শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৫১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, October 24, 2017 6:02 pm
A- A A+ Print

ছয় সিটিতে নির্বাচনী হাওয়া

9e994709025c1d34a88627037cc93e77-59ef23e3c73bf

ছয় সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দিনক্ষণ এখনো চূড়ান্ত না হলেও বসে নেই সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। এখন থেকেই মাঠে সরব তাঁরা। নানাভাবে প্রচারও চালাচ্ছেন। দলীয় মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ।

আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে রংপুর, রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা, সিলেট ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন হবে দলীয় প্রতীকে। তাই এই নির্বাচনগুলোর দিকে রাজনৈতিক দল ও দেশবাসীর বাড়তি নজর থাকবে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সূত্র জানায়, আগামী ২৮ ডিসেম্বর রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ ধরা হয়েছে। আইন অনুযায়ী, সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পর প্রথম সভা থেকে করপোরেশনের মেয়াদ শুরু হয়। পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগের ছয় মাসের মধ্যে যেকোনো দিন ভোট গ্রহণ করা যায়।

সেই হিসাবে আগামী বছরের ১৩ মার্চ থেকে ৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সিলেট, ৯ এপ্রিল থেকে ৫ অক্টোবরের মধ্যে রাজশাহী, ২৭ এপ্রিল থেকে ২৩ অক্টোবরের মধ্যে বরিশাল, ৩০ মার্চ থেকে ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে খুলনা এবং ৮ মার্চ থেকে ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন করতে হবে। আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার পর মে-জুনে এসব নির্বাচন হতে পারে। রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা ও সিলেট—এই চার সিটির নির্বাচন একই দিনে করার চিন্তা আছে ইসির।

জানতে চাইলে কমিশনার শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, রংপুর ছাড়া অন্য সিটি করপোরেশনগুলোর নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য আইন আছে। এই আইনের যথাযথ প্রয়োগ হলে নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। তা ছাড়া, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যমের প্রতিনিধি ও রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসি সংলাপ করছে। এটি রাজনৈতিক ও নির্বাচনী আবহ সৃষ্টিতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে।

রংপুর

আগামী মাসে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। তফসিল ঘোষণা না হলেও মাঠে নেমে পড়েছেন মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। তাঁদের পোস্টারে ছেয়ে গেছে নগরের অলিগলি। ইতিমধ্যে জাতীয় পার্টি দলের রংপুর মহানগর কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমানকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ গত মাসে তিন দিনের রংপুর সফরে গিয়ে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে একাধিক জনসভা করেছেন।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এখনো প্রার্থী ঘোষণা করেনি। তবে মাঠে আছেন ডজনখানেক সম্ভাব্য প্রার্থী। পোস্টার লাগিয়ে গণসংযোগও করছেন তাঁরা। শেষ পর্যন্ত কে পাবেন ‘নৌকা’, তা নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেতে তৎপর বর্তমান মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সরফুদ্দীন আহমেদ। তিনি প্রচার চালাচ্ছেন। এ ছাড়াচৌধুরী খালেকুজ্জামান, সাফিউর রহমান, আবুল কাশেম, আতাউর জামান ও রাশেক রহমানও আওয়ামী লীগের মনোনয়নের আশায় প্রচারে নেমেছেন।

এর বাইরে দলীয় রাজনীতিতে সরাসরি না থাকলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে পারেন এমন দুজনের নামও আলোচনায় আছে। তাঁরা হলেন রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী এবং রংপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র আবদুর রউফ।

বিএনপির মহানগর কমিটির সাবেক সভাপতি কাওসার জামান নির্বাচনী প্রচারে নেমেছেন। তিনি পোস্টারও সেঁটেছেন। এ ছাড়া মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ও জেলা যুবদলের সভাপতি নাজমুল ইসলামের পোস্টারও নগরের বিভিন্ন জায়গায় দেখা যাচ্ছে।

বরিশাল

বরিশালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের দৌড়ে এগিয়ে আছেন মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর বড় ছেলে সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। তিনি প্রায় চার বছর ধরে নির্বাচনকেন্দ্রিক তৎপরতা চালাচ্ছেন। মহানগরের প্রতিটি ওয়ার্ডে তাঁর বিলবোর্ড, ব্যানার সাঁটানো আছে।

এ ছাড়া মনোনয়ন পেতে আগ্রহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরী ও সহসভাপতি আফজালুল করীম, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাহিদ ফারুক, প্রয়াত মেয়র শওকত হোসেনের স্ত্রী সাংসদ জেবুন্নেছা আফরোজ, আবদুর রব সেরনিয়াবাতের ছোট ছেলে খোকন সেরনিয়াবাতসহ আরও কয়েকজন।

সাদিক আবদুল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, দলের নেতা-কর্মীরা তাঁকে মেয়র হিসেবে দেখতে চান। তাঁরাই প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

অন্যদিকে বিএনপির দলীয় সূত্র জানায়, দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার, বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব, কেন্দ্রীয় কমিটির বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়েদুল হকসহ অন্তত নয়জন নেতা প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে আছেন।

মজিবর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর ইচ্ছা সংসদ নির্বাচন করার। দল চাইলে মেয়র নির্বাচন করবেন।

গাজীপুর

গাজীপুর সিটি করপোরেশনে প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৩ সালের ৬ জুলাই। আগামী নির্বাচন সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান মেয়র এম এ মান্নান এবং সাবেক সাংসদ হাসান উদ্দিন সরকারের নাম আলোচনায় আছে।

আর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে গত নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লা খান ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের নাম আলোচনায় আছে।

সিলেট

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি থেকে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এবং সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেতে পারেন বলে দলীয় সূত্রগুলো বলছে। এর বাইরে সিলেট নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ প্রায় এক বছর ধরে তৎপর। ‘আসাদ ভাইকে মেয়র পদে দেখতে চাই’ শিরোনামে পোস্টার, বিলবোর্ডও চোখে পড়ে নগরজুড়ে।

সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদও নৌকা চান। তিনি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নের প্রত্যাশায় নগরে তাঁর পক্ষে প্রচার আছে।

নগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম ধানের শীষের প্রার্থী হতে চান। নাসিম দলীয় কর্মসূচির মাধ্যমে প্রচারও চালাচ্ছেন। আর বদরুজ্জামান সম্প্রতি মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়ে প্রচার শুরু করেছেন।

রাজশাহী

নির্বাচন সামনে রেখে মাঠে রয়েছেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী হওয়ার জন্য খায়রুজ্জামান গত জুলাইয়ে দলের উচ্চপর্যায় থেকে সবুজ সংকেত পান। তখন থেকে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছে রাজশাহী আওয়ামী লীগ। ইতিমধ্যে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে শুরু হয়েছে উঠান বৈঠক। খায়রুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, তিনি সব জায়গাতেই প্রার্থী হিসেবে ভোট চাইছেন।

বিপরীতে এখনো সেভাবে মাঠে নামেনি বিএনপি। দলীয় ফোরামেও এ নিয়ে জোরালো আলোচনা নেই। জানতে চাইলে রাজশাহীর বর্তমান মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত না হওয়ায় তিনি এখনো নির্বাচনী কাজে মাঠে নামেননি। তবে ১০ বছর ধরে মাঠে রয়েছেন এবং দলের জন্য কাজ করছেন বলে জানান।

খুলনা

আগামী নির্বাচন সামনে রেখে বেশ জোরেশোরেই প্রচার চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কয়েকজন নেতা। মেয়র নির্বাচন সামনে রেখে ছোট ছোট দলে বিভক্তও হয়ে পড়েছেন নেতা-কর্মীরা।

আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আবদুল খালেক এবার মেয়র নির্বাচন করবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। তাঁর অনুপস্থিতিতে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই শেখ সালাহউদ্দীনের নাম আলোচনায় আছে। এ ছাড়া কয়েক বছর ধরে মাঠে সরব রয়েছেন সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সাইফুল ইসলামসহ আরও দু-একজন।

সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘মেয়র নির্বাচনে দল যাঁকে মনোনয়ন দেবে আমরা তাঁর পক্ষেই কাজ করব। তবে নির্বাচন করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করে যাচ্ছি।’

খুলনার বর্তমান মেয়র মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। এবারও মেয়র পদে ধানের শীষের প্রার্থী হতে চান তিনি। মনিরুজ্জামান বলেন, দল মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করবেন। ইতিমধ্যে দলের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে কাগজপত্র জমা দেওয়া হয়েছে।

খুলনা জেলা বিএনপির সভাপতি শফিকুল আলমও বিএনপির মনোনয়ন পেতে তৎপর রয়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচন নিয়ে বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন ও নেতা-কর্মীদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত আলাপ-আলোচনা করছেন।

ইসির প্রথম পরীক্ষা

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচন এবং পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ইসির ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। সে সময় নির্বাচনব্যবস্থা অনেকটা ভেঙে পড়েছিল। এ অবস্থায় নতুন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর বিশিষ্টজনেরা বলেছিলেন, নতুন কমিশনের প্রধান চ্যালেঞ্জ নির্বাচন নিয়ে মানুষের আস্থা ফেরানো। নুরুল হুদা কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর এখন পর্যন্ত সে অর্থে বড় কোনো পরীক্ষার মুখে পড়েনি। তারা কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং কয়েকটি উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকারের নির্বাচন করেছে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করছেন, জাতীয় নির্বাচনের আগে ছয় সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হবে ইসির প্রথম পরীক্ষা।

জানতে চাইলে সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, দেশের রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপটে প্রতিটি নির্বাচনই ইসির জন্য চ্যালেঞ্জ। এবার সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলো দলীয় প্রতীকে হবে এবং জাতীয় নির্বাচনের আগ মুহূর্তে হবে। এ কারণে এটা হবে বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি মনে করেন, শুধু ইসি নয়, এই নির্বাচন হবে সরকার ও অন্য দলগুলোর জন্যও পরীক্ষা। বিশেষ করে, সরকারের সদিচ্ছার পরীক্ষা হবে এই নির্বাচনগুলোতে।

(প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করেছেন নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী, রংপুর ও সিলেট; বরিশাল অফিস এবং খুলনা ও গাজীপুর প্রতিনিধি)

Comments

Comments!

 ছয় সিটিতে নির্বাচনী হাওয়াAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ছয় সিটিতে নির্বাচনী হাওয়া

Tuesday, October 24, 2017 6:02 pm
9e994709025c1d34a88627037cc93e77-59ef23e3c73bf

ছয় সিটি করপোরেশন নির্বাচনের দিনক্ষণ এখনো চূড়ান্ত না হলেও বসে নেই সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। এখন থেকেই মাঠে সরব তাঁরা। নানাভাবে প্রচারও চালাচ্ছেন। দলীয় মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ।

আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে রংপুর, রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা, সিলেট ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন হবে দলীয় প্রতীকে। তাই এই নির্বাচনগুলোর দিকে রাজনৈতিক দল ও দেশবাসীর বাড়তি নজর থাকবে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সূত্র জানায়, আগামী ২৮ ডিসেম্বর রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ ধরা হয়েছে। আইন অনুযায়ী, সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পর প্রথম সভা থেকে করপোরেশনের মেয়াদ শুরু হয়। পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগের ছয় মাসের মধ্যে যেকোনো দিন ভোট গ্রহণ করা যায়।

সেই হিসাবে আগামী বছরের ১৩ মার্চ থেকে ৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সিলেট, ৯ এপ্রিল থেকে ৫ অক্টোবরের মধ্যে রাজশাহী, ২৭ এপ্রিল থেকে ২৩ অক্টোবরের মধ্যে বরিশাল, ৩০ মার্চ থেকে ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে খুলনা এবং ৮ মার্চ থেকে ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন করতে হবে। আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার পর মে-জুনে এসব নির্বাচন হতে পারে। রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা ও সিলেট—এই চার সিটির নির্বাচন একই দিনে করার চিন্তা আছে ইসির।

জানতে চাইলে কমিশনার শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, রংপুর ছাড়া অন্য সিটি করপোরেশনগুলোর নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনের জন্য আইন আছে। এই আইনের যথাযথ প্রয়োগ হলে নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। তা ছাড়া, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যমের প্রতিনিধি ও রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসি সংলাপ করছে। এটি রাজনৈতিক ও নির্বাচনী আবহ সৃষ্টিতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে।

রংপুর

আগামী মাসে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে। তফসিল ঘোষণা না হলেও মাঠে নেমে পড়েছেন মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। তাঁদের পোস্টারে ছেয়ে গেছে নগরের অলিগলি। ইতিমধ্যে জাতীয় পার্টি দলের রংপুর মহানগর কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমানকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ গত মাসে তিন দিনের রংপুর সফরে গিয়ে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে একাধিক জনসভা করেছেন।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এখনো প্রার্থী ঘোষণা করেনি। তবে মাঠে আছেন ডজনখানেক সম্ভাব্য প্রার্থী। পোস্টার লাগিয়ে গণসংযোগও করছেন তাঁরা। শেষ পর্যন্ত কে পাবেন ‘নৌকা’, তা নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেতে তৎপর বর্তমান মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সরফুদ্দীন আহমেদ। তিনি প্রচার চালাচ্ছেন। এ ছাড়াচৌধুরী খালেকুজ্জামান, সাফিউর রহমান, আবুল কাশেম, আতাউর জামান ও রাশেক রহমানও আওয়ামী লীগের মনোনয়নের আশায় প্রচারে নেমেছেন।

এর বাইরে দলীয় রাজনীতিতে সরাসরি না থাকলেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে পারেন এমন দুজনের নামও আলোচনায় আছে। তাঁরা হলেন রংপুর চেম্বারের সাবেক সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী এবং রংপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র আবদুর রউফ।

বিএনপির মহানগর কমিটির সাবেক সভাপতি কাওসার জামান নির্বাচনী প্রচারে নেমেছেন। তিনি পোস্টারও সেঁটেছেন। এ ছাড়া মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ও জেলা যুবদলের সভাপতি নাজমুল ইসলামের পোস্টারও নগরের বিভিন্ন জায়গায় দেখা যাচ্ছে।

বরিশাল

বরিশালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের দৌড়ে এগিয়ে আছেন মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর বড় ছেলে সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। তিনি প্রায় চার বছর ধরে নির্বাচনকেন্দ্রিক তৎপরতা চালাচ্ছেন। মহানগরের প্রতিটি ওয়ার্ডে তাঁর বিলবোর্ড, ব্যানার সাঁটানো আছে।

এ ছাড়া মনোনয়ন পেতে আগ্রহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরী ও সহসভাপতি আফজালুল করীম, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাহিদ ফারুক, প্রয়াত মেয়র শওকত হোসেনের স্ত্রী সাংসদ জেবুন্নেছা আফরোজ, আবদুর রব সেরনিয়াবাতের ছোট ছেলে খোকন সেরনিয়াবাতসহ আরও কয়েকজন।

সাদিক আবদুল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, দলের নেতা-কর্মীরা তাঁকে মেয়র হিসেবে দেখতে চান। তাঁরাই প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

অন্যদিকে বিএনপির দলীয় সূত্র জানায়, দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার, বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব, কেন্দ্রীয় কমিটির বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়েদুল হকসহ অন্তত নয়জন নেতা প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে আছেন।

মজিবর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর ইচ্ছা সংসদ নির্বাচন করার। দল চাইলে মেয়র নির্বাচন করবেন।

গাজীপুর

গাজীপুর সিটি করপোরেশনে প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৩ সালের ৬ জুলাই। আগামী নির্বাচন সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমান মেয়র এম এ মান্নান এবং সাবেক সাংসদ হাসান উদ্দিন সরকারের নাম আলোচনায় আছে।

আর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে গত নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লা খান ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের নাম আলোচনায় আছে।

সিলেট

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি থেকে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এবং সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেতে পারেন বলে দলীয় সূত্রগুলো বলছে। এর বাইরে সিলেট নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ প্রায় এক বছর ধরে তৎপর। ‘আসাদ ভাইকে মেয়র পদে দেখতে চাই’ শিরোনামে পোস্টার, বিলবোর্ডও চোখে পড়ে নগরজুড়ে।

সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদও নৌকা চান। তিনি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নের প্রত্যাশায় নগরে তাঁর পক্ষে প্রচার আছে।

নগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম ধানের শীষের প্রার্থী হতে চান। নাসিম দলীয় কর্মসূচির মাধ্যমে প্রচারও চালাচ্ছেন। আর বদরুজ্জামান সম্প্রতি মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়ে প্রচার শুরু করেছেন।

রাজশাহী

নির্বাচন সামনে রেখে মাঠে রয়েছেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী হওয়ার জন্য খায়রুজ্জামান গত জুলাইয়ে দলের উচ্চপর্যায় থেকে সবুজ সংকেত পান। তখন থেকে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছে রাজশাহী আওয়ামী লীগ। ইতিমধ্যে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে শুরু হয়েছে উঠান বৈঠক। খায়রুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, তিনি সব জায়গাতেই প্রার্থী হিসেবে ভোট চাইছেন।

বিপরীতে এখনো সেভাবে মাঠে নামেনি বিএনপি। দলীয় ফোরামেও এ নিয়ে জোরালো আলোচনা নেই। জানতে চাইলে রাজশাহীর বর্তমান মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত না হওয়ায় তিনি এখনো নির্বাচনী কাজে মাঠে নামেননি। তবে ১০ বছর ধরে মাঠে রয়েছেন এবং দলের জন্য কাজ করছেন বলে জানান।

খুলনা

আগামী নির্বাচন সামনে রেখে বেশ জোরেশোরেই প্রচার চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কয়েকজন নেতা। মেয়র নির্বাচন সামনে রেখে ছোট ছোট দলে বিভক্তও হয়ে পড়েছেন নেতা-কর্মীরা।

আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আবদুল খালেক এবার মেয়র নির্বাচন করবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। তাঁর অনুপস্থিতিতে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই শেখ সালাহউদ্দীনের নাম আলোচনায় আছে। এ ছাড়া কয়েক বছর ধরে মাঠে সরব রয়েছেন সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সাইফুল ইসলামসহ আরও দু-একজন।

সাইফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘মেয়র নির্বাচনে দল যাঁকে মনোনয়ন দেবে আমরা তাঁর পক্ষেই কাজ করব। তবে নির্বাচন করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করে যাচ্ছি।’

খুলনার বর্তমান মেয়র মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। এবারও মেয়র পদে ধানের শীষের প্রার্থী হতে চান তিনি। মনিরুজ্জামান বলেন, দল মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করবেন। ইতিমধ্যে দলের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে কাগজপত্র জমা দেওয়া হয়েছে।

খুলনা জেলা বিএনপির সভাপতি শফিকুল আলমও বিএনপির মনোনয়ন পেতে তৎপর রয়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচন নিয়ে বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন ও নেতা-কর্মীদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত আলাপ-আলোচনা করছেন।

ইসির প্রথম পরীক্ষা

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচন এবং পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ইসির ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। সে সময় নির্বাচনব্যবস্থা অনেকটা ভেঙে পড়েছিল। এ অবস্থায় নতুন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর বিশিষ্টজনেরা বলেছিলেন, নতুন কমিশনের প্রধান চ্যালেঞ্জ নির্বাচন নিয়ে মানুষের আস্থা ফেরানো। নুরুল হুদা কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর এখন পর্যন্ত সে অর্থে বড় কোনো পরীক্ষার মুখে পড়েনি। তারা কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং কয়েকটি উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকারের নির্বাচন করেছে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করছেন, জাতীয় নির্বাচনের আগে ছয় সিটি করপোরেশনের নির্বাচন হবে ইসির প্রথম পরীক্ষা।

জানতে চাইলে সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, দেশের রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপটে প্রতিটি নির্বাচনই ইসির জন্য চ্যালেঞ্জ। এবার সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলো দলীয় প্রতীকে হবে এবং জাতীয় নির্বাচনের আগ মুহূর্তে হবে। এ কারণে এটা হবে বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি মনে করেন, শুধু ইসি নয়, এই নির্বাচন হবে সরকার ও অন্য দলগুলোর জন্যও পরীক্ষা। বিশেষ করে, সরকারের সদিচ্ছার পরীক্ষা হবে এই নির্বাচনগুলোতে।

(প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করেছেন নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী, রংপুর ও সিলেট; বরিশাল অফিস এবং খুলনা ও গাজীপুর প্রতিনিধি)

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X