বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৬:৩২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, October 30, 2016 7:26 am
A- A A+ Print

কত রানে নিরাপদ বাংলাদেশ?

7

কত রান করতে হবে বাংলাদেশকে? প্রশ্নটা করেই একটু থামতে হলো। সত্যিই তো, এ এক জটিল প্রশ্ন, আজ কত করলে বাংলাদেশ নিজেদের নিরাপদ ভাবতে পারে? দুই দলের প্রথম ইনিংস বলছে, ২৫০ রানের লক্ষ্য দিয়েই তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে পারে বাংলাদেশ। টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে ২৫০ রানের লক্ষ্য যথেষ্ট নিরাপদ। আর মাঠটা যেহেতু এশিয়ার, কথাই নেই। বাংলাদেশকে রানের হিসাব-নিকাশের এই ঝামেলায় ফেলে দিলেন যে ক্রিস ওকস, তিনিও এর চেয়ে বড় স্কোর তাড়া করার ঝুঁকিতে যেতে চাইলেন না। বাংলাদেশকে কত রানে আটকাতে চান—এ প্রশ্নকে ‘খুবই জটিল’ বলে সীমানাটা এভাবে এঁকে নিলেন, ‘২৫০-ই আদর্শ। যেকোনো ম্যাচে তাড়া করতে চাইলে বড় স্কোর তাড়া করতে চাইবেন না। যতটা কমে আটকানো যায় সে চেষ্টাই করব।’ আড়াই শ রানের লিড বাংলাদেশ কালই পেয়ে যেতে পারত। সেটা হতে দেননি ওকস। আদিল রশিদের সঙ্গে নবম উইকেটে ৯৯ রানের জুটিতে ইংল্যান্ডকে প্রথম ইনিংসে ২৪ রানের লিড এনে দিয়েছেন। ওকস জানেন কতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল তাঁদের জুটিটা, ‘ওই সময় বাংলাদেশের চেয়ে প্রায় ১০০ রানে (৭৬ রানে) পিছিয়ে ছিলাম। চেয়েছিলাম ওদের যতটা কাছাকাছি যাওয়া যায়। তৃতীয় ইনিংসে ৮০ বা ১০০ রানে পিছিয়ে থাকলে ম্যাচ আমাদের হাত থেকে বেরিয়ে যেত। ওই জুটিতেই ম্যাচটা সমতায় এসেছে।’ দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৩ উইকেটে ১৫২। প্রথম ইনিংসের ঘাটতি কাটিয়ে বাংলাদেশ ১২৮ রানে এগিয়ে। সে অনুযায়ী আর ১২২ রান করতে পারলেই স্বাগতিক দলের স্বস্তি! কারণ, এশিয়ায় ২৫০ বা এর বেশি রান তাড়া করে জয়ের ঘটনা মাত্র ১৫টি। উপমহাদেশের বাইরের দলগুলো সেটি পেরেছে মাত্র তিনবার। ইংল্যান্ড একবারও নয়। তাহলে তো হয়েই গেল! কিন্তু সেটিও ভাবা যাচ্ছে না। মেহেদী হাসান মিরাজও যেমন এ নিয়ে ভাবছেন না। মোটা দাগের পরিকল্পনাটাই শুধু জানিয়ে দিলেন সংবাদ সম্মেলনে, ‘সবাই মিলে চেষ্টা করব স্কোরটা যেন বড় হয়। যে স্কোরই হোক না কেন আমরা সেটা নিয়ে লড়াই করব।’ সেখান থেকে বেরিয়ে কারণটিও বলে দিয়েছেন কেন নির্দিষ্ট কোনো স্কোরের কথা মাথায় আনছেন না। নিরাপদ কিছুই না, এখনো তিন দিন বাকি! তারপরও সাংবাদিকদের খোঁচাখুঁচিতে জানিয়েছেন, ‘ইনশা আল্লাহ তিন শ!’ ঝামেলা বাধাচ্ছে দিনের সংখ্যাটাই। ম্যাচের এখনো তিন দিন বাকি, আড়াই শ না তিন শ রানের চেয়ে এখনো ২৭০ ওভার খেলা সম্ভব কি না এ তথ্যটাই বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। গত সপ্তাহে চট্টগ্রামেই তো ২৮৬ রানের লক্ষ্যটা প্রায় ছুঁয়ে ফেলেছিল বাংলাদেশ। এই মিরপুরেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চতুর্থ ইনিংসে ৪১৩ রান করেছে বাংলাদেশ। তাহলে ৩০০ রানকেই বা কীভাবে নিরাপদ ভাববেন মুশফিকরা! এ ক্ষেত্রে ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকানো যায়। ইতিহাস জানাচ্ছে, এশিয়ায় ২৫০ রান তাড়া করে কখনো জেতেনি ইংল্যান্ড। সর্বোচ্চ ২০৯ রান করে জিতেছে দুবার। প্রথমবার ১৯৬১ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে। দ্বিতীয়বার বাংলাদেশের বিপক্ষে মিরপুরেই, ২০১০ সালে। দুই শর বেশি তাড়া করে আর একবারই জিতেছে ইংলিশরা, তবে সেটি ৪৪ বছর আগের গল্প। হেরে যাওয়া ম্যাচগুলো হিসাব করলেও চতুর্থ ইনিংসে ২৫০ রান মাত্র ৪ বারই তারা পেরিয়েছে। সর্বোচ্চ ৩১২ রান গত বছর দুবাইয়ে। তবুও আড়াই শ রানের সীমারেখা টানা যাচ্ছে না দুটি কারণে। প্রথম কারণ মিরপুরের পিচ। প্রথম দিনের ১৩ উইকেটের পর কাল প্রথম সেশনেও পড়েছে ৫ উইকেট। এ উইকেটে চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করার কথা ভেবে হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার কথা ব্যাটসম্যানদের। কিন্তু পরের দুই সেশনে এতটাই স্বচ্ছন্দে ব্যাটিং করলেন রশিদ-ওকস-তামিম-ইমরুলরা, যে ধন্দই লেগে যায় এটা একই উইকেট তো! আরেকটি তথ্যও যে স্বস্তি দিচ্ছে না, উপমহাদেশের বাইরের মাত্র তিনটি দল আড়াই শ রান তাড়া করেছে বলা হয়েছিল ওপরে। এর দুটিতেই প্রতিপক্ষ ছিল বাংলাদেশ!

Comments

Comments!

 কত রানে নিরাপদ বাংলাদেশ?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

কত রানে নিরাপদ বাংলাদেশ?

Sunday, October 30, 2016 7:26 am
7

কত রান করতে হবে বাংলাদেশকে?
প্রশ্নটা করেই একটু থামতে হলো। সত্যিই তো, এ এক জটিল প্রশ্ন, আজ কত করলে বাংলাদেশ নিজেদের নিরাপদ ভাবতে পারে?
দুই দলের প্রথম ইনিংস বলছে, ২৫০ রানের লক্ষ্য দিয়েই তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে পারে বাংলাদেশ। টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে ২৫০ রানের লক্ষ্য যথেষ্ট নিরাপদ। আর মাঠটা যেহেতু এশিয়ার, কথাই নেই। বাংলাদেশকে রানের হিসাব-নিকাশের এই ঝামেলায় ফেলে দিলেন যে ক্রিস ওকস, তিনিও এর চেয়ে বড় স্কোর তাড়া করার ঝুঁকিতে যেতে চাইলেন না। বাংলাদেশকে কত রানে আটকাতে চান—এ প্রশ্নকে ‘খুবই জটিল’ বলে সীমানাটা এভাবে এঁকে নিলেন, ‘২৫০-ই আদর্শ। যেকোনো ম্যাচে তাড়া করতে চাইলে বড় স্কোর তাড়া করতে চাইবেন না। যতটা কমে আটকানো যায় সে চেষ্টাই করব।’
আড়াই শ রানের লিড বাংলাদেশ কালই পেয়ে যেতে পারত। সেটা হতে দেননি ওকস। আদিল রশিদের সঙ্গে নবম উইকেটে ৯৯ রানের জুটিতে ইংল্যান্ডকে প্রথম ইনিংসে ২৪ রানের লিড এনে দিয়েছেন। ওকস জানেন কতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল তাঁদের জুটিটা, ‘ওই সময় বাংলাদেশের চেয়ে প্রায় ১০০ রানে (৭৬ রানে) পিছিয়ে ছিলাম। চেয়েছিলাম ওদের যতটা কাছাকাছি যাওয়া যায়। তৃতীয় ইনিংসে ৮০ বা ১০০ রানে পিছিয়ে থাকলে ম্যাচ আমাদের হাত থেকে বেরিয়ে যেত। ওই জুটিতেই ম্যাচটা সমতায় এসেছে।’
দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৩ উইকেটে ১৫২। প্রথম ইনিংসের ঘাটতি কাটিয়ে বাংলাদেশ ১২৮ রানে এগিয়ে। সে অনুযায়ী আর ১২২ রান করতে পারলেই স্বাগতিক দলের স্বস্তি! কারণ, এশিয়ায় ২৫০ বা এর বেশি রান তাড়া করে জয়ের ঘটনা মাত্র ১৫টি। উপমহাদেশের বাইরের দলগুলো সেটি পেরেছে মাত্র তিনবার। ইংল্যান্ড একবারও নয়। তাহলে তো হয়েই গেল!
কিন্তু সেটিও ভাবা যাচ্ছে না। মেহেদী হাসান মিরাজও যেমন এ নিয়ে ভাবছেন না। মোটা দাগের পরিকল্পনাটাই শুধু জানিয়ে দিলেন সংবাদ সম্মেলনে, ‘সবাই মিলে চেষ্টা করব স্কোরটা যেন বড় হয়। যে স্কোরই হোক না কেন আমরা সেটা নিয়ে লড়াই করব।’ সেখান থেকে বেরিয়ে কারণটিও বলে দিয়েছেন কেন নির্দিষ্ট কোনো স্কোরের কথা মাথায় আনছেন না। নিরাপদ কিছুই না, এখনো তিন দিন বাকি! তারপরও সাংবাদিকদের খোঁচাখুঁচিতে জানিয়েছেন, ‘ইনশা আল্লাহ তিন শ!’
ঝামেলা বাধাচ্ছে দিনের সংখ্যাটাই। ম্যাচের এখনো তিন দিন বাকি, আড়াই শ না তিন শ রানের চেয়ে এখনো ২৭০ ওভার খেলা সম্ভব কি না এ তথ্যটাই বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। গত সপ্তাহে চট্টগ্রামেই তো ২৮৬ রানের লক্ষ্যটা প্রায় ছুঁয়ে ফেলেছিল বাংলাদেশ। এই মিরপুরেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চতুর্থ ইনিংসে ৪১৩ রান করেছে বাংলাদেশ। তাহলে ৩০০ রানকেই বা কীভাবে নিরাপদ ভাববেন মুশফিকরা!
এ ক্ষেত্রে ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকানো যায়। ইতিহাস জানাচ্ছে, এশিয়ায় ২৫০ রান তাড়া করে কখনো জেতেনি ইংল্যান্ড। সর্বোচ্চ ২০৯ রান করে জিতেছে দুবার। প্রথমবার ১৯৬১ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে। দ্বিতীয়বার বাংলাদেশের বিপক্ষে মিরপুরেই, ২০১০ সালে। দুই শর বেশি তাড়া করে আর একবারই জিতেছে ইংলিশরা, তবে সেটি ৪৪ বছর আগের গল্প। হেরে যাওয়া ম্যাচগুলো হিসাব করলেও চতুর্থ ইনিংসে ২৫০ রান মাত্র ৪ বারই তারা পেরিয়েছে। সর্বোচ্চ ৩১২ রান গত বছর দুবাইয়ে।
তবুও আড়াই শ রানের সীমারেখা টানা যাচ্ছে না দুটি কারণে। প্রথম কারণ মিরপুরের পিচ। প্রথম দিনের ১৩ উইকেটের পর কাল প্রথম সেশনেও পড়েছে ৫ উইকেট। এ উইকেটে চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করার কথা ভেবে হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার কথা ব্যাটসম্যানদের। কিন্তু পরের দুই সেশনে এতটাই স্বচ্ছন্দে ব্যাটিং করলেন রশিদ-ওকস-তামিম-ইমরুলরা, যে ধন্দই লেগে যায় এটা একই উইকেট তো!
আরেকটি তথ্যও যে স্বস্তি দিচ্ছে না, উপমহাদেশের বাইরের মাত্র তিনটি দল আড়াই শ রান তাড়া করেছে বলা হয়েছিল ওপরে। এর দুটিতেই প্রতিপক্ষ ছিল বাংলাদেশ!

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X