শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৪৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, December 28, 2016 10:30 pm
A- A A+ Print

জেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের জয়জয়কার

madaripur_zila_parishad_election_35154_1482941329

বিক্ষিপ্ত সংঘাত-সহিংসতা, কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ভোট কেন্দ্রে জোর করে প্রবেশের চেষ্টা এবং আচরণবিধি লংঘনের ঘটনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ।
বুধবার ৫৯ জেলায় সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত টানা ৫ ঘণ্টা ভোটগ্রহণ চলে। তবে দুটি জেলায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। এরপরও ফাঁকা মাঠে জয় পেতে ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থকরা নিজেদের মধ্যে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়েন। ভোট কেন্দ্রগুলোতে বিপুলসংখ্যক আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু সংঘাতকারী সবাই সরকারি দলের হওয়ায় অনেক স্থানেই তাদের (পুলিশ) 'নীরব দর্শকের' ভূমিকায় দেখা গেছে। তবে অধিকাংশ জেলায় ভোট গ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা পরিষদ নির্বাচনে বেসরকারি ফলাফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের জয়জয়কার। বুধবার ৩৮ জেলায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ২৪ জন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন। বাকি জেলাগুলোতে ১০ জন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং ৪ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান হয়েছেন। এর আগে ২১ জেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন। সব মিলিয়ে ৪৫ জেলায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন। বগুড়া ও কুষ্টিয়ায় আদালতের নির্দেশে চেয়ারম্যান পদে ভোট গ্রহণ স্থগিত রয়েছে। এছাড়া জেলা পরিষদ আইনের আওতাভুক্ত না হওয়ায় পার্বত্য তিন জেলায় নির্বাচন হয়নি। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আইনি জটিলতার কারণে ১৭টি জেলার অন্তত অর্ধশত ভোট কেন্দ্রে বুধবার ভোট গ্রহণ স্থগিত ছিল। নির্বাচন কমিশন ৬১ জেলা পরিষদের তফসিল ঘোষণা করলেও ভোলা ও ফেনী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য পদে সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় ওই দুই জেলায় ভোট গ্রহণ হয়নি। ভোট গ্রহণের আগেই জেলা পরিষদের ২১ জন চেয়ারম্যান, ৬৯ জন সংরক্ষিত সদস্য ও ১৬৬ জন সাধারণ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

Comments

Comments!

 জেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের জয়জয়কারAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

জেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের জয়জয়কার

Wednesday, December 28, 2016 10:30 pm
madaripur_zila_parishad_election_35154_1482941329

বিক্ষিপ্ত সংঘাত-সহিংসতা, কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ভোট কেন্দ্রে জোর করে প্রবেশের চেষ্টা এবং আচরণবিধি লংঘনের ঘটনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ।

বুধবার ৫৯ জেলায় সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত টানা ৫ ঘণ্টা ভোটগ্রহণ চলে। তবে দুটি জেলায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়।

বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। এরপরও ফাঁকা মাঠে জয় পেতে ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থকরা নিজেদের মধ্যে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়েন।

ভোট কেন্দ্রগুলোতে বিপুলসংখ্যক আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু সংঘাতকারী সবাই সরকারি দলের হওয়ায় অনেক স্থানেই তাদের (পুলিশ) ‘নীরব দর্শকের’ ভূমিকায় দেখা গেছে। তবে অধিকাংশ জেলায় ভোট গ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে বেসরকারি ফলাফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের জয়জয়কার। বুধবার ৩৮ জেলায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ২৪ জন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন। বাকি জেলাগুলোতে ১০ জন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং ৪ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান হয়েছেন।

এর আগে ২১ জেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন। সব মিলিয়ে ৪৫ জেলায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন।

বগুড়া ও কুষ্টিয়ায় আদালতের নির্দেশে চেয়ারম্যান পদে ভোট গ্রহণ স্থগিত রয়েছে। এছাড়া জেলা পরিষদ আইনের আওতাভুক্ত না হওয়ায় পার্বত্য তিন জেলায় নির্বাচন হয়নি।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আইনি জটিলতার কারণে ১৭টি জেলার অন্তত অর্ধশত ভোট কেন্দ্রে বুধবার ভোট গ্রহণ স্থগিত ছিল।

নির্বাচন কমিশন ৬১ জেলা পরিষদের তফসিল ঘোষণা করলেও ভোলা ও ফেনী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য পদে সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় ওই দুই জেলায় ভোট গ্রহণ হয়নি।

ভোট গ্রহণের আগেই জেলা পরিষদের ২১ জন চেয়ারম্যান, ৬৯ জন সংরক্ষিত সদস্য ও ১৬৬ জন সাধারণ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X