বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:৪৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, September 7, 2016 8:17 pm
A- A A+ Print

খারাপ নজির সৃষ্টি করল সরকার : বিএনপি

BNP1473255973

মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার প্রয়াত জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সমালোচনা করে বিএনপি বলছে, ‘এর মাধ্যমে ক্ষমতাসীনরা খারাপ নজির সৃষ্টি করল।’বিষয়টিকে ‘রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত, প্রতিহিংসামূলক এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ হিসেবেও অভিহিত করেছেন দলটির নেতারা।বুধবার প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর  স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।২০০৩ সালে তৎকালীন বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জিয়াউর রহমানকে মরণোত্তর স্বাধীনতা পুরস্কার দেওয়া হয়। তৎকালীন বিএনপির সরকারের ওই পদক্ষেপ জিয়াকে ওপরে তোলার চেষ্টা হিসেবে দেখে জাতির জনককে অবমাননার তীব্র সমালোচনা করেছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার সম্প্রতি জিয়াউর রহমানকে দেওয়া রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সম্মাননা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়। জিয়াউর রহমানের পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে ‘অন্যায় সিদ্ধান্ত’ অভিহিত করে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘এটা খুবই অন্যায় সিদ্ধান্ত। তিনি (জিয়াউর রহমান) জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সর্বাধিক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা, এটি অস্বীকার করার উপায় নেই। আওয়ামী লীগ সরকারই মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদান রাখার জন্য তাকে এই উপাধি দিয়েছে। সুতরাং এই পদক পাওয়ার যোগ্য তিনি। জিয়া বীরউত্তম হলে এই পদক পাওয়া নিয়ে কোনো বিতর্ক থাকতে পারে না।’ ড. মোশাররফ বলেন, ‘এটি রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত, প্রতিহিংসামূলক এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সিদ্ধান্ত। সরকার একটি খারাপ নজির সৃষ্টি করল। এ বিষয়ে যে বিতর্কের সূত্রপাত হলো, তা এই পদকধারীদের বিষয়ে আগামীতেও নতুন নতুন বিতর্ক সৃষ্টি করবে। এতে জাতি হিসেবে আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে।’ দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল  মাহবুবুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘এভাবে কারো সম্মান কেড়ে নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করা ঠিক নয়। তিনি (জিয়াউর রহমান) জেড ফোর্সের প্রধান ছিলেন, বীর উত্তম উপাধি পেয়েছেন; এগুলো স্বাধীনতা পদক পাওয়ার জন যথেষ্ট নয় কি? এই সিদ্ধান্ত খারাপ নজির সৃষ্টি করেছে।’ জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার ইতিহাসকে কলঙ্কিত করেছে, এ মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘সরকার কলঙ্কিত সিদ্ধান্ত নিল। ইতিহাসে এটি কলঙ্কজনক বিষয় হয়ে থাকবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘অনির্বাচিত সরকারের যে কোনো দায়িত্ব নেই এবং জনগণ ও ইতিহাসের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ নেই; তা এই সিদ্ধান্তে প্রমাণ হলো। এটি একটি ঘৃণ্য ও অবিবেচিত সিদ্ধান্ত। এর নিন্দা জানানোর ভাষা জানা নেই।’ বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘জিয়ার স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহার করে নিলেও এ দেশের ১৬ কোটি মানুষের মন থেকে তার নাম মুছে ফেলা যাবে না। এর মাধ্যমে সরকার স্বাধীনতার প্রতি অশ্রদ্ধা জানাল।’  

Comments

Comments!

 খারাপ নজির সৃষ্টি করল সরকার : বিএনপিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

খারাপ নজির সৃষ্টি করল সরকার : বিএনপি

Wednesday, September 7, 2016 8:17 pm
BNP1473255973

মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার প্রয়াত জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সমালোচনা করে বিএনপি বলছে, ‘এর মাধ্যমে ক্ষমতাসীনরা খারাপ নজির সৃষ্টি করল।’বিষয়টিকে ‘রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত, প্রতিহিংসামূলক এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ হিসেবেও অভিহিত করেছেন দলটির নেতারা।বুধবার প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর  স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।২০০৩ সালে তৎকালীন বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জিয়াউর রহমানকে মরণোত্তর স্বাধীনতা পুরস্কার দেওয়া হয়। তৎকালীন বিএনপির সরকারের ওই পদক্ষেপ জিয়াকে ওপরে তোলার চেষ্টা হিসেবে দেখে জাতির জনককে অবমাননার তীব্র সমালোচনা করেছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার সম্প্রতি জিয়াউর রহমানকে দেওয়া রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সম্মাননা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়।

জিয়াউর রহমানের পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে ‘অন্যায় সিদ্ধান্ত’ অভিহিত করে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘এটা খুবই অন্যায় সিদ্ধান্ত। তিনি (জিয়াউর রহমান) জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সর্বাধিক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা, এটি অস্বীকার করার উপায় নেই। আওয়ামী লীগ সরকারই মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদান রাখার জন্য তাকে এই উপাধি দিয়েছে। সুতরাং এই পদক পাওয়ার যোগ্য তিনি। জিয়া বীরউত্তম হলে এই পদক পাওয়া নিয়ে কোনো বিতর্ক থাকতে পারে না।’

ড. মোশাররফ বলেন, ‘এটি রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত, প্রতিহিংসামূলক এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সিদ্ধান্ত। সরকার একটি খারাপ নজির সৃষ্টি করল। এ বিষয়ে যে বিতর্কের সূত্রপাত হলো, তা এই পদকধারীদের বিষয়ে আগামীতেও নতুন নতুন বিতর্ক সৃষ্টি করবে। এতে জাতি হিসেবে আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে।’

দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল  মাহবুবুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘এভাবে কারো সম্মান কেড়ে নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করা ঠিক নয়। তিনি (জিয়াউর রহমান) জেড ফোর্সের প্রধান ছিলেন, বীর উত্তম উপাধি পেয়েছেন; এগুলো স্বাধীনতা পদক পাওয়ার জন যথেষ্ট নয় কি? এই সিদ্ধান্ত খারাপ নজির সৃষ্টি করেছে।’

জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার ইতিহাসকে কলঙ্কিত করেছে, এ মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘সরকার কলঙ্কিত সিদ্ধান্ত নিল। ইতিহাসে এটি কলঙ্কজনক বিষয় হয়ে থাকবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘অনির্বাচিত সরকারের যে কোনো দায়িত্ব নেই এবং জনগণ ও ইতিহাসের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ নেই; তা এই সিদ্ধান্তে প্রমাণ হলো। এটি একটি ঘৃণ্য ও অবিবেচিত সিদ্ধান্ত। এর নিন্দা জানানোর ভাষা জানা নেই।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘জিয়ার স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহার করে নিলেও এ দেশের ১৬ কোটি মানুষের মন থেকে তার নাম মুছে ফেলা যাবে না। এর মাধ্যমে সরকার স্বাধীনতার প্রতি অশ্রদ্ধা জানাল।’

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X