সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৪১
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, December 9, 2016 10:25 pm
A- A A+ Print

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এল বাঘ

বাঘের শূন্য খাঁচাটি সাজানো হয়েছে বেলুন আর ফুল দিয়ে। সকাল সকাল উপস্থিত হন গণমাধ্যমকর্মী, কর্মকর্তা ও অতিথিরা। সবার অপেক্ষার পালা এবার। অবশেষে আজ শুক্রবার সকাল পৌনে দশটায় দুটি ছিদ্রযুক্ত বিশাল বাক্সসহ একটি ট্রাক ঢুকল চিড়িয়াখানায়। দুপুর ১২টার দিকে জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন বাক্স থেকে হলুদের ওপর কালো ডোরাকাটা বাঘ দুটিকে খাঁচায় উন্মুক্ত করে দেন। চার বছর বাঘশূন্য থাকার পর শূন্য খাঁচা আবার প্রাণ ফিরে পেল। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দুটি বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির বাঘ আসার আনন্দে দর্শনার্থীর পাশাপাশি চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষও বেজায় খুশি। ফ্যালকন ট্রেডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ৩৩ লাখ টাকায় বাঘ দুটি আনা হয়। এর আগে দেশের বিভিন্ন সাফারি পার্ক ও ঢাকা চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের কাছে বাঘ চেয়ে না পেয়ে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ দরপত্রের মাধ্যমে এই বাঘ সংগ্রহে নামে। জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকায় বাণিজ্যিকভাবে বাঘ প্রজনন ও প্রতিপালনের অনুমতি রয়েছে। তাই ওই দেশ থেকে বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির বাঘ দুটি আনা হয়েছে। এতে করে চিড়িয়াখানার সৌন্দর্য বাড়ল। চিড়িয়াখানার ভেতরে অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি হনুমান ও চিতাবাঘ আনার চিন্তাভাবনাও চলছে বলে জেলা প্রশাসক জানান। চিড়িয়াখানা সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে বাঘ দুটি বিমানযোগে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। সেখান থেকে ট্রাকযোগে বাঘ দুটিকে চিড়িয়াখানায় নিয়ে আসা হয়। বাঘ উন্মুক্ত করার পর গণমাধ্যমকর্মী ও দর্শনার্থীরা খাঁচাটিকে ঘিরে রাখেন। অনেকে বাঘের সঙ্গে সেলফি কিংবা খাঁচার সামনে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। দুটি বাঘকে রাখা হয় একটি খাঁচায়। তাদের খেতে দেওয়া হয় জীবন্ত দুটি মুরগি। মুরগিগুলোর সঙ্গে বাঘ দুটি খেলায় মেতে ওঠে। এ দৃশ্যটি আগত দর্শনার্থীদের বেশ আনন্দ দেয়। চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র অভিরূপ দাশ বলে, চিড়িয়াখানায় আগেও এসেছি, কখনো বাঘ দেখিনি। এখন বাঘ দুটি দেখে ভালো লাগল। বিশেষ করে বাঘ দুটি মুরগিগুলোর সঙ্গে যেভাবে খেলছে, তা দেখতে খুব ভালো লাগছে। হঠাৎ করে নতুন পরিবেশে আসার কারণে বাঘ দুটি কিছুটা বিরক্তও ছিল। তাই দর্শনার্থীদের উৎপাত ঠেকাতে বাঘের খাঁচাটি লাল-সবুজ পর্দা দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। নতুন আনা এই বাঘ দুটির কোনো নাম এখনো দেওয়া হয়নি। পুরুষ বাঘটির বয়স ১১ মাস ও বাঘিনীর বয়স নয় মাস বলে জানান চিড়িয়াখানা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ও সীতাকুণ্ড উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রুহুল আমীন। চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আনা দুটি বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির বাঘ। প্রথম আলোতিনি বলেন, ‘নতুন পরিবেশে আসার কারণে কিছুটা আতঙ্কিত বাঘ দুটি। ১৫ দিন বাঘ দুটিকে উৎপাতহীন পর্যবেক্ষণে রাখতে বলা হয়েছে। আমরা বাঘ দুটিকে জীবিত মুরগি আর গরুর মাংস খেতে দিচ্ছি।’ জানা গেছে, চার বছর পর এই প্রজাতির বাঘ প্রাপ্তবয়স্ক হয়। তখন তাদের প্রজনন ক্ষমতা হয়। একেকটি বাঘ ১৫ থেকে ১৬ বছর পর্যন্ত আয়ুষ্কাল পায় বলে জানান চিড়িয়াখানার কিউরেটর মো. মনজুর মোরশেদ চৌধুরী। উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০১২ সালের ৩০ অক্টোবর বাঘিনী ‘পূর্ণিমা’ মারা যাওয়ার পর থেকে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা বাঘশূন্য ছিল। এর আগে ২০০৬ সালে বাঘিনীর সঙ্গী ‘চন্দ্র’ মারা যায়। ২০০৩ সালে চন্দ্র ও পূর্ণিমাকে আনা হয়েছিল ঢাকা চিড়িয়াখানা থেকে। এখন তাদের শূন্যস্থান পূরণ করল দক্ষিণ আফ্রিকার দুটি বাঘ।

Comments

Comments!

 দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এল বাঘAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এল বাঘ

Friday, December 9, 2016 10:25 pm

বাঘের শূন্য খাঁচাটি সাজানো হয়েছে বেলুন আর ফুল দিয়ে। সকাল সকাল উপস্থিত হন গণমাধ্যমকর্মী, কর্মকর্তা ও অতিথিরা। সবার অপেক্ষার পালা এবার। অবশেষে আজ শুক্রবার সকাল পৌনে দশটায় দুটি ছিদ্রযুক্ত বিশাল বাক্সসহ একটি ট্রাক ঢুকল চিড়িয়াখানায়।

দুপুর ১২টার দিকে জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন বাক্স থেকে হলুদের ওপর কালো ডোরাকাটা বাঘ দুটিকে খাঁচায় উন্মুক্ত করে দেন। চার বছর বাঘশূন্য থাকার পর শূন্য খাঁচা আবার প্রাণ ফিরে পেল। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দুটি বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির বাঘ আসার আনন্দে দর্শনার্থীর পাশাপাশি চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষও বেজায় খুশি।
ফ্যালকন ট্রেডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ৩৩ লাখ টাকায় বাঘ দুটি আনা হয়। এর আগে দেশের বিভিন্ন সাফারি পার্ক ও ঢাকা চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের কাছে বাঘ চেয়ে না পেয়ে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ দরপত্রের মাধ্যমে এই বাঘ সংগ্রহে নামে।
জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকায় বাণিজ্যিকভাবে বাঘ প্রজনন ও প্রতিপালনের অনুমতি রয়েছে। তাই ওই দেশ থেকে বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির বাঘ দুটি আনা হয়েছে। এতে করে চিড়িয়াখানার সৌন্দর্য বাড়ল।
চিড়িয়াখানার ভেতরে অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি হনুমান ও চিতাবাঘ আনার চিন্তাভাবনাও চলছে বলে জেলা প্রশাসক জানান।
চিড়িয়াখানা সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে বাঘ দুটি বিমানযোগে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। সেখান থেকে ট্রাকযোগে বাঘ দুটিকে চিড়িয়াখানায় নিয়ে আসা হয়।
বাঘ উন্মুক্ত করার পর গণমাধ্যমকর্মী ও দর্শনার্থীরা খাঁচাটিকে ঘিরে রাখেন। অনেকে বাঘের সঙ্গে সেলফি কিংবা খাঁচার সামনে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। দুটি বাঘকে রাখা হয় একটি খাঁচায়। তাদের খেতে দেওয়া হয় জীবন্ত দুটি মুরগি। মুরগিগুলোর সঙ্গে বাঘ দুটি খেলায় মেতে ওঠে। এ দৃশ্যটি আগত দর্শনার্থীদের বেশ আনন্দ দেয়।
চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র অভিরূপ দাশ বলে, চিড়িয়াখানায় আগেও এসেছি, কখনো বাঘ দেখিনি। এখন বাঘ দুটি দেখে ভালো লাগল। বিশেষ করে বাঘ দুটি মুরগিগুলোর সঙ্গে যেভাবে খেলছে, তা দেখতে খুব ভালো লাগছে।
হঠাৎ করে নতুন পরিবেশে আসার কারণে বাঘ দুটি কিছুটা বিরক্তও ছিল। তাই দর্শনার্থীদের উৎপাত ঠেকাতে বাঘের খাঁচাটি লাল-সবুজ পর্দা দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।
নতুন আনা এই বাঘ দুটির কোনো নাম এখনো দেওয়া হয়নি। পুরুষ বাঘটির বয়স ১১ মাস ও বাঘিনীর বয়স নয় মাস বলে জানান চিড়িয়াখানা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ও সীতাকুণ্ড উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রুহুল আমীন।
চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আনা দুটি বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির বাঘ। প্রথম আলোতিনি বলেন, ‘নতুন পরিবেশে আসার কারণে কিছুটা আতঙ্কিত বাঘ দুটি। ১৫ দিন বাঘ দুটিকে উৎপাতহীন পর্যবেক্ষণে রাখতে বলা হয়েছে। আমরা বাঘ দুটিকে জীবিত মুরগি আর গরুর মাংস খেতে দিচ্ছি।’
জানা গেছে, চার বছর পর এই প্রজাতির বাঘ প্রাপ্তবয়স্ক হয়। তখন তাদের প্রজনন ক্ষমতা হয়। একেকটি বাঘ ১৫ থেকে ১৬ বছর পর্যন্ত আয়ুষ্কাল পায় বলে জানান চিড়িয়াখানার কিউরেটর মো. মনজুর মোরশেদ চৌধুরী।
উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০১২ সালের ৩০ অক্টোবর বাঘিনী ‘পূর্ণিমা’ মারা যাওয়ার পর থেকে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা বাঘশূন্য ছিল। এর আগে ২০০৬ সালে বাঘিনীর সঙ্গী ‘চন্দ্র’ মারা যায়। ২০০৩ সালে চন্দ্র ও পূর্ণিমাকে আনা হয়েছিল ঢাকা চিড়িয়াখানা থেকে। এখন তাদের শূন্যস্থান পূরণ করল দক্ষিণ আফ্রিকার দুটি বাঘ।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X