সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৭:৩৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Saturday, January 14, 2017 9:29 pm
A- A A+ Print

দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী: প্রধান বিচারপতি

41

সনাতন মামলা ব্যবস্থাপনার কার্যপ্রণালি ধরে রাখা, সেকেলে অফিস প্রযুক্তি, প্রশিক্ষিত জনবল ও বিচারক স্বল্পতাসহ বিভিন্ন কারণে মামলাজটের নিয়ামক বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। তিনি বলেন, ১৯০৮ সালের দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী ও প্রয়োগপদ্ধতিও সেকেলে। একটি জুডিশিয়াল পলিসি তৈরি ছাড়া মামলাজট সামলানো দুরূহ। আজ শনিবার অধস্তন আদালতে মামলা ব্যবস্থাপনা-সংক্রান্ত জুডিশিয়াল পলিসি প্রণয়নবিষয়ক এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি এসব কথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে অধস্তন আদালতের বিচারকদের জন্য দুই দিনের ওই কর্মশালার আয়োজন করে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ও যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়নবিষয়ক সংস্থা (ইউএসএইড)। বিচারপ্রক্রিয়ায় বিলম্বসহ বিভিন্ন কারণে মামলাজট তৈরি হয় উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেন, প্রাচীন প্রশাসনিক প্রক্রিয়া; ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে দুর্বলতা, জটিল কার্যপ্রণালি, চল নেই এমন ফাইলিং পদ্ধতি, বিচার প্রার্থীসহ পক্ষগুলোকে নোটিশ দেওয়ার কার্যপ্রণালির অপর্যাপ্ততা বিচার প্রশাসন অগ্রগতিতে সহায়ক নয়। এ ক্ষেত্রে আদালতের কার্যপ্রণালির অপব্যবহার, মামলার শাখা-বিন্যাস ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তিতে দক্ষতার অভাবের কথাও বলেন তিনি। বিচারপদ্ধতি দক্ষ, দ্রুত ও বিচার প্রার্থীবান্ধব করতে একটি জুডিশিয়াল পলিসি প্রণয়নের চিন্তাভাবনা করছেন জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, এ জন্য দেশের আর্থসামাজিক অবস্থা, আইনজীবী ও বিচার প্রার্থীদের মানসিকতাও বিবেচনায় নিতে হবে। দেশের দক্ষ বিচার বিভাগ রয়েছে, যা মামলাজটের মতো সমস্যা নিরসন করার সক্ষমতা এবং দক্ষ মামলা ব্যবস্থাপনা কৌশল প্রবর্তন করতে পারে জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, মূলত বিচারপদ্ধতিতে ব্যবস্থাপনায় ক্ষমতা বাড়াতে সমর্থন প্রয়োজন। দীর্ঘসূত্রতা কমিয়ে মামলাজট নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবস্থাপনার সামর্থ্য বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেন তিনি। মামলাজটের বিষয়ে বাইরের হস্তক্ষেপ প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি বলেন, ১৯০৮ সালের দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী ও প্রয়োগপদ্ধতি সেকেলে। বিচারক স্বল্পতা ও শূন্য পদ প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি বলেন, নিয়োগের প্রাথমিক প্রস্তাব আসে মন্ত্রণালয় থেকে। কিছু আগে একটি স্টেশন (আদালত) পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, নয়জন বিচারিক হাকিমের মধ্যে সেখানে আছেন দুজন। সামনে বেশ কয়েকজন জেলা জজ অবসরে যাবেন। শূন্য পদ পূরণে চার-পাঁচ মাস সময় লেগে যায়। অথচ এ সময়ে মামলা হচ্ছে ও স্তূপ তৈরি হচ্ছে। এটি অন্যতম সমস্যা। অধস্তন আদালতে কোনো পদ খালি হলে তা দ্রুত পূরণ করতে হবে। অনুষ্ঠানে বিচারিক কর্মকর্তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় ও জ্ঞান একটি পূর্ণাঙ্গ এবং সমন্বিত জুডিশিয়াল পলিসি প্রণয়নে সহায়তা করবে বলে মন্তব্য করেন প্রধান বিচারপতি। তাঁর আশা, এই জুডিশিয়াল পলিসিতে মামলা নিষ্পত্তির কর্মপন্থা, প্রশাসনিক উৎকর্ষ বৃদ্ধি, অবকাঠামোব্যবস্থার উন্নয়ন, সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিতসহ অন্য জরুরি ইস্যুগুলো থাকবে। জুডিশিয়াল পলিসি হলেও আইন মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা ছাড়া তা বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে উল্লেখ করেন প্রধান বিচারপতি। এ কাজে অংশীজনদের এগিয়ে আসার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি। শুরুতে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম বলেন, ভারতসহ প্রতিবেশী দেশগুলোতে জুডিশিয়াল পলিসি হয়েছে। এ দেশেও এ ধরনের পলিসি জরুরি। এ কারণেই এই কর্মশালার আয়োজন। স্পেশাল অফিসার হোসনে আরা আকতারের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ইউএসএইডের ডেপুটি চিফ অব পার্টি শারমিন ফারুক। দুই দিনের কর্মশালায় বিচারক ও বিচার বিভাগীয় ৪০ জন কর্মকর্তা অংশ নিচ্ছেন বলে জানান আয়োজকেরা।

Comments

Comments!

 দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী: প্রধান বিচারপতিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী: প্রধান বিচারপতি

Saturday, January 14, 2017 9:29 pm
41

সনাতন মামলা ব্যবস্থাপনার কার্যপ্রণালি ধরে রাখা, সেকেলে অফিস প্রযুক্তি, প্রশিক্ষিত জনবল ও বিচারক স্বল্পতাসহ বিভিন্ন কারণে মামলাজটের নিয়ামক বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। তিনি বলেন, ১৯০৮ সালের দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী ও প্রয়োগপদ্ধতিও সেকেলে। একটি জুডিশিয়াল পলিসি তৈরি ছাড়া মামলাজট সামলানো দুরূহ।

আজ শনিবার অধস্তন আদালতে মামলা ব্যবস্থাপনা-সংক্রান্ত জুডিশিয়াল পলিসি প্রণয়নবিষয়ক এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি এসব কথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে অধস্তন আদালতের বিচারকদের জন্য দুই দিনের ওই কর্মশালার আয়োজন করে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ও যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়নবিষয়ক সংস্থা (ইউএসএইড)।

বিচারপ্রক্রিয়ায় বিলম্বসহ বিভিন্ন কারণে মামলাজট তৈরি হয় উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেন, প্রাচীন প্রশাসনিক প্রক্রিয়া; ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে দুর্বলতা, জটিল কার্যপ্রণালি, চল নেই এমন ফাইলিং পদ্ধতি, বিচার প্রার্থীসহ পক্ষগুলোকে নোটিশ দেওয়ার কার্যপ্রণালির অপর্যাপ্ততা বিচার প্রশাসন অগ্রগতিতে সহায়ক নয়। এ ক্ষেত্রে আদালতের কার্যপ্রণালির অপব্যবহার, মামলার শাখা-বিন্যাস ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তিতে দক্ষতার অভাবের কথাও বলেন তিনি।

বিচারপদ্ধতি দক্ষ, দ্রুত ও বিচার প্রার্থীবান্ধব করতে একটি জুডিশিয়াল পলিসি প্রণয়নের চিন্তাভাবনা করছেন জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, এ জন্য দেশের আর্থসামাজিক অবস্থা, আইনজীবী ও বিচার প্রার্থীদের মানসিকতাও বিবেচনায় নিতে হবে।

দেশের দক্ষ বিচার বিভাগ রয়েছে, যা মামলাজটের মতো সমস্যা নিরসন করার সক্ষমতা এবং দক্ষ মামলা ব্যবস্থাপনা কৌশল প্রবর্তন করতে পারে জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, মূলত বিচারপদ্ধতিতে ব্যবস্থাপনায় ক্ষমতা বাড়াতে সমর্থন প্রয়োজন। দীর্ঘসূত্রতা কমিয়ে মামলাজট নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবস্থাপনার সামর্থ্য বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেন তিনি।

মামলাজটের বিষয়ে বাইরের হস্তক্ষেপ প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি বলেন, ১৯০৮ সালের দেওয়ানি কার্যবিধি কাজের অনুপযোগী ও প্রয়োগপদ্ধতি সেকেলে। বিচারক স্বল্পতা ও শূন্য পদ প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি বলেন, নিয়োগের প্রাথমিক প্রস্তাব আসে মন্ত্রণালয় থেকে। কিছু আগে একটি স্টেশন (আদালত) পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, নয়জন বিচারিক হাকিমের মধ্যে সেখানে আছেন দুজন। সামনে বেশ কয়েকজন জেলা জজ অবসরে যাবেন। শূন্য পদ পূরণে চার-পাঁচ মাস সময় লেগে যায়। অথচ এ সময়ে মামলা হচ্ছে ও স্তূপ তৈরি হচ্ছে। এটি অন্যতম সমস্যা। অধস্তন আদালতে কোনো পদ খালি হলে তা দ্রুত পূরণ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিচারিক কর্মকর্তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় ও জ্ঞান একটি পূর্ণাঙ্গ এবং সমন্বিত জুডিশিয়াল পলিসি প্রণয়নে সহায়তা করবে বলে মন্তব্য করেন প্রধান বিচারপতি। তাঁর আশা, এই জুডিশিয়াল পলিসিতে মামলা নিষ্পত্তির কর্মপন্থা, প্রশাসনিক উৎকর্ষ বৃদ্ধি, অবকাঠামোব্যবস্থার উন্নয়ন, সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিতসহ অন্য জরুরি ইস্যুগুলো থাকবে। জুডিশিয়াল পলিসি হলেও আইন মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা ছাড়া তা বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে উল্লেখ করেন প্রধান বিচারপতি। এ কাজে অংশীজনদের এগিয়ে আসার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।
শুরুতে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম বলেন, ভারতসহ প্রতিবেশী দেশগুলোতে জুডিশিয়াল পলিসি হয়েছে। এ দেশেও এ ধরনের পলিসি জরুরি। এ কারণেই এই কর্মশালার আয়োজন।

স্পেশাল অফিসার হোসনে আরা আকতারের সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ইউএসএইডের ডেপুটি চিফ অব পার্টি শারমিন ফারুক। দুই দিনের কর্মশালায় বিচারক ও বিচার বিভাগীয় ৪০ জন কর্মকর্তা অংশ নিচ্ছেন বলে জানান আয়োজকেরা।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X