮৪ রানে। ইংল্যান্ডকে ধাক্কা প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড ২০১১ বিশ্বকাপ গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ডের ২২৫ তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশের ৮ উইকেট পড়েছিল ১৬৯ রানে। তারপর মাহমুদউল্লাহ আর শফিউলের অবিশ্বাস্য জুটিতে ম্যাচ জিতে যায় বাংলাদেশ। যে জয়ে শেষ আটে প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড ২০১৫ বিশ্বকাপ মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরিতে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশ তুলেছিল ৭ উইকেটে ২৭৫। তাড়া করতে নেমে রুবেল হোসেনের দুর্দান্ত বোলিংয়ে এউইন মরগানের দল অলআউট ২৬০ রানে। বিশ্বকাপ থেকেও বিদায় নেয় ইংল্যান্ড। বাংলাদেশ পৌঁছে যায় কোয়ার্টার ফাইনালে। টি–টোয়েন্টিতেও প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৬৪ রান করেছিল। মোহাম্মদ আশরাফুল ও আফতাবের ব্যাটিংয়ে ৬ উইকেটে জিতে বাংলাদেশ চলে যায় সুপার এইটে।

Comments

Comments!

 এটাই তো সবচেয়ে বড় জয়AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

এটাই তো সবচেয়ে বড় জয়

Monday, June 12, 2017 4:20 am
3

জয় তো অনেকই আছে। বড় দলগুলোকেও এখন ওয়ানডেতে ঘন ঘনই হারাচ্ছে বাংলাদেশ। কিন্তু আইসিসির টুর্নামেন্টে বড় জয়ের একটা আলাদা মূল্য আছে। সেই জয়গুলোর মধ্যেও এবার চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়টাকে আলাদা করে রাখছেন অনেকে। কারও কারও চোখে ওয়ানডেতে এটাই বাংলাদেশের ইতিহাসে সেরা জয়। আসলেই কি? চলুন ফিরে দেখা যাক আইসিসির টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের অন্য বড় জয়গুলোকেও

 

রূপকথা লিখে সেমির টিকিট
নিউজিল্যান্ডের করা ৮ উইকেটে ২৬৫ রান তাড়া করতে নেমে ৩ উইকেট পড়েছিল ১২ রানে, ৩৩ রানে ৪টি। তারপর সাকিব আর মাহমুদউল্লাহর ২২৪ রানের জুটি, ৬ উইকেটের জয়ে ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ। এই জয়ে প্রথমবারের মতো কোনো বৈশ্বিক টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে উঠল বাংলাদেশ।

প্রথম অঘটন
প্রতিপক্ষ পাকিস্তান
১৯৯৯ বিশ্বকাপ
ওটা ছিল বাংলাদেশের প্রথম বিশ্বকাপ। নর্দাম্পটনে গ্রুপের শেষ ম্যাচে তখন পর্যন্ত অপরাজিত পাকিস্তানকে ৬২ রানে হারিয়ে দেয় বাংলাদেশ। ১০ ওভারে ৩১ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা খালেদ মাহমুদ সুজন।

ভারত–বধ
প্রতিপক্ষ ভারত
২০০৭ বিশ্বকাপ
ভারতকে ১৯১ রানে অলআউট করে দিয়ে ৫ উইকেটের জয়। ওই হারে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেয় ভারত। বাংলাদেশ ওঠে সুপার এইটে। ৯.৩ ওভার বল করে ৩৮ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন মাশরাফি, হয়েছিলেন ম্যাচসেরা।

সুপার এইটের জয়
প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা
২০০৭ বিশ্বকাপ
সুপার এইটে বাংলাদেশের একমাত্র জয়। ম্যাচের নায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলের ৮৩ বলে ৮৭ রানের ইনিংসের কল্যাণে আগে ব্যাট করে ২৫১ করেছিল বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকা অলআউট ১৮৪ রানে।

ইংল্যান্ডকে ধাক্কা
প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড
২০১১ বিশ্বকাপ
গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ডের ২২৫ তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশের ৮ উইকেট পড়েছিল ১৬৯ রানে। তারপর মাহমুদউল্লাহ আর শফিউলের অবিশ্বাস্য জুটিতে ম্যাচ জিতে যায় বাংলাদেশ।

যে জয়ে শেষ আটে
প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড
২০১৫ বিশ্বকাপ
মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরিতে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশ তুলেছিল ৭ উইকেটে ২৭৫। তাড়া করতে নেমে রুবেল হোসেনের দুর্দান্ত বোলিংয়ে এউইন মরগানের দল অলআউট ২৬০ রানে। বিশ্বকাপ থেকেও বিদায় নেয় ইংল্যান্ড। বাংলাদেশ পৌঁছে যায় কোয়ার্টার ফাইনালে।

টি–টোয়েন্টিতেও
প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ
২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ
ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৬৪ রান করেছিল। মোহাম্মদ আশরাফুল ও আফতাবের ব্যাটিংয়ে ৬ উইকেটে জিতে বাংলাদেশ চলে যায় সুপার এইটে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X