রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ২:৪৭
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, September 7, 2017 7:42 pm
A- A A+ Print

এ যেন নতুন মোস্তাফিজ

23

একসময় তাঁর জন্মদিনটাও ছিল আর দশটি দিনের মতো। কেক কাটার রেওয়াজ ছিল না। বড়জোর বিকেলে বন্ধুদের সঙ্গে কোথাও খাওয়াদাওয়া। আর এখন জন্মদিনে ড্রেসিংরুমে কেক কাটা হয়। ফুলের ডালায় উপহার হয়ে আসে ডেভিড ওয়ার্নারের উইকেট। আইপিএলের দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ভেসে আসে অভিনন্দনবার্তা। জীবন কত বদলে গেছে মোস্তাফিজুর রহমানের!

২১ পেরিয়ে কাল ২২-এ পা দিয়েছেন। মানে মোস্তাফিজ এখন আরেকটু পরিণত, জীবন সম্পর্কে তাঁর আরেকটু স্বচ্ছ ধারণা হয়েছে। নিজের বোলিং সম্পর্কেও কি নয়! এত দিন তাঁর হাত থেকে বের হওয়া মায়াবী কাটার দেখেই অভ্যস্ত ছিল সবাই। কাল দেখা গেল ২২-এ পা দেওয়া মোস্তাফিজ বাউন্সারও দিচ্ছেন। সেই গোটা পাঁচেক বাউন্সারের দু-একটা আবার অস্ট্রেলিয়ার দীর্ঘদেহী ব্যাটসম্যানদের মাথার অনেক ওপর দিয়ে উড়ে গেল। দু-একটা নিখুঁত ইয়র্কারও ছুটে এল হাত থেকে। এ যেন নতুন মোস্তাফিজ!

কাটারের বাইরে আস্তিনে আরও কিছু অস্ত্র যোগ করতে পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের সঙ্গে কাজ করেছেন মাঝে। হয়তো সেটারই সুফল কালকের ওই বাউন্সার ও ইয়র্কারগুলো। দিন শেষের সংবাদ সম্মেলনে বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজ কথা বলছিলেন সেসব নিয়ে, ‘আমি সাধারণত বাউন্সার কম মারি। দুই বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে খুবই কম মেরেছি। এখন চেষ্টা করছি ওভারে অন্তত দুটি বাউন্সার ভালো জায়গায় করতে। ব্যাটসম্যানকে অসুবিধায় ফেলতে পারলে আমার জন্য ভালো।’

ব্যাটসম্যানদের সমস্যায় ফেলতে কী করতে হবে মোস্তাফিজ জানেন, ‘আগে কাটার ছিল। এখন নতুন কিছু করতে হবে।’ তবে নতুন অস্ত্রের সবই যে প্রয়োগ করতে শুরু করেছেন বা করতে পারছেন, তা নয়। মোস্তাফিজের ভাষায় সাফল্য-ব্যর্থতা এখনো “ফিফটি-ফিফটি”।’

প্রথম টেস্টে দাগ কাটার মতো কিছু করতে পারেননি। বলই করেছেন দুই ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ৯ ওভার। কিন্তু চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে কাল পর্যন্ত করে ফেলেছেন ২০ ওভার, উইকেট নিয়েছেন ৩টি। বল হাতে বেশ উজ্জীবিতও মনে হচ্ছে মোস্তাফিজকে। ড্রেসিংরুম থেকেও সে রকম নির্দেশনাই ছিল অবশ্য—উইকেট নিতে হবে, বাড়তি চেষ্টা করতে হবে। ‘সকালে কোচ-মুশফিক ভাইসহ সবার এই একটাই কথা ছিল। উইকেট বের করতে পারি কি না, আমরাও সেই চেষ্টাই করেছি’—বলছিলেন মোস্তাফিজ।

আগের দিনের তুলনায় কাল মোস্তাফিজের বলে গতিও বেড়েছে বেশ। ঘণ্টায় ১৩৫ কিমির ওপর নিয়মিতই ছিল। সর্বোচ্চ উঠেছে ১৩৮ কিমি। কাটারের জাদুর পর গতির ঝড় তোলাটাও উপভোগ করছেন তিনি, ‘আমার পেসটা ভালোই গেছে। তবে লাইন-লেন্থে একটু সমস্যা আছে। ওভারে চারটি বল ঠিক জায়গায় করতে পেরেছি। দুই একটা আগে-পিছে চলে গেছে।’

অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংস গুটিয়ে দিতে বাংলাদেশকে নিতে হবে আর একটি উইকেট। বল হাতে পেলে মোস্তাফিজের ইগল-চোখ নির্ঘাত সেই উইকেটটার দিকেই থাকবে। টেস্টে এখনো ইনিংসে ৫ উইকেট নেই এবং সেটি এই ইনিংসে পাওয়া সম্ভবও নয়। তবে অভিষেক টেস্টে ৪ উইকেট পেয়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। আজও সেই হাতছানি থাকছে।

অস্ট্রেলিয়ার শেষ উইকেটটা মোস্তাফিজ পান বা অন্য কেউ, সেটি আজ যত তাড়াতাড়ি পড়ে ততই মঙ্গল বাংলাদেশের জন্য। ৭২ রানের লিড হয়ে গেছে অস্ট্রেলিয়ার। দলের প্রতিনিধি হয়ে মোস্তাফিজ জানালেন, লিডটাকে আর বেশি বাড়তে দিতে চান না তাঁরা। এরপর ব্যাটসম্যানদের হাত ধরে ভালো কিছু এলে চট্টগ্রাম টেস্টে যেকোনো কিছুই সম্ভব, ‘আমাদের আরও একটা উইকেট নিতে হবে। হাতে এখনো দুই দিন আছে। ব্যাটসম্যানরা যদি বড় টার্গেট দিতে পারে, অসম্ভব কিছুই না।’

কিন্তু তৃতীয় দিন শেষের উইকেট কী বার্তা দিচ্ছে? প্রথম তিন দিনের মতো আজও কি বোলারদের নিরাশ করবে সেটি? তাহলে নিশ্চয়ই হাসবেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা! সংবাদ সম্মেলন শেষে মোস্তাফিজের পিছু নিয়ে এক সাংবাদিক উইকেট সম্পর্কে তাঁর অনুমান জানতে চাইলেন। সাংবাদিককে নিরাশ করে মোস্তাফিজের পাল্টা প্রশ্ন, ‘আমাকে কখনো দেখছেন খেলার আগে-পরে উইকেট দেখতে? অন্যদের কাছ থেকে শুনি যে উইকেটটা এ রকম বা ও রকম হতে পারে। যে উইকেটই দিক, আমাকে তো খেলতে হবে।’

পেটে বোমা মেরেও যাঁর মুখ দিয়ে একটা শব্দ বের করা কঠিন, তাঁর মুখে পাল্টা প্রশ্ন কেমন অচেনা ঠেকল। তবে কি ২২-এর মোস্তাফিজ সব দিক দিয়েই নতুন!

Comments

Comments!

 এ যেন নতুন মোস্তাফিজAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

এ যেন নতুন মোস্তাফিজ

Thursday, September 7, 2017 7:42 pm
23

একসময় তাঁর জন্মদিনটাও ছিল আর দশটি দিনের মতো। কেক কাটার রেওয়াজ ছিল না। বড়জোর বিকেলে বন্ধুদের সঙ্গে কোথাও খাওয়াদাওয়া। আর এখন জন্মদিনে ড্রেসিংরুমে কেক কাটা হয়। ফুলের ডালায় উপহার হয়ে আসে ডেভিড ওয়ার্নারের উইকেট। আইপিএলের দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে ভেসে আসে অভিনন্দনবার্তা। জীবন কত বদলে গেছে মোস্তাফিজুর রহমানের!

২১ পেরিয়ে কাল ২২-এ পা দিয়েছেন। মানে মোস্তাফিজ এখন আরেকটু পরিণত, জীবন সম্পর্কে তাঁর আরেকটু স্বচ্ছ ধারণা হয়েছে। নিজের বোলিং সম্পর্কেও কি নয়! এত দিন তাঁর হাত থেকে বের হওয়া মায়াবী কাটার দেখেই অভ্যস্ত ছিল সবাই। কাল দেখা গেল ২২-এ পা দেওয়া মোস্তাফিজ বাউন্সারও দিচ্ছেন। সেই গোটা পাঁচেক বাউন্সারের দু-একটা আবার অস্ট্রেলিয়ার দীর্ঘদেহী ব্যাটসম্যানদের মাথার অনেক ওপর দিয়ে উড়ে গেল। দু-একটা নিখুঁত ইয়র্কারও ছুটে এল হাত থেকে। এ যেন নতুন মোস্তাফিজ!

কাটারের বাইরে আস্তিনে আরও কিছু অস্ত্র যোগ করতে পেস বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের সঙ্গে কাজ করেছেন মাঝে। হয়তো সেটারই সুফল কালকের ওই বাউন্সার ও ইয়র্কারগুলো। দিন শেষের সংবাদ সম্মেলনে বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজ কথা বলছিলেন সেসব নিয়ে, ‘আমি সাধারণত বাউন্সার কম মারি। দুই বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে খুবই কম মেরেছি। এখন চেষ্টা করছি ওভারে অন্তত দুটি বাউন্সার ভালো জায়গায় করতে। ব্যাটসম্যানকে অসুবিধায় ফেলতে পারলে আমার জন্য ভালো।’

ব্যাটসম্যানদের সমস্যায় ফেলতে কী করতে হবে মোস্তাফিজ জানেন, ‘আগে কাটার ছিল। এখন নতুন কিছু করতে হবে।’ তবে নতুন অস্ত্রের সবই যে প্রয়োগ করতে শুরু করেছেন বা করতে পারছেন, তা নয়। মোস্তাফিজের ভাষায় সাফল্য-ব্যর্থতা এখনো “ফিফটি-ফিফটি”।’

প্রথম টেস্টে দাগ কাটার মতো কিছু করতে পারেননি। বলই করেছেন দুই ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ৯ ওভার। কিন্তু চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম ইনিংসে কাল পর্যন্ত করে ফেলেছেন ২০ ওভার, উইকেট নিয়েছেন ৩টি। বল হাতে বেশ উজ্জীবিতও মনে হচ্ছে মোস্তাফিজকে। ড্রেসিংরুম থেকেও সে রকম নির্দেশনাই ছিল অবশ্য—উইকেট নিতে হবে, বাড়তি চেষ্টা করতে হবে। ‘সকালে কোচ-মুশফিক ভাইসহ সবার এই একটাই কথা ছিল। উইকেট বের করতে পারি কি না, আমরাও সেই চেষ্টাই করেছি’—বলছিলেন মোস্তাফিজ।

আগের দিনের তুলনায় কাল মোস্তাফিজের বলে গতিও বেড়েছে বেশ। ঘণ্টায় ১৩৫ কিমির ওপর নিয়মিতই ছিল। সর্বোচ্চ উঠেছে ১৩৮ কিমি। কাটারের জাদুর পর গতির ঝড় তোলাটাও উপভোগ করছেন তিনি, ‘আমার পেসটা ভালোই গেছে। তবে লাইন-লেন্থে একটু সমস্যা আছে। ওভারে চারটি বল ঠিক জায়গায় করতে পেরেছি। দুই একটা আগে-পিছে চলে গেছে।’

অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংস গুটিয়ে দিতে বাংলাদেশকে নিতে হবে আর একটি উইকেট। বল হাতে পেলে মোস্তাফিজের ইগল-চোখ নির্ঘাত সেই উইকেটটার দিকেই থাকবে। টেস্টে এখনো ইনিংসে ৫ উইকেট নেই এবং সেটি এই ইনিংসে পাওয়া সম্ভবও নয়। তবে অভিষেক টেস্টে ৪ উইকেট পেয়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। আজও সেই হাতছানি থাকছে।

অস্ট্রেলিয়ার শেষ উইকেটটা মোস্তাফিজ পান বা অন্য কেউ, সেটি আজ যত তাড়াতাড়ি পড়ে ততই মঙ্গল বাংলাদেশের জন্য। ৭২ রানের লিড হয়ে গেছে অস্ট্রেলিয়ার। দলের প্রতিনিধি হয়ে মোস্তাফিজ জানালেন, লিডটাকে আর বেশি বাড়তে দিতে চান না তাঁরা। এরপর ব্যাটসম্যানদের হাত ধরে ভালো কিছু এলে চট্টগ্রাম টেস্টে যেকোনো কিছুই সম্ভব, ‘আমাদের আরও একটা উইকেট নিতে হবে। হাতে এখনো দুই দিন আছে। ব্যাটসম্যানরা যদি বড় টার্গেট দিতে পারে, অসম্ভব কিছুই না।’

কিন্তু তৃতীয় দিন শেষের উইকেট কী বার্তা দিচ্ছে? প্রথম তিন দিনের মতো আজও কি বোলারদের নিরাশ করবে সেটি? তাহলে নিশ্চয়ই হাসবেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা! সংবাদ সম্মেলন শেষে মোস্তাফিজের পিছু নিয়ে এক সাংবাদিক উইকেট সম্পর্কে তাঁর অনুমান জানতে চাইলেন। সাংবাদিককে নিরাশ করে মোস্তাফিজের পাল্টা প্রশ্ন, ‘আমাকে কখনো দেখছেন খেলার আগে-পরে উইকেট দেখতে? অন্যদের কাছ থেকে শুনি যে উইকেটটা এ রকম বা ও রকম হতে পারে। যে উইকেটই দিক, আমাকে তো খেলতে হবে।’

পেটে বোমা মেরেও যাঁর মুখ দিয়ে একটা শব্দ বের করা কঠিন, তাঁর মুখে পাল্টা প্রশ্ন কেমন অচেনা ঠেকল। তবে কি ২২-এর মোস্তাফিজ সব দিক দিয়েই নতুন!

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X