মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৭:৫৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, September 14, 2016 7:20 am
A- A A+ Print

গোলের বন্যা বইয়ে দিলেন মেসি-সুয়ারেজরা

barca1473801117

মেসি-নেইমার-সুয়ারেজ একসঙ্গে জ্বলে উঠলে প্রতিপক্ষের কী হাল হতে পারে, তা আরেকবার দেখল ফুটবল বিশ্ব! চলতি মৌসুমে প্রথমবারের মতো শুরুর একাদশে মাঠে নামলেন বার্সেলোনার আক্রমণভাগের তিন তারকা। নেমেই একরকম গোলের বন্যা বইয়ে দিলেন ‘এমএসএন’ খ্যাত এই ত্রয়ী। চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বার্সেলোনা স্কটিশ ক্লাব সেল্টিককে হারিয়েছে ৭-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে। লিওনেল মেসি করেছেন হ্যাটট্রিক। জোড়া গোল করেছেন লুইস সুয়ারেজ। একটি করে গোল করেছেন নেইমার ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। একটি গোলের পাশাপাশি চার-চারটি অ্যাসিস্টও করেছেন ব্রাজিল অধিনায়ক নেইমার। বার্সেলোনার মাঠ ন্যু ক্যাম্পে ‘সি’ গ্রুপের ম্যাচটি শুরু হয়েছিল বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে ১টায়। ম্যাচের তখন তৃতীয় মিনিট। গ্যালারির দর্শকরা নিজেদের আসনে কেবল নড়েচড়ে বসছেন মাত্র। তখনই স্বাগতিক দর্শকদের উচ্ছ্বাসে ভাসান মেসি। আর্জেন্টাইন তারকা নেইমারের দারুণ পাস থেকে জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে বার্সাকে এগিয়ে দেন ১-০ গোলে। ২৪ মিনিটে সমতায় ফেরার দারুণ একটি সুযোগ পেয়েছিল সেল্টিক। নিজেদের বক্সের ভেতরে বার্সা গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন সেল্টিকের সিনক্লিয়ারকে ফাউল করে বসলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। কিন্তু পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হয়েছেন মৌসা ডেম্বেলে। তার শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন স্টেগেন। দুই মিনিট পর উল্টো মেসি-নেইমারের দারুণ বোঝাপড়ায় বার্সাই ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে। বক্সের সামনে থেকে দুই খেলোয়াড়ের ফাঁক দিয়ে নেইমারকে পাস দিয়ে দ্রুতই ভেতরে ঢুকে পড়েন মেসি। নেইমার গোলরক্ষককে পরাস্ত করে বল দেন আবার মেসিকে। ফাঁকা পোস্টে বল জড়িয়ে দিতে কোনো সমস্যা হয়নি পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের। প্রথমার্ধে মেসির দুই গোলের লিড নিয়েই বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা। বিরতির পরই গোল-উৎসবে মেতে ওঠেন মেসি-নেইমাররা। ৫০ থেকে ৬০, দশ মিনিটেই অতিথিদের জালে তিনবার বল পাঠিয়ে দেয় স্বাগতিকরা। প্রথমে বার্সাকে ৩-০ গোলে এগিয়ে দেন নেইমার। সেল্টিকের এক খেলোয়াড় বক্সের সামনে মেসিকে ফাউল করলে ফ্রি-কিক পায় বার্সা। ২২ গজ দূর থেকে ডান পায়ের জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। এরপর ৫৯ ও ৬০, পরপর দুই মিনিটে দুই গোল করে স্বাগতিকরা। প্রথমে নেইমারের পাস থেকে দারুণ ভলিতে গোল করেন ইভান রাকিটিচের বদলি হিসেবে মাঠে আসা ইনিয়েস্তা। পরের মিনিটে মেসি পূরণ করেন হ্যাটট্রিক। বক্সের ডানদিকে সুয়ারেজকে পাস দিয়ে দ্রুতই ভেতরে ঢুকে পড়েন মেসি। সুয়ারেজ আবার বল দেন মেসিকে। আর্জেন্টিনা অধিনায়ক শুয়ে পড়ে পায়ের টোকায় বল জড়িয়ে দেন জালে। তাতে ৬০ মিনিটেই স্কোরলাইন হয়ে যায় ৫-০! ৭৫ মিনিটে গোলের দেখা পেয়ে যান সুয়ারেজও। গোলটিও ছিল দুর্দান্ত। লম্বা করে বক্সের ভেতরে ক্রস দিয়েছিলেন নেইমার। সেই ক্রস সুয়ারেজ বুক দিয়ে নামিয়ে সরাসরি শট নেন। উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের বুলেট গতির শট ঠেকানোর সাধ্য ছিল না অতিথি গোলরক্ষকের। নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে নিজের জোড়া গোল পূরণ করেন সুয়ারেজ। মেসির পাস থেকে বল জালে জড়িয়ে দেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। স্কোরলাইন হয়ে যায় ৭-০! শেষ পর্যন্ত সাত গোলের বিশাল জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।

Comments

Comments!

 গোলের বন্যা বইয়ে দিলেন মেসি-সুয়ারেজরাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

গোলের বন্যা বইয়ে দিলেন মেসি-সুয়ারেজরা

Wednesday, September 14, 2016 7:20 am
barca1473801117

মেসি-নেইমার-সুয়ারেজ একসঙ্গে জ্বলে উঠলে প্রতিপক্ষের কী হাল হতে পারে, তা আরেকবার দেখল ফুটবল বিশ্ব!

চলতি মৌসুমে প্রথমবারের মতো শুরুর একাদশে মাঠে নামলেন বার্সেলোনার আক্রমণভাগের তিন তারকা। নেমেই একরকম গোলের বন্যা বইয়ে দিলেন ‘এমএসএন’ খ্যাত এই ত্রয়ী। চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বার্সেলোনা স্কটিশ ক্লাব সেল্টিককে হারিয়েছে ৭-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে।

লিওনেল মেসি করেছেন হ্যাটট্রিক। জোড়া গোল করেছেন লুইস সুয়ারেজ। একটি করে গোল করেছেন নেইমার ও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। একটি গোলের পাশাপাশি চার-চারটি অ্যাসিস্টও করেছেন ব্রাজিল অধিনায়ক নেইমার।

বার্সেলোনার মাঠ ন্যু ক্যাম্পে ‘সি’ গ্রুপের ম্যাচটি শুরু হয়েছিল বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে ১টায়। ম্যাচের তখন তৃতীয় মিনিট। গ্যালারির দর্শকরা নিজেদের আসনে কেবল নড়েচড়ে বসছেন মাত্র। তখনই স্বাগতিক দর্শকদের উচ্ছ্বাসে ভাসান মেসি। আর্জেন্টাইন তারকা নেইমারের দারুণ পাস থেকে জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে বার্সাকে এগিয়ে দেন ১-০ গোলে।

২৪ মিনিটে সমতায় ফেরার দারুণ একটি সুযোগ পেয়েছিল সেল্টিক। নিজেদের বক্সের ভেতরে বার্সা গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন সেল্টিকের সিনক্লিয়ারকে ফাউল করে বসলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। কিন্তু পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হয়েছেন মৌসা ডেম্বেলে। তার শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন স্টেগেন।

দুই মিনিট পর উল্টো মেসি-নেইমারের দারুণ বোঝাপড়ায় বার্সাই ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে। বক্সের সামনে থেকে দুই খেলোয়াড়ের ফাঁক দিয়ে নেইমারকে পাস দিয়ে দ্রুতই ভেতরে ঢুকে পড়েন মেসি। নেইমার গোলরক্ষককে পরাস্ত করে বল দেন আবার মেসিকে। ফাঁকা পোস্টে বল জড়িয়ে দিতে কোনো সমস্যা হয়নি পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের। প্রথমার্ধে মেসির দুই গোলের লিড নিয়েই বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা।

বিরতির পরই গোল-উৎসবে মেতে ওঠেন মেসি-নেইমাররা। ৫০ থেকে ৬০, দশ মিনিটেই অতিথিদের জালে তিনবার বল পাঠিয়ে দেয় স্বাগতিকরা। প্রথমে বার্সাকে ৩-০ গোলে এগিয়ে দেন নেইমার। সেল্টিকের এক খেলোয়াড় বক্সের সামনে মেসিকে ফাউল করলে ফ্রি-কিক পায় বার্সা। ২২ গজ দূর থেকে ডান পায়ের জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড।

এরপর ৫৯ ও ৬০, পরপর দুই মিনিটে দুই গোল করে স্বাগতিকরা। প্রথমে নেইমারের পাস থেকে দারুণ ভলিতে গোল করেন ইভান রাকিটিচের বদলি হিসেবে মাঠে আসা ইনিয়েস্তা। পরের মিনিটে মেসি পূরণ করেন হ্যাটট্রিক। বক্সের ডানদিকে সুয়ারেজকে পাস দিয়ে দ্রুতই ভেতরে ঢুকে পড়েন মেসি। সুয়ারেজ আবার বল দেন মেসিকে। আর্জেন্টিনা অধিনায়ক শুয়ে পড়ে পায়ের টোকায় বল জড়িয়ে দেন জালে। তাতে ৬০ মিনিটেই স্কোরলাইন হয়ে যায় ৫-০!

৭৫ মিনিটে গোলের দেখা পেয়ে যান সুয়ারেজও। গোলটিও ছিল দুর্দান্ত। লম্বা করে বক্সের ভেতরে ক্রস দিয়েছিলেন নেইমার। সেই ক্রস সুয়ারেজ বুক দিয়ে নামিয়ে সরাসরি শট নেন। উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের বুলেট গতির শট ঠেকানোর সাধ্য ছিল না অতিথি গোলরক্ষকের।

নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে নিজের জোড়া গোল পূরণ করেন সুয়ারেজ। মেসির পাস থেকে বল জালে জড়িয়ে দেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। স্কোরলাইন হয়ে যায় ৭-০! শেষ পর্যন্ত সাত গোলের বিশাল জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X