বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:০১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, June 30, 2017 11:15 am
A- A A+ Print

ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার প্রভাব পড়বে অচিরেই

photo-1498797675

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেশটির সুপ্রিম কোর্ট আংশিক অনুমোদন করার কারণে ছয়টি মুসলিম দেশের নাগরিক ও শরণার্থীরা আর ‘সহজে’ যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবেন না। এ আইন মূলত ইরান, লিবিয়া, সিরিয়া, সোমালিয়া, সুদান, ইয়েমেনের নাগরিক ছাড়াও সব দেশের শরণার্থীদের জন্য প্রয়োগ করা হবে। এ আদেশের বাধ্যবাধকতার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত ওই ছয় দেশের নাগরিকদের ‘রক্তের সম্পর্কের নিকটাত্মীয়’ এবং ব্যবসায়িক সম্পর্কবহির্ভূত কেউ আর ভিসা পাবে না। আদেশে নিকটাত্মীয়ের সংজ্ঞা দাঁড় করানো হয়েছে। তাতে নিকটাত্মীয়ের তালিকা থেকে বাদ পড়েছে দাদা-দাদি, কাকা-ফুফু, ভাতিজা-ভাতিজি, নাতি-নাতনিসহ অনেকেই। ওয়াশিংটনের স্থানীয় সময় রাত ৮টা থেকে এ আদেশ কার্যকর হয়। এরপর হাওয়াই অঙ্গরাজ্য এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় আদালতের কাছে পরিষ্কার ব্যাখ্যা চায়। যদিও এ আইনের কার্যকারিতা নিয়ে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। তাঁরা প্রতিবাদে শামিল হচ্ছেন। অনেকে মনে করছেন, এটা মানুষের ভোগান্তি বাড়াবে। এ সপ্তাহের শুরুর দিকে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আদালত ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারটি আংশিকভাবে অনুমোদন দেয়। সর্বোচ্চ আদালত যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত ওই ছয় দেশের নাগরিকদের ‘নিকটাত্মীয়’ ছাড়া আর কাউকে এবং কোনো শরণার্থীকে ভিসা না দেওয়ার অস্থায়ী আদেশ দেয়। সর্বোচ্চ আদালত এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত চলতি বছরের অক্টোবর নাগাদ দিতে পারে। এই আইনের ফলে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে ওই ছয় দেশ থেকে ‘নিকটাত্মীয়’ ছাড়া আর কেউ আমেরিকায় প্রবেশ করতে পারবে না। যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবেন যাঁরা যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত নাগরিকদের বাবা-মা, স্বামী-স্ত্রী, বাগদত্তা, সন্তান, পুত্রবধূ, মেয়েজামাই, সহোদর, সৎ ভাই-বোন। এ ছাড়া শিক্ষা কিংবা ব্যবসায়িকভাবে সম্পর্কযুক্ত যে কেউ আসতে পারবেন। যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে পারবেন যাঁরা যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত নাগরিকদের দাদা-দাদি, কাকা-কাকি, নাতি-নাতনি, ভাতিজা-ভাতিজি বা অন্য কোনো ‘দূরসম্পর্কের’ আত্মীয়স্বজন। তবে যাঁদের ভিসার মেয়াদ এখনো আছে, এ আদেশের প্রভাব তাঁদের ওপর পড়বে না। আর দ্বৈত পাসপোর্টধারীরাও এর আওতাভুক্ত হবে না। প্রতিক্রিয়া এ রায়ের পর যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশন বলেন, ‘আমাদের দেশের নিরাপত্তা ভয়াবহভাবে হুমকির মুখে। কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে এটা গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ।’ আমেরিকান সিভিল লিবার্টিস ইউনিয়ন ইমিগ্র্যান্টস রাইট প্রজেক্টের পরিচালক ওমর জাদওয়াত বলেন, ‘বাস্তবে এই নিষেধাজ্ঞা অনেক মানুষকে চরম ভোগান্তিতে ফেলবে। এটা তুলে না নেওয়া পর্যন্ত এ ভোগান্তি অব্যাহত থাকবে।’ ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটির (আইআরসি) সভাপতি ডেভিড মিলিভ্যান্ড বলেন, ‘আদালতের এ সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রে আসার অপেক্ষায় থাকা ঝুঁকিগ্রস্ত মানুষকে চরম হুমকির মধ্যে ফেলবে। চিকিৎসার জন্য আসা কিংবা নিষ্পাপ ভাসমান শরণার্থীদেরও বিপদে ফেলবে এ সিদ্ধান্ত। তাই সবার স্বার্থে এ আদেশ পুনর্বিবেচনা করা উচিত।’

Comments

Comments!

 ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার প্রভাব পড়বে অচিরেইAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার প্রভাব পড়বে অচিরেই

Friday, June 30, 2017 11:15 am
photo-1498797675

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেশটির সুপ্রিম কোর্ট আংশিক অনুমোদন করার কারণে ছয়টি মুসলিম দেশের নাগরিক ও শরণার্থীরা আর ‘সহজে’ যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবেন না।

এ আইন মূলত ইরান, লিবিয়া, সিরিয়া, সোমালিয়া, সুদান, ইয়েমেনের নাগরিক ছাড়াও সব দেশের শরণার্থীদের জন্য প্রয়োগ করা হবে।

এ আদেশের বাধ্যবাধকতার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত ওই ছয় দেশের নাগরিকদের ‘রক্তের সম্পর্কের নিকটাত্মীয়’ এবং ব্যবসায়িক সম্পর্কবহির্ভূত কেউ আর ভিসা পাবে না।

আদেশে নিকটাত্মীয়ের সংজ্ঞা দাঁড় করানো হয়েছে। তাতে নিকটাত্মীয়ের তালিকা থেকে বাদ পড়েছে দাদা-দাদি, কাকা-ফুফু, ভাতিজা-ভাতিজি, নাতি-নাতনিসহ অনেকেই।

ওয়াশিংটনের স্থানীয় সময় রাত ৮টা থেকে এ আদেশ কার্যকর হয়। এরপর হাওয়াই অঙ্গরাজ্য এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় আদালতের কাছে পরিষ্কার ব্যাখ্যা চায়।

যদিও এ আইনের কার্যকারিতা নিয়ে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। তাঁরা প্রতিবাদে শামিল হচ্ছেন। অনেকে মনে করছেন, এটা মানুষের ভোগান্তি বাড়াবে।

এ সপ্তাহের শুরুর দিকে যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আদালত ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারটি আংশিকভাবে অনুমোদন দেয়। সর্বোচ্চ আদালত যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত ওই ছয় দেশের নাগরিকদের ‘নিকটাত্মীয়’ ছাড়া আর কাউকে এবং কোনো শরণার্থীকে ভিসা না দেওয়ার অস্থায়ী আদেশ দেয়।

সর্বোচ্চ আদালত এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত চলতি বছরের অক্টোবর নাগাদ দিতে পারে।

এই আইনের ফলে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে ওই ছয় দেশ থেকে ‘নিকটাত্মীয়’ ছাড়া আর কেউ আমেরিকায় প্রবেশ করতে পারবে না।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবেন যাঁরা

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত নাগরিকদের বাবা-মা, স্বামী-স্ত্রী, বাগদত্তা, সন্তান, পুত্রবধূ, মেয়েজামাই, সহোদর, সৎ ভাই-বোন।

এ ছাড়া শিক্ষা কিংবা ব্যবসায়িকভাবে সম্পর্কযুক্ত যে কেউ আসতে পারবেন।

যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে পারবেন যাঁরা

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত নাগরিকদের দাদা-দাদি, কাকা-কাকি, নাতি-নাতনি, ভাতিজা-ভাতিজি বা অন্য কোনো ‘দূরসম্পর্কের’ আত্মীয়স্বজন।

তবে যাঁদের ভিসার মেয়াদ এখনো আছে, এ আদেশের প্রভাব তাঁদের ওপর পড়বে না। আর দ্বৈত পাসপোর্টধারীরাও এর আওতাভুক্ত হবে না।

প্রতিক্রিয়া

এ রায়ের পর যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশন বলেন, ‘আমাদের দেশের নিরাপত্তা ভয়াবহভাবে হুমকির মুখে। কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা পুনরুদ্ধারে এটা গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ।’

আমেরিকান সিভিল লিবার্টিস ইউনিয়ন ইমিগ্র্যান্টস রাইট প্রজেক্টের পরিচালক ওমর জাদওয়াত বলেন, ‘বাস্তবে এই নিষেধাজ্ঞা অনেক মানুষকে চরম ভোগান্তিতে ফেলবে। এটা তুলে না নেওয়া পর্যন্ত এ ভোগান্তি অব্যাহত থাকবে।’

ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটির (আইআরসি) সভাপতি ডেভিড মিলিভ্যান্ড বলেন, ‘আদালতের এ সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রে আসার অপেক্ষায় থাকা ঝুঁকিগ্রস্ত মানুষকে চরম হুমকির মধ্যে ফেলবে। চিকিৎসার জন্য আসা কিংবা নিষ্পাপ ভাসমান শরণার্থীদেরও বিপদে ফেলবে এ সিদ্ধান্ত। তাই সবার স্বার্থে এ আদেশ পুনর্বিবেচনা করা উচিত।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X