রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:৪৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Sunday, October 8, 2017 6:42 pm
A- A A+ Print

দ্বিতীয় টেস্টেও বাংলাদেশের লজ্জাজনক হার

8

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে দুর্দশা চলছেই বাংলাদেশের। প্রথম টেস্টে ৩৩০ রানের বড় হারের পর দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারল টাইগাররা। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার করা ৫৭৩ রানের জবাবে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছিল ১৪৭ রানে। ফলোঅনে পড়ে আজ দ্বিতীয় ইনিংসে ১৭২ রানেই অলআউট হয় সফরকারী দলটি। ইনিংস ও ২৫৪ রানের হারে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ লজ্জা পেলেন মুশফিকরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে প্রোটিয়া পেসারদের জুজু চেপে ধরে টাইগার ব্যাটসম্যানদের। রাবাদা-ফেলুকায়োদের দাপটে স্বাভাবিক খেলাটাও খেলতে পারেননি ব্যাটসম্যানরা। সৌম্য, মুশফিক, মুমিনুলরা সবাই ব্যর্থ হয়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রথম টেস্টে দলে জায়গা করে নিতে পারেননি সৌম্য। চলমান দ্বিতীয় টেস্টে জায়গা পেয়েছিলেন তামিম ইকবাল ইনজুরিতে পড়ার কারণে। কিন্তু নিজেকে প্রমাণ করার সে সুযোগটা কাজে লাগাতে পারলেন না বাঁহাতি এই ওপেনার। প্রথম ইনিংসে ৯ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে সাজঘরে ফিরলেন মাত্র ৩ রান করে। কাগিসো রাবাদার স্টাম্পের বাইরের একটি বলে ব্যাট ছোঁয়াতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন দ্বিতীয় স্লিপে। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আউট করতে টানা ছোট লেন্থের বল করে যান দক্ষিণ আফ্রিকার বোলাররা। সেই ফাঁদেই পা দেন মুমিনুল। রাবাদাকে হুক করতে গিয়ে কেশব মহারাজের হাতে ধরা পড়েন তিনি। ১১ রান করেন মুমিনুল। ইমরুল কায়েস প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও আস্থার সঙ্গেই খেলছিলেন। তবে ১৭তম ওভারে অলিভিয়ের বলটা ইমরুলের ব্যাটে লাগে উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি ককের গ্লাভসে জমা পড়ে। আউট হওয়ার আগে ৩২ রান করেন টাইগার ওপেনার। ভালো খেলছিলেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমও। প্রোটিয়া পেসারদের গোলাসম বাউন্সেও বুক চিতিয়ে লড়াই করেন তিনি। তবে ওয়েইন পারনেলের বলটা ব্যাটে লাগাতে পারেননি। সেটি আঘাত করে মুশির প্যাডে। বাংলাদেশ অধিনায়ককে লেগ বিফোর আউট ঘোষণা করেন আম্পায়ার। ২৬ রান করেন মুশি। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশকে টেনে নেওয়া লিটন দাস দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যর্থ হয়েছেন। ১৮ রান করে ফেলুকায়োর বলে বোল্ড হন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। এরপর সবোর্চ্চ ৪৩ রান করা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে ফেরান রাবাদা। দলীয় ১৪৫ রানে ফিরে যান সাব্বির রহমান। এর ফলেই বাংলাদেশের ইনিংস ব্যবধানে হারটা নিশ্চিত হয়ে যায়। এর পর রুবেল, তাইজুলদের ফেরাতে খুব একটা সময় নেননি রাবাদারা। শেষ পর্যন্ত মাত্র ১৭২ রান তুলতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ছয় উইকেটে নেওয়া রাবাদা এই ইনিংসে নেন ৫ উইকেট। এনিয়ে ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো দশ বা এর বেশি উইকেট নিলেন রাবাদা। এছাড়া ফেলুকায়ো নেন তিন উইকেট। এর আগে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের পক্ষে প্রায় একাই লড়াই করেছেন লিটন দাস। খেলেছেন ৭০ রানের ইনিংস। বাংলাদেশের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ইনিংসটি ইমরুল কায়েসের, ২৬ রানের। শেষ পর্যায়ে ১২ ও ১০ রানের ছোট্ট দুটি ইনিংস এসেছিল তাইজুল ইসলাম ও রুবেল হোসেনের ব্যাট থেকে। এ ছাড়া বাংলাদেশের অন্য কোনো ব্যাটসম্যানই পেরোতে পারেননি দুই অঙ্কের কোটা। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ডিন এলগার, এইডেন মার্করাম, হাশিম আমলা ও ফাফ দু প্লেসির শতকে ভর করে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়েই দক্ষিণ আফ্রিকা সংগ্রহ করেছে ৫৭৩ রান।

Comments

Comments!

 দ্বিতীয় টেস্টেও বাংলাদেশের লজ্জাজনক হারAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

দ্বিতীয় টেস্টেও বাংলাদেশের লজ্জাজনক হার

Sunday, October 8, 2017 6:42 pm
8

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে দুর্দশা চলছেই বাংলাদেশের। প্রথম টেস্টে ৩৩০ রানের বড় হারের পর দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে হারল টাইগাররা। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার করা ৫৭৩ রানের জবাবে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছিল ১৪৭ রানে। ফলোঅনে পড়ে আজ দ্বিতীয় ইনিংসে ১৭২ রানেই অলআউট হয় সফরকারী দলটি। ইনিংস ও ২৫৪ রানের হারে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ লজ্জা পেলেন মুশফিকরা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে প্রোটিয়া পেসারদের জুজু চেপে ধরে টাইগার ব্যাটসম্যানদের। রাবাদা-ফেলুকায়োদের দাপটে স্বাভাবিক খেলাটাও খেলতে পারেননি ব্যাটসম্যানরা। সৌম্য, মুশফিক, মুমিনুলরা সবাই ব্যর্থ হয়েছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রথম টেস্টে দলে জায়গা করে নিতে পারেননি সৌম্য। চলমান দ্বিতীয় টেস্টে জায়গা পেয়েছিলেন তামিম ইকবাল ইনজুরিতে পড়ার কারণে। কিন্তু নিজেকে প্রমাণ করার সে সুযোগটা কাজে লাগাতে পারলেন না বাঁহাতি এই ওপেনার। প্রথম ইনিংসে ৯ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে সাজঘরে ফিরলেন মাত্র ৩ রান করে। কাগিসো রাবাদার স্টাম্পের বাইরের একটি বলে ব্যাট ছোঁয়াতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন দ্বিতীয় স্লিপে।

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আউট করতে টানা ছোট লেন্থের বল করে যান দক্ষিণ আফ্রিকার বোলাররা। সেই ফাঁদেই পা দেন মুমিনুল। রাবাদাকে হুক করতে গিয়ে কেশব মহারাজের হাতে ধরা পড়েন তিনি। ১১ রান করেন মুমিনুল।

ইমরুল কায়েস প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও আস্থার সঙ্গেই খেলছিলেন। তবে ১৭তম ওভারে অলিভিয়ের বলটা ইমরুলের ব্যাটে লাগে উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি ককের গ্লাভসে জমা পড়ে। আউট হওয়ার আগে ৩২ রান করেন টাইগার ওপেনার।

ভালো খেলছিলেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমও। প্রোটিয়া পেসারদের গোলাসম বাউন্সেও বুক চিতিয়ে লড়াই করেন তিনি। তবে ওয়েইন পারনেলের বলটা ব্যাটে লাগাতে পারেননি। সেটি আঘাত করে মুশির প্যাডে। বাংলাদেশ অধিনায়ককে লেগ বিফোর আউট ঘোষণা করেন আম্পায়ার। ২৬ রান করেন মুশি।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশকে টেনে নেওয়া লিটন দাস দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যর্থ হয়েছেন। ১৮ রান করে ফেলুকায়োর বলে বোল্ড হন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। এরপর সবোর্চ্চ ৪৩ রান করা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে ফেরান রাবাদা। দলীয় ১৪৫ রানে ফিরে যান সাব্বির রহমান। এর ফলেই বাংলাদেশের ইনিংস ব্যবধানে হারটা নিশ্চিত হয়ে যায়। এর পর রুবেল, তাইজুলদের ফেরাতে খুব একটা সময় নেননি রাবাদারা। শেষ পর্যন্ত মাত্র ১৭২ রান তুলতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ।

প্রথম ইনিংসে ছয় উইকেটে নেওয়া রাবাদা এই ইনিংসে নেন ৫ উইকেট। এনিয়ে ক্যারিয়ারে তৃতীয়বারের মতো দশ বা এর বেশি উইকেট নিলেন রাবাদা। এছাড়া ফেলুকায়ো নেন তিন উইকেট।

এর আগে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের পক্ষে প্রায় একাই লড়াই করেছেন লিটন দাস। খেলেছেন ৭০ রানের ইনিংস। বাংলাদেশের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ইনিংসটি ইমরুল কায়েসের, ২৬ রানের। শেষ পর্যায়ে ১২ ও ১০ রানের ছোট্ট দুটি ইনিংস এসেছিল তাইজুল ইসলাম ও রুবেল হোসেনের ব্যাট থেকে। এ ছাড়া বাংলাদেশের অন্য কোনো ব্যাটসম্যানই পেরোতে পারেননি দুই অঙ্কের কোটা। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ডিন এলগার, এইডেন মার্করাম, হাশিম আমলা ও ফাফ দু প্লেসির শতকে ভর করে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়েই দক্ষিণ আফ্রিকা সংগ্রহ করেছে ৫৭৩ রান।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X