শুক্রবার, ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং, ১লা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সকাল ৮:৩৬
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Tuesday, October 3, 2017 10:02 am
A- A A+ Print

ধর্ষণের শিকার হয়েছিল সেই মেয়েটি

b1cc612b1bac13f867c4e67e62c3394c-593622c3e0838

রাজধানীর মিরপুরে রাস্তার পাশে পড়ে থাকা আহত মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছিল। ডাক্তারি পরীক্ষায় এর প্রমাণ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের কারণে তার প্রজনন অঙ্গে ক্ষত হয়েছিল। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এদিকে এ ঘটনায় আজ সোমবার পর্যন্ত পুলিশ অপরাধীদের শনাক্ত করতে কোনো ধরনের উদ্যোগ নেয়নি। তারা বলছে, মেয়েটি ‘ঘটনাস্থল’ নিশ্চিত করলে তবেই আইনি প্রক্রিয়া শুরু হবে। মেয়েটির মা টাঙ্গাইল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এসেছেন। কথা বললে ‘মেয়ের বিয়ে হবে না’—এ কারণে তিনি গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছেন না। গত শুক্রবার রাতে মিরপুর ১০ নম্বরের শাহ আলী মার্কেট এলাকা থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করেন স্থানীয় লোকজন। তার প্রজনন অঙ্গ থেকে তখন রক্ত ঝরছিল। ১৬ বছরের এই কিশোরীর বাড়ি টাঙ্গাইলে। সে স্থানীয় একটি কলেজের উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্রী। আজ ওসিসিতে গেলে এর সমন্বয়ক বিলকিস বেগম প্রথম আলোকে বলেন, মেয়েটির ফরেনসিক সম্পন্ন হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলামত মিলেছে। ফরেনসিকের ফল পেলে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে। মেয়েটির প্রজনন অঙ্গ ছিঁড়ে গিয়েছিল। সেখানে সেলাই লেগেছে। বিলকিস বেগম বলেন, মেয়েটি জানিয়েছে, সজীব নামের এক ছেলের সঙ্গে তার মুঠোফোনে পরিচয় হয়েছিল। ছেলেটি তার বাড়ি দিনাজপুর বলে জানিয়েছিল। দুই মাসের পরিচয় ছিল তাদের। বিয়ে করার নিশ্চয়তা দিলে মেয়েটি তার বিয়ের জন্য মায়ের জমানো ৩০ হাজার টাকা এবং দুই আনা সোনা নিয়ে পালিয়ে আসে। ছেলেটি টাকা এবং সোনা নিয়ে পালিয়ে গেলে শাকিল নামে আরেক ছেলে তাকে একটি হোটেলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। বিলকিস বেগম বলেন, মেয়েটি অনেক কিছুই এখনো ঠিকঠাক বলতে পারছে না। কথার মধ্যে বেশ কিছু অসংলগ্নতাও আছে। যে হোটেলে নিয়ে গিয়েছিল, সেই হোটেলের নামও বলতে পারছে না। যে ছেলেটি তাকে নিয়ে এসেছিল, সেই ছেলেটিরও বিস্তারিত বলতে পারছে না। তিনি বলেন, মেয়েটি সুস্থ হওয়ার পর তাকে কাউন্সেলিং করলে পুরো বিষয়টি জানা ও বোঝা যাবে। সে জন্য কয়েক দিন সময় লাগবে। ডিএনএ স্যাম্পল সংগ্রহ করার বিষয়ে বিলকিস বেগম বলেন, মেয়েটির অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে। এর সঙ্গে অনেক কিছুই চলে গেছে। শরীরে লেগে থাকা রক্ত সংগ্রহ করবেন বলে ভেবেছিলেন। কিন্তু মা এসে তা-ও ধুয়ে ফেলেছেন। একটি দোকানের বেঞ্চের নিচে পড়ে থাকা মেয়েটিকে উদ্ধার করার পর শুক্রবার প্রথমে একটি স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসা না দিলে তাকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যান উদ্ধারকারীরা। সেখানকার চিকিৎসকদের পরামর্শে পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিভাগে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে পরে তাকে ওসিসিতে নিয়ে যাওয়া হয়। শাহ আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে এখনো শনাক্ত করা যায়নি। মেয়েটি সুস্থ হয়ে ঘটনাস্থল নিশ্চিত করে বললে তবেই মামলা করা হবে।

Comments

Comments!

 ধর্ষণের শিকার হয়েছিল সেই মেয়েটিAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

ধর্ষণের শিকার হয়েছিল সেই মেয়েটি

Tuesday, October 3, 2017 10:02 am
b1cc612b1bac13f867c4e67e62c3394c-593622c3e0838

রাজধানীর মিরপুরে রাস্তার পাশে পড়ে থাকা আহত মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছিল। ডাক্তারি পরীক্ষায় এর প্রমাণ পাওয়া গেছে। ধর্ষণের কারণে তার প্রজনন অঙ্গে ক্ষত হয়েছিল। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় আজ সোমবার পর্যন্ত পুলিশ অপরাধীদের শনাক্ত করতে কোনো ধরনের উদ্যোগ নেয়নি। তারা বলছে, মেয়েটি ‘ঘটনাস্থল’ নিশ্চিত করলে তবেই আইনি প্রক্রিয়া শুরু হবে। মেয়েটির মা টাঙ্গাইল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এসেছেন। কথা বললে ‘মেয়ের বিয়ে হবে না’—এ কারণে তিনি গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছেন না।
গত শুক্রবার রাতে মিরপুর ১০ নম্বরের শাহ আলী মার্কেট এলাকা থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করেন স্থানীয় লোকজন। তার প্রজনন অঙ্গ থেকে তখন রক্ত ঝরছিল। ১৬ বছরের এই কিশোরীর বাড়ি টাঙ্গাইলে। সে স্থানীয় একটি কলেজের উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্রী।
আজ ওসিসিতে গেলে এর সমন্বয়ক বিলকিস বেগম প্রথম আলোকে বলেন, মেয়েটির ফরেনসিক সম্পন্ন হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলামত মিলেছে। ফরেনসিকের ফল পেলে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে। মেয়েটির প্রজনন অঙ্গ ছিঁড়ে গিয়েছিল। সেখানে সেলাই লেগেছে।
বিলকিস বেগম বলেন, মেয়েটি জানিয়েছে, সজীব নামের এক ছেলের সঙ্গে তার মুঠোফোনে পরিচয় হয়েছিল। ছেলেটি তার বাড়ি দিনাজপুর বলে জানিয়েছিল। দুই মাসের পরিচয় ছিল তাদের। বিয়ে করার নিশ্চয়তা দিলে মেয়েটি তার বিয়ের জন্য মায়ের জমানো ৩০ হাজার টাকা এবং দুই আনা সোনা নিয়ে পালিয়ে আসে। ছেলেটি টাকা এবং সোনা নিয়ে পালিয়ে গেলে শাকিল নামে আরেক ছেলে তাকে একটি হোটেলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে।
বিলকিস বেগম বলেন, মেয়েটি অনেক কিছুই এখনো ঠিকঠাক বলতে পারছে না। কথার মধ্যে বেশ কিছু অসংলগ্নতাও আছে। যে হোটেলে নিয়ে গিয়েছিল, সেই হোটেলের নামও বলতে পারছে না। যে ছেলেটি তাকে নিয়ে এসেছিল, সেই ছেলেটিরও বিস্তারিত বলতে পারছে না। তিনি বলেন, মেয়েটি সুস্থ হওয়ার পর তাকে কাউন্সেলিং করলে পুরো বিষয়টি জানা ও বোঝা যাবে। সে জন্য কয়েক দিন সময় লাগবে।
ডিএনএ স্যাম্পল সংগ্রহ করার বিষয়ে বিলকিস বেগম বলেন, মেয়েটির অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে। এর সঙ্গে অনেক কিছুই চলে গেছে। শরীরে লেগে থাকা রক্ত সংগ্রহ করবেন বলে ভেবেছিলেন। কিন্তু মা এসে তা-ও ধুয়ে ফেলেছেন।
একটি দোকানের বেঞ্চের নিচে পড়ে থাকা মেয়েটিকে উদ্ধার করার পর শুক্রবার প্রথমে একটি স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসা না দিলে তাকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যান উদ্ধারকারীরা। সেখানকার চিকিৎসকদের পরামর্শে পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিভাগে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে পরে তাকে ওসিসিতে নিয়ে যাওয়া হয়।
শাহ আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে এখনো শনাক্ত করা যায়নি। মেয়েটি সুস্থ হয়ে ঘটনাস্থল নিশ্চিত করে বললে তবেই মামলা করা হবে।

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X