সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৭:২৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, July 30, 2016 10:36 am | আপডেটঃ July 30, 2016 10:51 AM
A- A A+ Print

‘গরু তোমাদের মা, তোমরাই মরা গরু পরিষ্কার করগে’(ভিডিওসহ)

148504_1

   
নয়াদিল্লি: ভারতের গুজরাটের উনায় দলিত সম্প্রদায়ের উপর করা নির্যাতনের খবর চাউড় হয়ে গেছে দেশে বিদেশে। ছড়িয়ে গেছে ঘটনার পরে দলিত সম্প্রদায়ের করা প্রতিবাদের খবরও। তবে খবরের চেয়েও বেশি ছড়াচ্ছে যা, সেটা হল প্রচণ্ড দুর্গন্ধ। সম্প্রতি মন্দিরে প্রবেশে বাধা পেয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তামিলনাড়ুর ২৫০টি দলিত পরিবার। তামিলনাড়ুর বেদারণ্যম ও কারুর জেলার ঘটনা এটি। এবার মোদির নির্বাচনী এলাকায় গুজরাটে চলছে দলিত নির্যাতন। গরুর চামড়া ছাড়ানোর অপরাধে গত ১১ জুলাই দলিত সম্প্রদায়ের কয়েকজনের উপর নির্যাতন চালায় কট্টরপন্থী হীন্দু সংগঠন গো রক্ষা সমিতি।
সেই থেকে চলছে বিতর্ক আর প্রতিবাদ। আর প্রতিবাদের অংশ হিসেবে গুজরাটের উনাসহ বিভিন্ন শহর আর গ্রামে পড়ে থাকা মৃতদেহ সরাচ্ছে না দলিতরা। গুজরাটের বিভিন্ন শহরের রাস্তায় অন্তত ৫০০ মৃত গরু পড়ে রয়েছে। নির্যাতনের প্রতিবাদে এসব মৃতদেহ সরাচ্ছেন না দলিত সম্প্রদায়ের লোকজন। তারা বলছেন- ‘গরু তোমাদের মা, তোমরাই মরা গরু পরিষ্কার করগে। আমরা হাত দেবো না।’ এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ নিয়ে ঘরে বাইরে মুখোমুখি হচ্ছেন নানান প্রশ্নের। রীতিমত সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রীর নীরবতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। কেননা দলিত নিগ্রহের এই ঘটনার শুরু হয়েছে মোদির নিজের রাজ্য গুজরাটেই। এর আগে একই রকম নিগ্রহের ঘটনায় হায়দরাবাদের এক দলিতছাত্র রোহিত ভেমুলা আত্মহত্যা করেন। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই উনায় ঘটে গেল নতুন করে ঘটে যাওয়া নিগ্রহের ঘটনা। দলিত নিগ্রহের ঘটনার জের ধরে রাজ্যে। শুরু হয় এক অভূতপূর্ব ও চরম প্রতিবাদ। যে শূদ্রদের অচ্ছুত জেনে এতদিন চেহারা পর্যন্ত দেখতে চাননি সরকারের বড় কর্তারা, তারা এখন সেই দলিতদের পায়ে হাত দিয়ে ক্ষমা চাইলেও খুব বেশি অবাক হবার জো নেই। তাদের প্রতি নিগ্রহের বিচার না করা পর্যন্ত ময়লায় আর হাত দেবেন না দলিতরা। অথচ এ আন্দোলন কোনো রাজনৈতিক দলের যোগসাজসে হচ্ছে না যে কেন্দ্রীয়ভাবে ক্ষমা চেয়ে মিটমাট করা যাবে। কেউ কেউ অবশ্য বিকল্প রাস্তায় ভেবেছিলেন। টাকা দিয়ে মিটমাট করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেখানেও দলিত সম্প্রদায়ের সদস্যদের সাফ কথা, ‘টাকা চাই না, অধিকার চাই।’ এদিকে ভারতের বুদ্ধিজীবীদের একাংশ দলিতদের পক্ষ নিয়ে কথা বলছেন। তাদের বক্তব্য- ‘কাজ কাজই, শ্রম বিভাজন হল শ্রম বিভাজন, জাতপাতের দোহাই দিয়ে আর এত বড় সম্প্রদায়কে অচ্ছুত অশৌচ করে রাখা অমানবিক।’ দলিতদের একটি অংশ তাদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামকে এগিয়ে নিতে গুজরাটের আহমেদাবাদে রবিবার সমাবেশ ডেকেছে। ধারণা করা হচ্ছে সেখানে অন্তত ১০ হাজার দলিত আসবেন যোগ দিতে।

Comments

Comments!

 ‘গরু তোমাদের মা, তোমরাই মরা গরু পরিষ্কার করগে’(ভিডিওসহ)AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

‘গরু তোমাদের মা, তোমরাই মরা গরু পরিষ্কার করগে’(ভিডিওসহ)

Saturday, July 30, 2016 10:36 am | আপডেটঃ July 30, 2016 10:51 AM
148504_1

 

 

নয়াদিল্লি: ভারতের গুজরাটের উনায় দলিত সম্প্রদায়ের উপর করা নির্যাতনের খবর চাউড় হয়ে গেছে দেশে বিদেশে। ছড়িয়ে গেছে ঘটনার পরে দলিত সম্প্রদায়ের করা প্রতিবাদের খবরও। তবে খবরের চেয়েও বেশি ছড়াচ্ছে যা, সেটা হল প্রচণ্ড দুর্গন্ধ।

সম্প্রতি মন্দিরে প্রবেশে বাধা পেয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তামিলনাড়ুর ২৫০টি দলিত পরিবার। তামিলনাড়ুর বেদারণ্যম ও কারুর জেলার ঘটনা এটি।

এবার মোদির নির্বাচনী এলাকায় গুজরাটে চলছে দলিত নির্যাতন। গরুর চামড়া ছাড়ানোর অপরাধে গত ১১ জুলাই দলিত সম্প্রদায়ের কয়েকজনের উপর নির্যাতন চালায় কট্টরপন্থী হীন্দু সংগঠন গো রক্ষা সমিতি।

সেই থেকে চলছে বিতর্ক আর প্রতিবাদ। আর প্রতিবাদের অংশ হিসেবে গুজরাটের উনাসহ বিভিন্ন শহর আর গ্রামে পড়ে থাকা মৃতদেহ সরাচ্ছে না দলিতরা।

গুজরাটের বিভিন্ন শহরের রাস্তায় অন্তত ৫০০ মৃত গরু পড়ে রয়েছে। নির্যাতনের প্রতিবাদে এসব মৃতদেহ সরাচ্ছেন না দলিত সম্প্রদায়ের লোকজন। তারা বলছেন- ‘গরু তোমাদের মা, তোমরাই মরা গরু পরিষ্কার করগে। আমরা হাত দেবো না।’

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ নিয়ে ঘরে বাইরে মুখোমুখি হচ্ছেন নানান প্রশ্নের। রীতিমত সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রীর নীরবতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই।

কেননা দলিত নিগ্রহের এই ঘটনার শুরু হয়েছে মোদির নিজের রাজ্য গুজরাটেই। এর আগে একই রকম নিগ্রহের ঘটনায় হায়দরাবাদের এক দলিতছাত্র রোহিত ভেমুলা আত্মহত্যা করেন। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই উনায় ঘটে গেল নতুন করে ঘটে যাওয়া নিগ্রহের ঘটনা। দলিত নিগ্রহের ঘটনার জের ধরে রাজ্যে।

শুরু হয় এক অভূতপূর্ব ও চরম প্রতিবাদ। যে শূদ্রদের অচ্ছুত জেনে এতদিন চেহারা পর্যন্ত দেখতে চাননি সরকারের বড় কর্তারা, তারা এখন সেই দলিতদের পায়ে হাত দিয়ে ক্ষমা চাইলেও খুব বেশি অবাক হবার জো নেই। তাদের প্রতি নিগ্রহের বিচার না করা পর্যন্ত ময়লায় আর হাত দেবেন না দলিতরা।

অথচ এ আন্দোলন কোনো রাজনৈতিক দলের যোগসাজসে হচ্ছে না যে কেন্দ্রীয়ভাবে ক্ষমা চেয়ে মিটমাট করা যাবে। কেউ কেউ অবশ্য বিকল্প রাস্তায় ভেবেছিলেন। টাকা দিয়ে মিটমাট করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেখানেও দলিত সম্প্রদায়ের সদস্যদের সাফ কথা, ‘টাকা চাই না, অধিকার চাই।’

এদিকে ভারতের বুদ্ধিজীবীদের একাংশ দলিতদের পক্ষ নিয়ে কথা বলছেন। তাদের বক্তব্য- ‘কাজ কাজই, শ্রম বিভাজন হল শ্রম বিভাজন, জাতপাতের দোহাই দিয়ে আর এত বড় সম্প্রদায়কে অচ্ছুত অশৌচ করে রাখা অমানবিক।’

দলিতদের একটি অংশ তাদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামকে এগিয়ে নিতে গুজরাটের আহমেদাবাদে রবিবার সমাবেশ ডেকেছে। ধারণা করা হচ্ছে সেখানে অন্তত ১০ হাজার দলিত আসবেন যোগ দিতে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X