মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রাত ১:৫৫
শিরোনাম
  • ঘৃণাকে বিজয়ী হতে দেয়া যাবে না, ট্রাম্পকে ইঙ্গিত করে জর্জ ক্লুনি
  • আমার একটাই চিন্তা দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা: প্রধানমন্ত্রী
  • ‘কেন্দ্রীয় সরকারের আগ্রাসী নীতির কারণে কাশ্মীরকে হারাতে হবে’
  • সাড়ে চারমাস পর মুখোমুখি, খাদিজাকে উদ্দেশ্য করে যা বলল বদরুল
  • খালেদার ‘সাজা’ বিরোধী নেতাকর্মীদের মনোবল ভাঙ্গার কৌশল!
  • বিএনপির কর্মসূচি ‘যথাসময়ে’ জানানো হবে: রিজভী
  • দলের জন্য বোলিং করতেও রাজি মুশফিক
  • শিশু জিহাদের মৃত্যু: চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড
  • অবশেষে বাড়ি অবরুদ্ধ করে রাখা সেই দেয়াল ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে
  • সাক্ষ্য দিলেন খাদিজা, চাইলেন বদরুলের সর্বোচ্চ শাস্তি
  • বদরুলের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে আদালতে খাদিজা
  • আজ বগুড়ায় যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গা স্থানান্তরের সরকারি পরিকল্পনার সঙ্গে দ্বিমত মানবাধিকার কমিশনের
  • মহেশখালীতে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধ’
  • হোয়াইট হাউসে কাজ করার দীর্ঘ অভিজ্ঞতার কথা জানালেন এই বাংলাদেশি সাংবাদিক
Friday, January 6, 2017 12:10 pm
A- A A+ Print

নিউজিল্যান্ডে ‘আত্মহত্যা’ টাইগারদের!

15

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষ্যে দ্বিতীয় টি-২০তে সিরিজে সমতায় ফেরার লক্ষ্যে ১৯৬ রানের টার্গেটে ৪৭ রানের বড় পরাজয় টাইগারদের। নিউজিল্যান্ডের দেয়া ১৯৬ রানের টার্গেটে শুরুতেই উইকেট হারায় টাইগাররা। নির্ধারিত ওভার শেষ হওয়ার ২ ওভার আগেই সকল উইকেল হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৪৮। দলীয় ২ রানেই প্রথম উইকেটের পতন ঘটে বাংলাদেশের। স্যন্টনারের বলে ব্রুসের হাতে ক্যাচ দিয়ে (০) রানে ফিরেন ইমরুল কায়েস। এরপর সাব্বির রহমানের সাথে ৩২ রানের জুটি গড়ার পর দূর্ভাগ্যজনক রানআউটের শিকার হন তামিম ইকবাল (১৩)। ক্রিজে এসেই মাত্র ১ রান করে ফিরে যান বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ৩৬ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে টেনে তোলার দায়িত্ব নেন সৌম্য সরকার এবং সাব্বির রহমান। অনেকদিন পর ব্যাটিং ঝলক দেখা গেল সৌম্য সরকারের ব্যাটে। দারুণ ব্যাট চালিয়ে একসময় বড় ইনিংসের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। তবে ২৬ বলে ৩ চার এবং ২ ছক্কায় ৩৯ রান করে ট্রেন্ট বোল্টের বলে মুনরোর হাতে ধরা পড়েন তিনি। এরপর ৩১ বলে ৩ চার ও ৩ ছক্কায় ৪৮ রানের ইনিংসটি শেষ হয় টিম সাউদির বলে বোল্টের হাফসেঞ্চুরি থেকে বঞ্চিত হন সাব্বির রহমানও। চাপ বেড়ে যায় যখন মাত্র ১ রান করে ফিরে যান মোসাদ্দেক হোসেন। দলের ষষ্ঠ উইকেট পতনের পর উইকেটকিপার নুরুল হাসানকে নিয়ে লড়াই করতে থাকেন মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ। কিন্তু ১৫ বলে ১৯ রান করে টিম সাউদির বলে হতাশাজনক এক শট খেলে গ্র্যান্ডহোমের হাতে ধরা পড়েন তিনি। এরপর শুধু ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিল। যে কারণে ১৪৮ রানেই শেষ হয় টাইগারদের ইনিংস। আর আগে, টসে হেরে মাশরাফির আমন্ত্রনে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৯৫ রান সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা। মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের বে ওভারে ব্যাট করতে নেমে টাইগার বোলারদের তোপের মুখে পড়ে স্বাগতিকরা। তবে মুনরোকে আটকানো সম্ভব হয়নি। বিধ্বংসী এই ব্যাটসম্যানের দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে ভর করে বাংলাদেশকে কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে নিউজিল্যান্ড। লুক রঞ্চিকে ইনিংসের প্রথম বলেই ফিরিয়ে ভালো কিছুর আভাস দিয়েছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি। তার বল তুলে মারতে গিয়ে মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে ক্যাচ দেন রঞ্চি। এরপর ৪২ রানের জুটি গড়ে কেন উইলিয়ামসন এবং কলিন মুনরো। তবে সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণিতে তামিম ইকবালের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান কিউই অধিনায়ক উইলিয়ামসন (১২)। স্কোরবোর্ডে ৪ রান যোগ না হতেই আঘাত হানেন তরুণ তুর্কী মোসাদ্দেক হোসেন। মোসাদ্দেকের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে যান নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে আসা কোরি অ্যান্ডারসন (৪)। দ্রুত উইকেট পতনের মধ্যেই ঝড়ো গতিতে ব্যাট চালিয়ে ৫২ বলে ৭ চার এবং ৭ ছক্কায় সেঞ্চুরি তুলে নেন কলিন মুনরো। তার ইনিংসে ভর করেই বিশাল স্কোর গড়ে কিউইরা। সেঞ্চুরি করার পরপরই তিনি রুবেল হোসেনের বলে উইকেট কিপার নুরুল হাসানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন। দুই বল পরেই গ্র্যান্ডহোমকে (২) ফেরান রুবেল। তবে এর মধ্যেই ৩২ বলে ৪ বাউন্ডারি এবং ১ ওভার বাউন্ডারিতে হাফসেঞ্চুরি তুলেন নেন টম ব্রুস। শেষ পর্যন্ত তিনি ৫৯ রানে অপরাজিত থাকেন। রুবেলের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন জেমস নিশাম (৫)। এরপর মিচেল স্যান্টনারকে আউট করাতেও রুবেলের সম্পূর্ণ ক্রেডিট আছে। তবে সেটা ছিল রানআউট। মুস্তাফিজ কোনো উইকেট পাননি। ২ ওভারে ৩২ রান দিয়ে সবচেয়ে খরুচে বোলার মাহমুদ উল্লাহ। অন্যদিকে ৩ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সফল বোলার রুবেল।
 

Comments

Comments!

 নিউজিল্যান্ডে ‘আত্মহত্যা’ টাইগারদের!AmarbangladeshonlineAmarbangladeshonline | Amarbangladeshonline

নিউজিল্যান্ডে ‘আত্মহত্যা’ টাইগারদের!

Friday, January 6, 2017 12:10 pm
15

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষ্যে দ্বিতীয় টি-২০তে সিরিজে সমতায় ফেরার লক্ষ্যে ১৯৬ রানের টার্গেটে ৪৭ রানের বড় পরাজয় টাইগারদের।

নিউজিল্যান্ডের দেয়া ১৯৬ রানের টার্গেটে শুরুতেই উইকেট হারায় টাইগাররা। নির্ধারিত ওভার শেষ হওয়ার ২ ওভার আগেই সকল উইকেল হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১৪৮।

দলীয় ২ রানেই প্রথম উইকেটের পতন ঘটে বাংলাদেশের। স্যন্টনারের বলে ব্রুসের হাতে ক্যাচ দিয়ে (০) রানে ফিরেন ইমরুল কায়েস।

এরপর সাব্বির রহমানের সাথে ৩২ রানের জুটি গড়ার পর দূর্ভাগ্যজনক রানআউটের শিকার হন তামিম ইকবাল (১৩)।

ক্রিজে এসেই মাত্র ১ রান করে ফিরে যান বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ৩৬ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে টেনে তোলার দায়িত্ব নেন সৌম্য সরকার এবং সাব্বির রহমান। অনেকদিন পর ব্যাটিং ঝলক দেখা গেল সৌম্য সরকারের ব্যাটে। দারুণ ব্যাট চালিয়ে একসময় বড় ইনিংসের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন।

তবে ২৬ বলে ৩ চার এবং ২ ছক্কায় ৩৯ রান করে ট্রেন্ট বোল্টের বলে মুনরোর হাতে ধরা পড়েন তিনি।

এরপর ৩১ বলে ৩ চার ও ৩ ছক্কায় ৪৮ রানের ইনিংসটি শেষ হয় টিম সাউদির বলে বোল্টের হাফসেঞ্চুরি থেকে বঞ্চিত হন সাব্বির রহমানও।

চাপ বেড়ে যায় যখন মাত্র ১ রান করে ফিরে যান মোসাদ্দেক হোসেন।

দলের ষষ্ঠ উইকেট পতনের পর উইকেটকিপার নুরুল হাসানকে নিয়ে লড়াই করতে থাকেন মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ।

কিন্তু ১৫ বলে ১৯ রান করে টিম সাউদির বলে হতাশাজনক এক শট খেলে গ্র্যান্ডহোমের হাতে ধরা পড়েন তিনি।

এরপর শুধু ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিল। যে কারণে ১৪৮ রানেই শেষ হয় টাইগারদের ইনিংস।

আর আগে, টসে হেরে মাশরাফির আমন্ত্রনে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৯৫ রান সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা।

মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের বে ওভারে ব্যাট করতে নেমে টাইগার বোলারদের তোপের মুখে পড়ে স্বাগতিকরা। তবে মুনরোকে আটকানো সম্ভব হয়নি।

বিধ্বংসী এই ব্যাটসম্যানের দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে ভর করে বাংলাদেশকে কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

লুক রঞ্চিকে ইনিংসের প্রথম বলেই ফিরিয়ে ভালো কিছুর আভাস দিয়েছিলেন অধিনায়ক মাশরাফি। তার বল তুলে মারতে গিয়ে মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে ক্যাচ দেন রঞ্চি।

এরপর ৪২ রানের জুটি গড়ে কেন উইলিয়ামসন এবং কলিন মুনরো। তবে সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণিতে তামিম ইকবালের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান কিউই অধিনায়ক উইলিয়ামসন (১২)।

স্কোরবোর্ডে ৪ রান যোগ না হতেই আঘাত হানেন তরুণ তুর্কী মোসাদ্দেক হোসেন। মোসাদ্দেকের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে যান নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে আসা কোরি অ্যান্ডারসন (৪)।

দ্রুত উইকেট পতনের মধ্যেই ঝড়ো গতিতে ব্যাট চালিয়ে ৫২ বলে ৭ চার এবং ৭ ছক্কায় সেঞ্চুরি তুলে নেন কলিন মুনরো। তার ইনিংসে ভর করেই বিশাল স্কোর গড়ে কিউইরা।

সেঞ্চুরি করার পরপরই তিনি রুবেল হোসেনের বলে উইকেট কিপার নুরুল হাসানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন। দুই বল পরেই গ্র্যান্ডহোমকে (২) ফেরান রুবেল।

তবে এর মধ্যেই ৩২ বলে ৪ বাউন্ডারি এবং ১ ওভার বাউন্ডারিতে হাফসেঞ্চুরি তুলেন নেন টম ব্রুস। শেষ পর্যন্ত তিনি ৫৯ রানে অপরাজিত থাকেন। রুবেলের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন জেমস নিশাম (৫)।

এরপর মিচেল স্যান্টনারকে আউট করাতেও রুবেলের সম্পূর্ণ ক্রেডিট আছে। তবে সেটা ছিল রানআউট। মুস্তাফিজ কোনো উইকেট পাননি। ২ ওভারে ৩২ রান দিয়ে সবচেয়ে খরুচে বোলার মাহমুদ উল্লাহ। অন্যদিকে ৩ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সফল বোলার রুবেল।

 

Comments

comments

সম্পাদক : মোহাম্মদ আবদুল বাছির
প্রকাশক: মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম
ফোন : ‎০১৭১৩৪০৯০৯০
৩৪৫/১, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন, ঢাকা-১০০০
X
 
নিয়মিত খবর পড়তে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন
X