সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:১৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, November 1, 2016 9:39 pm
A- A A+ Print

ডিসেম্বরেই ভারতে ফিরতে চাচ্ছেন দাউদ ইব্রাহিম!

daoud1478009515

আড়াই দশক ধরে দেশ ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন যেই মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিম, এবার তিনিই ভারতের সাহায্য চাইছেন! আচমকাই করাচিতে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া আস্তানা ছেড়ে এ বার ভারতে ফিরতে চাইছেন তিনি।
  দাউদ ইব্রাহিমের ভারতে ফেরার চেষ্টা নিয়ে দক্ষিণ ভারতের একটি ইংরেজি পত্রিকা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ১৯৯৩ সালের মুম্বাই বিস্ফোরণের মূল অভিযুক্ত তথা ভারতের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ অপরাধী দাউদ ইব্রাহিম ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই দেশে ফিরে আসতে চান বলে ওই পত্রিকাতে লেখা হয়েছে। দাউদ নাকি এখন পাকিস্তানে তাঁর প্রাণনাশের আশঙ্কা করছেন।   ভারতে দাউদ ইব্রাহিম গণহত্যা, সন্ত্রাসবাদ, ষড়যন্ত্র, চাঁদাবাজিসহ একাধিক মামলার আসামি। ১৯৯৩ সাল থেকে আন্ডারওয়ার্ল্ড এই ডনকে হাতে পেতে চাইছে ভারত সরকার। কিন্তু দাউদ কখনও আরব আমিরাত, কখনও পাকিস্তানে আশ্রয় নিয়ে ভারতের নাগালের বাইরে থেকেছেন প্রায় ২৩ বছর ধরে। আমিরাতের সঙ্গে ভারতের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করায় বিপদসঙ্কেত পেয়ে যান দাউদ। তিনি পাকাপাকিভাবে পাকিস্তানে আশ্রয় নেন। পাকিস্তানের সেনা এবং গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর ব্যবস্থাপনায় বন্দর শহর করাচির ক্লিফটন এলাকায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া বাংলোয় থাকতে শুরু করেন দাউদ, দাবি ভারতীয় গোয়েন্দাদের। পরে তাকে করাচির এরিয়া-৫ ডিফেন্স হাউজিং অঞ্চলের একটি বাংলোয় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলেও খবর বের হয়। কিন্তু, পাকিস্তান সে খবরের সত্যতা কোনোদিনই স্বীকার করেনি।   জাতিসংঘ দাউদ ইব্রাহিমের গায়ে ‘নিষিদ্ধ’ তকমা লাগিয়ে দেওয়ার পর, তার সে দেশে থাকার খবর স্বীকার করে নেওয়া পাকিস্তানের পক্ষে আরও মুশকিল হয়ে উঠেছে। কিন্তু দাউদ ইব্রাহিম নাকি এ বার পাক কর্তৃপক্ষের কাছে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন, যদি তার মৃত্যু পাকিস্তানেই হয়, তা হলে মৃতদেহ যেন ভারতে পাঠানো হয়। দাউদ ইব্রাহিমের এই শেষ ইচ্ছার খবর যদি সত্যি হয় এবং পাকিস্তান যদি সে ইচ্ছা পূরণ করার চেষ্টা করে, তা হলে কিন্তু দাউদকে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ আর কিছুতেই পাকিস্তান অস্বীকার করতে পারবে না।   কিন্তু, কেন ভারতে ফিরতে চাইছেন দাউদ? পাকিস্তানে নিজের প্রাণহানির আশঙ্কা করছেন দাউদ। দক্ষিণ ভারত থেকে প্রকাশিত ইংরেজি পত্রিকাটি গত বছরের শেষ দিকেই দাউদের এই আশঙ্কার খবর প্রকাশ করেছিল। পাক সেনা এবং আইএসআই নাকি এখন দাউদের দায় কাঁধ থেকে ঝেড়ে ফেলতে চাইছে। ঝেড়ে ফেলার অন্যতম উপায় হল তাকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়া। কিন্তু জীবন্ত দাউদকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হলে, পাকিস্তানের অনেক গোপন খবরই সামনে চলে আসবে। তাই দাউদের মৃত্যুই নাকি এখন সবচেয়ে বেশি কাম্য পাকিস্তানের কাছে।   দাউদ দীর্ঘদিন ধরে নাকি অসুস্থ। করাচির বাংলোতেই তার চিকিৎসার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা হয়। কিন্তু, চিকিৎসার আয়োজনে নাকি সম্প্রতি টান পড়তে শুরু করেছে। যে ধরনের অসুস্থতা দাউদের রয়েছে বলে খবর, তাতে চিকিৎসা ঠিক মতো না হলে বিভিন্ন অঙ্গ বিকল হতে পারে। পাকিস্তানের সেনা এবং আইএসআই এখন সে রকম কিছু ঘটাতেই চাইছে বলে দাউদ ইব্রাহিম নাকি আশঙ্কা করছেন। সেই কারণেই নাকি তিনি নিজের নেটওয়ার্ক কাজে লাগিয়ে ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই ভারতে ফিরতে চাইছেন। সেই আয়োজন দাউদ অবশ্যই পাক কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়েই করার চেষ্টা করবেন। কিন্তু, বিষয়টি নাকি এখন পাকিস্তানেও গোপন নেই।   দাউদকে কেন ঝেড়ে ফেলতে চায় পাকিস্তান? এই আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন এখন আর পাকিস্তানের কোনো কাজেই লাগছেন না। ভারতে ক্রমাগত নাশকতা চালিয়ে যাওয়ার জন্য যে নেটওয়ার্ক দরকার, তার অনেকটাই এখন হারিয়েছেন পলাতক দাউদ। সন্ত্রাসবাদীরা আগে দাউদের কাছ থেকে প্রচুর অর্থ পেত । কিন্তু ভারতের চাপে আরব আমিরাত এখন দাউদের বিভিন্ন বেনামি সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে শুরু করেছে। গত সাত মাসে ১০ থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকার বেনামি সম্পত্তি দাউদ ইব্রাহিমের হাতছাড়া হয়েছে । এতে পাকিস্তানের সেনাকর্তারা আমিরাতের উপর মোটেই খুশি হননি। একইসঙ্গে, দাউদের প্রতিও তারা নাকি অনেকটাই আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন।   পাকিস্তানের কাছে তার প্রয়োজন যে ফুরিয়েছে, দাউদও তা ভালই বুঝতে পারছেন। সেই কারণেই নাকি ভারতে ফেরার চেষ্টায় রয়েছেন তিনি। তবে ভাবা যতটা সহজ, দাউদ ইব্রাহিমের পক্ষে ভারতে ফেরা এখন আর মোটেই ততটা সহজ নয়।  

Comments

Comments!

 ডিসেম্বরেই ভারতে ফিরতে চাচ্ছেন দাউদ ইব্রাহিম!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ডিসেম্বরেই ভারতে ফিরতে চাচ্ছেন দাউদ ইব্রাহিম!

Tuesday, November 1, 2016 9:39 pm
daoud1478009515

আড়াই দশক ধরে দেশ ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন যেই মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিম, এবার তিনিই ভারতের সাহায্য চাইছেন! আচমকাই করাচিতে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া আস্তানা ছেড়ে এ বার ভারতে ফিরতে চাইছেন তিনি।

 

দাউদ ইব্রাহিমের ভারতে ফেরার চেষ্টা নিয়ে দক্ষিণ ভারতের একটি ইংরেজি পত্রিকা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ১৯৯৩ সালের মুম্বাই বিস্ফোরণের মূল অভিযুক্ত তথা ভারতের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ অপরাধী দাউদ ইব্রাহিম ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই দেশে ফিরে আসতে চান বলে ওই পত্রিকাতে লেখা হয়েছে। দাউদ নাকি এখন পাকিস্তানে তাঁর প্রাণনাশের আশঙ্কা করছেন।

 

ভারতে দাউদ ইব্রাহিম গণহত্যা, সন্ত্রাসবাদ, ষড়যন্ত্র, চাঁদাবাজিসহ একাধিক মামলার আসামি। ১৯৯৩ সাল থেকে আন্ডারওয়ার্ল্ড এই ডনকে হাতে পেতে চাইছে ভারত সরকার। কিন্তু দাউদ কখনও আরব আমিরাত, কখনও পাকিস্তানে আশ্রয় নিয়ে ভারতের নাগালের বাইরে থেকেছেন প্রায় ২৩ বছর ধরে। আমিরাতের সঙ্গে ভারতের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে ঘনিষ্ঠ হতে শুরু করায় বিপদসঙ্কেত পেয়ে যান দাউদ। তিনি পাকাপাকিভাবে পাকিস্তানে আশ্রয় নেন। পাকিস্তানের সেনা এবং গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর ব্যবস্থাপনায় বন্দর শহর করাচির ক্লিফটন এলাকায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় মোড়া বাংলোয় থাকতে শুরু করেন দাউদ, দাবি ভারতীয় গোয়েন্দাদের। পরে তাকে করাচির এরিয়া-৫ ডিফেন্স হাউজিং অঞ্চলের একটি বাংলোয় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলেও খবর বের হয়। কিন্তু, পাকিস্তান সে খবরের সত্যতা কোনোদিনই স্বীকার করেনি।

 

জাতিসংঘ দাউদ ইব্রাহিমের গায়ে ‘নিষিদ্ধ’ তকমা লাগিয়ে দেওয়ার পর, তার সে দেশে থাকার খবর স্বীকার করে নেওয়া পাকিস্তানের পক্ষে আরও মুশকিল হয়ে উঠেছে। কিন্তু দাউদ ইব্রাহিম নাকি এ বার পাক কর্তৃপক্ষের কাছে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন, যদি তার মৃত্যু পাকিস্তানেই হয়, তা হলে মৃতদেহ যেন ভারতে পাঠানো হয়। দাউদ ইব্রাহিমের এই শেষ ইচ্ছার খবর যদি সত্যি হয় এবং পাকিস্তান যদি সে ইচ্ছা পূরণ করার চেষ্টা করে, তা হলে কিন্তু দাউদকে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ আর কিছুতেই পাকিস্তান অস্বীকার করতে পারবে না।

 

কিন্তু, কেন ভারতে ফিরতে চাইছেন দাউদ?

পাকিস্তানে নিজের প্রাণহানির আশঙ্কা করছেন দাউদ। দক্ষিণ ভারত থেকে প্রকাশিত ইংরেজি পত্রিকাটি গত বছরের শেষ দিকেই দাউদের এই আশঙ্কার খবর প্রকাশ করেছিল। পাক সেনা এবং আইএসআই নাকি এখন দাউদের দায় কাঁধ থেকে ঝেড়ে ফেলতে চাইছে। ঝেড়ে ফেলার অন্যতম উপায় হল তাকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়া। কিন্তু জীবন্ত দাউদকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হলে, পাকিস্তানের অনেক গোপন খবরই সামনে চলে আসবে। তাই দাউদের মৃত্যুই নাকি এখন সবচেয়ে বেশি কাম্য পাকিস্তানের কাছে।

 

দাউদ দীর্ঘদিন ধরে নাকি অসুস্থ। করাচির বাংলোতেই তার চিকিৎসার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা হয়। কিন্তু, চিকিৎসার আয়োজনে নাকি সম্প্রতি টান পড়তে শুরু করেছে। যে ধরনের অসুস্থতা দাউদের রয়েছে বলে খবর, তাতে চিকিৎসা ঠিক মতো না হলে বিভিন্ন অঙ্গ বিকল হতে পারে। পাকিস্তানের সেনা এবং আইএসআই এখন সে রকম কিছু ঘটাতেই চাইছে বলে দাউদ ইব্রাহিম নাকি আশঙ্কা করছেন। সেই কারণেই নাকি তিনি নিজের নেটওয়ার্ক কাজে লাগিয়ে ডিসেম্বর মাসের মধ্যেই ভারতে ফিরতে চাইছেন। সেই আয়োজন দাউদ অবশ্যই পাক কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়েই করার চেষ্টা করবেন। কিন্তু, বিষয়টি নাকি এখন পাকিস্তানেও গোপন নেই।

 

দাউদকে কেন ঝেড়ে ফেলতে চায় পাকিস্তান?

এই আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন এখন আর পাকিস্তানের কোনো কাজেই লাগছেন না। ভারতে ক্রমাগত নাশকতা চালিয়ে যাওয়ার জন্য যে নেটওয়ার্ক দরকার, তার অনেকটাই এখন হারিয়েছেন পলাতক দাউদ। সন্ত্রাসবাদীরা আগে দাউদের কাছ থেকে প্রচুর অর্থ পেত । কিন্তু ভারতের চাপে আরব আমিরাত এখন দাউদের বিভিন্ন বেনামি সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে শুরু করেছে। গত সাত মাসে ১০ থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকার বেনামি সম্পত্তি দাউদ ইব্রাহিমের হাতছাড়া হয়েছে । এতে পাকিস্তানের সেনাকর্তারা আমিরাতের উপর মোটেই খুশি হননি। একইসঙ্গে, দাউদের প্রতিও তারা নাকি অনেকটাই আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন।

 

পাকিস্তানের কাছে তার প্রয়োজন যে ফুরিয়েছে, দাউদও তা ভালই বুঝতে পারছেন। সেই কারণেই নাকি ভারতে ফেরার চেষ্টায় রয়েছেন তিনি। তবে ভাবা যতটা সহজ, দাউদ ইব্রাহিমের পক্ষে ভারতে ফেরা এখন আর মোটেই ততটা সহজ নয়।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X