রবিবার, ১৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:১০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, September 24, 2016 4:08 pm
A- A A+ Print

জেরুজালেমের গণজাগরণের সমর্থনে হামাসের বিশাল সমাবেশ

153993_1

জেরুজালেম: গত কয়েক দশক ধরে ইসরাইল কর্তৃক ফিলিস্তিনিদের ভূমি দখলের প্রতিবাদে এবং ‘আল-কুদস ইন্তিফাদা’ বা জেরুজালেমের গণজাগরণের সমর্থনে মিছিল ও সমাবেশ করেছে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস। শুক্রবার গাজার নিকটবর্তী বেইত জাবালিয়া শহরের আল খেলাফত আল রাশেদিন মসজিদ থেকে মিছিলটি বের করা হয়। এটি গাজা সিটি থেকে প্রায় চার কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত। সমাবেশে হামাসের নেতৃস্থানীয় সদস্য মশির আল মাশরি ভাষণ দেন। প্রায় এক বছর আগে ‘আল-কুদস ইন্তিফাদা’ তাদের কার্যক্রম শুরু করে। পরবর্তী বছরে এটিকে আরো শক্তিশালী করা হবে বলে সমাবেশে ঘোষণা দেন মাশরি। আল মাশরি বলেন, ‘ইসরাইলি শত্রুরা নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই বিদ্রোহ শেষ হবে না। যতক্ষণ না জেরুজালেম শত্রুমুক্ত হয় এবং ইসরাইলি কারাগারগুলোতে থেকে আমাদের ভাইয়েরা মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আামাদের আন্দোলন চলবে। এগুলো অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আমরা কোনো বিশ্রাম নেব না।’ অধিকৃত পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেম এবং ইসরাইলের সঙ্গে গাজা সীমান্তে গত বছর ফিলিস্তিনি যুবক ও ইসরাইলি বাহিনীর মধ্যে অসংখ্য বার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ কম্পাউন্ডে অনুপ্রবেশকারী ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের সঙ্গে এসব সংঘর্ষের সূচনা হয়েছিল। মুসলমানরা মসজিদটিকে বিশ্বের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান হিসেবে বিবেচনা করে থাকে। গত বছরের এসব সহিংসতায় ইসরাইলি বাহিনী হামলায় দুই শতাধিকেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। একই সময়ে ইসরাইলেরও অন্তত ৩৫  জন নিহত  হয়েছে।   এর আগে আরো দুটি ফিলিস্তিনি ইন্তিফাদায় কয়েকশ’ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। প্রথমটি চলে ১৯৮৭ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত এবং দ্বিতীয়টি ২০০০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। সূত্র: আনাদুলো নিউজ এজেন্সি
 

Comments

Comments!

 জেরুজালেমের গণজাগরণের সমর্থনে হামাসের বিশাল সমাবেশAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

জেরুজালেমের গণজাগরণের সমর্থনে হামাসের বিশাল সমাবেশ

Saturday, September 24, 2016 4:08 pm
153993_1

জেরুজালেম: গত কয়েক দশক ধরে ইসরাইল কর্তৃক ফিলিস্তিনিদের ভূমি দখলের প্রতিবাদে এবং ‘আল-কুদস ইন্তিফাদা’ বা জেরুজালেমের গণজাগরণের সমর্থনে মিছিল ও সমাবেশ করেছে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস।

শুক্রবার গাজার নিকটবর্তী বেইত জাবালিয়া শহরের আল খেলাফত আল রাশেদিন মসজিদ থেকে মিছিলটি বের করা হয়। এটি গাজা সিটি থেকে প্রায় চার কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত।

সমাবেশে হামাসের নেতৃস্থানীয় সদস্য মশির আল মাশরি ভাষণ দেন। প্রায় এক বছর আগে ‘আল-কুদস ইন্তিফাদা’ তাদের কার্যক্রম শুরু করে। পরবর্তী বছরে এটিকে আরো শক্তিশালী করা হবে বলে সমাবেশে ঘোষণা দেন মাশরি।

আল মাশরি বলেন, ‘ইসরাইলি শত্রুরা নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই বিদ্রোহ শেষ হবে না। যতক্ষণ না জেরুজালেম শত্রুমুক্ত হয় এবং ইসরাইলি কারাগারগুলোতে থেকে আমাদের ভাইয়েরা মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আামাদের আন্দোলন চলবে। এগুলো অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আমরা কোনো বিশ্রাম নেব না।’

অধিকৃত পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেম এবং ইসরাইলের সঙ্গে গাজা সীমান্তে গত বছর ফিলিস্তিনি যুবক ও ইসরাইলি বাহিনীর মধ্যে অসংখ্য বার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ কম্পাউন্ডে অনুপ্রবেশকারী ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের সঙ্গে এসব সংঘর্ষের সূচনা হয়েছিল। মুসলমানরা মসজিদটিকে বিশ্বের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান হিসেবে বিবেচনা করে থাকে।

গত বছরের এসব সহিংসতায় ইসরাইলি বাহিনী হামলায় দুই শতাধিকেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। একই সময়ে ইসরাইলেরও অন্তত ৩৫  জন নিহত  হয়েছে।

 

এর আগে আরো দুটি ফিলিস্তিনি ইন্তিফাদায় কয়েকশ’ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। প্রথমটি চলে ১৯৮৭ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত এবং দ্বিতীয়টি ২০০০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত অব্যাহত ছিল।

সূত্র: আনাদুলো নিউজ এজেন্সি

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X