বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১০:৫২
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Monday, December 5, 2016 5:50 pm | আপডেটঃ December 05, 2016 5:51 PM
A- A A+ Print

নাসিক নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

27

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আজ সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রতীক পেয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী (নৌকা) সেলিনা হায়াৎ আইভী ও বিএনপির প্রার্থী (ধানের শীষ) সাখাওয়াত হোসেন খান। আজ থেকে নারায়ণগঞ্জে আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়েছে। প্রতীক পাওয়ার পর নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া এলাকায় সাংবাদিকদের সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘“নয় শঙ্কা নয় ভয়, শহর হবে শান্তিময়”—এটিই আমি ধারণ করি।’ আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী বলেন, তিনি চান, নারায়ণগঞ্জ সন্ত্রাসের জনপদ হবে না। শান্তির পরিবেশ সব সময় বিরাজ করবে। জনগণের উদ্দেশে তিনি বলেন, তাঁরা অতীতে তাঁর (আইভী) প্রতি আস্থা রেখেছেন। পাশে থেকেছেন। তিনি আশা করেন, এবারও জনগণ তাঁকে ভোট দেবেন। নৌকায় ভোট দিয়ে তাঁকে বিজয়ী করবেন। শুধু দলের লোকজনও নয়, দলের বাইরের লোকজনও তাঁর সঙ্গে আছে। নৌকা প্রতীক হাতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী। ছবি: প্রথম আলো সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘আইভী নৌকা থেকে বিচ্ছিন্ন নয়, নৌকা আইভী থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। জনগণ আইভীর নাড়ির স্পন্দন। জনগণও আইভী ও নৌকা থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। তাই আমরা একসঙ্গে একযোগে কাজ করব। কেউ কারও থেকে ছোট বা বড় নয়। গণরায় অবশ্যই মেনে নেব। গণরায়ে যেটা হবে, সেটাই মেনে নেব।’ প্রতীক বরাদ্দের পর সেলিনা হায়াৎ আইভী তাঁর বাবা প্রয়াত মেয়র আলী আহমেদ চুনকার কবরের কাছে যান। সেখানে তিনি কিছু সময় অবস্থান করেন। বিকেলে ৬ নম্বর ওয়ার্ডে প্রচারণার মাধ্যমে তিনি আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করবেন। সকালে প্রতীক পাওয়ার পর রিটার্নিং কার্যালয়ের কাছে সাংবাদিকদের বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ধানের শীষের প্রতি গণজোয়ার তৈরি হচ্ছে। ধানের শীষ জয়লাভ করবে। তিনি বলেন, বিএনপি জিয়ার আদর্শে গড়া দল। এখন এই দলের নেতৃত্বে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি তাঁকে (সাখাওয়াত) এই প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে বলেছেন। এটি শুধু তাঁর নয়, এটি দলের নির্বাচন। ধানের শীষের নির্বাচন। ধানের শীষ প্রতীক হাতে বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান। ছবি: প্রথম আলো বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান আরও বলেন, তিনি অন্যায়, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। সাত খুন মামলায় তিনি লড়েছেন। নারায়ণগঞ্জের মানুষ তাঁকে চেনে, জানে। সাখাওয়াত হোসেন খান আরও বলেন, ‘আমি যেখানেই যাচ্ছি, জনগণ সুষ্ঠুভাবে ভোট দেওয়ার সুযোগ চায়। আমরা অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড চাই।’ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর প্রতি অভিযোগ ছুড়ে দিয়ে সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ‘পাঁচ থেকে সাত দিন ধরে উনি (আইভী) আচরণবিধির ওপর কোনো প্রকার তোয়াক্কাই করছেন না। তিনি অহরহ আইন ভঙ্গ করছেন। নির্বাচন কমিশন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আমরা কোনো আইন ভঙ্গ করছি না।’ সকাল ১০টা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডে অস্থায়ী কার্যালয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান তালুকদার প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেন। প্রতীক বরাদ্দের পর সেলিনা হায়াৎ আইভী। ছবি: প্রথম আলো নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘মেয়র পদে সাতজন, সাধারণ সদস্য পদে ১৫৬ জন এবং সংরক্ষিত সদস্য পদে ৩৮ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। আমরা প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে প্রচার-প্রচারণা চালানোর জন্য অনুরোধ করছি।’ যদি কোনো প্রার্থী আচরণবিধি ভঙ্গ করেন, তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি হুঁশিয়ার করে দেন। সকালে রিটার্নিং কার্যালয়ে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির মাহবুবুর রহমান ইসমাইল পেয়েছেন কোদাল প্রতীক। লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) কামাল প্রধান পেয়েছেন ছাতা প্রতীক। বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস পেয়েছেন হাতঘড়ি, ইসলামী ঐক্যজোট বাংলাদেশের ইজহারুল হক মিনার ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাসুম বিল্লাহ হাতপাখা প্রতীক পেয়েছেন। আজ সাধারণ ওয়ার্ড ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরদেরও প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। সব মিলে নারায়ণগঞ্জে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ চলছে। প্রতীক বরাদ্দের পর সাখাওয়াত হোসেন খান। ছবি: প্রথম আলো অন্য প্রার্থীদের প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মেয়র প্রার্থী রাশেদ ফেরদৌস হাতঘড়ি প্রতীক পেয়ে বলেন, ‘২০-দলীয় জোটের সিদ্ধান্তকে (বিএনপির প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়া) আমি অবশ্যই শ্রদ্ধা জানাই। কিন্তু ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত যাঁদের ছিল, তাঁরা গাফিলতি করেছেন। তাঁরা আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি। বিশেষ করে বিএনপির প্রার্থী এখন পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি। এ জন্য আমার দলের সাধারণ সম্পাদক দায়ী। তিনি আমাকে এ বিষয়ে কিছু জানাননি। তিনি ২০ ও দলের ক্ষতি করতে চান, আমার ক্ষতি করতে চান।’ লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) মেয়র প্রার্থী কামাল প্রধান বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে এলডিপির অবস্থানটা কী? কর্নেল অলির অবস্থান কী? কামাল প্রধানের অবস্থানটা কী? এটা আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী জানি। কেন্দ্রে যাঁরা থাকেন, তাঁরা জানেন না।’

Comments

Comments!

 নাসিক নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দAmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নাসিক নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

Monday, December 5, 2016 5:50 pm | আপডেটঃ December 05, 2016 5:51 PM
27

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আজ সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রতীক পেয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী (নৌকা) সেলিনা হায়াৎ আইভী ও বিএনপির প্রার্থী (ধানের শীষ) সাখাওয়াত হোসেন খান।

আজ থেকে নারায়ণগঞ্জে আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার শুরু হয়েছে। প্রতীক পাওয়ার পর নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া এলাকায় সাংবাদিকদের সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘“নয় শঙ্কা নয় ভয়, শহর হবে শান্তিময়”—এটিই আমি ধারণ করি।’

আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী বলেন, তিনি চান, নারায়ণগঞ্জ সন্ত্রাসের জনপদ হবে না। শান্তির পরিবেশ সব সময় বিরাজ করবে। জনগণের উদ্দেশে তিনি বলেন, তাঁরা অতীতে তাঁর (আইভী) প্রতি আস্থা রেখেছেন। পাশে থেকেছেন। তিনি আশা করেন, এবারও জনগণ তাঁকে ভোট দেবেন। নৌকায় ভোট দিয়ে তাঁকে বিজয়ী করবেন। শুধু দলের লোকজনও নয়, দলের বাইরের লোকজনও তাঁর সঙ্গে আছে।

নৌকা প্রতীক হাতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী। ছবি: প্রথম আলো

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘আইভী নৌকা থেকে বিচ্ছিন্ন নয়, নৌকা আইভী থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। জনগণ আইভীর নাড়ির স্পন্দন। জনগণও আইভী ও নৌকা থেকে বিচ্ছিন্ন নয়। তাই আমরা একসঙ্গে একযোগে কাজ করব। কেউ কারও থেকে ছোট বা বড় নয়। গণরায় অবশ্যই মেনে নেব। গণরায়ে যেটা হবে, সেটাই মেনে নেব।’

প্রতীক বরাদ্দের পর সেলিনা হায়াৎ আইভী তাঁর বাবা প্রয়াত মেয়র আলী আহমেদ চুনকার কবরের কাছে যান। সেখানে তিনি কিছু সময় অবস্থান করেন। বিকেলে ৬ নম্বর ওয়ার্ডে প্রচারণার মাধ্যমে তিনি আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করবেন।

সকালে প্রতীক পাওয়ার পর রিটার্নিং কার্যালয়ের কাছে সাংবাদিকদের বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ধানের শীষের প্রতি গণজোয়ার তৈরি হচ্ছে। ধানের শীষ জয়লাভ করবে। তিনি বলেন, বিএনপি জিয়ার আদর্শে গড়া দল। এখন এই দলের নেতৃত্বে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি তাঁকে (সাখাওয়াত) এই প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে বলেছেন। এটি শুধু তাঁর নয়, এটি দলের নির্বাচন। ধানের শীষের নির্বাচন।

ধানের শীষ প্রতীক হাতে বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান। ছবি: প্রথম আলো

বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন খান আরও বলেন, তিনি অন্যায়, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। সাত খুন মামলায় তিনি লড়েছেন। নারায়ণগঞ্জের মানুষ তাঁকে চেনে, জানে।

সাখাওয়াত হোসেন খান আরও বলেন, ‘আমি যেখানেই যাচ্ছি, জনগণ সুষ্ঠুভাবে ভোট দেওয়ার সুযোগ চায়। আমরা অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড চাই।’

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর প্রতি অভিযোগ ছুড়ে দিয়ে সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ‘পাঁচ থেকে সাত দিন ধরে উনি (আইভী) আচরণবিধির ওপর কোনো প্রকার তোয়াক্কাই করছেন না। তিনি অহরহ আইন ভঙ্গ করছেন। নির্বাচন কমিশন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আমরা কোনো আইন ভঙ্গ করছি না।’

সকাল ১০টা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডে অস্থায়ী কার্যালয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান তালুকদার প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেন।

প্রতীক বরাদ্দের পর সেলিনা হায়াৎ আইভী। ছবি: প্রথম আলো

নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘মেয়র পদে সাতজন, সাধারণ সদস্য পদে ১৫৬ জন এবং সংরক্ষিত সদস্য পদে ৩৮ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। আমরা প্রার্থীদের আচরণবিধি মেনে প্রচার-প্রচারণা চালানোর জন্য অনুরোধ করছি।’ যদি কোনো প্রার্থী আচরণবিধি ভঙ্গ করেন, তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি হুঁশিয়ার করে দেন।

সকালে রিটার্নিং কার্যালয়ে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির মাহবুবুর রহমান ইসমাইল পেয়েছেন কোদাল প্রতীক। লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) কামাল প্রধান পেয়েছেন ছাতা প্রতীক। বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস পেয়েছেন হাতঘড়ি, ইসলামী ঐক্যজোট বাংলাদেশের ইজহারুল হক মিনার ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাসুম বিল্লাহ হাতপাখা প্রতীক পেয়েছেন।

আজ সাধারণ ওয়ার্ড ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরদেরও প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। সব মিলে নারায়ণগঞ্জে এখন উৎসবমুখর পরিবেশ চলছে।

প্রতীক বরাদ্দের পর সাখাওয়াত হোসেন খান। ছবি: প্রথম আলো

অন্য প্রার্থীদের প্রতিক্রিয়া
বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মেয়র প্রার্থী রাশেদ ফেরদৌস হাতঘড়ি প্রতীক পেয়ে বলেন, ‘২০-দলীয় জোটের সিদ্ধান্তকে (বিএনপির প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়া) আমি অবশ্যই শ্রদ্ধা জানাই। কিন্তু ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত যাঁদের ছিল, তাঁরা গাফিলতি করেছেন। তাঁরা আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি। বিশেষ করে বিএনপির প্রার্থী এখন পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি। এ জন্য আমার দলের সাধারণ সম্পাদক দায়ী। তিনি আমাকে এ বিষয়ে কিছু জানাননি। তিনি ২০ ও দলের ক্ষতি করতে চান, আমার ক্ষতি করতে চান।’

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) মেয়র প্রার্থী কামাল প্রধান বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে এলডিপির অবস্থানটা কী? কর্নেল অলির অবস্থান কী? কামাল প্রধানের অবস্থানটা কী? এটা আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী জানি। কেন্দ্রে যাঁরা থাকেন, তাঁরা জানেন না।’

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X