বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১০:৫৩
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, July 24, 2017 3:51 pm
A- A A+ Print

নওয়াজ দণ্ডিত হলে প্রধানমন্ত্রী কে?

878

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁকে পদত্যাগ করতে হবে। তখন তাঁর স্থলাভিষিক্ত কে হবেন—গত শনিবার এক বৈঠকে তা নির্ধারণ করেছেন পাকিস্তান মুসলিম লিগের (পিএমএল-এন) প্রধান নওয়াজ। পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে ফাঁস হওয়া তথ্যে নওয়াজের অর্থ পাচারের কথা জানা যায়। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে যৌথ তদন্ত টিমের প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালতে শুনানি গত শনিবার শেষ হয়েছে। শিগগিরই সুপ্রিম কোর্ট এ মামলার রায় দেবেন। এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী নওয়াজের সম্ভাব্য উত্তরসূরি খোঁজা শুরু করেন। তাতেই আপাতত ‘সবচেয়ে সম্ভাব্য প্রার্থী’ হিসেবে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা আসিফের নাম সামনে চলে এসেছে। তবে খাজা আসিফের ৪৫ দিনের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। কারণ, ‘মূল সম্ভাব্য প্রার্থী’ আসলে নওয়াজের স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ ও ছোট ভাই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। বলা হচ্ছে, নওয়াজ পদত্যাগ করলে এই দুজনের একজন প্রধানমন্ত্রী হবেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হতে হলে আগে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হতে হয়। তাই কুলসুম বা শাহবাজ উপনির্বাচনের মাধ্যমে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হওয়া পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন খাজা আসিফ। পিএমএল-এন কয়েকজন নেতা বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সম্ভাব্য রায় কী হতে পারে, তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করেছেন। নওয়াজের স্থলাভিষিক্ত কে হতে পারেন, তা নিয়ে গত শনিবার পিএমএল-এনের বৈঠক হয়। সেই আলোচনাতেই অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সংক্ষিপ্ত তালিকায় খাজা আসিফের পাশাপাশি নাম আসে জাতীয় পরিষদের স্পিকার সরদার আয়াজ সাদিক ও দলের নেতা শাহিদ খাকান আব্বাসীর। এদিকে আওয়ামী মুসলিম লীগের (এএমএল) প্রধান শেখ রশিদ বলেছেন, প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা আসিফকে অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রীর পদে নির্বাচিত করা হতে পারে। শেখ রশিদের এএমএল বর্তমান ক্ষমতাসীন জোটের অংশীদার। শনিবারের বৈঠকে তিনি উপস্থিত ছিলেন। আসিফকে অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত করা হলে পিএমএল-এনের দ্বন্দ্ব হওয়ার আশঙ্কা আছে জানিয়ে শেখ রশিদ বলেন, মনে হচ্ছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ ও অর্থমন্ত্রী ইশাক দার নওয়াজের সুনজরে নেই। নওয়াজের সুনজরে থাকা একজন হলেন স্পিকার সরদার আয়াজ সাদিক। শরিফ পরিবার তাঁকে সমর্থন করে। গত বছর পানামাভিত্তিক আইনি সেবাপ্রতিষ্ঠান মোসাক ফনসেকার ১ কোটি ১৫ লাখ গোপন নথি প্রকাশ করে। তাতে বিশ্বের বহু ক্ষমতাধর, ধনী ও প্রভাবশালী ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিপুল অর্থ পাচারের অভিযোগ সামনে আসে। এতেই নওয়াজ এবং তাঁর চার ছেলেমেয়ের মধ্যে তিনজনের নাম আসে। গত এপ্রিলে সুপ্রিম কোর্ট বলেন, নওয়াজকে ক্ষমতা থেকে সরাতে যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ নেই। এ সময় আদালত প্রধানমন্ত্রীকে অপসারণের দাবির পক্ষে তথ্য সংগ্রহ করতে যৌথ তদন্ত দল (জেআইটি) গঠনের আদেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী নওয়াজের পরিবারের বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগের তদন্ত নিয়ে গত সোমবার একটি প্রতিবেদন সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করেছে যৌথ তদন্ত দল। প্রতিবেদন গ্রহণ করেছেন তিন বিচারকের গঠিত বেঞ্চ। পরে পাকিস্তান সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান জাফর হিজাজির বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা চালুর নির্দেশ দেন বেঞ্চ। কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (এফআইএ) নথিপত্র নষ্টের অভিযোগ উঠেছে হিজাজির বিরুদ্ধে। বিচারপতি শেখ আজমত সাঈদ, বিচারপতি ইজাজুল আহসান ও বিচারপতি এজাজ আফজালের সমন্বয়ে গঠিত ওই বেঞ্চ জেআইটির প্রতিবেদন পরীক্ষার পর নওয়াজ পরিবারের ব্যবসায়িক নথি নষ্ট করার পেছনে কে দায়ী, তা খুঁজে বের করতেই জাফর হিজাজির বিরুদ্ধে ওই মামলা করার নির্দেশ দেন। পিএমএল-এন এরই মধ্যে প্রতিবেদনের কিছু তথ্য নিয়ে গুরুতর আপত্তি তুলেছে। এটা আদালতই নিষ্পত্তি করবেন। কিন্তু এই প্রতিবেদন নওয়াজ শরিফ ও তাঁর সন্তানদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি গুরুতর ও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ তুলেছে। সাধারণভাবে সন্দেহের এমন কালো মেঘের মধ্যে কোনো গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় একজন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করে যেতে পারেন না। তথ্যসূত্র: পিটিআই ও জিও টিভি

Comments

Comments!

 নওয়াজ দণ্ডিত হলে প্রধানমন্ত্রী কে?AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নওয়াজ দণ্ডিত হলে প্রধানমন্ত্রী কে?

Monday, July 24, 2017 3:51 pm
878

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁকে পদত্যাগ করতে হবে। তখন তাঁর স্থলাভিষিক্ত কে হবেন—গত শনিবার এক বৈঠকে তা নির্ধারণ করেছেন পাকিস্তান মুসলিম লিগের (পিএমএল-এন) প্রধান নওয়াজ।

পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে ফাঁস হওয়া তথ্যে নওয়াজের অর্থ পাচারের কথা জানা যায়। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে যৌথ তদন্ত টিমের প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালতে শুনানি গত শনিবার শেষ হয়েছে। শিগগিরই সুপ্রিম কোর্ট এ মামলার রায় দেবেন। এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী নওয়াজের সম্ভাব্য উত্তরসূরি খোঁজা শুরু করেন। তাতেই আপাতত ‘সবচেয়ে সম্ভাব্য প্রার্থী’ হিসেবে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা আসিফের নাম সামনে চলে এসেছে। তবে খাজা আসিফের ৪৫ দিনের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। কারণ, ‘মূল সম্ভাব্য প্রার্থী’ আসলে নওয়াজের স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ ও ছোট ভাই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ। বলা হচ্ছে, নওয়াজ পদত্যাগ করলে এই দুজনের একজন প্রধানমন্ত্রী হবেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হতে হলে আগে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হতে হয়। তাই কুলসুম বা শাহবাজ উপনির্বাচনের মাধ্যমে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হওয়া পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন খাজা আসিফ।

পিএমএল-এন কয়েকজন নেতা বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সম্ভাব্য রায় কী হতে পারে, তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করেছেন। নওয়াজের স্থলাভিষিক্ত কে হতে পারেন, তা নিয়ে গত শনিবার পিএমএল-এনের বৈঠক হয়। সেই আলোচনাতেই অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সংক্ষিপ্ত তালিকায় খাজা আসিফের পাশাপাশি নাম আসে জাতীয় পরিষদের স্পিকার সরদার আয়াজ সাদিক ও দলের নেতা শাহিদ খাকান আব্বাসীর।

এদিকে আওয়ামী মুসলিম লীগের (এএমএল) প্রধান শেখ রশিদ বলেছেন, প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা আসিফকে অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রীর পদে নির্বাচিত করা হতে পারে। শেখ রশিদের এএমএল বর্তমান ক্ষমতাসীন জোটের অংশীদার। শনিবারের বৈঠকে তিনি উপস্থিত ছিলেন।

আসিফকে অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত করা হলে পিএমএল-এনের দ্বন্দ্ব হওয়ার আশঙ্কা আছে জানিয়ে শেখ রশিদ বলেন, মনে হচ্ছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ ও অর্থমন্ত্রী ইশাক দার নওয়াজের সুনজরে নেই। নওয়াজের সুনজরে থাকা একজন হলেন স্পিকার সরদার আয়াজ সাদিক। শরিফ পরিবার তাঁকে সমর্থন করে।

গত বছর পানামাভিত্তিক আইনি সেবাপ্রতিষ্ঠান মোসাক ফনসেকার ১ কোটি ১৫ লাখ গোপন নথি প্রকাশ করে। তাতে বিশ্বের বহু ক্ষমতাধর, ধনী ও প্রভাবশালী ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিপুল অর্থ পাচারের অভিযোগ সামনে আসে। এতেই নওয়াজ এবং তাঁর চার ছেলেমেয়ের মধ্যে তিনজনের নাম আসে।

গত এপ্রিলে সুপ্রিম কোর্ট বলেন, নওয়াজকে ক্ষমতা থেকে সরাতে যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ নেই। এ সময় আদালত প্রধানমন্ত্রীকে অপসারণের দাবির পক্ষে তথ্য সংগ্রহ করতে যৌথ তদন্ত দল (জেআইটি) গঠনের আদেশ দেন।

প্রধানমন্ত্রী নওয়াজের পরিবারের বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগের তদন্ত নিয়ে গত সোমবার একটি প্রতিবেদন সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করেছে যৌথ তদন্ত দল। প্রতিবেদন গ্রহণ করেছেন তিন বিচারকের গঠিত বেঞ্চ। পরে পাকিস্তান সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান জাফর হিজাজির বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা চালুর নির্দেশ দেন বেঞ্চ।

কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (এফআইএ) নথিপত্র নষ্টের অভিযোগ উঠেছে হিজাজির বিরুদ্ধে। বিচারপতি শেখ আজমত সাঈদ, বিচারপতি ইজাজুল আহসান ও বিচারপতি এজাজ আফজালের সমন্বয়ে গঠিত ওই বেঞ্চ জেআইটির প্রতিবেদন পরীক্ষার পর নওয়াজ পরিবারের ব্যবসায়িক নথি নষ্ট করার পেছনে কে দায়ী, তা খুঁজে বের করতেই জাফর হিজাজির বিরুদ্ধে ওই মামলা করার নির্দেশ দেন।

পিএমএল-এন এরই মধ্যে প্রতিবেদনের কিছু তথ্য নিয়ে গুরুতর আপত্তি তুলেছে। এটা আদালতই নিষ্পত্তি করবেন। কিন্তু এই প্রতিবেদন নওয়াজ শরিফ ও তাঁর সন্তানদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি গুরুতর ও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ তুলেছে। সাধারণভাবে সন্দেহের এমন কালো মেঘের মধ্যে কোনো গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় একজন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করে যেতে পারেন না।

তথ্যসূত্র: পিটিআই ও জিও টিভি

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X