বুধবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং, ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১:১৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, July 16, 2017 9:59 pm
A- A A+ Print

কাঁদলেন মুশফিক, শাস্তির আশ্বাস

74293_musfik

‘মুশফিকুর রহীম বাজে অধিনায়ক’- বেসরকারি এটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বরিশাল বুলসের ফ্র্যাঞ্জাইজি মালিক ও বিসিবি পরিচালক, মহিলা বিভাগের চেয়ারম্যান এমএ আউয়াল বুলু এমন মন্তব্য করেছেন। মুশফিকের শৃঙ্খলা, দায়িত্ববোধ ও দলের ক্রিকেটারদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো নয় বলেও অভিযোগ করেন তিনি। বিষয়টি জানতে পেরে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) গভিনির্ং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক ও বিসিবি’র সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরীকে বিষয়টি জানান মুশফিক। এরপরই সংবাদ সম্মেলনে প্রতিবাদ করতে এসে কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন টেস্ট দলের অধিনায়ক ও দেশের সেরা উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। এই সময় ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘আমি তার (বুলু) ভিডিওটি দেখেছি। আমি কোনোভাবেই জাতীয় দলের একজন অধিনায়ককে নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকের এমন মন্তব্য মেনে নিতে পারছি না। তার কোনো অধিকার নেই জাতীয় দলের কোনো সদস্যকে এই ভাবে অপমান করে কথা বলার। বিপিএল’র একটি কোড অব কন্টাক্ট রয়েছে। তাকে আমরা এরই মধ্যে ফোন করে ডেকেছি কথা বলার জন্য। তাকে শোকজ করা হবে। যদি তিনি আমাদের উত্তর দিয়ে সন্তুষ্ট করতে না পারেন তাহলে শাস্তি  পেতে হবে। তাকে ক্ষমাও চাইতে হবে।’ ইসমাইল হায়দার মল্লিক শাস্তির কথা বলার পর সংবাদ মাধ্যমের প্রশ্নে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন মুশফিক। তিনি বলেন, ‘আপনারা নিশ্চয়ই জানেন আমাকে নিয়ে এমন প্রশ্ন ওঠে না। হ্যাঁ, মাঠের পারফরমেন্স নিয়ে তিনি মন্তব্য করতে পারেন। বলতে পারেন আমি ভালো খেলি না। তবে আমার শৃঙ্খলা ও দায়িত্ববোধ নিয়ে তিনি যে প্রশ্ন তুলেছেন কিংবা আমি  খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতে পারি না, টিম মিটিংয়ে কথা বলি না এসব কথা খুব খারাপ লেগেছে।’  কথা বলতে বলতেই মুশফিকের চোখ লাল হয়ে ওঠে। গলা থেকে যেন কথা বের হতে চাইছিলো না। তারপরও তিনি বলেন, ‘মল্লিক ভাই বলেছেন, ওনারা ব্যাপারটা  দেখবেন। আজ আমার সঙ্গে হয়েছে। কাল অন্যদের সঙ্গে যে হবে না, এর নিশ্চয়তা নেই। একজন  খেলোয়াড় এতটুকু সম্মান আশা করতেই পারে।  দেশকে এতদিন  সেবা দিচ্ছি, এতটুকু সম্মান...।’ কথা শেষ না হতেই উঠে দাঁড়ালেন তিনি। চোখে তখন জল। তাকে কয়েকবার ডাকা হলেও কান্না লুকাতে বের হয়ে গেলেন। এমন ঘটনায় ইসমাইল হায়দার মল্লিক যেন আরো একটু বিচলিত হয়ে উঠলেন। তিনি বলেন, ‘দেখেন জাতীয় দলের অধিনায়ক বলে নয়, জাতীয় দলের কোনো  সদস্যকে বিসিবি’র দায়িত্বশীল পদে থেকে বা বিসিবি সংশ্লিষ্ট কিছুর সঙ্গে থেকে অপমান করে কথা বলতে পারেন না। আর মুশফিকতো বরিশাল বুলসে খেলতেই চায়নি। আমি সাক্ষী সেই তো (বুলু) পাগল হয়ে গিয়েছিলেন মুশফিককে নেয়ার জন্য। আমরা মুশফিকের সঙ্গে কথা বলে তাকে বরিশালে খেলতে রাজি করিয়েছি।’ এমএ আউয়াল বুলু বিসিবি’র প্রভাবশালী পরিচালকই নয়, তিনি আবাহনী ক্লাবের ক্রিকেট কমিটিতেও আছেন। যে কারণে তার শাস্তি হবে কিনা এ নিয়ে কিছুটা সন্দেহ রয়েছে। তবে এমন সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়ে মল্লিক। বলেন, ‘আমি দুই গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি। যদি বোর্ড সভাপতি দেশে থাকতেন তাকেও জানাতাম। আমি বিষয়টি নিয়ে বোর্ডে সবার সঙ্গে কথা বলবো। কী ধরনের শাস্তি হবে সেটি এখনই বলা না  গেলেও একটুকু বলতে পারি  হয় তাকে আর্থিকভাবে জরিমানা করা হতে পারে, নয়তো তাকে অন্য শাস্তিও দেয়া হতে পারে। আর বোর্ড পরিচালক বলেইতো তিনি এমন কোনো মন্তব্য করতে পারেন না। তাকেতো সেই অধিকার দেয়া হয়নি।’ অন্যদিকে টিভিতে বলা কথা প্রায় সময় ভুলভাবে প্রচার করা হয়েছে উল্লেখ করে অনেকেই পার পেয়ে যান। বুলু এমন কিছু করলে কি হবে সেই প্রশ্নের জবাবে মল্লিক বলেন, ‘আমি ভিডিও দেখেছি। বেশ ভালোভাবেই দেখেছি আমার যতটা মনে হয়েছে তিনি টিভি ক্যামেরা চালু থাকা অবস্থায় জেনে শুনে এ সব বলেছেন। এটি নিয়ে অন্য কিছু বলার অবকাশ দেখছি না। মুশফিক ক্রিকেটার হিসাব করলে ১৭ বছর, জাতীয় দলের হয়ে খেলছেন ১২ বছর ধরে। গত বিপিএল খেলেছেন বরিশাল বুলসের ‘আইকন’ হিসেবে। তার নেতৃত্বে শেষ চারে উঠতে পারেনি বরিশাল। তবে দলের পারফরম্যান্স যাই হোক, মুশফিক ব্যাটিং নিয়ে প্রশ্ন  তোলার সুযোগ রাখেননি। ১২ ম্যাচে ৩৭.৮৮ গড়ে ৩৪১ রান করে দলের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তিনিই ছিলেন সবার ওপরে।

Comments

Comments!

 কাঁদলেন মুশফিক, শাস্তির আশ্বাসAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

কাঁদলেন মুশফিক, শাস্তির আশ্বাস

Sunday, July 16, 2017 9:59 pm
74293_musfik

‘মুশফিকুর রহীম বাজে অধিনায়ক’- বেসরকারি এটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বরিশাল বুলসের ফ্র্যাঞ্জাইজি মালিক ও বিসিবি পরিচালক, মহিলা বিভাগের চেয়ারম্যান এমএ আউয়াল বুলু এমন মন্তব্য করেছেন। মুশফিকের শৃঙ্খলা, দায়িত্ববোধ ও দলের ক্রিকেটারদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো নয় বলেও অভিযোগ করেন তিনি। বিষয়টি জানতে পেরে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) গভিনির্ং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক ও বিসিবি’র সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরীকে বিষয়টি জানান মুশফিক। এরপরই সংবাদ সম্মেলনে প্রতিবাদ করতে এসে কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন টেস্ট দলের অধিনায়ক ও দেশের সেরা উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। এই সময় ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘আমি তার (বুলু) ভিডিওটি দেখেছি। আমি কোনোভাবেই জাতীয় দলের একজন অধিনায়ককে নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকের এমন মন্তব্য মেনে নিতে পারছি না। তার কোনো অধিকার নেই জাতীয় দলের কোনো সদস্যকে এই ভাবে অপমান করে কথা বলার। বিপিএল’র একটি কোড অব কন্টাক্ট রয়েছে। তাকে আমরা এরই মধ্যে ফোন করে ডেকেছি কথা বলার জন্য। তাকে শোকজ করা হবে। যদি তিনি আমাদের উত্তর দিয়ে সন্তুষ্ট করতে না পারেন তাহলে শাস্তি  পেতে হবে। তাকে ক্ষমাও চাইতে হবে।’
ইসমাইল হায়দার মল্লিক শাস্তির কথা বলার পর সংবাদ মাধ্যমের প্রশ্নে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন মুশফিক। তিনি বলেন, ‘আপনারা নিশ্চয়ই জানেন আমাকে নিয়ে এমন প্রশ্ন ওঠে না। হ্যাঁ, মাঠের পারফরমেন্স নিয়ে তিনি মন্তব্য করতে পারেন। বলতে পারেন আমি ভালো খেলি না। তবে আমার শৃঙ্খলা ও দায়িত্ববোধ নিয়ে তিনি যে প্রশ্ন তুলেছেন কিংবা আমি  খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতে পারি না, টিম মিটিংয়ে কথা বলি না এসব কথা খুব খারাপ লেগেছে।’  কথা বলতে বলতেই মুশফিকের চোখ লাল হয়ে ওঠে। গলা থেকে যেন কথা বের হতে চাইছিলো না। তারপরও তিনি বলেন, ‘মল্লিক ভাই বলেছেন, ওনারা ব্যাপারটা  দেখবেন। আজ আমার সঙ্গে হয়েছে। কাল অন্যদের সঙ্গে যে হবে না, এর নিশ্চয়তা নেই। একজন  খেলোয়াড় এতটুকু সম্মান আশা করতেই পারে।  দেশকে এতদিন  সেবা দিচ্ছি, এতটুকু সম্মান…।’ কথা শেষ না হতেই উঠে দাঁড়ালেন তিনি। চোখে তখন জল। তাকে কয়েকবার ডাকা হলেও কান্না লুকাতে বের হয়ে গেলেন।
এমন ঘটনায় ইসমাইল হায়দার মল্লিক যেন আরো একটু বিচলিত হয়ে উঠলেন। তিনি বলেন, ‘দেখেন জাতীয় দলের অধিনায়ক বলে নয়, জাতীয় দলের কোনো  সদস্যকে বিসিবি’র দায়িত্বশীল পদে থেকে বা বিসিবি সংশ্লিষ্ট কিছুর সঙ্গে থেকে অপমান করে কথা বলতে পারেন না। আর মুশফিকতো বরিশাল বুলসে খেলতেই চায়নি। আমি সাক্ষী সেই তো (বুলু) পাগল হয়ে গিয়েছিলেন মুশফিককে নেয়ার জন্য। আমরা মুশফিকের সঙ্গে কথা বলে তাকে বরিশালে খেলতে রাজি করিয়েছি।’
এমএ আউয়াল বুলু বিসিবি’র প্রভাবশালী পরিচালকই নয়, তিনি আবাহনী ক্লাবের ক্রিকেট কমিটিতেও আছেন। যে কারণে তার শাস্তি হবে কিনা এ নিয়ে কিছুটা সন্দেহ রয়েছে। তবে এমন সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়ে মল্লিক। বলেন, ‘আমি দুই গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি। যদি বোর্ড সভাপতি দেশে থাকতেন তাকেও জানাতাম। আমি বিষয়টি নিয়ে বোর্ডে সবার সঙ্গে কথা বলবো। কী ধরনের শাস্তি হবে সেটি এখনই বলা না  গেলেও একটুকু বলতে পারি  হয় তাকে আর্থিকভাবে জরিমানা করা হতে পারে, নয়তো তাকে অন্য শাস্তিও দেয়া হতে পারে। আর বোর্ড পরিচালক বলেইতো তিনি এমন কোনো মন্তব্য করতে পারেন না। তাকেতো সেই অধিকার দেয়া হয়নি।’
অন্যদিকে টিভিতে বলা কথা প্রায় সময় ভুলভাবে প্রচার করা হয়েছে উল্লেখ করে অনেকেই পার পেয়ে যান। বুলু এমন কিছু করলে কি হবে সেই প্রশ্নের জবাবে মল্লিক বলেন, ‘আমি ভিডিও দেখেছি। বেশ ভালোভাবেই দেখেছি আমার যতটা মনে হয়েছে তিনি টিভি ক্যামেরা চালু থাকা অবস্থায় জেনে শুনে এ সব বলেছেন। এটি নিয়ে অন্য কিছু বলার অবকাশ দেখছি না।
মুশফিক ক্রিকেটার হিসাব করলে ১৭ বছর, জাতীয় দলের হয়ে খেলছেন ১২ বছর ধরে। গত বিপিএল খেলেছেন বরিশাল বুলসের ‘আইকন’ হিসেবে। তার নেতৃত্বে শেষ চারে উঠতে পারেনি বরিশাল। তবে দলের পারফরম্যান্স যাই হোক, মুশফিক ব্যাটিং নিয়ে প্রশ্ন  তোলার সুযোগ রাখেননি। ১২ ম্যাচে ৩৭.৮৮ গড়ে ৩৪১ রান করে দলের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তিনিই ছিলেন সবার ওপরে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X