বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ৮:৩৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, September 7, 2017 7:19 pm
A- A A+ Print

তামিমরা কি ওয়ার্নারের চেয়েও বেশি আগ্রাসী?

19

এই সিরিজের আগেও এশিয়ায় ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাটিং গড় ছিল ৩০.৩৮। ১৩ টেস্টে যে একটা সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন, সেটি উপমহাদেশে নয়, দুবাইয়ে। উপমহাদেশের স্পিন-সহায়ক উইকেট যাঁর কাছে ছিল বিরাট ধাঁধা, সেই ওয়ার্নার বাংলাদেশের বিপক্ষে পেলেন টানা দুই সেঞ্চুরি। বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে একাই প্রতিপক্ষের বোলিং ধ্বংস করে দিতে যিনি পারদর্শী, সেই ওয়ার্নারকে চট্টগ্রামে দেখা গেল অন্য চেহারায়। প্রচণ্ড গরম আর আর্দ্রতায় ধৈর্যের প্রতিমূর্তি হয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা টিকে রইলেন উইকেটে। বাংলাদেশের স্পিন আক্রমণকে সামলে সিরিজের একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে টানা দুবার ছুঁলেন তিন অঙ্ক। চট্টগ্রাম টেস্টে ৩৬২ মিনিট উইকেটে থেকে ২৩৪ বলে ওয়ার্নার করলেন ১২৩। তাঁর সবচেয়ে মন্থর সেঞ্চুরি এটাই। টেস্ট ক্যারিয়ারে যাঁর স্ট্রাইক রেট ৭৮.১২, চট্টগ্রাম টেস্টে সেটি ৫২.৫৬। পুরো ইনিংসে চারের মার সাতটি, ছক্কা নেই একটিও। টেস্টের প্রথম দিনেই লাঞ্চের আগে যাঁর সেঞ্চুরির রেকর্ড আছে, সেই ওয়ার্নার পরিস্থিতির দাবি মেনে ঢুকে গেলেন খোলসে। ধৈর্যের বিচারে ওয়ার্নার তাই এই সেঞ্চুরিকে সবচেয়ে এগিয়ে রাখলেন। ওয়ার্নারের ব্যাটিংয়ে অনেক বার্তা থাকল বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য। কঠিন উইকেট আর বিরুদ্ধ পরিস্থিতিতে কীভাবে চরিত্রের বাইরে গিয়ে নিজের খেলাটা খেলতে হয়, সেটির উজ্জ্বল উদাহরণ এই ইনিংস। বারবার ব্যর্থ হওয়ার পর কীভাবে এবার উপমহাদেশের ধাঁধা মিলিয়েছেন, সেটিই কাল বলছিলেন ওয়ার্নার, ‘আপনাকে তো উপায় বের করতেই হবে। এই কন্ডিশনে গেমপ্ল্যান কী হবে, সেটা বের করতে আমার প্রায় ১৬-১৭ টেস্ট লেগে গেছে। যদি প্রতিপক্ষ আপনার ইগো নিয়ে খেলে, আপনার বাউন্ডারির পথ বন্ধ করে দেয়, আপনাকে তখন সিঙ্গেলের ওপর থাকতে হবে।’ বাংলাদেশের এই দলে বাহারি স্ট্রোক খেলার ব্যাটসম্যানের অভাব নেই। কিন্তু বিরুদ্ধ পরিস্থিতিতে দাঁতে দাঁত কামড়ে লড়ার প্রশ্ন যদি আসে, সেই সামর্থ্য আছে কজনের? বাংলাদেশের অনেক ব্যাটসম্যান মনে করেন আক্রমণই সেরা রক্ষণ। কিন্তু দল ও পরিস্থিতির প্রয়োজনে তো চরিত্র বদলাতে হয়। এটাই তো টেস্ট ক্রিকেট। ওয়ার্নারের ব্যাটিংয়ের উদাহরণটা টাটকাই ছিল। কিন্তু আজ সাব্বির-তামিমরা যেভাবে ডাউন দ্য উইকেটে গেলেন, শুরু থেকে তামিমের ছটফটানি, সাব্বিরের একের পর এক রিভার্স সুইপ...। একটা ভুল বাকি সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দেয়। এই সিরিজটা জিতে চেয়েছিল বাংলাদেশ। এগিয়ে থেকে এখন সিরিজ ড্র করার শঙ্কায়। ছোট ছোট ভুল মিলে যে পাহাড় হয়ে যায়!

Comments

Comments!

 তামিমরা কি ওয়ার্নারের চেয়েও বেশি আগ্রাসী?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

তামিমরা কি ওয়ার্নারের চেয়েও বেশি আগ্রাসী?

Thursday, September 7, 2017 7:19 pm
19

এই সিরিজের আগেও এশিয়ায় ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাটিং গড় ছিল ৩০.৩৮। ১৩ টেস্টে যে একটা সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন, সেটি উপমহাদেশে নয়, দুবাইয়ে। উপমহাদেশের স্পিন-সহায়ক উইকেট যাঁর কাছে ছিল বিরাট ধাঁধা, সেই ওয়ার্নার বাংলাদেশের বিপক্ষে পেলেন টানা দুই সেঞ্চুরি।

বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে একাই প্রতিপক্ষের বোলিং ধ্বংস করে দিতে যিনি পারদর্শী, সেই ওয়ার্নারকে চট্টগ্রামে দেখা গেল অন্য চেহারায়। প্রচণ্ড গরম আর আর্দ্রতায় ধৈর্যের প্রতিমূর্তি হয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা টিকে রইলেন উইকেটে। বাংলাদেশের স্পিন আক্রমণকে সামলে সিরিজের একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে টানা দুবার ছুঁলেন তিন অঙ্ক।

চট্টগ্রাম টেস্টে ৩৬২ মিনিট উইকেটে থেকে ২৩৪ বলে ওয়ার্নার করলেন ১২৩। তাঁর সবচেয়ে মন্থর সেঞ্চুরি এটাই। টেস্ট ক্যারিয়ারে যাঁর স্ট্রাইক রেট ৭৮.১২, চট্টগ্রাম টেস্টে সেটি ৫২.৫৬। পুরো ইনিংসে চারের মার সাতটি, ছক্কা নেই একটিও। টেস্টের প্রথম দিনেই লাঞ্চের আগে যাঁর সেঞ্চুরির রেকর্ড আছে, সেই ওয়ার্নার পরিস্থিতির দাবি মেনে ঢুকে গেলেন খোলসে। ধৈর্যের বিচারে ওয়ার্নার তাই এই সেঞ্চুরিকে সবচেয়ে এগিয়ে রাখলেন।

ওয়ার্নারের ব্যাটিংয়ে অনেক বার্তা থাকল বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য। কঠিন উইকেট আর বিরুদ্ধ পরিস্থিতিতে কীভাবে চরিত্রের বাইরে গিয়ে নিজের খেলাটা খেলতে হয়, সেটির উজ্জ্বল উদাহরণ এই ইনিংস। বারবার ব্যর্থ হওয়ার পর কীভাবে এবার উপমহাদেশের ধাঁধা মিলিয়েছেন, সেটিই কাল বলছিলেন ওয়ার্নার, ‘আপনাকে তো উপায় বের করতেই হবে। এই কন্ডিশনে গেমপ্ল্যান কী হবে, সেটা বের করতে আমার প্রায় ১৬-১৭ টেস্ট লেগে গেছে। যদি প্রতিপক্ষ আপনার ইগো নিয়ে খেলে, আপনার বাউন্ডারির পথ বন্ধ করে দেয়, আপনাকে তখন সিঙ্গেলের ওপর থাকতে হবে।’

বাংলাদেশের এই দলে বাহারি স্ট্রোক খেলার ব্যাটসম্যানের অভাব নেই। কিন্তু বিরুদ্ধ পরিস্থিতিতে দাঁতে দাঁত কামড়ে লড়ার প্রশ্ন যদি আসে, সেই সামর্থ্য আছে কজনের?

বাংলাদেশের অনেক ব্যাটসম্যান মনে করেন আক্রমণই সেরা রক্ষণ। কিন্তু দল ও পরিস্থিতির প্রয়োজনে তো চরিত্র বদলাতে হয়। এটাই তো টেস্ট ক্রিকেট। ওয়ার্নারের ব্যাটিংয়ের উদাহরণটা টাটকাই ছিল। কিন্তু আজ সাব্বির-তামিমরা যেভাবে ডাউন দ্য উইকেটে গেলেন, শুরু থেকে তামিমের ছটফটানি, সাব্বিরের একের পর এক রিভার্স সুইপ…।

একটা ভুল বাকি সব প্রচেষ্টাকে ব্যর্থ করে দেয়। এই সিরিজটা জিতে চেয়েছিল বাংলাদেশ। এগিয়ে থেকে এখন সিরিজ ড্র করার শঙ্কায়। ছোট ছোট ভুল মিলে যে পাহাড় হয়ে যায়!

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X