সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:৩০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, December 13, 2016 10:54 am
A- A A+ Print

ওদেরও যেন বিশেষ দিন

17

প্রথমবার বাংলাদেশে এসেছিলেন ঘুরতে। সেটা ২০০৭ সালের কথা। জাপানি নাগরিক ম্যা ওয়াতানবে তখনই বাংলাদেশের প্রেমে পড়েন। ভালোবেসে ফেলেন এ দেশের জল, মাটি ও মানুষকে। আর তখনই ঠিক করেছিলেন এ দেশেই থাকবেন। আছেনও আড়াই বছর ধরে। পেশায় অ্যানিমেটর। যতই দিন যাচ্ছে, তাঁর কাছে বাংলাদেশ নতুন নতুন বিস্ময়ের জন্ম দিচ্ছে। ম্যা ওয়াতানবে বলেন, ‘এই দেশ, এ দেশের মানুষ, সংস্কৃতি নিয়ে তেমন কিছুই জানতাম না। এ দেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, মানুষের সরলতা ও অতিথিপরায়ণতা দেখে মুগ্ধ হয়েছি। বিভিন্ন বিশেষ দিনে মানুষের সাজ-পোশাকও চোখে পড়ার মতো।’16 ১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় দিবস। বাংলাদেশিদের জন্য এটি এক বিশাল উত্সব। বিজয়ের আনন্দের কী আর তুলনা চলে! তবে বাংলাদেশিদের পাশাপাশি অনেক বিদেশির কাছেও এটি একটি উত্সব। এ দেশের নানা উত্সবে দেখা যায় বিদেশিরা বাঙালি হয়ে ওঠেন। এখানকার সাজ-পোশাক, খাবার—সবকিছুতেই অপার আনন্দ পান তাঁরা। পয়লা বৈশাখ, বিজয় দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারিসহ নানা আয়োজন ও উত্সবে বাংলাদেশে থাকা বিদেশিদেরও শাড়ি-পাঞ্জাবিতে দেখা যায়। এখানে এসে তাঁরা আমাদের সংস্কৃতিকে আপন করে নেন, মেতে ওঠেন উত্সবের আনন্দে।বিশেষ দিনে এ দেশে থাকা বিদেশিরাও মেতে ওঠেন আনন্দে পয়লা বৈশাখের সকালে যেমন তাঁরা কব্জি ডুবিয়ে পান্তা খান, তেমনি বারো হাতের শাড়ি পরে কুঁচি সেট করে নেন বাঙালি কায়দায়। বেশ কিছুদিন ধরে বাংলাদেশে আছেন অস্ট্রেলিয়ার জেসিকা। তিনি বললেন, ‘বাংলাদেশের উৎসবগুলো খুব রঙিন হয়। নানা ধরনের সাজ ও পোশাক দেখা যায়। বাংলা নববর্ষে আমিও এ বছর গালে বাংলাদেশ লিখেছিলাম। খুবই মজার ছিল বিষয়টা। পুরো দেশের মানুষ মনে হলো রাস্তায় নেমে এসেছে। এ দেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমি কয়েকটা লেখা পড়েছি। দেশের জন্য মানুষের এই আবেগ আমাকেও ছুঁয়ে গেছে।’ জাপানি ম্যা ওয়াতানবে যুক্ত আছেন বেসরকারি ও স্বেচ্ছাসেবামূলক সংগঠন এক মাত্রায়। সেখানে তিনি বাংলাদেশের শিশু ও নারীদের নিয়ে কাজ করছেন। তাঁর বিজয় দিবস কাটে এক মাত্রার শিশুদের সঙ্গে। শিশুদের বিজয়ের আয়োজন, লাল-সবুজ পোশাক আর তাদের বিজয়ের আনন্দে তিনি খুঁজে পান আগামীর বাংলাদেশকে। .এ দেশের মানুষের যেকোনো বিষয়ে উত্সাহ, সরলতা, দয়ালু মন ভালো লেগেছে তাঁর। তাঁর বন্ধু সুনসেকও বাংলাদেশ পছন্দ করেন। সুনসেকের সঙ্গে আলাপে তিনি বলেন, ‘এ দেশে এসে দেখেছি বিজয় দিবসে লাল-সবুজ পোশাক পরে, হাতে পতাকা নিয়ে বাংলাদেশিরা বিজয় দিবস পালন করে। সেটি দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি।’ দুই বন্ধুর সেই আড্ডায় ম্যা তখন বললেন, ‘এ দেশের পোশাক, পোশাকে রঙের ব্যবহার জাপানের থেকে আলাদা। জাপানে সাদাসিধা, হালকা রঙের পোশাক বেশি পরে। তবে এ দেশে রঙিন পোশাকে মনুষদের দেখতে বেশ ভালো লাগে। আর যেকোনো উত্সবে সবাই মিলে যখন রং-বেরঙের পোশাকে বাইরে আসে, তখন সত্যিই অন্য রকম লাগে।’ বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধ—অনেক বিষয়েই জানাশোনা আছে তাঁদের। মায়ের ভাষায়   কথা বলার জন্য যারা জীবন দিতে পারে, সেই ভাষা না শিখলে চলে! ম্যা ওয়াতানবে ও সুনসেক দুজনেই তাই বাংলা শিখেছেন। সাক্ষাৎকারের সময়ও তাই কথা হলো বাংলাতেই। এখানের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে তাঁরা সে দেশের জনপ্রিয় গান বাংলায় অনুবাদ করে গেয়েছেনও। সম্প্রতি হলি আর্টিজান ট্র্যাজেডির কথা স্মরণ করে তাঁরা বললেন, ‘হাসিখুশি বাংলাদেশ দেখতে চাই সব সময়। আমরা চাই বাংলাদেশ ও জাপানের বন্ধুত্বও অটুট থাক।’

Comments

Comments!

 ওদেরও যেন বিশেষ দিনAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ওদেরও যেন বিশেষ দিন

Tuesday, December 13, 2016 10:54 am
17

প্রথমবার বাংলাদেশে এসেছিলেন ঘুরতে। সেটা ২০০৭ সালের কথা। জাপানি নাগরিক ম্যা ওয়াতানবে তখনই বাংলাদেশের প্রেমে পড়েন। ভালোবেসে ফেলেন এ দেশের জল, মাটি ও মানুষকে। আর তখনই ঠিক করেছিলেন এ দেশেই থাকবেন। আছেনও আড়াই বছর ধরে। পেশায় অ্যানিমেটর। যতই দিন যাচ্ছে, তাঁর কাছে বাংলাদেশ নতুন নতুন বিস্ময়ের জন্ম দিচ্ছে। ম্যা ওয়াতানবে বলেন, ‘এই দেশ, এ দেশের মানুষ, সংস্কৃতি নিয়ে তেমন কিছুই জানতাম না। এ দেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, মানুষের সরলতা ও অতিথিপরায়ণতা দেখে মুগ্ধ হয়েছি। বিভিন্ন বিশেষ দিনে মানুষের সাজ-পোশাকও চোখে পড়ার মতো।’16
১৬ ডিসেম্বর আমাদের বিজয় দিবস। বাংলাদেশিদের জন্য এটি এক বিশাল উত্সব। বিজয়ের আনন্দের কী আর তুলনা চলে! তবে বাংলাদেশিদের পাশাপাশি অনেক বিদেশির কাছেও এটি একটি উত্সব। এ দেশের নানা উত্সবে দেখা যায় বিদেশিরা বাঙালি হয়ে ওঠেন। এখানকার সাজ-পোশাক, খাবার—সবকিছুতেই অপার আনন্দ পান তাঁরা। পয়লা বৈশাখ, বিজয় দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারিসহ নানা আয়োজন ও উত্সবে বাংলাদেশে থাকা বিদেশিদেরও শাড়ি-পাঞ্জাবিতে দেখা যায়। এখানে এসে তাঁরা আমাদের সংস্কৃতিকে আপন করে নেন, মেতে ওঠেন উত্সবের আনন্দে।বিশেষ দিনে এ দেশে থাকা বিদেশিরাও মেতে ওঠেন আনন্দে
পয়লা বৈশাখের সকালে যেমন তাঁরা কব্জি ডুবিয়ে পান্তা খান, তেমনি বারো হাতের শাড়ি পরে কুঁচি সেট করে নেন বাঙালি কায়দায়। বেশ কিছুদিন ধরে বাংলাদেশে আছেন অস্ট্রেলিয়ার জেসিকা। তিনি বললেন, ‘বাংলাদেশের উৎসবগুলো খুব রঙিন হয়। নানা ধরনের সাজ ও পোশাক দেখা যায়। বাংলা নববর্ষে আমিও এ বছর গালে বাংলাদেশ লিখেছিলাম। খুবই মজার ছিল বিষয়টা। পুরো দেশের মানুষ মনে হলো রাস্তায় নেমে এসেছে। এ দেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমি কয়েকটা লেখা পড়েছি। দেশের জন্য মানুষের এই আবেগ আমাকেও ছুঁয়ে গেছে।’
জাপানি ম্যা ওয়াতানবে যুক্ত আছেন বেসরকারি ও স্বেচ্ছাসেবামূলক সংগঠন এক মাত্রায়। সেখানে তিনি বাংলাদেশের শিশু ও নারীদের নিয়ে কাজ করছেন। তাঁর বিজয় দিবস কাটে এক মাত্রার শিশুদের সঙ্গে। শিশুদের বিজয়ের আয়োজন, লাল-সবুজ পোশাক আর তাদের বিজয়ের আনন্দে তিনি খুঁজে পান আগামীর বাংলাদেশকে।
.এ দেশের মানুষের যেকোনো বিষয়ে উত্সাহ, সরলতা, দয়ালু মন ভালো লেগেছে তাঁর। তাঁর বন্ধু সুনসেকও বাংলাদেশ পছন্দ করেন। সুনসেকের সঙ্গে আলাপে তিনি বলেন, ‘এ দেশে এসে দেখেছি বিজয় দিবসে লাল-সবুজ পোশাক পরে, হাতে পতাকা নিয়ে বাংলাদেশিরা বিজয় দিবস পালন করে। সেটি দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি।’
দুই বন্ধুর সেই আড্ডায় ম্যা তখন বললেন, ‘এ দেশের পোশাক, পোশাকে রঙের ব্যবহার জাপানের থেকে আলাদা। জাপানে সাদাসিধা, হালকা রঙের পোশাক বেশি পরে। তবে এ দেশে রঙিন পোশাকে মনুষদের দেখতে বেশ ভালো লাগে। আর যেকোনো উত্সবে সবাই মিলে যখন রং-বেরঙের পোশাকে বাইরে আসে, তখন সত্যিই অন্য রকম লাগে।’ বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধ—অনেক বিষয়েই জানাশোনা আছে তাঁদের। মায়ের ভাষায়   কথা বলার জন্য যারা জীবন দিতে পারে, সেই ভাষা না শিখলে চলে! ম্যা ওয়াতানবে ও সুনসেক দুজনেই তাই বাংলা শিখেছেন। সাক্ষাৎকারের সময়ও তাই কথা হলো বাংলাতেই। এখানের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে তাঁরা সে দেশের জনপ্রিয় গান বাংলায় অনুবাদ করে গেয়েছেনও। সম্প্রতি হলি আর্টিজান ট্র্যাজেডির কথা স্মরণ করে তাঁরা বললেন, ‘হাসিখুশি বাংলাদেশ দেখতে চাই সব সময়। আমরা চাই বাংলাদেশ ও জাপানের বন্ধুত্বও অটুট থাক।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X