শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৫৪
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, July 19, 2017 5:11 pm
A- A A+ Print

তিব্বতে চীনা বাহিনীর মহড়া কি শুধুমাত্র সামরিক অনুশীলন?

6

বেইজিং: ভারতের সাথে সীমান্ত বিরোধে জড়ানোর পর থেকে চীন লাখ লাখ টন সামরিক যানবাহন এবং সরঞ্জাম তিব্বতে সরিয়ে নিয়েছে বলে চীনের রাষ্ট্রীয় মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে। চীনা সামরিক বাহিনীর সরকারি মুখপত্র পিএলএ ডেইলি জানিয়েছে, উত্তর তিব্বতের কুনলান পর্বতমালার দক্ষিণ অঞ্চলে বিপুল পরিমাণ সামগ্রী পরিবহন করা হয়েছে। এই কাজটি করেছে ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কমান্ড। এই কমান্ড উত্তেজনাপূর্ণ জিনজিয়াং এবং তিব্বত অঞ্চল তদারকি করে থাকে এবং ভারতের সাথে সীমান্ত ইস্যুগুলো মোকাবিলা করে। কাজটি সমাপ্ত করা হয় গত মাসে। এতে পুরো অঞ্চলে বিস্তৃত সড়ক ও রেলপথ একইসাথে ব্যবহার করা হয়। রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারকারী সিসিটিভি সোমবার জানায়, তিব্বত মালভূমিতে চীনা সেনারা মহড়ায় তাজা গোলাবারুদ ব্যবহার করে। ভুটান-সংলগ্ন যে স্থানে ভারত ও চীনা সেনারা মুখোমুখি অবস্থান করছে, এই স্থানটি সেখান থেকে খুব বেশি দূরে নয়। মহড়ায় সহায়তার জন্য নাকি অন্য কারণে সামরিক সরঞ্জাম পরিবহন করা হয়েছে, তা পিএলএ ডেইলি প্রতিবেদনে বলা হয়নি। সাংহাইভিত্তিক সামরিক ভাষ্যকার নি লেক্সিয়ঙ মনে করেন, খুব সম্ভবত এটা চীন-ভারত অচলাবস্থার সাথে সম্পর্কিত। ভারতকে আলোচনার টেবিলে আনার লক্ষ্যেই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, কূটনৈতিক আলোচনা অবশ্যই সামরিক প্রস্তুতির সহায়তায় হতে হবে। আরেক পর্যবেক্ষক সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে এর আগে বলেন, শক্তি প্রদর্শনী খুব সম্ভবত ভারতকে হুঁশিয়ার করার জন্য করা হয়েছে। বেইজিংভিত্তিক সামরিক ভাষ্যকার ঝু চেনমিং বলেন, পিএলএ দেখাতে চায়, তারা খুব সহজেই ভারতকে পরাজিত করতে পারবে। সাংহাই ইনস্টিটিউট ফর ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের দক্ষিণ এশিয়া স্টাডিজের বিশেষজ্ঞ ওয়াঙ দেহুয়া বলেন, যে বিপুল সেনা ও সরঞ্জাম সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তাতে এটাই মনে হতে পারে, চীন তার পশ্চিম সীমান্ত কত সহজে রক্ষা করতে পারে। তিনি বলেন, সামরিক অভিযানের পুরোটাই সামরিক সরঞ্জাম নিয়ে। এখন তিব্বত অঞ্চলে আরো ভালো সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ রয়েছে। ‘ভারত আর ১৯৬২ সালে পড়ে নেই’ বলে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অরুন জেটলি সম্প্রতি যে মন্তব্য করেছেন, তার জের টেনে ওয়াং বলেন, ‘চীনও ১৯৬২ সালের চেয়ে এখন ভিন্ন।’ ১৯৬২ সালের চীন-ভারত সীমান্ত যুদ্ধে চীনের সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব সত্ত্বেও সামরিক সরঞ্জাম জটিলতার কারণে সে সরে আসে এবং একতরফা যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করে। ওয়াং বলেন, কিংগাই-তিব্বত রেলওয়ে এবং চীনের বাকি অংশের সাথে সংযোগকারী নতুন নতুন সড়ক নির্মাণের ফলে অবকাঠামো খাতে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটেছে। এতে করে সামরিক বাহিনী এখন অনেক সহজে সেনা ও সরবরাহ রণাঙ্গনে পাঠাতে পারে। সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

Comments

Comments!

 তিব্বতে চীনা বাহিনীর মহড়া কি শুধুমাত্র সামরিক অনুশীলন?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

তিব্বতে চীনা বাহিনীর মহড়া কি শুধুমাত্র সামরিক অনুশীলন?

Wednesday, July 19, 2017 5:11 pm
6

বেইজিং: ভারতের সাথে সীমান্ত বিরোধে জড়ানোর পর থেকে চীন লাখ লাখ টন সামরিক যানবাহন এবং সরঞ্জাম তিব্বতে সরিয়ে নিয়েছে বলে চীনের রাষ্ট্রীয় মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে।

চীনা সামরিক বাহিনীর সরকারি মুখপত্র পিএলএ ডেইলি জানিয়েছে, উত্তর তিব্বতের কুনলান পর্বতমালার দক্ষিণ অঞ্চলে বিপুল পরিমাণ সামগ্রী পরিবহন করা হয়েছে। এই কাজটি করেছে ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কমান্ড। এই কমান্ড উত্তেজনাপূর্ণ জিনজিয়াং এবং তিব্বত অঞ্চল তদারকি করে থাকে এবং ভারতের সাথে সীমান্ত ইস্যুগুলো মোকাবিলা করে।

কাজটি সমাপ্ত করা হয় গত মাসে। এতে পুরো অঞ্চলে বিস্তৃত সড়ক ও রেলপথ একইসাথে ব্যবহার করা হয়।

রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারকারী সিসিটিভি সোমবার জানায়, তিব্বত মালভূমিতে চীনা সেনারা মহড়ায় তাজা গোলাবারুদ ব্যবহার করে। ভুটান-সংলগ্ন যে স্থানে ভারত ও চীনা সেনারা মুখোমুখি অবস্থান করছে, এই স্থানটি সেখান থেকে খুব বেশি দূরে নয়।

মহড়ায় সহায়তার জন্য নাকি অন্য কারণে সামরিক সরঞ্জাম পরিবহন করা হয়েছে, তা পিএলএ ডেইলি প্রতিবেদনে বলা হয়নি।

সাংহাইভিত্তিক সামরিক ভাষ্যকার নি লেক্সিয়ঙ মনে করেন, খুব সম্ভবত এটা চীন-ভারত অচলাবস্থার সাথে সম্পর্কিত। ভারতকে আলোচনার টেবিলে আনার লক্ষ্যেই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, কূটনৈতিক আলোচনা অবশ্যই সামরিক প্রস্তুতির সহায়তায় হতে হবে।

আরেক পর্যবেক্ষক সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে এর আগে বলেন, শক্তি প্রদর্শনী খুব সম্ভবত ভারতকে হুঁশিয়ার করার জন্য করা হয়েছে।

বেইজিংভিত্তিক সামরিক ভাষ্যকার ঝু চেনমিং বলেন, পিএলএ দেখাতে চায়, তারা খুব সহজেই ভারতকে পরাজিত করতে পারবে।

সাংহাই ইনস্টিটিউট ফর ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের দক্ষিণ এশিয়া স্টাডিজের বিশেষজ্ঞ ওয়াঙ দেহুয়া বলেন, যে বিপুল সেনা ও সরঞ্জাম সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তাতে এটাই মনে হতে পারে, চীন তার পশ্চিম সীমান্ত কত সহজে রক্ষা করতে পারে।

তিনি বলেন, সামরিক অভিযানের পুরোটাই সামরিক সরঞ্জাম নিয়ে। এখন তিব্বত অঞ্চলে আরো ভালো সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ রয়েছে।

‘ভারত আর ১৯৬২ সালে পড়ে নেই’ বলে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অরুন জেটলি সম্প্রতি যে মন্তব্য করেছেন, তার জের টেনে ওয়াং বলেন, ‘চীনও ১৯৬২ সালের চেয়ে এখন ভিন্ন।’

১৯৬২ সালের চীন-ভারত সীমান্ত যুদ্ধে চীনের সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব সত্ত্বেও সামরিক সরঞ্জাম জটিলতার কারণে সে সরে আসে এবং একতরফা যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করে।

ওয়াং বলেন, কিংগাই-তিব্বত রেলওয়ে এবং চীনের বাকি অংশের সাথে সংযোগকারী নতুন নতুন সড়ক নির্মাণের ফলে অবকাঠামো খাতে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটেছে। এতে করে সামরিক বাহিনী এখন অনেক সহজে সেনা ও সরবরাহ রণাঙ্গনে পাঠাতে পারে।

সূত্র: সাউথ এশিয়ান মনিটর

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X