বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:২৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, January 21, 2017 8:29 am
A- A A+ Print

ট্রাম্পের অভিষেকে পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ

8

ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন, কিন্তু রাজধানী ওয়াশিংটনে হাজার হাজার মানুষ জড়ো হয়েছে তার নির্বাচনের বিরুদ্ধে নিজেদের বিক্ষোভ দেখাতে। শুধু ওয়াশিংটন নয়, দেশের বিভিন্ন শহরে ছোট-বড় নানা ধরনের বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নিউইয়র্কে ট্রাম্প টাওয়ারের সামনে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী সকাল থেকে অবস্থান নিয়েছেন। এই সব বিক্ষোভের অধিকাংশই শান্তিপূর্ণ, তবে ওয়াশিংটনে বিক্ষোভকারী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের একাধিক ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের একজন মুখপাত্র কোনো কোনো স্থানের বিক্ষোভকে দাঙ্গার সঙ্গে তুলনা করেছেন। পুলিশ জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের ছোড়া ইট-পাথর থেকে শহরতলির অনেক দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই সব সহিংস ঘটনার জন্য তারা নিজেদের “এনার্কিস্ট” হিসেবে পরিচয় দেয়, এমন ছোট ছোট কয়েকটি গ্রুপকে অভিযুক্ত করেছে। এই প্রতিবেদন লেখার সময় ওয়াশিংটনের শহরতলিতে পুলিশের সঙ্গে ছোট-বড় নানা ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় ব্যবহৃত ও নোংরা কাগজপত্রের জন্য রক্ষিত ময়লার বাক্সে আগুন ধরিয়ে পুলিশকে প্রতিহত করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। বিক্ষোভকারীদের নিরস্ত করতে পুলিশ মরিচ পানির স্প্রে ব্যবহার করেছে। এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়েছেন এমন বিক্ষোভকারীর সংখ্যা প্রায় ১০০। অন্ততপক্ষে দুজন পুলিশ সংঘর্ষে আহত হয়েছেন। দুপুর তিনটা থেকে শুরু হবে আনুষ্ঠানিক শোভাযাত্রা, এতে ট্রাম্প ও রিপাবলিকান নেতৃত্ব অংশ নেবেন। রাস্তার দুই ধারে দাঁড়িয়ে হাজার হাজার দর্শক তাঁদের অভিনন্দন জানাবেন। বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছে, তাঁদের লক্ষ্য এই শোভাযাত্রায় বিঘ্ন সৃষ্টি। সে সম্ভাবনা নস্যাৎ করতে পুলিশ ব্যারিকেডের সৃষ্টি করেছে। তাদের শোভাযাত্রা থেকে যত দূরে সম্ভব ঢেলে পাঠানোর চেষ্টা করছে। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশকে টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে। ছবি : রয়টার্সট্রাম্প নিজে বিক্ষোভের বিষয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করেননি, তবে তাঁর অনেক রিপাবলিকান সমর্থক ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করেছে। শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের এই ঐতিহাসিক ঘটনা উদ্যাপনের বদলে সহিংস বিক্ষোভের এই ঘটনাকে তাঁরা লজ্জাজনক বলে অভিহিত করেছেন। তবে বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন, ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণ অবৈধ। ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম দিন থেকেই তাঁরা ট্রাম্পের নাগরিক স্বার্থবিরোধী যেকোনো উদ্যোগের বিরুদ্ধে এখন থেকেই বিরুদ্ধ অবস্থান গ্রহণ করছেন। তাঁদের লক্ষ্য, যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে ট্রাম্প যেন মনে রাখেন দেশের অধিকাংশ মানুষ তাঁর বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে। মার্কিন ইতিহাসে ক্ষমতা হস্তান্তরের সময় বিক্ষোভ ও সংঘর্ষের ঘটনা অস্বাভাবিক নয়। ১৮৬১ সালে আব্রাহাম লিঙ্কনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী ওয়াশিংটনে জমায়েত হন, তাঁদের অনেকেই সশস্ত্র ছিলেন। সম্ভাব্য হামলা এড়াতে প্রেসিডেন্ট লিঙ্কনকে গোপনে অভিষেক কেন্দ্রে এসে হাজির হতে হয়। ১৯৭৩ সালে রিচার্ড নিক্সনের শপথ গ্রহণের বিরুদ্ধেও হাজার হাজার ভিয়েতনাম যুদ্ধবিরোধী বিক্ষোভকারী রাজধানী শহরকে কার্যত অকেজো করে তোলেন। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কংগ্রেস সদস্য সে অভিষেকেও অংশগ্রহণে অস্বীকার করেন।

Comments

Comments!

 ট্রাম্পের অভিষেকে পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ট্রাম্পের অভিষেকে পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ

Saturday, January 21, 2017 8:29 am
8

ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন, কিন্তু রাজধানী ওয়াশিংটনে হাজার হাজার মানুষ জড়ো হয়েছে তার নির্বাচনের বিরুদ্ধে নিজেদের বিক্ষোভ দেখাতে। শুধু ওয়াশিংটন নয়, দেশের বিভিন্ন শহরে ছোট-বড় নানা ধরনের বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নিউইয়র্কে ট্রাম্প টাওয়ারের সামনে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী সকাল থেকে অবস্থান নিয়েছেন। এই সব বিক্ষোভের অধিকাংশই শান্তিপূর্ণ, তবে ওয়াশিংটনে বিক্ষোভকারী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের একাধিক ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের একজন মুখপাত্র কোনো কোনো স্থানের বিক্ষোভকে দাঙ্গার সঙ্গে তুলনা করেছেন।
পুলিশ জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের ছোড়া ইট-পাথর থেকে শহরতলির অনেক দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই সব সহিংস ঘটনার জন্য তারা নিজেদের “এনার্কিস্ট” হিসেবে পরিচয় দেয়, এমন ছোট ছোট কয়েকটি গ্রুপকে অভিযুক্ত করেছে। এই প্রতিবেদন লেখার সময় ওয়াশিংটনের শহরতলিতে পুলিশের সঙ্গে ছোট-বড় নানা ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় ব্যবহৃত ও নোংরা কাগজপত্রের জন্য রক্ষিত ময়লার বাক্সে আগুন ধরিয়ে পুলিশকে প্রতিহত করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। বিক্ষোভকারীদের নিরস্ত করতে পুলিশ মরিচ পানির স্প্রে ব্যবহার করেছে। এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়েছেন এমন বিক্ষোভকারীর সংখ্যা প্রায় ১০০। অন্ততপক্ষে দুজন পুলিশ সংঘর্ষে আহত হয়েছেন।
দুপুর তিনটা থেকে শুরু হবে আনুষ্ঠানিক শোভাযাত্রা, এতে ট্রাম্প ও রিপাবলিকান নেতৃত্ব অংশ নেবেন। রাস্তার দুই ধারে দাঁড়িয়ে হাজার হাজার দর্শক তাঁদের অভিনন্দন জানাবেন। বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছে, তাঁদের লক্ষ্য এই শোভাযাত্রায় বিঘ্ন সৃষ্টি। সে সম্ভাবনা নস্যাৎ করতে পুলিশ ব্যারিকেডের সৃষ্টি করেছে। তাদের শোভাযাত্রা থেকে যত দূরে সম্ভব ঢেলে পাঠানোর চেষ্টা করছে। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশকে টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে।
ছবি : রয়টার্সট্রাম্প নিজে বিক্ষোভের বিষয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করেননি, তবে তাঁর অনেক রিপাবলিকান সমর্থক ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করেছে। শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের এই ঐতিহাসিক ঘটনা উদ্যাপনের বদলে সহিংস বিক্ষোভের এই ঘটনাকে তাঁরা লজ্জাজনক বলে অভিহিত করেছেন। তবে বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন, ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণ অবৈধ। ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম দিন থেকেই তাঁরা ট্রাম্পের নাগরিক স্বার্থবিরোধী যেকোনো উদ্যোগের বিরুদ্ধে এখন থেকেই বিরুদ্ধ অবস্থান গ্রহণ করছেন। তাঁদের লক্ষ্য, যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে ট্রাম্প যেন মনে রাখেন দেশের অধিকাংশ মানুষ তাঁর বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে।
মার্কিন ইতিহাসে ক্ষমতা হস্তান্তরের সময় বিক্ষোভ ও সংঘর্ষের ঘটনা অস্বাভাবিক নয়। ১৮৬১ সালে আব্রাহাম লিঙ্কনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী ওয়াশিংটনে জমায়েত হন, তাঁদের অনেকেই সশস্ত্র ছিলেন। সম্ভাব্য হামলা এড়াতে প্রেসিডেন্ট লিঙ্কনকে গোপনে অভিষেক কেন্দ্রে এসে হাজির হতে হয়।
১৯৭৩ সালে রিচার্ড নিক্সনের শপথ গ্রহণের বিরুদ্ধেও হাজার হাজার ভিয়েতনাম যুদ্ধবিরোধী বিক্ষোভকারী রাজধানী শহরকে কার্যত অকেজো করে তোলেন। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কংগ্রেস সদস্য সে অভিষেকেও অংশগ্রহণে অস্বীকার করেন।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X