রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৯:২২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, December 25, 2016 6:05 pm
A- A A+ Print

ওমানে ভারতকে পিছনে ফেলেছে বাংলাদেশ

%e0%a7%ac%e0%a7%ac%e0%a7%ac%e0%a7%ac

ওমানে এখন অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশী কাজ করছেন। আগে এ অবস্থানে ছিল ভারত। কিন্তু সব দেশকে পিছনে ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশ। সরকারি এক পরিসংখ্যানে এ কথা বলা হয়েছে। ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্ট্যাটিসটিকস অ্যান্ড ইনফরমেশন (এনসিএসআই)-এর ওই পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, এ বছর নভেম্বরের শেষ নাগাদ ওমানে অবস্থানকারী বাংলাদেশীর সংখ্যা ৬ লাখ ৯৪ হাজার ৪৪৯। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতীয়দের সংখ্যা ৬ লাখ ৯১ হাজার ৭৭৫। এক্ষেত্রে ওমানে পাকিস্তানির সংখ্যা ২ লাখ ৩১ হাজার ৬৮৫। নভেম্বরে সেখানে বাংলাদেশীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৯ হাজার ৪২৪। পাকিস্তানের ক্ষেত্রে এ সংখ্যা ১ হাজার ২৮৭। ভারতের বেলায় এ সংখ্যা ১ হাজার ৬০৭। এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ওমান। এতে বলা হয়েছে, কয়েক দশক ধরে ওমানে অভিবাসী শ্রমিকের মধ্যে সংখ্যার দিক থেকে ভারত ছিল শীর্ষে। কিন্তু পুলিশি বিধিনিষেধ সত্ত্বেও বহু সংখ্যক বাংলাদেশীকে ওমানে প্রবেশ করতে দেয়া হয়েছে। ফলে নভেম্বর নাগাদ তাদের সংখ্যা ভারতীয়দের অতিক্রম করেছে। ওমানে বাংলাদেশ দূতাবাসের এক মুখপাত্র বলেছেন, বাংলাদেশী শ্রমিকদের কাছে ওমানের বড় বড় সব প্রকল্পে কাজ করা বেশি জনপ্রিয়। তবে ভারতীয়দের এক মুখপাত্র বলেছেন, ভারতে বেতন ও কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ উন্নত হওয়ায় বেশির ভাগ ভারতীয় শ্রমিক এখন দেশে অবস্থান করাকেই বেছে নিয়েছেন। এনসিএসআইয়ের হিসাব মতে, গত বছর ওমানে অবস্থানরত বাংলাদেশীর সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৯০ হাজার ১৭০। ভারতীয়ের সংখ্যা ছিল ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৮৮২। তিন বছর আগে ২০১৩ সালের নভেম্বরে ওমানে বাংলাদেশী ছিলেন ৪ লাখ ৯৬ হাজার ৭৬১ জন। ভারতীয় ছিলেন ৬ লাখ ৩৪৯ জন। কিন্তু এ তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬৮৮ জন। ভারতীয়ের সংখ্যা  বেড়েছে ৯১ হাজার ৪২৬ জন। এ বিষয়ে টাইমস অব ওমানের সঙ্গে কথা বলেন মাস্কটে বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম বিভাগের কাউন্সেলর জাহেদ আহমেদ বলেছেন, যেসব বাংলাদেশী ওমানে আসছেন তার বেশির ভাগই ‘ব্লু কলার শ্রমিক’। তাদেরকে পেয়ে ওমানের স্পন্সররাও খুব খুশি। এতে আরও শ্রমিক নিয়োগে এটা সহায়ক হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে যেসব শ্রমিক ওমানে যাচ্ছেন তাদের বেশির ভাগেরই মাসিক বেতন ৯০ থেকে ১০০ ওমানি রিয়াল। এত বেতনে অন্য দেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগ করা খুবই কঠিন। এই কারণে বেশি করে বাংলাদেশী ওমানে যাচ্ছেন। ওদিকে ওসিসিআই সদস্য আহমেদ আল হুতি বলেছেন, ছোটখাটো কাজের জন্য ভারতীয় শ্রমিক পাওয়া খুব কঠিন। এ জন্য ভারতীয় শ্রমিকের সংখ্যা অতিক্রম করেছেন বাংলাদেশী শ্রমিকরা। তিনি বলেন, ভারতীয়রা এখন মধ্যম-পর্যায়ের কাজ খুঁজছেন। এতে যে শূন্যস্থান সৃষ্টি হচ্ছে তা পূরণ করছেন বাংলাদেশী শ্রমিকরা। তারা কৃষিক্ষেত্রে কাজ করছেন। ক্ষুদ্র শিল্পে কাজ করছেন। তাই বেশির ভাগ কোম্পানি নিয়োগ করছে বাংলাদেশী শ্রমিক। বাংলাদেশ সোশাল ক্লাবের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম ভুইয়া বলেন, নির্মাণ খাত, কৃষি, গৃহকর্মী, রেস্তোরাঁর কর্মী হিসেবে ওমানে যাচ্ছেন বেশির ভাগ বাংলাদেশী। ওমানে এখন বিভিন্ন প্রকল্পে অধিক সংখ্যক জনশক্তির প্রয়োজন। ইন্ডিয়ান সোশাল ক্লাবের চেয়ারম্যান ড. সতীশ নামবিয়ার বলেছেন, ভারতে অর্থনৈতিক অবস্থা ও কাজের পরিবেশ উন্নত হওয়ায় বিপুল সংখ্য শ্রমিক এখন দেশেই কাজ করছেন। ওমানে অন্য যেসব দেশের নাগরিকরা শ্রমিক হিসেবে কাজ করছেন সেসব দেশের মধ্যে রয়েছে ইথিওপিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিশর, নেপাল ও শ্রীলংকা।

Comments

Comments!

 ওমানে ভারতকে পিছনে ফেলেছে বাংলাদেশAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ওমানে ভারতকে পিছনে ফেলেছে বাংলাদেশ

Sunday, December 25, 2016 6:05 pm
%e0%a7%ac%e0%a7%ac%e0%a7%ac%e0%a7%ac

ওমানে এখন অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশী কাজ করছেন। আগে এ অবস্থানে ছিল ভারত। কিন্তু সব দেশকে পিছনে ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশ। সরকারি এক পরিসংখ্যানে এ কথা বলা হয়েছে। ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্ট্যাটিসটিকস অ্যান্ড ইনফরমেশন (এনসিএসআই)-এর ওই পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, এ বছর নভেম্বরের শেষ নাগাদ ওমানে অবস্থানকারী বাংলাদেশীর সংখ্যা ৬ লাখ ৯৪ হাজার ৪৪৯। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতীয়দের সংখ্যা ৬ লাখ ৯১ হাজার ৭৭৫। এক্ষেত্রে ওমানে পাকিস্তানির সংখ্যা ২ লাখ ৩১ হাজার ৬৮৫। নভেম্বরে সেখানে বাংলাদেশীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৯ হাজার ৪২৪। পাকিস্তানের ক্ষেত্রে এ সংখ্যা ১ হাজার ২৮৭। ভারতের বেলায় এ সংখ্যা ১ হাজার ৬০৭। এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ওমান। এতে বলা হয়েছে, কয়েক দশক ধরে ওমানে অভিবাসী শ্রমিকের মধ্যে সংখ্যার দিক থেকে ভারত ছিল শীর্ষে। কিন্তু পুলিশি বিধিনিষেধ সত্ত্বেও বহু সংখ্যক বাংলাদেশীকে ওমানে প্রবেশ করতে দেয়া হয়েছে। ফলে নভেম্বর নাগাদ তাদের সংখ্যা ভারতীয়দের অতিক্রম করেছে। ওমানে বাংলাদেশ দূতাবাসের এক মুখপাত্র বলেছেন, বাংলাদেশী শ্রমিকদের কাছে ওমানের বড় বড় সব প্রকল্পে কাজ করা বেশি জনপ্রিয়। তবে ভারতীয়দের এক মুখপাত্র বলেছেন, ভারতে বেতন ও কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ উন্নত হওয়ায় বেশির ভাগ ভারতীয় শ্রমিক এখন দেশে অবস্থান করাকেই বেছে নিয়েছেন। এনসিএসআইয়ের হিসাব মতে, গত বছর ওমানে অবস্থানরত বাংলাদেশীর সংখ্যা ছিল ৫ লাখ ৯০ হাজার ১৭০। ভারতীয়ের সংখ্যা ছিল ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৮৮২। তিন বছর আগে ২০১৩ সালের নভেম্বরে ওমানে বাংলাদেশী ছিলেন ৪ লাখ ৯৬ হাজার ৭৬১ জন। ভারতীয় ছিলেন ৬ লাখ ৩৪৯ জন। কিন্তু এ তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬৮৮ জন। ভারতীয়ের সংখ্যা  বেড়েছে ৯১ হাজার ৪২৬ জন। এ বিষয়ে টাইমস অব ওমানের সঙ্গে কথা বলেন মাস্কটে বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম বিভাগের কাউন্সেলর জাহেদ আহমেদ বলেছেন, যেসব বাংলাদেশী ওমানে আসছেন তার বেশির ভাগই ‘ব্লু কলার শ্রমিক’। তাদেরকে পেয়ে ওমানের স্পন্সররাও খুব খুশি। এতে আরও শ্রমিক নিয়োগে এটা সহায়ক হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে যেসব শ্রমিক ওমানে যাচ্ছেন তাদের বেশির ভাগেরই মাসিক বেতন ৯০ থেকে ১০০ ওমানি রিয়াল। এত বেতনে অন্য দেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগ করা খুবই কঠিন। এই কারণে বেশি করে বাংলাদেশী ওমানে যাচ্ছেন। ওদিকে ওসিসিআই সদস্য আহমেদ আল হুতি বলেছেন, ছোটখাটো কাজের জন্য ভারতীয় শ্রমিক পাওয়া খুব কঠিন। এ জন্য ভারতীয় শ্রমিকের সংখ্যা অতিক্রম করেছেন বাংলাদেশী শ্রমিকরা। তিনি বলেন, ভারতীয়রা এখন মধ্যম-পর্যায়ের কাজ খুঁজছেন। এতে যে শূন্যস্থান সৃষ্টি হচ্ছে তা পূরণ করছেন বাংলাদেশী শ্রমিকরা। তারা কৃষিক্ষেত্রে কাজ করছেন। ক্ষুদ্র শিল্পে কাজ করছেন। তাই বেশির ভাগ কোম্পানি নিয়োগ করছে বাংলাদেশী শ্রমিক। বাংলাদেশ সোশাল ক্লাবের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম ভুইয়া বলেন, নির্মাণ খাত, কৃষি, গৃহকর্মী, রেস্তোরাঁর কর্মী হিসেবে ওমানে যাচ্ছেন বেশির ভাগ বাংলাদেশী। ওমানে এখন বিভিন্ন প্রকল্পে অধিক সংখ্যক জনশক্তির প্রয়োজন। ইন্ডিয়ান সোশাল ক্লাবের চেয়ারম্যান ড. সতীশ নামবিয়ার বলেছেন, ভারতে অর্থনৈতিক অবস্থা ও কাজের পরিবেশ উন্নত হওয়ায় বিপুল সংখ্য শ্রমিক এখন দেশেই কাজ করছেন। ওমানে অন্য যেসব দেশের নাগরিকরা শ্রমিক হিসেবে কাজ করছেন সেসব দেশের মধ্যে রয়েছে ইথিওপিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিশর, নেপাল ও শ্রীলংকা।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X