রবিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:০০
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, December 26, 2016 11:36 pm
A- A A+ Print

ধর্ষণের পর চাপাতির আঘাত, জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে স্কুলছাত্রী

164952_1

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে জয়পুরহাটের কালাইয়ের নবম শ্রেণির স্কুলছাত্রী শামীমা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে যন্ত্রণায় ছটফট করছেন সে। শুক্রবার রাতে মেয়েটির শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তরা। ধর্ষণের পর ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায় তারা। তবে কে বা কারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত, তা এখনো জানতে পারেনি তার পরিবার। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০৪ নম্বর শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে ১৫ বছর বয়সী স্কুলছাত্রী শামীমা। শামীমার জ্ঞান নেই, মাথাজুড়ে রয়েছে ব্যান্ডেজ। তার বাঁ চোখে রয়েছে বড় একটি কালো গভীর দাগ। সংজ্ঞাহীন ছাত্রীটির হাত ধরে বসে আছেন তার মা। কর্তব্যরত চিকিৎসক অসিত চন্দ্র সরকার বলেন, ছাত্রীটির মাথায় শক্ত কোনো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তার অবস্থা এখনো আশঙ্কাজনক। তার দ্রুত অস্ত্রোপচার দরকার। শামীমার মা বলেন, শুক্রবার ভোরে ঘুম থেকে উঠে তার ঘরে গিয়ে দেখি মেয়ে আমার রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। দ্রুত সেখান থেকে তাকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসি। তিনি বলেন, অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় সেখানকার চিকিৎসকদের পরামর্শে গত শনিবার রাতে ঢাকার শেরেবাংলা নগরে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে ভর্তি করি। স্কুল ছাত্রীর মা বলেন, সেখানেও অবস্থার উন্নতি না হলে গতকাল রোববার রাতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করি। চিকিৎসকেরা বলছেন, তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক।
 

Comments

Comments!

 ধর্ষণের পর চাপাতির আঘাত, জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে স্কুলছাত্রীAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ধর্ষণের পর চাপাতির আঘাত, জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে স্কুলছাত্রী

Monday, December 26, 2016 11:36 pm
164952_1

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে জয়পুরহাটের কালাইয়ের নবম শ্রেণির স্কুলছাত্রী শামীমা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে যন্ত্রণায় ছটফট করছেন সে।

শুক্রবার রাতে মেয়েটির শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তরা। ধর্ষণের পর ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায় তারা। তবে কে বা কারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত, তা এখনো জানতে পারেনি তার পরিবার।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০৪ নম্বর শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে ১৫ বছর বয়সী স্কুলছাত্রী শামীমা। শামীমার জ্ঞান নেই, মাথাজুড়ে রয়েছে ব্যান্ডেজ। তার বাঁ চোখে রয়েছে বড় একটি কালো গভীর দাগ। সংজ্ঞাহীন ছাত্রীটির হাত ধরে বসে আছেন তার মা।

কর্তব্যরত চিকিৎসক অসিত চন্দ্র সরকার বলেন, ছাত্রীটির মাথায় শক্ত কোনো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তার অবস্থা এখনো আশঙ্কাজনক। তার দ্রুত অস্ত্রোপচার দরকার।

শামীমার মা বলেন, শুক্রবার ভোরে ঘুম থেকে উঠে তার ঘরে গিয়ে দেখি মেয়ে আমার রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। দ্রুত সেখান থেকে তাকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসি।

তিনি বলেন, অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় সেখানকার চিকিৎসকদের পরামর্শে গত শনিবার রাতে ঢাকার শেরেবাংলা নগরে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে ভর্তি করি।

স্কুল ছাত্রীর মা বলেন, সেখানেও অবস্থার উন্নতি না হলে গতকাল রোববার রাতে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করি। চিকিৎসকেরা বলছেন, তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X