মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৬:০৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, July 24, 2016 9:11 pm
A- A A+ Print

জুমার খুতবা তৈরিতে সম্পৃক্ত থাকতে চান সরকারি দলের ‘এমপিরা’

147969_1

ঢাকা: গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ঘটনার পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশব্যাপী মসজিদগুলোতে সরবরাহকৃত জুমআর খুতবা এককভাবে নির্ধারণ করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। সংসদীয় কমিটি কিংবা আলেম ওলামাদের মতামত না নিয়েই এটি করা হয়েছে। যে কারণে নির্ধারিত খুতবায় আরো অনেক বিষয় অন্তর্ভুক্ত করার প্রয়োজন থাকলেও সে সব বাদ পড়ে গেছে বলে মনে করছে ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। খুতবা তৈরীতে সংসদীয় কমিটির এমপিদের অন্তর্ভুক্ত করারও সুপারিশ করা হয় বৈঠকে। জাতীয় সংসদ ভবনে রবিবার অনুষ্ঠিত ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ক্ষোভ প্রকাশ করে ভবিষ্যতে একক সিদ্ধান্ত খুতবা নির্ধারণ না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কার্যক্রমের সঙ্গে সংসদীয় কমিটির মেলবন্ধন তৈরিতে কমিটির সভাপতিকে সংস্থাটির বোর্ড অব গভর্ণরস’র সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করার তাগিদ দেয়া হয়েছে। কমিটির সভাপতি বজলুল হক হারুনের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. আসলামুল হক, এ.কে.এম.এ আউয়াল (সাইদুর রহমান), সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, মো. মকবুল হোসেন, মোহাম্মদ আমির হোসেন এবং দিলারা বেগম অংশ নেন। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আব্দুল জলিলসহ সংশিস্নষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। কমিটি সূত্র জানায়, বৈঠকে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি, শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান, পবিত্র মক্কা ও মদিনা মনোয়ারাতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে তাদের আত্নার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করে মোনাজাত ও এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপর দেশের মসজিদগুলোতে সরবরাহকৃত জুমআর খুতবা বিষয়ে আলোচনা করেন কমিটির সদস্যরা। তারা বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নির্ধারিত খুতবায় গুরুত্বপূর্ণ অনেক বিষয় বাদ পড়ে গেছে। এতে জঙ্গিবাদ বিষয়ে ইসলাম ধর্মের মর্মবাণীসহ দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভুতির বিষয়গুলো অন্তর্ভূক্ত করা উচিত। খুতবার বিষয়ে সংসদীয় কমিটির কোনো পরামর্শই নেয়া হয়নি। অথচ এর সঙ্গে স্থায়ী কমিটির সদস্যদেরও জবাবদিহিতার বিষয়টি জড়িত। কমিটি ভবিষ্যতে খুতবা নির্ধারণের বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে এককভাবে সিদ্ধান্ত না নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়সহ স্থায়ী কমিটিকে এর সঙ্গে সম্পৃক্ত করার জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে। একইসঙ্গে স্থায়ী কমিটির সভাপতিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্ণরসের সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্যও সুপারিশ করে কমিটি। এদিকে বৈঠকে হজের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে পর্যালোচনা করা হয়। ২০১৬ সালের হজ সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পালনের জন্য মন্ত্রণালয় ও সংসদীয় কমিটি একসঙ্গে কাজ করার দৃঢ় অভিপ্রায় ব্যক্ত করে। বৈঠকে হজের বিষয়ে কোনো ধরনের অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে কমিটির সবাই জিরো টলারেন্স প্রদর্শনের বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করে। এছাড়াও হাব সমন্বয় পরিষদের ব্যানারে যেসব এজেন্সি ২০১৬ সালের হজ বিষয়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে পবিত্র হজ কার্যক্রমকে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস গ্রহণ করেছে মন্ত্রণালয়কে তাদের বৈধতা ও আইনগত ভিত্তি খতিয়ে দেখা এবং তাদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

Comments

Comments!

 জুমার খুতবা তৈরিতে সম্পৃক্ত থাকতে চান সরকারি দলের ‘এমপিরা’AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

জুমার খুতবা তৈরিতে সম্পৃক্ত থাকতে চান সরকারি দলের ‘এমপিরা’

Sunday, July 24, 2016 9:11 pm
147969_1

ঢাকা: গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ঘটনার পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশব্যাপী মসজিদগুলোতে সরবরাহকৃত জুমআর খুতবা এককভাবে নির্ধারণ করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

সংসদীয় কমিটি কিংবা আলেম ওলামাদের মতামত না নিয়েই এটি করা হয়েছে। যে কারণে নির্ধারিত খুতবায় আরো অনেক বিষয় অন্তর্ভুক্ত করার প্রয়োজন থাকলেও সে সব বাদ পড়ে গেছে বলে মনে করছে ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

খুতবা তৈরীতে সংসদীয় কমিটির এমপিদের অন্তর্ভুক্ত করারও সুপারিশ করা হয় বৈঠকে।

জাতীয় সংসদ ভবনে রবিবার অনুষ্ঠিত ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ক্ষোভ প্রকাশ করে ভবিষ্যতে একক সিদ্ধান্ত খুতবা নির্ধারণ না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

পাশাপাশি ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কার্যক্রমের সঙ্গে সংসদীয় কমিটির মেলবন্ধন তৈরিতে কমিটির সভাপতিকে সংস্থাটির বোর্ড অব গভর্ণরস’র সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করার তাগিদ দেয়া হয়েছে।

কমিটির সভাপতি বজলুল হক হারুনের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. আসলামুল হক, এ.কে.এম.এ আউয়াল (সাইদুর রহমান), সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী, মো. মকবুল হোসেন, মোহাম্মদ আমির হোসেন এবং দিলারা বেগম অংশ নেন।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আব্দুল জলিলসহ সংশিস্নষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

কমিটি সূত্র জানায়, বৈঠকে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি, শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান, পবিত্র মক্কা ও মদিনা মনোয়ারাতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের স্মরণে তাদের আত্নার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করে মোনাজাত ও এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এরপর দেশের মসজিদগুলোতে সরবরাহকৃত জুমআর খুতবা বিষয়ে আলোচনা করেন কমিটির সদস্যরা।

তারা বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নির্ধারিত খুতবায় গুরুত্বপূর্ণ অনেক বিষয় বাদ পড়ে গেছে। এতে জঙ্গিবাদ বিষয়ে ইসলাম ধর্মের মর্মবাণীসহ দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভুতির বিষয়গুলো অন্তর্ভূক্ত করা উচিত। খুতবার বিষয়ে সংসদীয় কমিটির কোনো পরামর্শই নেয়া হয়নি। অথচ এর সঙ্গে স্থায়ী কমিটির সদস্যদেরও জবাবদিহিতার বিষয়টি জড়িত।

কমিটি ভবিষ্যতে খুতবা নির্ধারণের বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে এককভাবে সিদ্ধান্ত না নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়সহ স্থায়ী কমিটিকে এর সঙ্গে সম্পৃক্ত করার জন্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে।

একইসঙ্গে স্থায়ী কমিটির সভাপতিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্ণরসের সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্যও সুপারিশ করে কমিটি।

এদিকে বৈঠকে হজের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে পর্যালোচনা করা হয়। ২০১৬ সালের হজ সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পালনের জন্য মন্ত্রণালয় ও সংসদীয় কমিটি একসঙ্গে কাজ করার দৃঢ় অভিপ্রায় ব্যক্ত করে।

বৈঠকে হজের বিষয়ে কোনো ধরনের অনিয়ম পরিলক্ষিত হলে কমিটির সবাই জিরো টলারেন্স প্রদর্শনের বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করে।

এছাড়াও হাব সমন্বয় পরিষদের ব্যানারে যেসব এজেন্সি ২০১৬ সালের হজ বিষয়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে পবিত্র হজ কার্যক্রমকে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস গ্রহণ করেছে মন্ত্রণালয়কে তাদের বৈধতা ও আইনগত ভিত্তি খতিয়ে দেখা এবং তাদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X