শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:১২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, September 4, 2016 9:06 pm
A- A A+ Print

চীনে কূটনৈতিক অবজ্ঞার শিকার ওবামা

240790_1

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা চীনে কূটনৈতিক অবজ্ঞার শিকার হয়েছেন। শিল্পোন্নত দেশগুলোর সংগঠন জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিতে তিনি চীনে গেছেন। ওবামাকে বহনকারী বিমান গতকাল (শনিবার) হাংঝুতে অবতরণের পরপরই সমস্যা শুরু হয়। সম্মেলনে যোগ দিতে আসা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হাই, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মিশেল তেমের এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-কে যেভাবে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে বারাক ওবামা তা পান নি। এমনকি, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিজের বিমানের মাঝের ছোট্ট দরজা দিয়ে বের হতে বাধ্য হয়েছেন যে দরজা শুধুমাত্র উঁচুমাত্রার নিরাপত্তার সময়ে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। চীনা কর্মকর্তারা ওবামার বিমানে সিঁড়ির যোগান দিতেও ব্যর্থ হয়েছেন। এর পাশাপাশি ওবামার সঙ্গে কথা বলার সময় সাংবাদিকদের কোথায় দাঁড়াতে হবে সে বিষয়ে নির্দেশনা দিচ্ছিলেন হোয়াইট হাউজের এক কর্মকর্তা। এ সময় চীনের এক কর্মকর্তা তাতে বাধা দেন। এর প্রতিবাদ করলে চীনা কর্মকর্তা চিৎকার করে বলেন, “এটি আমাদের দেশ এবং এটি আমাদের বিমানবন্দর।” মার্কিন ও চীনা কর্মকর্তাদের এসব ঘটনা নিয়ে নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকাও রিপোর্ট করেছে। পরে এ ঘটনা সম্পর্কে প্রতিক্রিয়ায় বারাক ওবামা বলেছেন, দু দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যকার এ বিষয়টিকে ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে তুলে ধরা ঠিক হবে না। তবে চীনে নিযুক্ত মেক্সিকোর সাবেক রাষ্ট্রদূত জর্জ গুয়াজার্দো মনে করেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে হিসাব করেই এ কূটনৈতিক আচরণ করেছে বেইজিং। তিনি বলেন, “এটি ভুল করে ঘটে নি। আমি চীনে ছয় বছর ছিলাম এবং তাদেরকে আমি চিনি। এটি একেবারেই এমনি এমনি ঘটে নি, হিসাব করেই করা হয়েছে।” শনিবার যখন রাতের খাবারের পর প্রেসিডেন্ট ওবামাকে নিয়ে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং অবসর সময় কাটাতে বের হয়েছিলেন তখন চীনা নিরাপত্তা কর্মকর্তারা ওবামার সঙ্গে থাকা ছয়জন সাংবাদিকের পরিবর্তে তিন সাংবাদিককে অনুমতি দেন। শেষ পর্যন্ত সাংবাদিকের সংখ্যা কমিয়ে একজন করা হয়। বিষয়টির ব্যাখ্যা দিয়ে এক চীনা কর্মকর্তা বলেছেন, “এটিই আমাদের আয়োজন।” জবাবে মার্কিন এক কর্মকর্তা বলেন, “আপনারা আয়োজনে রদবদল করছেন।” পরে দু নেতা দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে কথা বলেন। তবে দু পক্ষই আগের অবস্থানে অনড় থেকেছেন। চীনা প্রেসিডেন্ট বলেছেন, আঞ্চলিক দেশগুলোর সঙ্গে পরামর্শের ভিত্তিতে দক্ষিণ চীন সাগর সমস্যার সমাধান করা হবে। এ ক্ষেত্রে আমেরিকাকে গঠনমূলক ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান তিনি।#

Comments

Comments!

 চীনে কূটনৈতিক অবজ্ঞার শিকার ওবামাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

চীনে কূটনৈতিক অবজ্ঞার শিকার ওবামা

Sunday, September 4, 2016 9:06 pm
240790_1

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা চীনে কূটনৈতিক অবজ্ঞার শিকার হয়েছেন। শিল্পোন্নত দেশগুলোর সংগঠন জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিতে তিনি চীনে গেছেন।

ওবামাকে বহনকারী বিমান গতকাল (শনিবার) হাংঝুতে অবতরণের পরপরই সমস্যা শুরু হয়। সম্মেলনে যোগ দিতে আসা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হাই, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মিশেল তেমের এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-কে যেভাবে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে বারাক ওবামা তা পান নি।

এমনকি, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিজের বিমানের মাঝের ছোট্ট দরজা দিয়ে বের হতে বাধ্য হয়েছেন যে দরজা শুধুমাত্র উঁচুমাত্রার নিরাপত্তার সময়ে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। চীনা কর্মকর্তারা ওবামার বিমানে সিঁড়ির যোগান দিতেও ব্যর্থ হয়েছেন। এর পাশাপাশি ওবামার সঙ্গে কথা বলার সময় সাংবাদিকদের কোথায় দাঁড়াতে হবে সে বিষয়ে নির্দেশনা দিচ্ছিলেন হোয়াইট হাউজের এক কর্মকর্তা। এ সময় চীনের এক কর্মকর্তা তাতে বাধা দেন। এর প্রতিবাদ করলে চীনা কর্মকর্তা চিৎকার করে বলেন, “এটি আমাদের দেশ এবং এটি আমাদের বিমানবন্দর।” মার্কিন ও চীনা কর্মকর্তাদের

এসব ঘটনা নিয়ে নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকাও রিপোর্ট করেছে।

পরে এ ঘটনা সম্পর্কে প্রতিক্রিয়ায় বারাক ওবামা বলেছেন, দু দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যকার এ বিষয়টিকে ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে তুলে ধরা ঠিক হবে না। তবে চীনে নিযুক্ত মেক্সিকোর সাবেক রাষ্ট্রদূত জর্জ গুয়াজার্দো মনে করেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে হিসাব করেই এ কূটনৈতিক আচরণ করেছে বেইজিং। তিনি বলেন, “এটি ভুল করে ঘটে নি। আমি চীনে ছয় বছর ছিলাম এবং তাদেরকে আমি চিনি। এটি একেবারেই এমনি এমনি ঘটে নি, হিসাব করেই করা হয়েছে।”

শনিবার যখন রাতের খাবারের পর প্রেসিডেন্ট ওবামাকে নিয়ে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং অবসর সময় কাটাতে বের হয়েছিলেন তখন চীনা নিরাপত্তা কর্মকর্তারা ওবামার সঙ্গে থাকা ছয়জন সাংবাদিকের পরিবর্তে তিন সাংবাদিককে অনুমতি দেন। শেষ পর্যন্ত সাংবাদিকের সংখ্যা কমিয়ে একজন করা হয়। বিষয়টির ব্যাখ্যা দিয়ে এক চীনা কর্মকর্তা বলেছেন, “এটিই আমাদের আয়োজন।” জবাবে মার্কিন এক কর্মকর্তা বলেন, “আপনারা আয়োজনে রদবদল করছেন।”

পরে দু নেতা দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে কথা বলেন। তবে দু পক্ষই আগের অবস্থানে অনড় থেকেছেন। চীনা প্রেসিডেন্ট বলেছেন, আঞ্চলিক দেশগুলোর সঙ্গে পরামর্শের ভিত্তিতে দক্ষিণ চীন সাগর সমস্যার সমাধান করা হবে। এ ক্ষেত্রে আমেরিকাকে গঠনমূলক ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান তিনি।#

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X