শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৬:২০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, July 23, 2017 7:09 am
A- A A+ Print

এমিরেটস এয়ারলাইন্সের যাত্রী সেবার নমুনা!

2

এমিরেটস এয়ারলাইন্সের যাত্রী সেবা তলানীতে গিয়ে ঠেকেছে। বাংলাদেশ থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে এমিরেটসের ফ্লাইটগুলোতে খাবার দেয়া হয় নিম্নমানের। এনিয়ে কেবিন ক্রুদের কাছে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায় না। বলা হয়, স্যার বিষয়টি সম্পর্কে আমরা কর্তৃপক্ষকে জানাবো। এরপর আর কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় না। এমিরেটস এয়ারলাইন্সে ভ্রমণকারী একাধিক যাত্রীর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, খাবার সরবরাহের ক্ষেত্রে দায়সারাগোছের আচরণ করা হয়। খাবারের মান খুবই নিম্নমানের। অনেক ক্ষেত্রে খাবারের মধ্যে প্লাস্টিক পাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট যাত্রীরা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের অফিসে ফোন করে বা ই-মেইল পাঠিয়েও কোনো জবাব পাচ্ছেন না। গত ১৮ই জুন যুক্তরাজ্যের নিউক্যাসেল থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে আসেন এক যাত্রী। সেখান থেকে ইকে-০৩৬ ফ্লাইটে করে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। তার সিট নাম্বার ছিলো ১৮ এইচ। তিনি ওইদিন রোজা ছিলেন। ইফতারের জন্য তাকে যে খাবার দেয়া হয় তার মধ্যে ছিল প্লাস্টিকের টুকরো। প্লাস্টিকের ওই টুকরো তার গলায় আটকে যায়। তিনি অনেক কষ্টে তা গলা থেকে বের করেন। এ বিষয়ে তিনি কেবিন ক্রুদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। দুই কেবিন ক্রু সাময়িক দুঃখ প্রকাশ করে তাকে জানান, দুই সপ্তাহের মধ্যে এ ব্যাপারে তাকে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। ওই যাত্রী বলেন, ওইদিন সারাক্ষণ আমার বমি ববি ভাব হতে থাকে। আমি কিছুই খেতে পারিনি। পুরোটা সময় আমাকে না খেয়েই থাকতে হয়। এমিরেটস কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণ দেয়াতো দূরের কথা দুঃখ প্রকাশ করে আজ পর্যন্ত কোন ই-মেইলও করেনি। বরং তাদের তিন-চার দফায় ই-মেইল পাঠিয়েও কোন জবাব পাওয়া যায়নি। একমাস পার হয়ে গেলেও এ ব্যাপারে তাদের কাছ থেকে সামান্যতম সহানুভূতিও পাওয়া যায়নি।

Comments

Comments!

 এমিরেটস এয়ারলাইন্সের যাত্রী সেবার নমুনা!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

এমিরেটস এয়ারলাইন্সের যাত্রী সেবার নমুনা!

Sunday, July 23, 2017 7:09 am
2

এমিরেটস এয়ারলাইন্সের যাত্রী সেবা তলানীতে গিয়ে ঠেকেছে। বাংলাদেশ থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে এমিরেটসের ফ্লাইটগুলোতে খাবার দেয়া হয় নিম্নমানের। এনিয়ে কেবিন ক্রুদের কাছে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায় না। বলা হয়, স্যার বিষয়টি সম্পর্কে আমরা কর্তৃপক্ষকে জানাবো। এরপর আর কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয় না।
এমিরেটস এয়ারলাইন্সে ভ্রমণকারী একাধিক যাত্রীর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, খাবার সরবরাহের ক্ষেত্রে দায়সারাগোছের আচরণ করা হয়। খাবারের মান খুবই নিম্নমানের। অনেক ক্ষেত্রে খাবারের মধ্যে প্লাস্টিক পাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট যাত্রীরা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের অফিসে ফোন করে বা ই-মেইল পাঠিয়েও কোনো জবাব পাচ্ছেন না। গত ১৮ই জুন যুক্তরাজ্যের নিউক্যাসেল থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে আসেন এক যাত্রী। সেখান থেকে ইকে-০৩৬ ফ্লাইটে করে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। তার সিট নাম্বার ছিলো ১৮ এইচ। তিনি ওইদিন রোজা ছিলেন। ইফতারের জন্য তাকে যে খাবার দেয়া হয় তার মধ্যে ছিল প্লাস্টিকের টুকরো। প্লাস্টিকের ওই টুকরো তার গলায় আটকে যায়। তিনি অনেক কষ্টে তা গলা থেকে বের করেন। এ বিষয়ে তিনি কেবিন ক্রুদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। দুই কেবিন ক্রু সাময়িক দুঃখ প্রকাশ করে তাকে জানান, দুই সপ্তাহের মধ্যে এ ব্যাপারে তাকে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। ওই যাত্রী বলেন, ওইদিন সারাক্ষণ আমার বমি ববি ভাব হতে থাকে। আমি কিছুই খেতে পারিনি। পুরোটা সময় আমাকে না খেয়েই থাকতে হয়। এমিরেটস কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণ দেয়াতো দূরের কথা দুঃখ প্রকাশ করে আজ পর্যন্ত কোন ই-মেইলও করেনি। বরং তাদের তিন-চার দফায় ই-মেইল পাঠিয়েও কোন জবাব পাওয়া যায়নি। একমাস পার হয়ে গেলেও এ ব্যাপারে তাদের কাছ থেকে সামান্যতম সহানুভূতিও পাওয়া যায়নি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X