রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:৩২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, July 31, 2016 7:51 pm
A- A A+ Print

গুলশানে হামলার মামলায় চারজনের জবানবন্দি রেকর্ড

index_136898

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার মামলায় চারজন প্রত্যক্ষদর্শী আজ রোববার সাক্ষী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। ঢাকার পৃথক চারজন মহানগর হাকিম তাঁদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন। জবানবন্দি দেওয়া চার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী হলেন- ওই বেকারির ক্যাশিয়ার আল আমিন চৌধুরী ওরফে সেজান, বেকারির কর্মকর্তা মিরাজ হোসেন, রাসেল মাসুদ এবং মেট্রোরেল প্রকল্পের গাড়িচালক রাশেদ সর্দার। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আদালত পুলিশের একজন সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে আরও দুজন প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দেন। ২৬ জুলাই ভারতীয় নাগরিক সত্যপ্রকাশ এবং হলি আর্টিজানের পাচক শাহীন জবানবন্দি দিয়েছেন। গুলশানে হামলার দুই দিন পর ৪ জুলাই সন্ত্রাস দমন আইনে গুলশান থানায় একটি মামলা হয়। গুলশান থানায় দায়ের করা সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় ছয়জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তাঁরা হলেন জিম্মি উদ্ধার অভিযানে নিহত মীর সামেহ মোবাশ্বের, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, নিরবাস ইসলাম, খায়রুল ইসলাম পায়েল, শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল ও সাইফুল ইসলাম চৌকিদার। মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, ছয়জনের মধ্যে প্রথম পাঁচজন নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য এবং সাইফুল ইসলাম ওই রেস্তোরাঁর কর্মী। সাইফুল হামলাকারীদের সহায়তা করেছিলেন। ঘটনার তিন দিনের মাথায় ৪ জুলাই সোমবার রাতে গুলশান থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ওই মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় বলা হয়েছে, অভিযানে জিম্মি দশা থেকে ৩২ জনকে উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে জিম্মি উদ্ধার অভিযানের আগে ১৯ জন এবং পরে ১৩ জন উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া লোকজনের মধ্যে দুজন করে ইতালি ও শ্রীলঙ্কার, একজন জাপানি এবং বাকিরা রেস্তোরাঁর এ দেশীয় কর্মী এবং খদ্দের।

Comments

Comments!

 গুলশানে হামলার মামলায় চারজনের জবানবন্দি রেকর্ডAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

গুলশানে হামলার মামলায় চারজনের জবানবন্দি রেকর্ড

Sunday, July 31, 2016 7:51 pm
index_136898

গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার মামলায় চারজন প্রত্যক্ষদর্শী আজ রোববার সাক্ষী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। ঢাকার পৃথক চারজন মহানগর হাকিম তাঁদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

জবানবন্দি দেওয়া চার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী হলেন- ওই বেকারির ক্যাশিয়ার আল আমিন চৌধুরী ওরফে সেজান, বেকারির কর্মকর্তা মিরাজ হোসেন, রাসেল মাসুদ এবং মেট্রোরেল প্রকল্পের গাড়িচালক রাশেদ সর্দার।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আদালত পুলিশের একজন সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে আরও দুজন প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দেন। ২৬ জুলাই ভারতীয় নাগরিক সত্যপ্রকাশ এবং হলি আর্টিজানের পাচক শাহীন জবানবন্দি দিয়েছেন।

গুলশানে হামলার দুই দিন পর ৪ জুলাই সন্ত্রাস দমন আইনে গুলশান থানায় একটি মামলা হয়। গুলশান থানায় দায়ের করা সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় ছয়জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তাঁরা হলেন জিম্মি উদ্ধার অভিযানে নিহত মীর সামেহ মোবাশ্বের, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, নিরবাস ইসলাম, খায়রুল ইসলাম পায়েল, শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল ও সাইফুল ইসলাম চৌকিদার।

মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, ছয়জনের মধ্যে প্রথম পাঁচজন নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য এবং সাইফুল ইসলাম ওই রেস্তোরাঁর কর্মী। সাইফুল হামলাকারীদের সহায়তা করেছিলেন।

ঘটনার তিন দিনের মাথায় ৪ জুলাই সোমবার রাতে গুলশান থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ওই মামলা দায়ের করা হয়।

মামলায় বলা হয়েছে, অভিযানে জিম্মি দশা থেকে ৩২ জনকে উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে জিম্মি উদ্ধার অভিযানের আগে ১৯ জন এবং পরে ১৩ জন উদ্ধার করা হয়। উদ্ধার হওয়া লোকজনের মধ্যে দুজন করে ইতালি ও শ্রীলঙ্কার, একজন জাপানি এবং বাকিরা রেস্তোরাঁর এ দেশীয় কর্মী এবং খদ্দের।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X