শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১২:১০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Thursday, July 28, 2016 11:29 am
A- A A+ Print

দুই অর্থনৈতিক অঞ্চলের লাইসেন্স পাচ্ছে বসুন্ধরা

Bashundhara-Group-120160727172207

দুটি বেসরকারি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড) নির্মাণের প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স পাচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপ। ‘বসুন্ধরা স্পেশাল ইকোনমিক জোন’ ও ‘ইস্ট-ওয়েস্ট স্পেশাল ইকোনমিক জোন’ নামে ওই এসইজেড দুটি হবে ঢাকার কেরানীগঞ্জে। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বসুন্ধরাকে প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দেবে। প্রাথমিকভাবে লাইসেন্স দেওয়ার পর শর্ত পূরণ হলে তাদের পূর্ণাঙ্গ লাইসেন্স দেওয়া হবে। বসুন্ধরার প্রস্তাবিত জোন দুটি হবে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে। এর মধ্যে বসুন্ধরা স্পেশাল ইকোনমিক জোনের প্রস্তাবিত আয়তন প্রায় ২২৩ একর ও ইস্ট-ওয়েস্ট স্পেশাল ইকোনমিক জোনের আয়তন প্রায় ২১৯ একর। দুটির মোট আয়তন হবে ৪৪২ একর। বসুন্ধরা কর্তৃপক্ষ বেজায় দেওয়া প্রস্তাবে উল্লেখ করেছে, দুটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রধান বিনিয়োগকারী ইস্ট-ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্টের নামে এরই মধ্যে ২৭৮ একর জমি কেনা আছে। বাকি ১৬৪ একর জমি কেনার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। নিয়ম অনুসারে ইস্ট-ওয়েস্ট প্রপার্টির নামে কেনা জমি ইস্ট-ওয়েস্ট স্পেশাল ইকোনমিক জোনের নামে চুক্তির মাধ্যমে হস্তান্তর অথবা ব্যবহারের অনুমতির কাজ সম্পাদন করা হবে। বসুন্ধরার প্রস্তাব অনুযায়ী, দুটি এসইজেডে প্রায় ৪০ হাজার কর্মসংস্থান হবে এবং উৎপাদিত পণ্যের প্রায় অর্ধেক রপ্তানি ও অর্ধেক দেশে বিক্রির আশা করা হচ্ছে। বেজা সূত্রে জানা যায়, এ দুটি এসইজেডে বসুন্ধরা গ্রুপের তেল পরিশোধনাগার, গ্যাস সিলিন্ডার তৈরি, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, সিরামিক, ওষুধ, চামড়া, জাহাজ, ইস্পাত, কাগজ, ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি, পোশাকসহ বিভিন্ন শিল্পের বিনিয়োগ আনা এবং হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শপিংমল, হোটেল, আদর্শ মহিলা হোস্টেল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া এসইজেডে বসুন্ধরার নিজস্ব শিল্পকারখানা গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে। দেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য ২০৩০ সাল নাগাদ সরকার ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরির পরিকল্পনা করেছে। বেজা অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারীদের জমি বরাদ্দ দেবে। এসব জমিতে বিনিয়োগকারীরা নিজেদের মতো করে অবকাঠামো তৈরি করে নেবেন। অন্যদিকে বেজাও ভবন তৈরি করে দেবে, সেগুলো ভাড়া নিতে পারবেন বিনিয়োগকারীরা। এসইজেডে বিনিয়োগকারীদের ১০ বছরের কর অবকাশ সুবিধাসহ বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা দেওয়া হবে। বেজা এখন পর্যন্ত বেসরকারি খাতে আটটি এসইজেডের প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দিয়েছে। বসুন্ধরার দুটি যোগ হলে এ সংখ্যা হবে ১০। সূত্র: এনটিভি অনলাইন

Comments

Comments!

 দুই অর্থনৈতিক অঞ্চলের লাইসেন্স পাচ্ছে বসুন্ধরাAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

দুই অর্থনৈতিক অঞ্চলের লাইসেন্স পাচ্ছে বসুন্ধরা

Thursday, July 28, 2016 11:29 am
Bashundhara-Group-120160727172207

দুটি বেসরকারি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড) নির্মাণের প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স পাচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপ। ‘বসুন্ধরা স্পেশাল ইকোনমিক জোন’ ও ‘ইস্ট-ওয়েস্ট স্পেশাল ইকোনমিক জোন’ নামে ওই এসইজেড দুটি হবে ঢাকার কেরানীগঞ্জে।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বসুন্ধরাকে প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দেবে। প্রাথমিকভাবে লাইসেন্স দেওয়ার পর শর্ত পূরণ হলে তাদের পূর্ণাঙ্গ লাইসেন্স দেওয়া হবে।

বসুন্ধরার প্রস্তাবিত জোন দুটি হবে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে। এর মধ্যে বসুন্ধরা স্পেশাল ইকোনমিক জোনের প্রস্তাবিত আয়তন প্রায় ২২৩ একর ও ইস্ট-ওয়েস্ট স্পেশাল ইকোনমিক জোনের আয়তন প্রায় ২১৯ একর। দুটির মোট আয়তন হবে ৪৪২ একর।

বসুন্ধরা কর্তৃপক্ষ বেজায় দেওয়া প্রস্তাবে উল্লেখ করেছে, দুটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রধান বিনিয়োগকারী ইস্ট-ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্টের নামে এরই মধ্যে ২৭৮ একর জমি কেনা আছে। বাকি ১৬৪ একর জমি কেনার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। নিয়ম অনুসারে ইস্ট-ওয়েস্ট প্রপার্টির নামে কেনা জমি ইস্ট-ওয়েস্ট স্পেশাল ইকোনমিক জোনের নামে চুক্তির মাধ্যমে হস্তান্তর অথবা ব্যবহারের অনুমতির কাজ সম্পাদন করা হবে।

বসুন্ধরার প্রস্তাব অনুযায়ী, দুটি এসইজেডে প্রায় ৪০ হাজার কর্মসংস্থান হবে এবং উৎপাদিত পণ্যের প্রায় অর্ধেক রপ্তানি ও অর্ধেক দেশে বিক্রির আশা করা হচ্ছে।

বেজা সূত্রে জানা যায়, এ দুটি এসইজেডে বসুন্ধরা গ্রুপের তেল পরিশোধনাগার, গ্যাস সিলিন্ডার তৈরি, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, সিরামিক, ওষুধ, চামড়া, জাহাজ, ইস্পাত, কাগজ, ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি, পোশাকসহ বিভিন্ন শিল্পের বিনিয়োগ আনা এবং হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শপিংমল, হোটেল, আদর্শ মহিলা হোস্টেল নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া এসইজেডে বসুন্ধরার নিজস্ব শিল্পকারখানা গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে।

দেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য ২০৩০ সাল নাগাদ সরকার ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরির পরিকল্পনা করেছে। বেজা অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারীদের জমি বরাদ্দ দেবে। এসব জমিতে বিনিয়োগকারীরা নিজেদের মতো করে অবকাঠামো তৈরি করে নেবেন। অন্যদিকে বেজাও ভবন তৈরি করে দেবে, সেগুলো ভাড়া নিতে পারবেন বিনিয়োগকারীরা।

এসইজেডে বিনিয়োগকারীদের ১০ বছরের কর অবকাশ সুবিধাসহ বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা দেওয়া হবে। বেজা এখন পর্যন্ত বেসরকারি খাতে আটটি এসইজেডের প্রাক-যোগ্যতা লাইসেন্স দিয়েছে। বসুন্ধরার দুটি যোগ হলে এ সংখ্যা হবে ১০।

সূত্র: এনটিভি অনলাইন

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X