সোমবার, ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১১:৫৮
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Wednesday, May 17, 2017 7:48 pm
A- A A+ Print

দ. চীন সাগরে রকেট লঞ্চার মোতায়েন করল বেইজিং

FILE PHOTO: Chinese dredging vessels are purportedly seen in the waters around Fiery Cross Reef in the disputed Spratly Islands in the South China Sea in this still image from video taken by a P-8A Poseidon surveillance aircraft provided by the United States Navy May 21, 2015. REUTERS/U.S. Navy/Handout via Reuters

বেইজিং: দক্ষিণ চীন সাগরে নতুন করে রকেট লঞ্চার মোতায়েন করল বেইজিং। ফায়ারি ক্রস রিফে এই রকেট লঞ্চার রাখা হয়েছে। এই অংশটি চীনের প্রশাসনের অধীনে থাকলেও ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম ও তাইওয়ানও এই অংশ নিজেদের বলে দাবি করে। এই অংশে নিজেদের সামরিক শক্তি বাড়িয়ে দক্ষিণ চীন সাগরে অধিকার ফলাতে চাইছে বেইজিং। চীনের এই সামরিকীকরণের সমালোচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। চীনের এক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, নরিঙ্কো সিএস/এআর-১ ৫৫এমএম অ্যান্টি ফ্রগম্যান রকেট লঞ্চার মোতায়েন করা হয়েছে। ফায়ারি ক্রস রিফের স্প্রাটলি আইল্যান্ডে রাখা হয়েছে এই লঞ্চার। ২০১৪ সালে ভিয়েতনাম প্রচুর মাছের জাল রাখে এই রিফে। সেখানেই এবার রকেট লঞ্চার রাখল চীন। এই রিফে চীন একটি বিমানবন্দর তৈরি করছে। প্রতি বছর এই দক্ষিণ চীন সাগরের উপর দিয়ে গোটা বিশ্বের ৫ ট্রিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য হয়। কিছুদিন আগেই অত্যাধুনিক গোয়েন্দা বিমান শাহনশি কেজে-৫০০ বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরের হাইনান দ্বীপে মোতায়েন করেছে চীন। স্যাটেলাইট থেকে তোলা ছবিতে বিতর্কিত ওই এলাকায় এই বিমানকে একাধিকবার চক্কর কাটতে দেখা গেছে। আকাশ থেকে শত্রু দেশের বিমানের উপস্থিতির বিষয়ে আগাম সতর্ক করতে সক্ষম কেজে-৫০০ বিমানে রাডার ডিশ রয়েছে। এতে বিমানকে চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে ভুল হওয়ার আশঙ্কা থাকে না। কেজে-৫০০ দিয়ে চারশ’ ৭০ কিলোমিটারের মধ্যে এক সঙ্গে ৬০টি বিমানের গতিবিধির ওপর নজর রাখা যায়। এই বিমানের রাডারকে নজরদারি এবং সাধারণ গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের কাজেও ব্যবহার করা যায়। বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরের ওপর চীনের পাশাপাশি অনেক দেশই ভৌগলিক অধিকার দাবি করছে।
 

Comments

Comments!

 দ. চীন সাগরে রকেট লঞ্চার মোতায়েন করল বেইজিংAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

দ. চীন সাগরে রকেট লঞ্চার মোতায়েন করল বেইজিং

Wednesday, May 17, 2017 7:48 pm
FILE PHOTO: Chinese dredging vessels are purportedly seen in the waters around Fiery Cross Reef in the disputed Spratly Islands in the South China Sea in this still image from video taken by a P-8A Poseidon surveillance aircraft provided by the United States Navy May 21, 2015. REUTERS/U.S. Navy/Handout via Reuters

বেইজিং: দক্ষিণ চীন সাগরে নতুন করে রকেট লঞ্চার মোতায়েন করল বেইজিং। ফায়ারি ক্রস রিফে এই রকেট লঞ্চার রাখা হয়েছে। এই অংশটি চীনের প্রশাসনের অধীনে থাকলেও ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম ও তাইওয়ানও এই অংশ নিজেদের বলে দাবি করে। এই অংশে নিজেদের সামরিক শক্তি বাড়িয়ে দক্ষিণ চীন সাগরে অধিকার ফলাতে চাইছে বেইজিং।

চীনের এই সামরিকীকরণের সমালোচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। চীনের এক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, নরিঙ্কো সিএস/এআর-১ ৫৫এমএম অ্যান্টি ফ্রগম্যান রকেট লঞ্চার মোতায়েন করা হয়েছে। ফায়ারি ক্রস রিফের স্প্রাটলি আইল্যান্ডে রাখা হয়েছে এই লঞ্চার। ২০১৪ সালে ভিয়েতনাম প্রচুর মাছের জাল রাখে এই রিফে। সেখানেই এবার রকেট লঞ্চার রাখল চীন। এই রিফে চীন একটি বিমানবন্দর তৈরি করছে। প্রতি বছর এই দক্ষিণ চীন সাগরের উপর দিয়ে গোটা বিশ্বের ৫ ট্রিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য হয়।

কিছুদিন আগেই অত্যাধুনিক গোয়েন্দা বিমান শাহনশি কেজে-৫০০ বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরের হাইনান দ্বীপে মোতায়েন করেছে চীন। স্যাটেলাইট থেকে তোলা ছবিতে বিতর্কিত ওই এলাকায় এই বিমানকে একাধিকবার চক্কর কাটতে দেখা গেছে। আকাশ থেকে শত্রু দেশের বিমানের উপস্থিতির বিষয়ে আগাম সতর্ক করতে সক্ষম কেজে-৫০০ বিমানে রাডার ডিশ রয়েছে। এতে বিমানকে চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে ভুল হওয়ার আশঙ্কা থাকে না।

কেজে-৫০০ দিয়ে চারশ’ ৭০ কিলোমিটারের মধ্যে এক সঙ্গে ৬০টি বিমানের গতিবিধির ওপর নজর রাখা যায়। এই বিমানের রাডারকে নজরদারি এবং সাধারণ গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের কাজেও ব্যবহার করা যায়। বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরের ওপর চীনের পাশাপাশি অনেক দেশই ভৌগলিক অধিকার দাবি করছে।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X