শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:৫৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, November 3, 2016 12:40 pm
A- A A+ Print

ছেলে না হওয়ায় স্ত্রীকে তিন তালাক!

158379_1

   
ঢাকা: ভারতের যোধপুরের নারী ফারহা খানকে রাগের মাথায় রাস্তাতেই তিন তালাক দিয়ে দিল তার স্বামী ইরফান খান। নিজেদের বাসার সামনে উপস্থিত লোকজনের সামনে তিনবার ‘তালাক’ উচ্চারণ করেন। ইনখবর ডটকম ও ইনডিয়া টিভিতে শেয়ার করা সেই তালাকের ভিডিওতে দেখা যায় উপস্থিত অনেক মানুষের সামনেই তালাক-তালাক-তালাক উচ্চারণ করেন স্বামী ইরফান। আর স্ত্রী ফারহা কাঁদতে কাঁদতে স্বামীর কাছে ক্ষমা চাচ্ছিলেন আর তাদের বাচ্চা মেয়ের কথা বলছিলেন। কিন্তু স্বামীকে কর্ণপাত করতে দেখা যায়নি। ওদিকে বাবা-মায়ের মধ্যে এই সমস্যায় ভ্যাবাচেকা খেয়ে কেবল কেঁদেই যাচ্ছিল তাদের তিন-চার বছর বয়সী মেয়ে।
যোধপুরের বাসিন্দা ইরফান ও ফারহা নয় বছর ধরে সংসার করে আসছিলেন। এর মধ্যে তারা একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন যার বর্তমান বয়স আনুমানিক তিন বা চার। তবে মাত্র তিন তালাকে সে সম্পর্কের ইতি টানতে চাচ্ছেন স্বামী ইরফান খান। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিচ্ছেদের জন্য ইসলামী ব্যক্তিগত আইন হচ্ছে তিনটি ধাপে তালাক দিতে হবে এবং এতে সময়ের ব্যবধান থাকতে হবে। কিন্তু অনেক মুসলিম পুরুষই রাগের মাথায় তিন তালাক দিয়ে দেন। ভারতের যোধপুরের এই তালাকের ঘটনাটিও এমন। এই তালাকের বিরুদ্ধে আইনী লড়াইয়ের সাথে সাথে স্বামীর বাড়ির সামনেই অবস্থান করছেন রাগের মাথায় তালাকপ্রাপ্তা ওই নারী। বিয়ের কয়েক বছর হয়ে গেলেও তাদের কোনো ছেলে সন্তান হয়নি। কিছুদিন আগে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। এটা নিয়ে স্বামীর পরিবার তাকে বিভিন্নভাবে অপমান করে আসছিল বলে জানান ফারহা খান। স্বামী ইরফান খান বলেন, ‘আমার স্ত্রীর কাছে নিয়মিত নির্যাতিত হয়ে আসছিলাম। সে আমাকে বেশ কয়েকবার অপমান করেছে, মারধর করেছে। আমি প্রমাণ দেখাতে পারব। অনেক বছর ধরে আমাকে কোনো সন্তান দিতে পারেনি। তার চিকিৎসায় আমার ৬-৭ লাখ রুপি খরচ হয়েছে। সে কিছুদিন আগে মা হয়েছে কিন্তু আচার আচরণে কোন উন্নতি হয়নি।’ স্বামীর বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করে ফারহা খান জানান, স্বামীর হাতে নিয়মিত হয়রানির শিকার হয়ে আসছিলেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমার কন্যা সন্তান হওয়ার পর আমার প্রতি অমনোযোগী হয়ে পড়ে স্বামীর পরিবার। আমি তার সাথে সংসার করতে চাই এবং আমি বিশ্বাস করি মৌখিক তালাক ইসলাম সমর্থিত নয়।’ থানায় অভিযোগ করার পর এখন শ্বশুরবাড়ির সামনে অবস্থান কর্মসূচি নিয়েছেন ওই নারী। বিয়ের পুনঃস্থাপন করার জন্য তার এই অবস্থান কর্মসূচি।

Comments

Comments!

 ছেলে না হওয়ায় স্ত্রীকে তিন তালাক!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ছেলে না হওয়ায় স্ত্রীকে তিন তালাক!

Thursday, November 3, 2016 12:40 pm
158379_1

 

 

ঢাকা: ভারতের যোধপুরের নারী ফারহা খানকে রাগের মাথায় রাস্তাতেই তিন তালাক দিয়ে দিল তার স্বামী ইরফান খান। নিজেদের বাসার সামনে উপস্থিত লোকজনের সামনে তিনবার ‘তালাক’ উচ্চারণ করেন।

ইনখবর ডটকম ও ইনডিয়া টিভিতে শেয়ার করা সেই তালাকের ভিডিওতে দেখা যায় উপস্থিত অনেক মানুষের সামনেই তালাক-তালাক-তালাক উচ্চারণ করেন স্বামী ইরফান।

আর স্ত্রী ফারহা কাঁদতে কাঁদতে স্বামীর কাছে ক্ষমা চাচ্ছিলেন আর তাদের বাচ্চা মেয়ের কথা বলছিলেন। কিন্তু স্বামীকে কর্ণপাত করতে দেখা যায়নি। ওদিকে বাবা-মায়ের মধ্যে এই সমস্যায় ভ্যাবাচেকা খেয়ে কেবল কেঁদেই যাচ্ছিল তাদের তিন-চার বছর বয়সী মেয়ে।

যোধপুরের বাসিন্দা ইরফান ও ফারহা নয় বছর ধরে সংসার করে আসছিলেন। এর মধ্যে তারা একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন যার বর্তমান বয়স আনুমানিক তিন বা চার। তবে মাত্র তিন তালাকে সে সম্পর্কের ইতি টানতে চাচ্ছেন স্বামী ইরফান খান।

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিচ্ছেদের জন্য ইসলামী ব্যক্তিগত আইন হচ্ছে তিনটি ধাপে তালাক দিতে হবে এবং এতে সময়ের ব্যবধান থাকতে হবে। কিন্তু অনেক মুসলিম পুরুষই রাগের মাথায় তিন তালাক দিয়ে দেন। ভারতের যোধপুরের এই তালাকের ঘটনাটিও এমন। এই তালাকের বিরুদ্ধে আইনী লড়াইয়ের সাথে সাথে স্বামীর বাড়ির সামনেই অবস্থান করছেন রাগের মাথায় তালাকপ্রাপ্তা ওই নারী।

বিয়ের কয়েক বছর হয়ে গেলেও তাদের কোনো ছেলে সন্তান হয়নি। কিছুদিন আগে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। এটা নিয়ে স্বামীর পরিবার তাকে বিভিন্নভাবে অপমান করে আসছিল বলে জানান ফারহা খান।

স্বামী ইরফান খান বলেন, ‘আমার স্ত্রীর কাছে নিয়মিত নির্যাতিত হয়ে আসছিলাম। সে আমাকে বেশ কয়েকবার অপমান করেছে, মারধর করেছে। আমি প্রমাণ দেখাতে পারব। অনেক বছর ধরে আমাকে কোনো সন্তান দিতে পারেনি। তার চিকিৎসায় আমার ৬-৭ লাখ রুপি খরচ হয়েছে। সে কিছুদিন আগে মা হয়েছে কিন্তু আচার আচরণে কোন উন্নতি হয়নি।’

স্বামীর বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করে ফারহা খান জানান, স্বামীর হাতে নিয়মিত হয়রানির শিকার হয়ে আসছিলেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমার কন্যা সন্তান হওয়ার পর আমার প্রতি অমনোযোগী হয়ে পড়ে স্বামীর পরিবার। আমি তার সাথে সংসার করতে চাই এবং আমি বিশ্বাস করি মৌখিক তালাক ইসলাম সমর্থিত নয়।’

থানায় অভিযোগ করার পর এখন শ্বশুরবাড়ির সামনে অবস্থান কর্মসূচি নিয়েছেন ওই নারী। বিয়ের পুনঃস্থাপন করার জন্য তার এই অবস্থান কর্মসূচি।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X