রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৫:২৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, July 31, 2016 12:56 pm
A- A A+ Print

কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় বৈঠক করেছিল তামিম: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

pic_136842

গুলশান হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ তামিম আহমেদ চৌধুরী কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্থানায় বৈঠক করেছিল বলে বাংলাদেশ পুলিশের বরাতে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। তামিম চৌধুরীর বিরুদ্ধে জঙ্গিদের উজ্জীবিত করা এবং তাদের আর্থিক সহায়তা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনআইএ-র দাবি, কল্যাণপুর অভিযানে বেঁচে যাওয়া আহত জঙ্গি তাদের কাছে তামিমের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছেন। ভারতের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম প্রেস ট্রাস্ট ইন্ডিয়া পিটিআই-এর বরাত দিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে পিটিআইকে জানিয়েছেন, কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্থানায় পুলিশি অভিযানের চারদিন আগে পুলিশ প্রথম সূত্র পায়, আর এ থেকে তামিম চৌধুরীকে গুলশান হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ হিসেবে শনাক্ত করা হয়। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ আগে থেকেই তামিম চৌধুরীকে গুলশান হামলার সঙ্গে জড়িত বলে মনে করছিল। ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা তামিম চৌধুরীকে পরপর দুটি জঙ্গি হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ হিসেবে শনাক্ত করি। তাকে খুঁজে বের করার জন্য আমরা একটি তল্লাশি অভিযান শুরু করি। আমরা মনে করি, সে (তামিম চৌধুরী) তিন বছর আগে কানাডা থেকে ফিরে এখন বাংলাদেশেই আছে।’ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলছে, পুলিশ প্রতিবেদন অনুযায়ী, তামিম চৌধুরীর কল্যাণপুরে যাতায়াত ছিল। সেখানে জঙ্গিদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া এবং জঙ্গি তৎপরতা চালাতে উদবুদ্ধ করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কল্যাণপুরের অভিযানে আহত অবস্থায় আটক জঙ্গি রকিবুল হাসানও পুলিশকে এই কথা নিশ্চিত করেছে বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এএনআই  জানিয়েছে। ইসলামিক স্টেট (আইএস) তামিম চৌধুরীকেই বাংলাদেশে আইএস-এর প্রধান বলে দাবি করেছে। আনুমানিক ৩৫ বছর বয়সী তামিম চৌধুরীকেই বাংলাদেশের কথিত আইএস প্রধান আবু ইব্রাহিম আল-হানিফ বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২০১৩ সালে তিনি কানাডা ছাড়েন। অনেক নিরাপত্তা বিশ্লেষক তার পরিচয় নিশ্চিত করেছেন। চলতি বছরে আইএস-এর কথিত প্রপাগান্ডা ম্যাগাজিন দাবিক-এ তার একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছিল। তবে বাংলাদেশ পুলিশের সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, তামিম জেএমবি-র একাংশের প্রধান। অপর অংশের নেতৃত্বে আছে সাইদুর রহমান। এদিকে, তামিমসহ জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)-এর অন্তত পাঁচ সদস্য ভারতে প্রবেশ করেছে বলে সন্দেহ করছে বাংলাদেশ। এরইমধ্যে সেই পাঁচ সন্দেহভাজনের নামের তালিকা ভারত সরকারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সে দেশে গ্রেফতার সন্দেহভাজন জেএমবি সদস্য নুরুল হক ম-ল ওরফে নাইমকে ফেরত দেয়ারও অনুরোধ জানানো হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গত বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় এক বৈঠকে সন্দেহভাজন পাঁচ জেএমবি সদস্যের ব্যাপারে আলোচনা করেন। সেই বৈঠকেই নাইমকে দেশে ফেরত পাঠানোর এ অনুরোধ জানান বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গুলশান হামলার পর থেকেই পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও মেঘালয়ার মতো ভারতীয় রাজ্যগুলোকে সতর্কতায় রাখা হয়েছে। সে সতর্কতার মধ্যেই এবার বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে পাঁচ সন্দেহভাজন জঙ্গির তালিকা ভারতকে দেওয়া হয়। কয়েকদিন আগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) যে ৬৮ জন নিখোঁজের তালিকা প্রকাশ করেছে তার মধ্যে ওই পাঁচজনের নাম রয়েছে। বাংলাদেশের দাবি অনুযায়ী, তারা সবাই জেএমবি-র কর্মী। তারা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে বলে ধারণা করছে বাংলাদেশ। পাঁচ সন্দেহভাজনের মধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডীয় নাগরিক তামিম চৌধুরীও রয়েছেন। তাকে গুলশান হামলার হোতা বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। প্রতিবেশী দেশগুলোর স্থানীয় জঙ্গিগোষ্ঠী এবং আইএস-এর সঙ্গে তার সংযোগ রয়েছে বলে ধারণা করা হয়।

Comments

Comments!

 কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় বৈঠক করেছিল তামিম: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানায় বৈঠক করেছিল তামিম: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

Sunday, July 31, 2016 12:56 pm
pic_136842
গুলশান হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ তামিম আহমেদ চৌধুরী কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্থানায় বৈঠক করেছিল বলে বাংলাদেশ পুলিশের বরাতে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। তামিম চৌধুরীর বিরুদ্ধে জঙ্গিদের উজ্জীবিত করা এবং তাদের আর্থিক সহায়তা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনআইএ-র দাবি, কল্যাণপুর অভিযানে বেঁচে যাওয়া আহত জঙ্গি তাদের কাছে তামিমের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছেন।

ভারতের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম প্রেস ট্রাস্ট ইন্ডিয়া পিটিআই-এর বরাত দিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে পিটিআইকে জানিয়েছেন, কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্থানায় পুলিশি অভিযানের চারদিন আগে পুলিশ প্রথম সূত্র পায়, আর এ থেকে তামিম চৌধুরীকে গুলশান হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ হিসেবে শনাক্ত করা হয়। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ আগে থেকেই তামিম চৌধুরীকে গুলশান হামলার সঙ্গে জড়িত বলে মনে করছিল।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা তামিম চৌধুরীকে পরপর দুটি জঙ্গি হামলার ‘মাস্টারমাইন্ড’ হিসেবে শনাক্ত করি। তাকে খুঁজে বের করার জন্য আমরা একটি তল্লাশি অভিযান শুরু করি। আমরা মনে করি, সে (তামিম চৌধুরী) তিন বছর আগে কানাডা থেকে ফিরে এখন বাংলাদেশেই আছে।’

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলছে, পুলিশ প্রতিবেদন অনুযায়ী, তামিম চৌধুরীর কল্যাণপুরে যাতায়াত ছিল। সেখানে জঙ্গিদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া এবং জঙ্গি তৎপরতা চালাতে উদবুদ্ধ করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কল্যাণপুরের অভিযানে আহত অবস্থায় আটক জঙ্গি রকিবুল হাসানও পুলিশকে এই কথা নিশ্চিত করেছে বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এএনআই  জানিয়েছে।

ইসলামিক স্টেট (আইএস) তামিম চৌধুরীকেই বাংলাদেশে আইএস-এর প্রধান বলে দাবি করেছে। আনুমানিক ৩৫ বছর বয়সী তামিম চৌধুরীকেই বাংলাদেশের কথিত আইএস প্রধান আবু ইব্রাহিম আল-হানিফ বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২০১৩ সালে তিনি কানাডা ছাড়েন। অনেক নিরাপত্তা বিশ্লেষক তার পরিচয় নিশ্চিত করেছেন। চলতি বছরে আইএস-এর কথিত প্রপাগান্ডা ম্যাগাজিন দাবিক-এ তার একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছিল। তবে বাংলাদেশ পুলিশের সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, তামিম জেএমবি-র একাংশের প্রধান। অপর অংশের নেতৃত্বে আছে সাইদুর রহমান।

এদিকে, তামিমসহ জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)-এর অন্তত পাঁচ সদস্য ভারতে প্রবেশ করেছে বলে সন্দেহ করছে বাংলাদেশ। এরইমধ্যে সেই পাঁচ সন্দেহভাজনের নামের তালিকা ভারত সরকারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সে দেশে গ্রেফতার সন্দেহভাজন জেএমবি সদস্য নুরুল হক ম-ল ওরফে নাইমকে ফেরত দেয়ারও অনুরোধ জানানো হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গত বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় এক বৈঠকে সন্দেহভাজন পাঁচ জেএমবি সদস্যের ব্যাপারে আলোচনা করেন। সেই বৈঠকেই নাইমকে দেশে ফেরত পাঠানোর এ অনুরোধ জানান বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গুলশান হামলার পর থেকেই পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও মেঘালয়ার মতো ভারতীয় রাজ্যগুলোকে সতর্কতায় রাখা হয়েছে। সে সতর্কতার মধ্যেই এবার বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে পাঁচ সন্দেহভাজন জঙ্গির তালিকা ভারতকে দেওয়া হয়। কয়েকদিন আগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) যে ৬৮ জন নিখোঁজের তালিকা প্রকাশ করেছে তার মধ্যে ওই পাঁচজনের নাম রয়েছে। বাংলাদেশের দাবি অনুযায়ী, তারা সবাই জেএমবি-র কর্মী। তারা সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে বলে ধারণা করছে বাংলাদেশ।

পাঁচ সন্দেহভাজনের মধ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডীয় নাগরিক তামিম চৌধুরীও রয়েছেন। তাকে গুলশান হামলার হোতা বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। প্রতিবেশী দেশগুলোর স্থানীয় জঙ্গিগোষ্ঠী এবং আইএস-এর সঙ্গে তার সংযোগ রয়েছে বলে ধারণা করা হয়।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X