সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৯:৩৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, July 27, 2016 9:21 pm
A- A A+ Print

জঙ্গিবাদের মদদদাতা হিসেবে বিএনপিকে অভিযুক্ত করলেন প্রধানমন্ত্রী

সংসদে-প্রধানমন্ত্রী-810x397

ডেস্ক রিপোর্ট: কল্যাণপুরের ঘটনায় বিএনপির বক্তব্যের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বিএনপির শর্তে সাধারণ মানুষের কাছে মনে হবে তারাই সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মদদদাতা। শুধুমাত্র তাদের (বিএনপি) শর্তটা মানলেই তারা জঙ্গিবাদ বন্ধ করে দেবে। তাদের কথা বার্তায় এটাই প্রতীয়মান হয়।’ বুধবার জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্য ডা. দীপু মনির এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ সব কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিএনপির যে সমস্ত বক্তব্য আসছে তাতে খুব স্বাভাবিকভাবেই মনে হয় তারা (বিএনপি) একটা শর্ত দিচ্ছেন এটা করেন তা না হলে সন্ত্রাস বন্ধ হবে না, জঙ্গিবাদ বন্ধ হবে না। সাধারণ মানুষের কাছে মনে হবে তারাই (বিএনপি) সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মদদদাতা। শুধুমাত্র তাদের (বিএনপি) শর্তটা মানলেই তারা জঙ্গিবাদ বন্ধ করে দেবে। তাদের কথা বার্তায় এটাই প্রতিয়মান হয়।’
‘যারা এদের (জঙ্গি) উৎসাহিত করবে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে,’ বলেও হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘একটি রাজনৈতিক দল, যে রাজনৈতিক দলটির জন্ম হয়েছিলো হত্যা-ক্যু ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের পর। মার্শাল ল’ অর্ডিনেন্স করে জামায়াতের মতো একটি দলকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়। যে নামেই যে আসুক না কেন যখন খোঁজ নেয়া হয় এরা কোন জায়গায় পড়েছে, কোন কলেজে পড়েছে, কোন দল করেছে তখনই কিন্তু জানা যায় এরা কোন দল করেছে। এদেরকে ব্যবহার করা হচ্ছে।’   শেখ হাসিনা বলেন, ‘জঙ্গি-সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বৈশ্বিক সমস্যা। অগ্নি-সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণ করে আমরা দেশের পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলাম। ১ জুলাইয়ের ঘটনা দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। এটাও ঠিক সারা বিশ্বব্যাপী এ ধরণের ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। যারা এই ঘটনাগুলো ঘটাচ্ছে দেখা যাচ্ছে, ইসলাম পবিত্র শান্তির ধর্ম, ইসলামের নাম ব্যবহার করে হামলা করা হচ্ছে। অর্থাৎ ইসলামকে একটা সন্ত্রাসী ধর্ম হিসেবে পরিচিত করানোর মাধ্যমে হেয় করা হচ্ছে।’   তিনি বলেন, ‘কারা তাদের মদদদাতা, অর্থদাতা এবং প্রশিক্ষণদাতা। কারা তাদের মাথায় এ ধরনের উদ্ভট চিন্তা যোগাচ্ছে বা তাদেরকে উৎসাহিত করছে। সেটাই হচ্ছে দুশ্চিন্তার বিষয়।’ খুতবাহ নয়, জঙ্গি-সন্ত্রাসবিরোধী ইসলামিক উক্তি ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে সারা দেশের মসজিদ গুলোতে খুতবাহ নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ বিরোধী কুরআন ও হাদিসসমূহের উক্তিগুলো নিয়ে একটা ছোট পুস্তিকা দেয়া হয়েছে। সংসদ সদস্য নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারির এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে একটি খুতবাহ তৈরি করে দেয়া হয়েছে-তা কিন্তু না।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের কুরআন শরীফে জঙ্গি এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যে সমস্ত উদ্বৃতি রয়েছে সেগুলো এবং নবী করিম (স.) বিভিন্ন ধর্ম সম্পর্কে যে সমস্ত কথা বলেছেন সেই সমস্ত উক্তিগুলো দিয়ে একটা ছোট পুস্তিকা করা হয়েছে। এটার সংক্ষিপ্ত একটা লিফলেটও বের করা হয়েছে এবং সেটাই মসজিদে মসজিদে দেওয়া হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘খুতবাহর বিভিন্ন স্তর আছে। অন্ততপক্ষে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যে উক্তিগুলো রয়েছে সেগুলো পাঠ করা হয়। মসজিদ ঈমাম সাহেবরা যখন বয়ান দেন বা আমাদের ধর্মীয় গুরুরা যখন কথা বলেন-তাদের কিন্তু একটা জনমত সৃষ্টি করার সুযোগ আছে। তারা যেন জনমত সৃষ্টি করতে পারে তার জন্যেই দেওয়া হয়েছে।’

Comments

Comments!

 জঙ্গিবাদের মদদদাতা হিসেবে বিএনপিকে অভিযুক্ত করলেন প্রধানমন্ত্রীAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

জঙ্গিবাদের মদদদাতা হিসেবে বিএনপিকে অভিযুক্ত করলেন প্রধানমন্ত্রী

Wednesday, July 27, 2016 9:21 pm
সংসদে-প্রধানমন্ত্রী-810x397

ডেস্ক রিপোর্ট: কল্যাণপুরের ঘটনায় বিএনপির বক্তব্যের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বিএনপির শর্তে সাধারণ মানুষের কাছে মনে হবে তারাই সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মদদদাতা। শুধুমাত্র তাদের (বিএনপি) শর্তটা মানলেই তারা জঙ্গিবাদ বন্ধ করে দেবে। তাদের কথা বার্তায় এটাই প্রতীয়মান হয়।’

বুধবার জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্য ডা. দীপু মনির এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ সব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিএনপির যে সমস্ত বক্তব্য আসছে তাতে খুব স্বাভাবিকভাবেই মনে হয় তারা (বিএনপি) একটা শর্ত দিচ্ছেন এটা করেন তা না হলে সন্ত্রাস বন্ধ হবে না, জঙ্গিবাদ বন্ধ হবে না। সাধারণ মানুষের কাছে মনে হবে তারাই (বিএনপি) সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের মদদদাতা। শুধুমাত্র তাদের (বিএনপি) শর্তটা মানলেই তারা জঙ্গিবাদ বন্ধ করে দেবে। তাদের কথা বার্তায় এটাই প্রতিয়মান হয়।’

‘যারা এদের (জঙ্গি) উৎসাহিত করবে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে,’ বলেও হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘একটি রাজনৈতিক দল, যে রাজনৈতিক দলটির জন্ম হয়েছিলো হত্যা-ক্যু ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের পর। মার্শাল ল’ অর্ডিনেন্স করে জামায়াতের মতো একটি দলকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়। যে নামেই যে আসুক না কেন যখন খোঁজ নেয়া হয় এরা কোন জায়গায় পড়েছে, কোন কলেজে পড়েছে, কোন দল করেছে তখনই কিন্তু জানা যায় এরা কোন দল করেছে। এদেরকে ব্যবহার করা হচ্ছে।’

 

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জঙ্গি-সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বৈশ্বিক সমস্যা। অগ্নি-সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণ করে আমরা দেশের পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলাম। ১ জুলাইয়ের ঘটনা দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। এটাও ঠিক সারা বিশ্বব্যাপী এ ধরণের ঘটনা ঘটে যাচ্ছে। যারা এই ঘটনাগুলো ঘটাচ্ছে দেখা যাচ্ছে, ইসলাম পবিত্র শান্তির ধর্ম, ইসলামের নাম ব্যবহার করে হামলা করা হচ্ছে। অর্থাৎ ইসলামকে একটা সন্ত্রাসী ধর্ম হিসেবে পরিচিত করানোর মাধ্যমে হেয় করা হচ্ছে।’

 

তিনি বলেন, ‘কারা তাদের মদদদাতা, অর্থদাতা এবং প্রশিক্ষণদাতা। কারা তাদের মাথায় এ ধরনের উদ্ভট চিন্তা যোগাচ্ছে বা তাদেরকে উৎসাহিত করছে। সেটাই হচ্ছে দুশ্চিন্তার বিষয়।’

খুতবাহ নয়, জঙ্গি-সন্ত্রাসবিরোধী ইসলামিক উক্তি

ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে সারা দেশের মসজিদ গুলোতে খুতবাহ নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ বিরোধী কুরআন ও হাদিসসমূহের উক্তিগুলো নিয়ে একটা ছোট পুস্তিকা দেয়া হয়েছে।

সংসদ সদস্য নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারির এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে একটি খুতবাহ তৈরি করে দেয়া হয়েছে-তা কিন্তু না।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের কুরআন শরীফে জঙ্গি এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যে সমস্ত উদ্বৃতি রয়েছে সেগুলো এবং নবী করিম (স.) বিভিন্ন ধর্ম সম্পর্কে যে সমস্ত কথা বলেছেন সেই সমস্ত উক্তিগুলো দিয়ে একটা ছোট পুস্তিকা করা হয়েছে। এটার সংক্ষিপ্ত একটা লিফলেটও বের করা হয়েছে এবং সেটাই মসজিদে মসজিদে দেওয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘খুতবাহর বিভিন্ন স্তর আছে। অন্ততপক্ষে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যে উক্তিগুলো রয়েছে সেগুলো পাঠ করা হয়। মসজিদ ঈমাম সাহেবরা যখন বয়ান দেন বা আমাদের ধর্মীয় গুরুরা যখন কথা বলেন-তাদের কিন্তু একটা জনমত সৃষ্টি করার সুযোগ আছে। তারা যেন জনমত সৃষ্টি করতে পারে তার জন্যেই দেওয়া হয়েছে।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X